জানেন কি চিকিৎসা করাতে গিয়ে আরও বেশি অসুস্থ হয়ে পড়তে পারেন আপনি?…

225

শরীর খারাপ হলে চিকিৎসকই ভরসা। কিন্তু জানেন কি এই চিকিৎসক এবং ডাক্তারখানা থেকেই ছড়াতে পারে রোগজীবাণু, যা শরীরে প্রবেশ করে ঘটাতে পারে মারাত্মক কিছু রোগ ব্যধি। কখনও কি ভেবে দেখেছেন, চিকিৎসকেরা যে স্টেথোস্কোপ ব্যবহার করেন তা কি আদৌ জীবাণুমুক্ত? একজন চিকিৎসকের কাছে তো কত রোগীই আসেন তাঁদের সমস্যা নিয়ে। এক এক জনের সমস্যাও এক এক রকম। চিকিৎসক কিন্তু ওই একই স্টেথোস্কোপ দিয়ে সকলকে পরীক্ষা করেন। কিন্তু নিয়ম অনুসারে, প্রত্যেকবার স্টেথোস্কোপ ব্যবহার করার পর তা পরিষ্কার করে নেওয়া উচিত। কিন্তু সেকাজ যাঁরা করেন তাঁদের সংখ্যাটা নেহাতই হাতে গোনা। বলা ভাল, কাজের চাপে চিকিৎসকরা এই ছোট ছোট বিষয়গুলি মেনে চলতে পারেন না।

গবেষকরা জানিয়েছেন, চিকিৎসকের স্টেথোস্কোপ থেকেই হতে পারে ত্বকের সমস্যা। এছাড়াও ক্লিনিক থেকে সংক্রমিত জীবাণু নিউমোনিয়া এবং মুত্রনালীর সংক্রমণও ঘটাতে পারে।সম্প্রতি একটি সর্বভারতীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুসারে জানা গিয়েছে যে, স্টেথোস্কোপ দ্বারা সংক্রামিত রোগের চিকিৎসায় কেবলমাত্র অ্যান্টবায়োটিকই কাজ করে। ভার্জিনিয়ার ‘ইনফেকশান কন্ট্রোল অ্যান্ড এপিডেমিওলজি’ সংস্থার প্রেসিডেন্ট লিন্ডা গ্রিন এই বিষয়ে জানিয়েছেন, পর পর রোগী দেখতে গিয়ে স্টোথোস্কোপ জীবাণুমুক্ত রাখার কথা মাথায় থাকে না। কিন্তু, এটা নিজের হাত পরিষ্কার করার মতোই মনে গেঁথে নিতে হবে। তাহলেই এই ধরনের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব।

তবে গবেষকরা এও জানিয়েছেন স্টেথোস্কোপ-এর থেকেও হাত পরিষ্কার রাখাও  গুরুত্বপূর্ণ। অনেক চিকিৎসকই ডিসপোসেবল গ্লাভস ব্যবহার করে থাকেন। কিন্তু সেগুলিও প্রত্যেকবার বদলানোর অভ্যেস থাকাটা  জরুরী।  তাঁরা আরও জানিয়েছেন, ডাক্তারি পাঠ্যক্রমে এই বিষয়গুলি বলা থাকলেও তার বেশিরভাগটাই নির্ভর করে একজন চিকিৎসক ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে কতখানি ওয়াকিবহাল তার ওপর।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.