শিক্ষার কোনও বয়স কোনও বাধা নয়, এই উক্তিটি আরও একবার প্রমাণ করলেন ওড়িশার বছর ৮১-র নারায়ণ সাউ । তিনি প্রাক্তন সাংসদ । বর্তমানে সাধারণ ছাত্রদের সঙ্গেই ওড়িশা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করছেন ।

প্রাক্তন এই সাংসদ এখন উৎকল বিশ্ববিদ্যালয়ের হোস্টেলে থেকেই দর্শনশাস্ত্রে পিএইচডি করছেন । একজন দাপুটে রাজনীতিবিদ হওয়া সত্বেও ছাত্র আবাসনের ছোট্ট একটি ঘরে টেবিল, বই, আর পরিবারের সদস্যদের কিছু ছবি নিয়ে থাকছেন তিনি ।  তিনি রাজনীতি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন কারণ তিনি অনুভব করেছিলেন যে নীতিগুলি বেছে নিয়ে তিনি রাজনৈতিক পথে হাঁটা শুরু করেছিলেন সেই পথে হাঁটা তাঁর পক্ষে সম্ভব হচ্ছিল না । নিজের মতাদর্শের বিরুদ্ধে গিয়ে কোনও কাজ করা রাজনীতিবিদ নারায়ণ সাউ-এর পক্ষে সম্ভব ছিল না । তাই তিনি বাধ্য হয়েই এই পথ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন ।

Banglalive

১৯৬৩ সালে র‍্যাভেনশো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নারায়ণ সাউ অর্থনীতিতে স্নাতক হন । এরপর তিনি ২০০৯ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের জন্য উৎকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং ২০১১ সালে তা সম্পন্ন করেন। এরপর ২০১২ সালে দর্শনশাস্ত্রে নিয়ে এমফিল শুরু করেন।

Banglalive

নিজের জীবনের অভিজ্ঞতার সব গল্প তিনি সহপাঠীদের শোনান । হোস্টেলে থাকা বাকি ছাত্ররা জানান, “তিনি আমাদের সঙ্গে এমন ভাবে মিশে গিয়েছেন তাতে আমাদের কখনও বয়সের বিশাল ব্যবধানটা মনে হয় না। তিনি একজন বন্ধু ও অভিভাবক হিসেবে আমাদের সঙ্গে মেলামেশা করেন।

Banglalive

উৎকল বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তাও নারায়ণ সাউ-এর নেওয়া এই সিদ্ধান্তের যথেষ্ট প্রশংসা করেছেন। মনে করেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য একটি চমৎকার উদাহরণ স্থাপন করছেন তিনি ।

Banglalive
আরও পড়ুন:  সম্বলহীন হার্ট পেশেন্টের কাছে ঈশ্বরের দূত এই ডাক্তার...

NO COMMENTS