বিচ্ছেদের পর অমৃতার সঙ্গে শেষ কবে সময় কাটিয়ে ছিলেন সইফ?

বলিউডে সেলেবদের জুটি বাঁধাও যেমন সহজ,বিচ্ছেদটাও তেমনই। অভিনেত্রী অমৃতা সিং-এর সঙ্গে বয়সের পরোয়া না করে বিবাহবন্ধনে বাঁধা পড়েছিলেন সইফ আলি খান। কিন্তু স্থায়ী হয়নি সেটি।১৫ বছর হল বিচ্ছেদ হয়েছে ওঁদের। বিবাহ-বিচ্ছেদের পর থেকে সইফ যে খুব বেশি অমৃতার সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন তেমনটাও নয়। তবে সম্প্রতি শেষ কবে প্রাক্তন স্ত্রী অমৃতার সঙ্গে একসঙ্গে সময় কাটিয়েছিল সেবিষয়ে মুখ খুলেছেন খোদ সইফ আলি খান।

বেশ কিছুদিন আগে বাবা সইফ আলি খানের সঙ্গে ‘কফি উউথ করণ’-এ ডেব্যু করেছিলেন সারা। অত্যন্ত সাহসী ও স্মার্ট উত্তর দেওয়ায় এপিসোডটি ভাইরালও হয় । তবে এপিসোডে যা দেখানো হয়েছিল তাঁর থেকেও অনেক বেশি কিছু ঘটেছিল সেই সাক্ষাৎকারে। তাঁরই কিছু বিশেষ কথোপথকথন রেখে দেওয়া হয় টক শোটির শেষের চমক হিসেবে। সম্প্রতি সেই আনকাট এপিসোডেই দেখা যায় সইফ  ও সারা আলি খানের করণের সঙ্গে করা কিছু বিশেষ কথোপথন। তার মধ্যেই ওঠে প্রাক্তন স্ত্রী অমৃতাকে নিয়ে সইফের কিছু কথা।

করণের তরফ থেকে বাবা মেয়ের কাছে প্রশ্ন করা হয়,বিচ্ছেদের পর শেষ কবে সইফ একসঙ্গে সময় কাটিয়েছেন অমৃতার সঙ্গে? যার উত্তরে সইফ জানান,’ শেষবার কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন সারাকে ভর্তি করতে যাই, তখন দেখা হয়েছিল। নিউ ইয়র্কে আমরা একসঙ্গে ডিনার করেছিলাম।’

কথাটি শেষ হতে না হতেই সারা জানান,’সেদিন দারুণ কেটেছিল দিনটা। আমি যখন কলেজে ভর্তি হতে গিয়েছিলাম, তখন মা আমাকে সেখানে ছাড়তে এসেছিলেন, সেখাবে আব্বাও ছিল। আসলে আমি ও বাবা ডিনার করছিলাম। তারপর আমরা ঠিক করি মাকেও ডেকে নেওয়া যাক, তারপর একসঙ্গে ডিনার করি।’বাবা মাকে একসঙ্গে কাটানোর সেই দিনটি যে কতটা স্পেশল ছিল সারার কাছে তার আন্দাজ পাওয়া গিয়েছে সারার কথা শুনেই। এক একটি মুহূর্ত মনে রেখে দিয়েছেন তিনি। অভিনেত্রী এ বিষয়ে আরও বলেন,’আমরা ওই সময়টা বেশ ভালো কাটিয়েছিলাম। ওরা আমায় কলেজে ছাড়তে এসেছিল। আমার থাকার ব্যবস্থা করতে এসেছিল। মা আমার বিছানা ঠিক করে দিচ্ছিল। আব্বা, ল্যাম্পে বাল্ব লাগাচ্ছিল। এটা ভীষণই একটা সুন্দর মুহূর্ত যেটা এখন খুব মিস করি।’

প্রসঙ্গত,’কেদারনাথ’ এবং ‘সিম্বা’র সাফল্যের পর এবার ইমতিয়াজ আলি পরিচালিত ‘লাভ আজ কাল’ ছবির নতুন সিক্যয়েল ‘লাভ আজ কাল-২’ এর শুটিং-এ ব্যস্ত সারা আলি খান। যেখানে সারার বিপরীতে দেখা যাবে কার্তিক আরিয়নকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here