অপূর্ব নৈসর্গিক সৌন্দর্যে সাজানো উত্তরপূর্ব ভারত আদিবাসী-উপজাতিদের আঁতুড়ঘর | নাগাল্যান্ডে মোট ১৭ রকমের উপজাতিকে সরকারি স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে | তাদের মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হল কোনিয়াক | নাগাদের মধ্যে এই গোষ্ঠীর মানুষ সর্বাধিক | এই জনজাতির বিখ্যাত বা কুখ্যাত বৈশিষ্ট্য হল হেড হান্টিং | অর্থাৎ যুদ্ধে গেলে শত্রু বধ করে তার মাথা কেটে আনাই রীতি | যার কাছে যত মাথা‚ সে তত বড় বীর |

Banglalive

সাতের দশক অবধি তাঁরা পরিচিত ছিলেন বীভৎস যুদ্ধবাজ জনজাতি হিসেবে | হেড হান্টিং তাঁদের কাছে সম্মান ও সাহসের প্রতীক | তাঁদের সাজপোশাকও চিত্র বিচিত্র | উজ্জ্বল পুঁতির গয়না আর ঘন জমাট নক্সার শাল তাঁদের পরনে থাকবেই | কানের লতি বিদ্ধ করে থাকে নিহত পশুর মোটা হাড় | মাথায় পরেন পশুদের হাড় দিয়ে তৈরি গয়না | বন্য শূকরের হাড়ে বানানো টুপিতে থাকে হর্নবিলের পালক আর ভাল্লুক বা ছাগলের লোম | আর একটি বৈশিষ্ট্য হল দেহ জুড়ে উল্কি | যত মাথা কেটে আনতে পারবে তত বাড়বে উল্কি | গোষ্ঠীপ্রধান বা রাজাকে নিবেদন করতে হবে শত্রুর মাথা  | তারপর রাজাই নির্দেশ দেবেন সম্মানসূচক উল্কি করাতে | কোনিয়াকরা যখন যুদ্ধে যেত সঙ্গে থাকত এক বিশেষ বাস্কেট | বন্য শূকরের হাড়ে বানানো সেই ঝুড়ি সাজানো হতো বাঁদরের খুলি আর হর্নবিলের ঠোঁট দিয়ে | নিহত শত্রুর মাথা কেটে ওতে রাখা হতো | ওই ঝুড়িতে করেই তা নিবেদন করা হতো গোষ্ঠীপ্রধানের কাছে |

কোনিয়াকদের বিশ্বাস ছিল‚ যদি কারও মাথা কেটে নিজের কাছে রাখা যায় তবে মৃত ব্যক্তির শক্তি চলে আসে নিজের মধ্যে | এমনকী মৃত ব্যক্তির আত্মাও বশ হয়ে থাকে | অনেক সময় কোনিয়াক বীরদের গলায় ব্রোঞ্জের নেকলেস থাকে | সেখানে খোদাই করা হয় কাটা মাথা | যে যত মাথা কেটেছে তার নেকলেসে তত কাটা মুণ্ড খোদাই করা থাকবে | 

উনিশ শতক অবধি ভারতের বাকি অংশের সঙ্গে কোনিয়াকদের সম্পর্ক ছিল না | বাইরের লোক তাঁদের কথা বিশেষ জানতও না | ব্রিটিশরা যখন প্রথম নাগাল্যান্ড অভিযান চালায়‚ প্রবল প্রতিরোধ করেছিল কোনিয়াকরা | কিন্তু শেষ অবধি হার মানতে হয় | তারপর ছবিটা উল্টে যায় | ব্রিটিশ রেজিমেন্টেই বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্থান পায় নাগা যোদ্ধারা | খ্রিস্টান মিশনারীরা প্রায় ৯৫% আদিবাসীকেই ধর্মান্তরিত করে | তবে অন্যান্য আদিবাসীদের তুলনায় কোনিয়াকরাই সবথেকে পরে আধুনিক সভ্যতাকে আপন করে নেয় | 

মিশনারীদের প্রভাবে ধীরে ধীরে হেড হান্টিং এর মতো নারকীয় প্রথা থেকে সরে আসে নাগা উপজাতিরা | কিন্তু শোনা যায় সাতের দশক অবধি তাদের মধ্যে চোরাগোপ্তা হেড হান্টিং চলত | 

আরও পড়ুন:  শান্তিনিকেতনে গুরুদেবের সান্নিধ্যে অন্তরাত্মায় ঘুঙুরের বোল‚ নূপুরের নিক্কণ শুনতে পেয়েছিলেন 'ঝাঁসির রানির বোন'

NO COMMENTS