Tags Posts tagged with "thailand"

thailand

লিখেছেন -
0 265

থাইল্যান্ডে রাজতন্ত্রের অবসান ঘটেছিল ১৯৩২ সালে । তবে সাধারণ মানুষের মধ্যে আজও রাজপরিবারের প্রভাব বর্তমান । এবার আসন্ন সাধারণ নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী পদের জন্য লড়বেন রাজা মহা বাজিরালঙ্গকর্ণের  দিদি ৬৭ বছরের রাজকুমারী উবোলরতনা । আর তাই স্বাভাবিকভাবেই এই ঘোষণায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে তাইল্যান্ডে । রাজকুমারী সেদেশের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী শিনাবাত্রার সমর্থক ‘থাই রক্ষা চার্ট পার্টি’-র একমাত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন । তবে প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হওয়ার সিদ্ধান্ত পুরোপুরি তাঁর নিজস্ব নাকি এতে রাজপরিবারেরও সায় রয়েছে কি না তা যদিও এখনও স্পষ্ট নয় ।

দেশের টালমাটাল রাজনীতিতে ভারসাম্য আনতেই প্রথা ভেঙে এই সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন রাজকুমারী উবোলরতনা । সেদেশের এক কূটনীতিবিদ-এর কথায়,  উবোলরতনার রাজনীতিতে পা দেওয়ার উপর অনেক কিছু নির্ভর করছে । তাঁর রাজনীতির ময়দানে আসার ফলে রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আসতে পারে আমুল পরিবর্তন । তাঁর কথায়, পরিস্থিতি শান্ত হতে পারে । আবার এখনকার থেকেও বেশি অশান্ত হয়ে উঠতে পারে ।

রাজকুমারী উবোলরতনা ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি থেকে গণিত ও জৈব-রয়াসনে স্নাতক ডিগ্রি গ্রহণ করেন। তারপর ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া থেকে গণস্বাস্থ্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নেন তিনি। ১৯৭২ সালে তাঁর মার্কিন সহপাঠী পিটার জেনসেনকে বিয়ে করার জন্য নিজের রাজকীয় মর্যাদা বিজর্সন দেন তিনি। যদিও ১৯৯৮ সালে তাঁদের বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। তার আগে ২৬ বছর তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই বসবাস করেছেন। ২০০১ সালে থাইল্যান্ডে ফিরে রাজ দায়িত্ব পালন করা শুরু করেন রাজকুমারী উবোলরতনা, যদিও তিনি আর কখনও পূর্ণ রাজকীয় মর্যাদা ফিরে পাননি। রাজপরিবারের অন্দরে এবং প্রজাদের কাছে ‘রানির মেয়ে’ হিসেবে সম্বোধন করা হত তাঁকে।  ২০০৪ সালের সুনামিতে নিজের ছেলেকেও হারান তিনি। এর পর থেকে একাধিক প্রচারমূলক কাজে নিজেকে ব্যস্ত রেখেছেন। তরুণ প্রজন্মের মধ্যে মাদক-বিরোধী প্রচার চালানোয় তাঁর অবদান রয়েছে।

তবে, বোনের প্রধানমন্ত্রীত্বের লড়াইয়ে নামা ‘অনুচিত’ এবং ‘অসাংবিধানিক’ বলে মন্তব্য করেছেন তাঁর ভাই রাজা মহা বাজিরালঙ্গকর্ণ। ১৯৩২ সাল থেকে থাইল্যান্ডে সাংবিধানিক সরকার ব্যবস্থা চালু হলেও জনগণের কাছে রাজপরিবারের গুরুত্ব এখনও অপরিসীম। বিশেষত রাজনৈতিক ক্ষেত্রে কোনও সংকট দেখা দিলে এখনও রাজা তাঁর সমাধানসূত্র খুঁজে পেতে সাহায্য করেন। তবে রাজনীতির বাইরে থাকাই রাজপরিবারের দীর্ঘদিনের ঐতিহ্য। তাই রাজকুমারী উবোলরতনার এই পদক্ষেপে থাইল্যান্ডের রাজপরিবারের রাজনীতির বাইরে থাকার প্রথা ভঙ্গ হবে বলেও জানিয়েছেন রাজা মহা বাজিরালঙ্গকর্ণের । আগামী শুক্রবারের মধ্যে নির্বাচন কমিশনকে চূড়ান্ত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করতে হবে। আগামী ২৪ মার্চ থাইল্যান্ডে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। রাজা মহা বাজিরালঙ্গকর্নের আপত্তির কারণে এখন নির্বাচন কমিশন উবোলরতনাকে নির্বাচনে দাঁড়াতে দেবে কিনা এখন সেটাই দেখার ।

লিখেছেন -
0 2254

তাঁদের শৈশব আর পাঁচজন সাধারণ শিশুর মতো নয় । কারণ দুই যমজ ভাই-বোন যে এখন স্বামী-স্ত্রী ! থাইল্যান্ড ?? নিবাসী এই দুই ভাই-বোনের জাঁকজমক করে বিয়ে দিলেন তাঁদেরই বাবা-মা । ২০১২ সালে আমোর্নসান সানথ্রোন মালিরাত এবং ফাচারাপোর্ন দুই যমজ সন্তানের জন্ম দেন- ছেলের নাম গিটার ও মেয়ের নাম কিউই।

