বিকৃত যুবকের ছবি ভাইরাল ফেসবুকে‚ দ্রুত গ্রেফতারের পরে সাহসিনীকে বাহবা মুখ্যমন্ত্রীর

বিকৃত যুবকের ছবি ভাইরাল ফেসবুকে‚ দ্রুত গ্রেফতারের পরে সাহসিনীকে বাহবা মুখ্যমন্ত্রীর

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

ট্র্যাফিক সিগন্যালে অপেক্ষার সময় নোংরা মন্তব্য ভেসে আসছিল | বারবার প্রতিবাদেও থামেনি যুবক | অপেক্ষমাণ বাকি যাত্রী নীরব দর্শক | অন্তত জনা কুড়ি যেন মজা পেয়েছে ওই দৃশ্য থেকে | শেষে যুবকের ছবি মোবাইলে তুলে প্রথমে পুলিশে অভিযোগ‚ তারপরে ফেসবুকে পোস্ট | এরপর ভাইরাল ছবির মুখকে গ্রেফতার করতে বেশি বেগ পেতে হয়নি দিল্লি পুলিশকে |

অভিযোগকারিণী দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ছাত্রী | পশ্চিম দিল্লির তিলকনগরে ট্র্যাফিক সিগন্যালে অপেক্ষা করছিলেন তিনি | পাশেই বাইক আরোহী সেই যুবক | ক্রমাগত তরুণীর উদ্দেশে নোংরা মন্তব্য করে যাচ্ছিল সে | বাধ্য হয়ে তরুণী বলেন‚ এ বার ছবি তুলে পুলিশে জানাবো | ভয় তো দূরের কথা | উল্টে ছবির জন্য পোজ দেয় বাইক আরোহী | এরপর সিগন্যালের বাতি সবুজ হতেই তরুণীকে হুমকি দিয়ে বাইক নিয়ে বেপাত্তা |

হুমকিতে ভয় না পেয়ে পুলিশে অভিযোগ জানান ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্রী | পুলিশের কাজ সহজ করে দেয় তাঁর ফেসবুক পোস্ট | অচিরেই হাতে হাতকড়া ওই উদ্ধত তরুণের | প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পেরেছে‚ ধৃতের নাম সরবজিৎ সিং | বাড়ি দিল্লির পশ্চিম পুরী অঞ্চলে | তার বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে |

দিল্লির ওই সাহসিনীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল | পুলিশের তরফ থেকে তাঁকে আর্থিক পুরস্কারে সম্মানিত করা হবে বলে জানানো হয়েছে |

তবে এত সবকিছুর পরেও তরুণী খুশি নন | উল্টে তিনি বিস্মিত‚ তাঁর হেনস্থার সময় বাকি পথচারীর ভূমিকা দেখে | তাঁর প্রশ্ন‚ আমার জায়গায় ওখানে তাঁদের মা -বোন অথবা স্ত্রীও তো থাকতে পারতেন ? তখনও কি এ ভাবেই নীরব থাকতেন ওঁরা ?

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।