পরীক্ষার নামে হলেও আসল উদ্দেশ্য ভক্ষণ ? ফের বাণিজ্যিক তিমি-নিধন হবে জাপানে

238

জাপানে আবার শুরু করা হবে বাণিজ্যিক তিমি শিকার | ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই আন্তর্জাতিক সমালোচনার মুখে পড়েছে জাপানের এই সিদ্ধান্ত |

জাপানের সরকারি মুখপাত্র ইয়োশিহিদে সুগা জানান পরের বছরের জুলাই থেকেই বাণিজ্যিক তিমি শিকারের কাজ শুরু করা হবে | জাপানের একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের চৌহদ্দির মধ্যেই এই শিকার সীমাবদ্ধ থাকবে‚ আন্টার্কটিক অঞ্চলে শিকার করা হবে না বলেও জানানো হয়েছে | আরও জানানো হয়েছে এই বছরের শেষে সরকারিভাবে আই.ডব্লিউ.সি  কে এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হবে | আগামী বছরের জুলাইয়ের ৩০ তারিখ থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর হবে |

বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা নিরীক্ষার নামে টোকিও কয়েকশো বছর ধরে তিমি নিধনের কাজ চালিয়ে এসেছে | ১৯৪৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ইন্টারন্যাশনাল হোয়েলিং কমিশন তিমি সংরক্ষণের কাজ শুরু করে | এই কমিশনের শীর্ষস্থানীয় সদস্য অস্ট্রেলিয়া | এছাড়াও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও ইউনাইটেড স্টেটস এই কমিশনের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য | আইসল্যাণ্ড এবং নরওয়ের মত তিমি সংরক্ষণ কার্যাবলীকে রীতিমত বুড়ো আঙুল দেখিয়ে এই চুক্তি থেকে বিদায় নিচ্ছে জাপানও | অর্থাৎ মিঙ্কস এবং অন্যান্য যেসব প্রজাতির তিমির সংরক্ষণের প্রচেষ্টা করছে আই ডব্লিউ সি ‚ জাপানের সমুদ্রাঞ্চল থেকে সেই সব প্রজাতির তিমি শিকার করা হবে | 

জাপানে তিমি শিকারের ঐতিহ্য বহুদিনের | দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে জাপানে গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য ছিল তিমি | প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবের  লিবারাল ডেমোক্রেটিক পার্টির অনেক সদস্যই তিমি শিকারের পক্ষে | ইয়োশিহিদে সুগার মতেও‚ তিমি শিকার আবার শুরু হলে জাপানে তিমি শিকারের সমৃদ্ধশালী ঐতিহ্যকে মৎস্যজীবীরা নিজেদের পরবর্তী প্রজন্মের  কাছে পৌঁছে দিতে পারবে |

এই ঘোষণার আন্তর্জাতিক প্রতিবাদ করা হচ্ছে | অনেকেই মনে করছেন বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা নিরীক্ষার অজুহাতে তিমি নিধন করে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে খাবারের টেবিলে | কিন্তু জাপান সরকারের মতে তিমি এখন আর ততখানি বিরল নয় | শিকারের জন্য যথেষ্ট পরিমাণ তিমি মজুত আছে | 

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.