পুলিশ দেখে চেঁচিয়ে মাদকপাচারকারীদের পালাতে দিয়ে গ্রেফতার তোতা

389

ব্রাজিলের পিয়াউই’তে ঘটে গিয়েছে একটি অদ্ভুত ঘটনা, যা রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছে গোটা নেট দুনিয়ায়। জানা গিয়েছে, একটি টিয়াপাখির জন্য একটি ড্রাগ পাচারকারী চক্রকে ধরতে রীতিমতো নাজেহাল পুলিশ প্রশাসন। জানা গিয়েছে, ড্রাগ পাচারকারীকে পুলিশের কাছ থেকে সতর্ক করে দেওয়ার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে ওই টিয়াপাখিটিকে।

জানা গিয়েছে, ড্রাগ পাচারের অভিযোগে দু’জন সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে খুঁজতে একটি বাড়িতে তল্লাশি চালাচ্ছিল পুলিশ। তাদের দেখে আচমকা চেঁচিয়ে ওঠে পোষ্য একটি টিয়া পাখি। ‘মামায় পোলিসিয়া’- ব্রাজিলীয় ভাষায় যার অর্থ,’ মা, পুলিশ’-এইভাবেই ছোট্ট টিয়া সতর্ক করে দিয়েছিল ড্রাগ পাচারকারীদের। আর সেই কারণেই, হাতের নাগালে পেয়েও তাদের ধরতে পারেনি পুলিশ। অগত্যা তাই বাধ্য হয়ে পুলিশ ওই টিয়াপাখি-কেই ধরে এনে জেলে বন্দি করে রেখেছে।

পুলিশের তরফ থেকে বলা হয়েছে, ওই পাখিটিকে এমনভাবে ট্রেনিং দেওয়া হয়েছিল, যাতে পুলিশ এলেই সে দুষ্কৃতীদের সতর্ক করে দিতে পারে। তাই যখনই তাঁরা ওই ড্রাগ পাচারকারীর বাড়িতে গিয়ে উপস্থিত হয়, ঠিক তখনই, অভিযুক্ত মহিলাকে ‘মা’ বলে ডেকে সতর্ক করে দিয়েছিল ওই টিয়া। পুলিশের ধারণা হয়তো এর আগেও অভিযুক্তকে এইভাবেই সতর্ক করেছে সে, আর তাই হয়তো এবং জঘন্য কাজ করেও পুলিশের জালে ধরা পড়েনি তারা।

তবে পালিয়ে গিয়েও বিশেষ লাভ হয়নি তার। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গিয়েছে টিয়ার চিৎকারে সতর্ক হয়ে ওই বাড়ি থেকে পালিয়েছে এক যুবক ও এক কিশোরী । সম্ভবত, তারা দু’জনে মিলেই এই ড্রাগপাচার চক্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল। ওই বাড়ি থেকেই পুলিশ উদ্ধার করেছে একটি ব্যাগ-বোঝাই মাদক। এরপরে উদ্ধার হওয়া ওই মাদক এবং ওই পোষ্য টিয়াটিকে খাঁচায় ভরে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। বিষয়টি আদালতে তোলা হলে অভিযুক্তের পক্ষের উকিল জানান যে, এইভাবে পাখিটিকে গ্রেফতার করে রাখায় পশু সুরক্ষা আইন লঙ্ঘন করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর পশুপ্রেমী সংগঠনের সদস্যরা ওই টিয়াপাখির মুক্তির দাবি করে। অবশেষে পুলিশ তাকে ছেড়ে দেয় এবং স্থানীয় একটি চিড়িয়াখানায় পাঠানোর ব্যবস্থা করে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.