এ দেশে অপরাধ-তালিকা থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার মুখে গর্ভপাত

১৯৫৩ সালের এক আইনে গর্ভপাতকে বেআইনি বলে ঘোষণা করেছিল দক্ষিণ কোরিয়া। পরবর্তীকালে ১৯৭৩ সালে কিছুটা শিথিল হয়েছিল আইন। তবে এবার অপরাধের তকমা থেকে মুক্তি পেল গর্ভপাত।

গত শুক্রবার দক্ষিণ কোরিয়ার সাংবিধানিক আদালতের বেঞ্চের ন’জন বিচারপতির সাত জনই জানিয়েছেন, গর্ভপাতের ফলে শাস্তির নির্দেশ ‘অসাংবিধানিক’। সেদিন তাঁরা পার্লামেন্টকে ১৯৫৩ সালের আইন সংশোধনের নির্দেশ দিয়েছেন। বলা হয়েছে, এতদিন যে আইন বহাল ছিল, তা গর্ভবতী মহিলাদের স্বাধীনতাকে খর্ব করেছে, যার ফলে অবিলম্বে আইনে বদল আনা উচিত। এর ফলে মনে করা হচ্ছে, ২০২০ সালের মধ্যেই অপরাধের তকমা থেকে মুক্তি পেতে চলেছে গর্ভপাত।

কয়েক বছর আগে একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, গর্ভপাত-বিরোধী আইন খারিজে সায় দিয়েছেন সায় দিয়েছেন সেদেশের অর্ধেকের বেশি মানুষ। এই আইন বিলুপ্তির দাবিতে বিক্ষোভ দেখিয়েছিলেন সেদেশের প্রায় তিন হাজার মহিলা। এতদিন ধরে দক্ষিণ কোরিয়ায় গর্ভপাতের সাজা ছিল এক বছরের কারাদণ্ড ও জরিমানা। যে চিকিৎসকেরা গর্ভপাতে সাহায্য করবেন তাঁদের শাস্তি দু’বছর কারাদণ্ড। এই আইনকে হাতিয়ার করেই সেদেশে প্রতারণার শিকার হয়েছেন সেদেশের বহু মহিলা। গর্ভপাতের কথা প্রকাশ্যে আনার ভয় দেখিয়ে অনেকেই স্বামী বা প্রেমিকের দ্বারা প্রতারিত হয়েছেন। এই সুযোগের অসৎ ব্যবহার করতেও ছাড়তেন না চিকিৎসকেরাও। জানাজানি হওয়ার ভয়ে গর্ভপাতের জন্য বেশি টাকা দাবি করতেন বহু চিকিৎসক। তবে এবার এই
নতুন আইনের জেরে পরিস্থিতি অনেকটাই পরিবর্তন হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.