বৌদ্ধধর্মাবলম্বী এই পরিবারের দাবি, যুগ যুগ ধরে পূর্বপুরুষদের দেখিয়ে আসা প্রথা মেনেই এই কাজ করেছেন তাঁরা। গত সোমবার বৌদ্ধধর্মমতেই বিয়ে দেওয়া হল এই দুই যমজ শিশুর। তাঁরা আরও জানিয়েছেন যে, তাঁদের পূর্বপুরুষরা বিশ্বাস করেন যে, কারওর যমজ সন্তান যদি ছেলে ও মেয়ে হয়, তাহলেই তাঁরা নাকি পূর্বজন্মের প্রেমিক-প্রেমিকা ! ভাগ্যের ফেরে বর্তমান জন্মে একই মায়ের গর্ভে জন্ম নিয়েছেন এবং এও মনে করা হয় যে, তাঁদের উপরে কারওর কোনও অভিশাপ রয়েছে, যার ফলে এই জন্মে যমজ ছেলে ও মেয়ের জন্ম হয়েছে । যত তাঁদের বয়স বাড়বে ততই নাকি নানারকম দুর্ভাগ্য নেমে আসবে তাঁদের জীবনে । আর এই অভিশাপ কাটাতেই ওই যমজ সন্তানদের বিয়ে দিয়ে দেওয়াই বিধিসম্মত । আর এতেই নাকি তাঁদের জীবনে সাফল্য আসবে বলে মনে করেন তাঁরা ।

আর সেইজন্যই নিজের ছেলে-মেয়ের বিয়ে, এককথায় ফাঁড়া কাটাতেই এই কাজ করলেন ওঁদের বাবা-মা । ভাই-বোনের বিয়েতে খরচ হয়েছে প্রায় কয়েক হাজার পাউন্ড । তাঁদের বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনে রীতিমতো গমগম করছিল বিয়েবাড়ি ।

এই বিয়ের অনুষ্ঠানের বেশ কয়েকটি ছবি প্রকাশিত হয়েছে সম্প্রতি। নিয়ম অনুসারে, বরকে কনের কাছে পৌঁছতে হলে ৯টি দরজা পেরিয়ে আসতে হয় । কিউইর কাছে এইভাবেই ৯ টি দরজা পেরিয়ে এসেছে গিটার । এর পাশাপাশি বিয়ের যাবতীয় ধর্মীয় রীতি-নীতি মেনেই বিয়ে দেওয়া হয়, ছয় বছর বয়সী এই যমজ ভাই-বোনের । মজার কথা, কন্যাপণ হিসেবে গিটারকে দিতে হয়েছে নগদ প্রায় ৪০০০ পাউন্ড এবং ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৮৮ হাজার টাকা মূল্যের সোনার গয়নাও দিতে হয়েছে বলে জানা গিয়েছে ।

যদিও এই বিয়ে এই বিয়ে কতখানি যুক্তিসম্মত তা নিয়ে অবশ্য বিতর্কের অবকাশ রয়েছে। তবে তাঁদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, এই বিয়ে আইনত বিয়ে নয় । আরও জানানো হয়েছে যে, বড় হয়ে তাঁরা তাঁদের পছন্দের জীবনসঙ্গী খুঁজে নিতে পারবেন ।

লিখেছেন -
0 152

চুরি করতে এসে কি বিপাকেই না পড়লেন থাইল্যান্ডের সেই সিঁধেল চোর সুপাচাই প্যান্থং !

গত ৩০ নভেম্বর সন্ধে বেলায় একটি সোনার দোকানে হার চুরি করতে এসেছিল প্যান্থং। বেশ ছলনা করে হারটি পরেই বেরিয়ে যেতে চেয়েছিল দোকান থেকে । তবে সেইদিন হয়তো তার দিন ছিলই না, তাই দরজা খুলতে গিয়েই আটকে গেল । না কোন ডিটেক্টরে ধরা পরেনি, মালিক নিজেই ব্যোমকেশ বক্সী হয়ে রিমোট কন্ট্রোলে আটকে দিলেন দরজা । ২৭ বছরের সেই ছেলেটি দোকানে ঢোকা মাত্রই সন্দেহের গন্ধ পান তিনি । এরপর থেকে নজরে রেখে ঠিক সময় দরজাটি রিমোট দিয়ে আটকে দেন তিনি । এদিকে চোরের সেই দরজা খুলতে নাকাল অবস্থা । এরপর ছেলেটিকে আটক করেই ফিরে পান চুরির জিনিসটি ।

আপাতত কারাগারে বন্দি প্যান্থং। গোয়েন্দা হিসেবে সর্বত্র বেশ জনপ্রিয় হয়েছেন থাইল্যান্ডের সেই সোনার দোকানের মালিক জাইরিন নিতিকরুন। ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে দোকানের সেই সিসিটিভি ফুটেজ । মান খুইয়ে বেশ ট্রোলও হয়েছে প্যান্থং।

রেসিপি

error: Content is protected !!