বরফ গলতেই দেখা গেল মাউন্ট এভারেস্টের কোলে কয়েক দশক ধরে ঘুমিয়ে অভিযাত্রীরা

2851

১৯২২ সাল থেকে এখনও অবধি প্রায় চার হাজার আটশো পর্বতারোহী মাউন্ট এভারেস্ট জয় করেছেন। তবে অন্যদিকে দুশোরও বেশি পর্বতারোহী নিরাপদে ফিরে আসতে পারেননি। তাঁরা কয়েক যুগ ধরে সমাধিস্থ আছেন এভারেস্টের বুকেই। বরফের তলায় চাপা পড়ে যাওয়ার তাঁদের মৃতদেহ খুঁজেও পাওয়া যায়নি এত দিন। সম্প্রতি বিশ্ব উষ্ণায়ণে এভারেস্টের বরফ গলে সেই দেহগুলোই বেরিয়ে আসছে একের পর এক।

হিমবাহের বরফের স্তর দ্রুত গলে যাচ্ছে। আর এতেই বছরের পর বছর ধরে হিমবাহ চাপা পড়ে থাকা লাশগুলো বেরিয়ে আসছে। সর্বাধিক মৃতদেহ বেরিয়ে আসছে নেপালের অংশের খুম্বু হিমবাহ গলে। এভারেস্টে ওঠার পথে সব থেকে বিপজ্জনক জায়গা হল খুম্বু হিমবাহ। গত প্রায় একশো বছর ধরে এই হিমবাহের আশপাশেই মারা গিয়েছেন সব থেকে বেশি পর্বতারোহী। এছাড়া, ‘সাউথ কল’ অঞ্চলেও অনেক মৃতদেহ দেখতে পাওয়া যাচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। প্রসঙ্গত প্রতি বছরই গরমে হিমালয়ের বরফ গলতে কিছু না কিছু নিথর দেহ বেরিয়ে আসে | কিন্তু এ বছর যেন তা অনেক বেশি হারে ঘটেছে |

নেপালের এক্সপেডিশন অপারেটরস অ্যাসোসিয়েশন (ইওএএন) এর কর্মকর্তারা সর্ব্বভারতীয় ইংরেজি এক সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছেন, “পথ অত্যন্ত দুর্গম এবং উচ্চতার কারণে বাতাসে অক্সিজেনের পরিমাণও অত্যন্ত কম, তাই মৃতদেহগুলো উদ্ধার করা মোটেও সহজ কাজ নয়। গত কয়েক বছরে বেসক্যাম্পেও মৃত পর্বতারোহীদের হাত, পা দেখা গিয়েছিল। তবে এখন আমরা দেখছি বেসক্যাম্পের চারপাশে বরফের স্তর অনেক নিচে নেমে গেছে। আর সে কারণেই এখন দেহগুলোও স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে।”

নেপালের মাউন্টেনেয়ারিং অ্যাসোসিয়েশনের (এনএমএ) সভাপতি আং শেরিং শেরপা বলেছেন, “২০০৮ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত আমরা আট জন পর্বতারোহীর মৃতদেহ উদ্ধার করে নিচে নামিয়ে এনেছি। তার মধ্যে কোনও কোনও মৃতদেহ প্রায় পঞ্চাশ বছর ধরে বরফের তলায় চাপা পড়ে ছিল। মৃতদেহগুলি ঠান্ডায় জমাট বেঁধে যাওয়ায় ওজন প্রচুর বেড়ে যায়। কয়েকদিন আগেই একটি মৃতদেহ নামিয়ে আনা হয়েছিল যার ওজন প্রায় দেড়শো কেজি হয়ে গিয়েছিল। ফলে সেটি নামিয়ে আনতে বেশ সমস্যা হয়েছিল।” তাছাড়া এভারেস্টের বিভিন্ন অংশ থেকে দেহ নামিয়ে আনার প্রক্রিয়াও বেশ ব্যয়সাপেক্ষ | অনেক সময়েই দেহ নিচে নামিয়ে আনার পরে তার কোনও দাবিদার থাকে না | ফলে দেখা দেয় নতুন সমস্যা | তাই বেশিরভাগ ক্ষেত্রে যেখানে দেহ উদ্ধার হয়‚ সেখানেই মাটি আর বরফ চাপা দিয়ে রেখে আসা হয় | হিমালয়ের টানে আসা অভিযাত্রীরা চিরকালের জন্য রয়ে যান হিমালয়ের কোলেই |

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.