নিজের বানানো বিমান ওড়ানোর অপেক্ষায় পপকর্ন বিক্রতা

577

বছর ত্রিশের মহম্মদ ফায়াজের ছোট থেকেই ইচ্ছে ছিল বড় হয়ে তিনি একজন পাইলট হবেন। তবে কিন্তু অভাবের তাড়নায় স্কুলেই যাওয়া বন্ধ হয়ে যায় তাঁর। কিন্তু মনে মনে ইচ্ছেটা থেকেই গিয়েছিল। এখন পাকিস্তানের রাস্তায় তিনি পপকর্ন বিক্রি করেন। তবে এখনও মাথার উপর দিয়ে প্লেন উড়লেই তিনি মনে করেন, তাঁর নিজেরও এক দিন একটা প্লেন হবে। আর সেই ইচ্ছেশক্তিকে কাজে লাগিয়েই এই পপকর্ন বিক্রিতা নিজের বাড়ি বসেই তৈরি করে ফেলেছেন আস্ত একটি এয়ারপ্লেন।


পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশের পাকপট্টনের বাসিন্দা ফায়াজ বিমান নির্মাণের জন্য ব্যাঙ্ক থেকে লোনও নেন। তাঁর স্বপ্নের এই উড়ান বানাতে বেচে দিয়েছেন নিজের জমি। এখনও অবধি এর জন্য তিনি খরচ করেছেন নব্বই হাজার টাকা। বাতিল হওয়া সমস্ত জিনিসপত্র দিয়েই তিনি তৈরি করেছেন এই স্বপ্নের বিমান। আর এই টাকার জন্য দিনের বেলায় রাস্তায় পপকর্ন বিক্রি করে রাতের বেলা চৌকিদারের কাজ করে টাকা জমিয়েছিলেন ফায়াজ। এই বিষয়ে তিনি জানিয়েছেন, বিমান কেন ক্র্যাশ করে এবং বিমানের বিভিন্ন অংশ কীভাবে বানানো হয় এবং তাদের কাজ বোঝার জন্য ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক চ্যানেলের ‘এয়ার ক্র্যাশ ইনভেস্টিগেশন’ শো নিয়মিত দেখতেন তিনি। প্রায় এক বছর আগে একটি ছোট্ট ইঞ্জিন বানিয়ে নিজেরই গ্রামে কয়েক দফা এক আসনের একটি প্লেন উড়িয়েছিলেন তিনি।
একত্রিশে মার্চ পাকিস্তানের পুলিশ মহম্মদ ফায়াজের থেকে তাঁর বানানো এয়ারপ্লেনটি বাজেয়াপ্ত করে এবং তাঁকে আটকও করেছিল। পরে চৌঠা এপ্রিল তাঁর বানানো এয়ারপ্লেন তাঁকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। এই প্লেন ওড়ানোর অনুমতি চেয়ে পাকিস্তানের সিভিল অ্যাভিয়েশন অথোরিটির কাছে আবেদন জানান মহম্মদ ফায়াজ। তবে এখনও সেই অনুমতি পাননি তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.