ছাত্রের অভাবে স্কুলে ভর্তি করা হয়েছে ভেড়ার পাল

187

ধরুন ক্লাসে শিক্ষক হাজিরা নিচ্ছেন আর আর ছাত্ররা ‘উপস্থিত’ বলার বদলে সেখানে শোনা যাচ্ছে এক পাল ভেড়ার ডাক! তাহলে কেমন হবে। আমাদের দেশে এমনটা না হলেও ফ্রান্সের এক স্কুলে কিন্তু এই ঘটনাই ঘটতে চলেছে।

ফ্রান্সের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নাকি শিক্ষার্থীর অভাবের জেরে ক্লাস বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এমন আশঙ্কা থেকেই বিদ্যালয় পঠন-পাঠন চালু রাখতে পনেরোটি ভেড়াকে ভর্তি করানো হয়েছে সেই প্রাথমিক স্কুলে। জানা গিয়েছে অবিভাবকরাই উদ্যোগ নিয়ে স্কুলে ভেড়া ভর্তি করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। স্থানীয় মেয়রও স্কুলে ভেড়া ভর্তি করানোর বিষয়ে সম্মতি দিয়েছেন।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, গত মঙ্গলবার সকালে ফ্রান্সের আল্পস পার্বত্য এলাকার গ্রাম জুলস-ফেরির স্কুলে পনেরোটি ভেড়াকে ভর্তি করানো হয়। জুলস-ফেরি গ্রামটিতে বসবাস করেন চার হাজারেরও কম মানুষ। কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দেয়, ওই গ্রামের স্কুলের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৬৬ থেকে ২৬১ জনে নেমে আসলে ১১টি ক্লাসের মধ্যে একটি বন্ধ করে দেওয়া হতে পারে। আর এর পরই শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়াতেই শিক্ষার্থীর তালিকায় যোগ করা হয় ভেড়ার নাম। সেইমতো মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় কৃষক মাইকেল গিরের্ড নিজের পালন করা প্রায় পঞ্চাশটি ভেড়া নিয়ে স্কুলে উপস্থিত হন। তার মধ্য থেকে ১৫টির নাম জন্মতারিখ-সহ স্কুলে নথিভুক্ত করা হয়।

ব্যা-বেটে, সাউতে-মাউতুন, ডলি নামে বিভিন্ন ভেড়ার রেজিস্ট্রেশনের কাজ সামলান অভিভাবক, শিক্ষার্থী ও শিক্ষকেরাই। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, স্থানীয় মেয়র জেন লুইস মারেত আনুষ্ঠানিকভাবে ভেড়ার স্কুল যাওয়ার বিষয়টিকে স্বীকৃতি দিয়েছেন।ভেড়াকে স্কুলে ভর্তি করানোর উদ্যোগের নেপথ্যে থাকা অভিভাবকদের মধ্যে গ্যালে লাভাল নামে একজন জানিয়েছেন, স্কুল শিক্ষা কর্তৃপক্ষের দাবি কেবল শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়ানো। ক্লাস বন্ধ না করার জন্য এর থেকে ভাল উপায় আর কিই বা হতে পারত, বলে মত তাঁর।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.