চোখের অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পেতে জেনে রাখুন এই ঘরোয়া পদ্ধতিগুলি!

3687

শরীরের সবচেয়ে সংবেদনশীল অংশ চোখ। তবে অনেকেই ত্বকের অ্যালার্জির মত চোখের অ্যালার্জিতেও আক্রান্ত হন। যখন শরীরের ইমিউন সিস্টেমে কোনও ধরনের সমস্যা দেখা দেয় তখন শরীরে অ্যালার্জির সমস্যা বাড়তে থাকে। দূষণজনিত কারণে বা হাইজিন বজায় না রাখলে চোখে অ্যালার্জির আক্রমণ হতে পারে। হাঁপানি রোগী, ধোঁয়া, ক্লোরিন, কসমেটিকস, পারফিউম ইত্যাদি চোখের অ্যালার্জির জন্য দায়ী। শুনে হয়ত অবাক হবেন যে মাথায় খুশকির সমস্যা থাকলেও চোখের অ্যালার্জিতে আপনি আক্রান্ত হতে পারেন।

আপনি কীভাবে বুঝবেন আপনার চোখ অ্যালার্জি-তে আত্রান্ত। যদি আপনার চোখ লাল হয়ে যায়, অথবা হঠাত্ করেই চোখ চুলকাতে শুরু হয় তারসঙ্গে অনবরত জল পড়তে থাকে তবে জানবেন আপনার চোখ অ্যালার্জিতে আক্রান্ত। এছাড়া চোখের ভেতর কিছু ময়লা পড়েছে এমন বোধ হওয়া বা হঠাত্ করেই চোখ ফুলে গেলেও, অ্যালার্জি হতে পারে। তবে এই সমস্যার থেকে দ্রুত ও সহজ উপায়ে কিছু সাধারণ কাজের মাধ্যমে মুক্তি পেতে পারেন। তবে চলুন তাহলে জেনে নেয়া যাক কীভাবে সারিয়ে তুলবেন চোখের এই সমস্যা।

# চোখের অ্যালার্জি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য পরিষ্কার ঠান্ডা জলের কথা সকলেরই জানা। চোখে চুলকানি হলে বা লাল হয়ে গেলে বারবার ঠাণ্ডা জল দিয়ে চোখ ধুঁয়ে ফেলুন, অনেক আরাম পাবেন।

# চোখের অ্যালার্জির সমস্যা রোধ করার জন্য দুধ খুব উপকারী। কিছুটা ঠাণ্ডা দুধে একটি কটন বল ভিজিয়ে চোখের চারপাশে হালকা করে ঘষুন। চাইলে কটন দুধে ভিজিয়ে চোখের ওপরে কিছুক্ষণ দিয়ে রাখতে পারেন। চোখের চুলকানি সমস্যায় প্রতিদিন সকালে ও সন্ধ্যায় ২ বার করে এই পদ্ধতিটি মেনে চললে চোখের ইনফেকশন অনেক কমে আসবে।

# খাঁটি গোলাপজ্বল চোখের চুলকানি সমস্যা রোধ করতে খুব সহায়ক। এটি চোখকে শীতল ও ঠাণ্ডা করে এবং সমস্যা রোধ করে। প্রতিদিন ২ বার গোলাপজ্বল দিয়ে আপনার চোখ ধুয়ে নিন। ২-৩ ফোঁটা গোলাপ জল অ্যালার্জি আক্রান্ত চোখে দিয়ে কিছুক্ষণের জন্য চোখ বন্ধ করে রাখুন। দেখবেন ধীরে ধীরে ইনফেকশন অনেক কমে আসবে।

# ১ চা চামচ লবণ এক গ্লাস জলে দিয়ে ২০ মিনিট ফুটিয়ে নিন। তারপর ঠাণ্ডা হলে এক টুকরো পরিষ্কার তুলো দিয়ে চোখ মুছে নিন। এরফলে চোখে থাকা ময়লা বের হয়ে আসবে। এর ফলে চোখে চুলকানি আর অস্বস্তি থেকে আপনি মুক্তি পাবেন।

# এছাড়া ১চামচ আমলকির গুঁড়োর সঙ্গে মধু মিশিয়ে প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে খেয়ে নিন। এতে আপনার শরীরের ইমিউন সিস্টেমের উন্নতি হবে। ইমিউন সিস্টেমের উন্নতির হলে আপনার শরীরে যে কোনও ধরণের অ্যালার্জি কমে আসবে।

তবে অবশ্যই মনে রাখবেন, যদি চোখের সমস্যা খুব খারাপ আঁকার ধারণ করে থাকে তাহলে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেবেন।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.