উত্তর কলকাতায় বসবাস ? তবে রোজ ২২ টা সিগারেটের ধোঁয়া পান করে থাকেন‚ জানেন কি ?

উত্তর কলকাতায় বসবাস ? তবে রোজ ২২ টা সিগারেটের ধোঁয়া পান করে থাকেন‚ জানেন কি ?

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

একটা সময় ছিল যখন চিকিৎসকরা সকালের নির্ভেজাল নির্মল বাতাস গ্রহণ করার পরামর্শ দিতেন । কিন্তু বর্তমান পরিস্থিতি সম্পূর্ণ আলাদা । বাতাসে বিষবাষ্পের প্রভাবে সকালের বাতাস দিনের অন্যান্য সময়ের থেকে বেশি দূষিত বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সপ্তাহের কাজের দিনগুলোয় সকালে উত্তর কলকাতায় মানুষ প্রতিদিন যে পরিমাণ দূষিত বাতাস নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের সঙ্গে গ্রহণ করেন তা নাকি দিনে ২২ বার ধূমপান করলে শরীরের যা ক্ষতি হয়, তার সমান । বাতাসে ভারী বস্তুকণার অবস্থানের জন্য ঘটতে পারে মারাত্মক দীর্ঘস্থায়ী ক্ষতি । বিশেষজ্ঞদের কথায় দিনে নূন্যতম ২২ বার ধূমপানের ফলে ফুসফুসের যে পরিমাণ ক্ষতি হয় আজকের দিনের বায়ু কিন্তু ঠিক ততটাই দূষিত ।

সাম্প্রতিককালে বেশ কয়েক বছরে বাতাসে ধূলিকণার পরিমাণ ২.৫ কাউন্টের কাছেকাছি । যা মোটামুটিভাবে প্রায় ১৮ বার ধূমপান করলে ফুসফুসের যে পরিমাণ ক্ষতি হয় তার থেকে কোনও অংশে কম নয়। যদিও সিগারেটের বাক্সের গায়ে ধূমপানের সতর্কীকরণ বিধি উল্লেখ করা থাকলেও বাইরেরে মুক্ত বাতাসের ওপর কোনও সতর্কীকরণ বিধি না থাকায় আমরা এই ক্ষতির দিকে বেশি গুরুত্ব দিই না। বিশেষজ্ঞদের মনে বাতাসের এই ধূলিকণার পরিমাণ যদি ২.৫ কাউন্ট হয় এবং দিনের পর দিন এই ধরনের দূষিত বাতাস যদি নিয়মিত কেউ গ্রহণ করে তাহলে এই সূক্ষ্ম ধূলিকণাগুলি ফুসফুসের মধ্যে দিয়ে প্রবেশ করে রক্তের সঙ্গে মিশে গিয়ে নানারকম জটিল অসুখ সৃষ্টি করে, যা একটা সুদূরপ্রসারী প্রভাব রয়েছে, এবং যার জেরে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার একটা সম্ভাবনা থেকেই যায়।

বাতাসে এই ধূলিকণার পরিমাণ ২.৫ কাউন্ট এমন একটা পরিমাপ যা বিপদ-সীমার একেবারে কাছাকাছি। এবং এর জন্য হৃদযন্ত্রের ক্ষতির পাশাপাশি স্ট্রোক, ফুসফুসের ক্যান্সার, শ্বাসযন্ত্রের সংক্রমণ প্রভৃতির আশঙ্কা থেকেই যায়।

বিশেষজ্ঞদের মত‚ ডানলপ, শ্যামবাজার, শিয়ালদহ, মৌলালি, ধর্মতলা এবং টালিগঞ্জ চত্ত্বরে যেখানে প্রতিনিয়ত ট্রাফিক জট লেগেই থাকে, সেই সমস্ত জায়গায় বিপদ আরও বেশি । প্রত্যেকদিন প্রায় কয়েক হাজার মানুষ এইসমস্ত জায়গায় যাতায়াত করেন ।ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলে একটি স্বয়ংক্রিয় বাতাসের ধূলিকণা পরিমাপের যন্ত্র রয়েছে, যার সাহায্যে প্রতিদেনের রিডিং সংগ্রহ করা হয় ।

তবে শুধুমাত্র উত্তর কলকাতায় নয়, বরং বলা চলে সারা কলকাতা শহরই এই কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে বলেই জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা । শুধু তাই নয়, বুধবারের ছবিটা ছিল আরও ভয়ঙ্কর । কলকাতার আকাশ ঢেকে গিয়েছিল ধূসর ধোঁয়ার চাদরে । এতে করে অদূর ভবিষ্যতে মানুষের গড় আয়ু কমে আসার সতর্কবাণী জারি করছেন বিশেষজ্ঞরা । 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

pandit ravishankar

বিশ্বজন মোহিছে

রবিশঙ্কর আজীবন ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের প্রতি থেকেছেন শ্রদ্ধাশীল। আর বারে বারে পাশ্চাত্যের উপযোগী করে তাকে পরিবেশন করেছেন। আবার জাপানি সঙ্গীতের সঙ্গে তাকে মিলিয়েও, দুই দেশের বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলিত ব্যবহার করে নিরীক্ষা করেছেন। সারাক্ষণ, সব শুচিবায়ু ভেঙে, তিনি মেলানোর, মেশানোর, চেষ্টার, কৌতূহলের রাজ্যের বাসিন্দা হতে চেয়েছেন। এই প্রাণশক্তি আর প্রতিভার মিশ্রণেই, তিনি বিদেশের কাছে ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের মুখ। আর ভারতের কাছে, পাশ্চাত্যের জৌলুসযুক্ত তারকা।