হেরোডটাস লিখেছিলেন ২৫০০ বছর আগে‚ খোঁজ পাওয়া গেল নীলনদের গভীরে

2282

প্রায় ২৫০০ বছর আগেই হেরোডোটাস তাঁর লেখা ঐতিহাসিক গ্রন্থে উল্লেখ করেছিলেন ব্যারিস নামের এমন এক বিশেষ ধরণের জলযানের কথা যার অস্তিত্ব নিয়ে দীর্ঘকাল ধরে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে মতপার্থক্য ছিল | কিন্তু শেষপর্যন্ত সমুদ্রের তলদেশ থেকে এক প্রত্নতাত্ত্বিক অভিযানে আবিষ্কৃত হওয়া জলযান হেরোডোটাসের প্রাচীন বর্ণনার সত্যতা প্রমাণ করল |

গ্রীক ঐতিহাসিক হেরোডোটাস ইজিপ্টের নীলনদ সংলগ্ন অঞ্চলে তাঁর দেখা এক বিশেষ ধরণের জলযানের উল্লেখ করেছিলেন প্রায় খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম শতকে লেখা তাঁর গ্রন্থটিতে | তাঁর ঐতিহাসিক গ্রন্থের প্রায় ২৩ লাইনে বর্ণিত আছে বিশেষ জলযানটির কথা | কিন্তু তার সত্যতা নিয়ে বিশেষজ্ঞদের সংশয় ছিল | 

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির সামুদ্রিক প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের পরিচালক ড. ড্যামিয়ান রবিনসন জানান এই রেকটি উদ্ধার না হলে হেরোডোটাসের রচনার ওই বর্ণনার সত্যতা সম্পর্কে ধোঁয়াশাই থেকে যেত | এবং রেকটির পর্যবেক্ষণ করে এও জানা যাচ্ছে যে হেরোডোটাসের বর্ণনা ছিল প্রায় নির্ভুল | কোনও নির্দিষ্ট সঠিক তথ্যপ্রমাণের অভাবে এর আগে যেসব বিশেষজ্ঞরা হেরোডোটাস বর্ণিত জলযানের বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়েছেন তাঁরা নির্দিষ্ট কোনও সিদ্ধান্তে পৌঁছতে ব্যর্থ হয়েছেন |

উদ্ধার করা এই জলযান, যা শিপ ১৭ নামে অভিহিত‚ খুবই আলাদা রকমের | জলযানটির কাঠামো অর্ধচন্দ্রাকার | মোটা কাঠের তক্তাকে একে অপরের সঙ্গে জুড়ে যেভাবে জলযানটি নির্মিত হয়েছে তেমন গঠনপদ্ধতি খুবই বিরল | হেরোডোটাসের বর্ণনার সঙ্গে যা হুবহু মিলে যায় | এছাড়াও হেরোডোটাস জানিয়েছিলেন এই ধরণের জলযানের ভিতরে লম্বা পাঁজরের মত একটি অংশ আছে | এই আবিষ্কারের আগে এই পাঁজরের মত অংশ যে কী তা বোঝা সম্ভব ছিল না | কিন্তু আবিষ্কারটির পরে বিষয়টি স্পষ্ট হয়েছে বিশেষজ্ঞদের কাছেও | নীলনদের পলিতে এই জলের তলায় থাকা জলযানটির প্রায় সত্তর শতাংশ প্রায় অবিকৃত ভাবে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা | 

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.