পাখির মত দেখতে হতে চেয়ে পাখিপ্রেমী ‘প্যারট ম্যান’ ক্ষত বিক্ষত হলেন নিজেই

নিজেই নিজের নাম দিয়েছেন ‘প্যারট ম্যান’। পাখিপ্রেমী মানুষটি ট্যাটু করিয়ে সারা মুখে এঁকেছেন পাখির পালক। অপারেশন করিয়ে কান বাদ দিয়েছেন। এমনকী চোখের ভেতরেও রং করিয়েছেন অন্ধ হওয়ার ঝুঁকি নিয়েই। তিনি টেড রিচার্ড। পাগলের মত ভালোবাসেন টিয়াপাখি। নিজেও দেখতে হতে চান তাদের মতই। সে কারণেই শারীরিক পরিবর্তনের জন্য চরম ঝুঁকিপূর্ণ সব সার্জারি করাচ্ছেন তিনি।

যুক্তরাজ্যের ব্রিস্টলে বাস এই পাখি-মানবের। প্রথমে এই স্বঘোষিত পাখি-মানব নিজের সারা মুখে ট্যাটু করিয়েছিলেন, যাতে মনে হয় সারা মুখ রঙিন পালকে ঢাকা। পাঁচরঙা পালক তাঁর মুখ জোড়া। এর পরের ধাপে তিনি ট্যাটুর কালি দিয়েই চোখের ভেতরও রাঙালেন। এটি অত্যন্ত বিপজ্জনক প্রক্রিয়া। এর থেকে অন্ধত্বের সম্ভাবনাও প্রবল। এর পর যাতে আরও তিনি পাখির মত দেখতে হতে পারেন, তার জন্য বাদ দিলেন নিজের কানও। এতে হারালেন শোনার ক্ষমতা। চিরতরে বধির হলেন টেড। ‘টিয়া পাখির তো কান নেই, শুধু কতগুলো ছোট ছোট ফুটো আছে, তাই আমিও কান কেটে ফেললাম। স্বাধীন ব্যক্তি তার নিজের দেহ নিয়ে কী করবে সেটা একান্তই তার ব্যক্তিগত ব্যাপার’। ‘টেড প্যারট ম্যান’ পাখি হবার জন্য এমনই মরিয়া যে তার জীবনের ঝুঁকি অবধি তাঁকে তাঁর দেহ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত থেকে টলাতে পারে নি। ‘না, আমি শারীরিক জটিলতা বা বিপদ নিয়ে একেবারেই ভাবিনি। কারণ শুরু থেকেই যদি কোনও কাজে আপনি না-বাচক চিন্তা ভাবনা করেন, তাহলে কখনোই সে কাজ আপনি করে উঠতে পারবেন না’ বলে যান টেড রিচার্ড। তাঁর জীবনের একটাই উদ্দেশ্য। পাখির মত দেখতে হবেন। যাই হয়ে যাক, কোনও কিছুতেই পিছপা হবেন না টেড, তাঁর পাখি হবার সাধ এতটাই তীব্র ! সে যে কোনও মূল্যেই হোক না কেন। আসলে মানুষের জীবন তো একটাই। তাই ষোলআনা শখ সাধ মিটিয়ে নেওয়াটাই হয়ত দরকারি। কিন্তু জীবনটাই যদি বিপন্ন হয়?!

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.