ভুল স্বীকার করে জরিমানা দিতে বাধ্য হলেন শর্মিলা ঠাকুরের জামাতা

ভুল স্বীকার করে জরিমানা দিতে বাধ্য হলেন শর্মিলা ঠাকুরের জামাতা

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

কোনও নাগরিকই আইনের ঊর্ধ্বে নন | চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল মুম্বই পুলিশ | জরিমানার চালান ধরাল অভিনেতা কুণাল খেমুকে | সেইসঙ্গে দোষ স্বীকার করে দুঃখ প্রকাশেও বাধ্য করল বেগম সাহিবার জামাই বাবাজীবনকে |

ঘটনার সূত্রপাত একটি ছবি ঘিরে | সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছিলেন কুণাল নিজেই | সেখানে দেখা যাচ্ছিল বাইক চালাচ্ছেন তিনি | কিন্তু হেলমেট নেই মাথায় | 

ছবিটির সঙ্গে কুণাল লেখেন তিনি এই ঘটনার জন্য দুঃখিত | লজ্জাজনক এই ছবির মাধ্যমে কোনও ভুল বার্তা তিনি পাঠাতে চান না |

“I have seen this picture out there and honestly it’s very embarrassing given I love bikes and ride regularly and always with a helmet and some more gear but whether it’s a long ride or just next door a helmet should always be worn.apologies I don’t want to set the wrong example!”

কিন্তু নরম কথায় চিঁড়ে ভেজেনি | এক ঘণ্টার মধ্যে আসে পাল্টা ট্যুইট | মুম্বই পুলিশের তরফে | সেই বার্তায় মিশে ছিল প্রচ্ছন্ন শাস্তি এবং সতর্কতার সুর | ট্যুইট-বার্তায় বলা হয়‚  আপনি বাইক ভালবাসেন | আমরা ভালবাসি সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা | আশা করি‚ অনুশোচনায় দুর্ঘটনা এড়ানো যাবে |  বার্তার শেষে এও বলা হয় জরিমানার ই-চালান তাঁকে পাঠানো হয়েছে |

জরিমানা ছিল ৫০০ টাকার | সেটা দিয়ে দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চেয়েছেন কুণাল | বলেছেন‚তিনি মুম্বই পুলিশের বার্তার সঙ্গে সহমত | ভুলস্বীকার করায় তাঁকে পাল্টা ধন্যবাদও জানিয়েছে পুলিশ | 

সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রশংসা করা হয়েছে দু পক্ষকেই | তবে অনেকেই বলেছেন মুম্বই পুলিশের আরও খতিয়ে দেখা উচিত ছিল পুরো বিষয়টি | ছবিটি কবেকার‚ কোথায় নেওয়া‚ বাইকের নাম্বার প্লেট যাচাই করে তবেই জরিমানার চালান পাঠানো উচিত ছিল |  

গত নভেম্বরে আইন ভাঙার জন্য মুম্বই পুলিশ জরিমানা করেছিল অভিনেতা বরুণ ধাওয়ানকেও | 

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।