একটিমাত্র ব্যাটারিতেই গত ১৭৮ বছর ধরে অবিশ্রান্ত ভাবে বেজে চলেছে এই ঘণ্টা

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির ক্লেয়ারডন ল্যাবরেটরিতে আছে একটি ঘণ্টা | পরিচিত অক্সফোর্ড ইলেকট্রিক বেল বলে | গত ১৭৮ বছর ধরে অবিশ্রান্ত ভাবে বেজে চলেছে সেটি | আশ্চর্যজনক ভাবে তাও আবার একটিমাত্র ব্যাটারিতে ভর করে | ১৮৪০ খ্রিস্টাব্দে ব্যাটারিটি ভরা হয়েছিল ঘণ্টায় | তারপর থেকে একবারের জন্যেও বন্ধ হয়নি ঘণ্টা | একইভাবে কাজ করে চলেছে ওই ব্যাটারিও | কী করে‚ সেই রহস্য আজও অধরা বিজ্ঞানীদের কাছে |

আসলে ঘণ্টাটি বাজার শব্দ কারোর কানে পৌঁছয় না । কারণ ঘণ্টাটিকে একটি কাচের জারের মধ্যে রাখা রয়েছে । জারের কাছে কান নিয়ে গেলে এর কম্পন অনুভব করা যায় । আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, এই ঘটনার পিছনে রয়েছে এক ‘আপাত অক্ষয় ব্যাটারি’-র কেরামতি । ১৮৪০ সাল থেকে এই ব্যাটারি বাজিয়ে চলেছে ঘণ্টাটিকে । এই ব্যাটারিটিকে প্রযুক্তিগত পরিভাষায় ‘ড্রাই পাইল’ বলা হয় । এটি বিশ্বের প্রথম কয়েকটি ইলেকট্রিক ব্যাটারির অন্যতম । এতে ব্যবহৃত হয়েছিল রুপো, দস্তা, গন্ধক, এমনকী, মুলো ও বিটের টুকরোও । আরও কী কী এই ব্যাটারির ভিতরে রয়েছে, তা জানা যায় না ।  গবেষকরা এই ব্যাটারি খুলে পরীক্ষা করতে চাইলে সরাসরি না বলে দেওয়া হয় । কারণ, বেশি ঘাঁটাঘাঁটি করলে এটি বিগড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে । ফলে রহস্যের সমাধান হয়নি আজও । ঘণ্টা আজও বেজে চলেছে কাচের জারের ভিতরে । 

অন্তত ১০ বিলিয়ন বার বেজেছে ঘণ্টাটি | কাচের জারে থাকায় শোনা যায় না ঠিকই | তবে নিজেদের কাজ নিরবচ্ছিন্ন ভাবে করে চলেছে ঘণ্টা ও ব্যাটারি‚ দুজনেই | লন্ডনের নামী সংস্থা ওয়াটকিন অ্যান্ড হিল বানিয়েছিল এই ঘণ্টা | পরে সেটিকে কিনে নেন এক গবেষক | যিনি চেয়েছিলেন ওটা সর্বক্ষণ বেজে চলুক | সেটাই হয়ে চলেছে | গিনেস বুক এর ব্যাটারির নাম দিয়েছে “World’s most durable battery.” 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here