জানুন পরিচিত এই পাতার অপরিচিত উপকারিতা!

2860

মুড়ি মাখা থেকে তরকারি, ফুচকা থেকে ডাল। আবার দেশীয় চাটনি থেকে মেক্সিকান সালসা সবেতেই এক আলাদা মাত্রা এনে দেয় ধনেপাতা। অতি পরিচিত এই পাতার রয়েছে অপরিচিত উপকারিতা। শুধু স্বাদের মাত্রা বাড়াতেই নয় জেনে রাখুন ধনেপাতাতে থাকা অসাধারণ স্বাস্থ্য-উপকারিতা সম্বন্ধে।

ধনে পাতাতে আছে ১১ টি এসেনশিয়াল অয়েল, ৬ ধরণের অ্যাসিড (অ্যাসকরবিক অ্যাসিড যা ভিটামিন ‘সি’ নামেই বেশি পরিচিত), ভিটামিন, মিনারেল এবং অন্যান্য উপকারী পদার্থ সহ ফাইবার, ম্যাংগানিজ, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, ভিটামিন ‘এ’, ভিটামিন ‘সি’, ভিটামিন ‘কে’, ফসফরাস, ক্লোরিন এবং প্রোটিন।

এবার জানুন সাধারণ এই পাতার অসাধারণ উপকারিতা

১) হজমে উপকার করে এবং যকৃতকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে, পেট পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

২) ধনে পাতায় থাকা অ্যান্টি-সেপটিক মুখে আলসার নিরাময়ে উপকারী, চোখের জন্যেও ভাল।

৩) ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্যে ধনে পাতা বিশেষ উপকারী। ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং রক্তের সুগারের মাত্রা কমায়।

৪) ঋতুস্রাবের সময় রক্তসঞ্চানল ভাল হওয়ার জন্যে ধনে পাতা খেলে উপকার পাওয়া যায়। এতে থাকা আয়রন রক্তশূন্যতা কমাতেও বেশ উপকারী।

৫) ধনে পাতার ভিটামিন ‘কে’ অ্যালঝেইমার রোগের চিকিৎসায় বেশ কার্যকরী।

৬) বিভিন্ন স্কিন ডিজঅর্ডার বা ত্বকের অসুস্থতা (একজিমা, ত্বকের শুষ্কতা এবং ফাঙ্গাল ইনফেকশন) কমাতে সাহায্য করে। ত্বক সুস্থ ও সতেজ রাখতে তাই ধনে পাতার উপকারিতা অনেক।

৭) মুখে যদি দুর্গন্ধ হয় ও অরুচি লাগে তাহলে ধনেপাতা মাঝে মাঝে চিবিয়ে খান মুখে দুর্গন্ধ থাকবে না। এক্ষেত্রে আপনি ধনে বীজও ব্যবহার করতে পারেন। সেক্ষেত্রে ধনে বীজ টি শুকনো করে ভেজে খেতে হবে।

৮) ধনে পাতার ফ্যাট স্যলুবল ভিটামিন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ভিটামিন ‘এ’ ফুসফুস এবং পাকস্থলীর ক্যান্সার প্রতিরোধে কাজ করে।

৯) ক্যালসিয়াম আয়ন এবং কলিনার্জিক বা অ্যাসেটিকোলিন উপাদান মিলে আমাদের শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে।

১০) ধনে পাতায় উপস্থিত ডডেসিনাল উপাদান প্রাকৃতিক উপায়ে সালমোনেলা জাতীয় রোগ সারিয়ে তুলতে অ্যান্টিবায়টিকের থেকে দ্বিগুণ কার্যকর।

১১) ধনেপাতায় থাকা অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল, অ্যান্টিইনফেকসাস, ডিটক্সিফাইং, ভিটামিন ‘সি’ এবং আয়রন গুটিবসন্ত প্রতিকার এবং প্রতিরোধ করে।

১২) প্রাকৃতিক ব্লিচ হিসেবে ধনে পাতা দারুন কার্যকর। ঠোঁটে কালো দাগ থাকলে রোজ রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ধনে পাতার রসের সঙ্গে দুধের সর মিশিয়ে ঠোঁটে লাগান।  এক মাস ব্যবহার ঠোঁটের কালো দাগ দূর হবে আর ঠোঁট কোমলও হবে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.