সুপ্ত থেকে জীবন্ত ! সর্বকনিষ্ঠ হিসেবে সপ্ত মহাদেশের আগ্নেয়পর্বতের শীর্ষবিন্দু জয় বঙ্গসন্তানের

বিশ্বরেকর্ড করলেন বাঙালি পর্বতারোহী সত্যরূপ সিদ্ধান্ত। সাত শৃঙ্গ ও সাত আগ্নেয়গিরি জয় করলেন এই বাঙালি যুবক। ৩৫ বছর ৯ মাস বয়সী সর্বকনিষ্ঠ পর্বতারোহী হিসেবে গড়লেন বিশ্বরেকর্ডও। বুধবার ভারতীয় সময় সকাল ৬ টা ২৫ মিনিটে আন্টার্কটিকার মাউন্ট সিডলি আগ্নেয়গিরির চূড়ায় পা রাখেন তিনি। বিশ্বের সর্বকনিষ্ঠ পর্বতারোহী হিসেবে এই কৃত্বিত্ব অর্জন করলেন তিনি। এর আগে এই কৃতিত্ব ছিল অস্ট্রেলিয়ার ড্যানিয়েল বুলের। তিনি ৩৬ বছর ১৫৭ দিন বয়সে এই কৃতিত্বের মালিক হয়েছিলেন। সত্যরূপ আরও কম বয়সে সেই খেতাব জয় করে নেন।

আন্টার্কটিকা মাউন্ট সিডলি

সেভেন ভলক্যানিক সামিটের মধ্যে পড়ছে আফ্রিকার মাউন্ট কিলিমাঞ্জারো। এটি আফ্রিকার সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ, বেস থেকে প্রায় ৪৯০০ মিটার, এবং সমুদ্রতল থেকে এর উচ্চটা ৫৮৯৫ মিটার। মাউন্ট এলব্রুস, ইউরোপের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ হিসেবে ধরা হয়। মাউন্ট ওজোস দেল সালাদো যা দক্ষিণ আমেরিকার সহ বিশ্বের সর্বোচ্চ জীবন্ত আগ্নেয়গিরি। যার উচ্চতা ৬৮৯৩ মিটার। এশিয়ার মাউন্ট দামাভান্দ, একটি সুপ্ত আগ্নেয়গিরি, যা ইরানের সর্বোচ্চশৃঙ্গ এবং এশিয়ার সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরি হিসেবে পরিচিত। ওশিয়ানিয়ার মাউন্ট গিলউয়ে, পাপুয়া নিউগিনির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ, যার উচ্চতা ৪৩৬৭ মিটার। মাউন্ট পিকো দে ওরিজাবা যা উত্তর আমেরিকায় অবস্থিত। টি একটি সুপ্ত আগ্নেয়গিরি, যা মেক্সিকোর সর্বোচ্চ পর্বত এবং উত্তর আমেরিকার তৃতীয় সর্বোচ্চশৃঙ্গ হিসেবে পরিচিত। এবং আন্টার্কটিকা মাউন্ট সিডলি, এই মাউন্ট সিডলি শিখরের উচ্চতা ৪২৮৫ মিটার। প্রথম দু’টি বাদে বাকি চার মহাদেশের সর্বোচ্চ আগ্নেয়গিরিতে সত্যরূপ পা রেখেছেন ২০১৮ তেই।

পেশায় ইঞ্জিনিয়ার সত্যরূপের লক্ষ্য হয় বিশ্বের উচ্চতম সাত আগ্নেয়গিরি জয়।  আফ্রিকার উচ্চতম আগ্নেয়গিরি মাউন্ট কিলিমাঞ্জারো ও ইউরোপের উচ্চতম আগ্নেয়গিরি এলব্রুস আগেই জয় করেন তিনি। পাশাপাশি, ছ’দিনে ১১১ কিলোমিটার স্কি করে দক্ষিণ মেরুর শেষ ডিগ্রি পর্যন্ত পৌঁছোনোর রেকর্ডও করেন তিনি। বাকি ছিল আন্টার্কটিকার মাউন্ট সিডলে। বুধবার সকালে সেই লক্ষ্য পূরণ করেন সত্যরূপ।

২৬ জানুয়ারি কলকাতায় ফিরবেন সত্যরূপ। দেশে ফেরার আগে সান্তিয়াগোয় সত্যরূপকে সংবর্ধনা দেবে চিলির ভারতীয় দূতাবাস। সেভেন সামিটস ও সেভেন ভলক্যানিক সামিটস-জয়, ছেলের এই সাফল্যে উচ্ছ্বসিত মা গায়েত্রী সিদ্ধান্ত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

কফি হাউসের আড্ডায় গানের চর্চা discussing music over coffee at coffee house

যদি বলো গান

ডোভার লেন মিউজিক কনফারেন্স-এ সারা রাত ক্লাসিক্যাল বাজনা বা গান শোনা ছিল শিক্ষিত ও রুচিমানের অভিজ্ঞান। বাড়িতে আনকোরা কেউ এলে দু-চার জন ওস্তাদজির নাম করে ফেলতে পারলে, অন্য পক্ষের চোখে অপার সম্ভ্রম। শিক্ষিত হওয়ার একটা লক্ষণ ছিল ক্লাসিক্যাল সংগীতের সঙ্গে একটা বন্ধুতা পাতানো।