যুদ্ধজাহাজে রাজীবের ছুটি কাটানোর প্রসঙ্গে মুখ পুড়ল মোদীর

আবারও অস্বস্তিতে পড়তে হল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে। দিল্লিতে এক মিছিলে মোদী প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীকে ‘ভ্রষ্টাচারী নং ১’ বলে বিষোদগার করেন। তিনি বলেন, রাজীব‌ গান্ধী ভারতীয় নৌসেনার হাতে থাকা প্রাচীনতম এয়ারক্র্যাফ্ট ক্যারিয়ার ‘আইএনএস বিরাট’কে ‘ব্যক্তিগত ট্যাক্সি’ হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন। ওই এয়ারক্র্যাফটে করে রাজীব ছুটি কাটিয়েছিলেন— এমনই অভিযোগ করেন তিনি। কিন্তু প্রাক্তন উপ-নৌসেনাপতি বিনোদ পসরিচা জানিয়ে দিয়েছেন, দু’দিনের সরকারি সফরে যেতে ওই এয়ারক্র্যাফট ব্যবহার করেছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী। সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্ত্রী সোনিয়া গান্ধী। কোনওভাবেই ‘ছুটি’ কাটাতে তিনি যাননি।

গত ৮ মে দিল্লিতে মোদী তীব্র আক্রমণ করেন প্রয়াত রাজীবকে। তিনি বলেন, ‘‘কখনও কল্পনাও করতে পারেন ভারতীয় সেনার যুদ্ধজাহাজকে কেউ ট্যাক্সির মতো ব্যবহার করতে পারেন ব্যক্তিগত ছুটি কাটানোর জন্য? একজন রাজবংশীয় তা করেছিলেন।’’

মোদী আরও অভিযোগ করেন, রাজীব সপরিবারে শ্বশুরবাড়ির সদস্যদের নিয়ে ওই যুদ্ধজাহাজে ভ্রমণ করেছিলেন। এছাড়াও একটি হেলিকপ্টারেরও ব্যবস্থা করা হয়েছিল তাঁদের দশ দিনের ‘হলিডে’ যাপনের জন্য। আইএনএস বিরাট নাকি দশদিন রাজীবদের সঙ্গী ছিল। একটি দ্বীপে তাঁরা ছুটি কাটাচ্ছিলেন।

মোদীর এই সব অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন বিনোদ পসরিচা। প্রাক্তন উপ-নৌসেনাপতির পাশাপাশি প্রাক্তন নৌসেনা অধ্যক্ষ এল রামদাসও মোদীর অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন। জানিয়েছেন, ওই সফরে রাজীব ত্রিবান্দ্রাম ও লক্ষদ্বীপে গিয়েছিলেন দু’টি কাজে। ত্রিবান্দ্রামে ছিল ন্যাশনাল গেমসের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। আর লক্ষদ্বীপে ছিল দ্বীপের উন্নয়ন সংক্রান্ত একটি মিটিং। সেই সফরের ছবিও সবাইকে দেখিয়েছেন রামদাস।

আরও এক প্রাক্তন উপ-নৌসেনাপতি আইসি রাও-ও মোদীর অভিযোগকে উড়িয়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন রাজীবেরই। সকলেই জানিয়েছেন, রাজীব কোনও বিদেশি অতিথিদের সঙ্গে রাখেননি। কেবল রাহুল গান্ধী ছিলেন তাঁদের সঙ্গে। সংক্ষিপ্ত পুরো সফরটাই ছিল সরকারি কর্মসূচিতে ঠাসা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here