বহু না-কে ইতিমধ্যেই  হ্যাঁ করেছেন জীজা ঘোষ | নামের পাশে বসে গেছে অনেক কিছু প্রথম করার কৃতিত্ব | আজন্ম সেরিব্রাল পলসি আক্রান্ত | বেশিরভাগ বাবা মায়ের কাছে এমন সন্তান অবাঞ্ছিত | কিন্তু জীজার বাবা মা ছিলেন অন্য ধাতুতে গড়া | তাঁরা মেয়েকে বড় করেছেন আর পাঁচজন বাচ্চার মতোই | অনুকম্পা নয়‚ জীজাকে দিয়েছেন সাহচর্য জীবনপথে এগোতে‚ যেমন দিয়ে থাকেন বাকি শিশুর অভিভাবকেরা | 

Banglalive

সেই দৃঢ় প্রত্যয় সঞ্চারিত হয়েছে জীজার মধ্যেও | প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে স্নাতক | তারপর দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর | বিয়ে করেছেন ২০১৩ সালে | স্বামী বাপ্পাদিত্য নাগ সিন্ডিকেট ব্যাঙ্ক-এর ল অফিসার | 

এ বার জীবনের আর একটি অধ্যায়ের সূচনা করলেন জীজা | পূর্ণ হল দীর্ঘদিনের স্বপ্ন | তিনি মা হলেন | সন্তান গর্ভে ধারণ করে ভূমিষ্ঠ করেননি | তবে যা করেছেন সেটাও সবার জন্য দৃষ্টান্তমূলক | জীজা সন্তান দত্তক নিয়েছেন | একজন সেরিব্রাল পলসি রোগী হয়ে পালিকা মা হওয়া আর একটি যুদ্ধ | বহু কাঠখড় পুড়িয়ে তবে সন্তানকে পেয়েছেন জীজা |

কেওনঝড়ের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় তাঁরা আবেদন করেছিলেন ২০১৬ সালে | কিন্তু শুধু চিকিৎসকের শংসাপত্র দাখিল করে কাজ হয়নি | গত দু বছর ধরে নিয়মিত যাতায়াত করতে হয়েছে তাঁদের | বোঝাতে হয়েছে জীজা সত্যি সন্তানের মা হয়ে উঠতে পারবেন |

অবশেষে জীজার কোলে এসেছে আদরের সোনাই | গত জানুয়ারি মাসে তার জন্ম | কেউ জানে না কারা তার প্রকৃত বাবা মা | আজন্ম পরিত্যক্ত সেই শিশু এতদিনে পেল মায়ের কোল |  সোনাইকে কোলে নিয়ে জীজা স্পর্শ করলেন আরও একটি মাইলফলক | তিনি সম্ভবত কলকাতার প্রথম সেরিব্রাল পলসি আক্রান্ত মহিলা‚ যিনি সন্তান দত্তক নিলেন | 

জীজা এখন পুরোদস্তুর সোনাইয়ের মা | চুটিয়ে উপভোগ করছেন অয়েল ক্লথ-ন্যাপি-বেবি ফুডের গন্ধ মেশা নতুন দিনগুলো | উপভোগ করছেন জীজার মাও | তিনি এখন হুইলচেয়ারে বসা অশীতিপর | বয়সের কারণে থাবা বসিয়েছে স্মৃতিভ্রংশ রোগ | অতীতে পাড়ি দিয়েছেন বহু তুফান | সেই যুদ্ধজয়ের স্মারক চোখের সামনে দেখতে পান বৃদ্ধা | যখন দেখেন তাঁর জীজাও মা হয়েছেন | 

আরও পড়ুন:  হাঁসজারু হতে পারে তবে চা আর তন্দুর সন্ধি হয়ে তন্দুরি চা হবে না কেন !

NO COMMENTS