এই অভিনেতার বাবা প্রথমে স্ত্রী ও মেয়েকে খুন করেন‚ পরে নিজে আত্মঘাতী হন !

কাজল বলিউড পা রেখেছিলেন বেখুদি ছবির মাধ্যমে | এই ছবিতে ওঁর বিপরীতে ছিলেন অভিনেতা কমল সাদনা | বক্স অফিসে এই ছবি সেইভাবে সফল হয়নি | কিন্তু কাজ্ল এবং কমল দুজনেরই অভিনয়ের প্রশংসা হয়েছিল | কমলকে এরপর দেখা যায় দিব্যা ভারতীর বিপরীতে রং ছবিতে | এই ছবি হিট হয় | এরপর বেশ কয়েকটা ছবিতে প্রধান নায়কের ভূমিকায় কমল কে দেখা যায় | কিন্তু সেইসব ছবি চলেনি | ৯ এর দশকের শেষে অভিনয় থেকে বিদায় নেন কমল | এরপর ২০০৬ সালে আবার উনি কামব্যাক করেন | এইবার ছোটপর্দার ধারাবাহিক কসম সে -তে প্রধান চরিত্রে দেখা যায় ওঁকে |

কমল হলেন স্বর্গীয় প্রযোজক এবং পরিচালক ব্রিজ সাদনার ছেলে | ১৯৯০ সালে ব্রিজ সাদনা খবরের শিরোনামে উঠে আসেন | ২১ অক্টোবার ১৯৯০ কমলের ২০তম জন্মদিনের দিন ব্রিজ সাদনা নিজের স্ত্রী এবং মেয়েকে খুন করেন | পরে নিজেও আত্মঘাতী হন |  ২৯ বছর আগে সেইদিন কমলের জীবন বদলে যায় |

কমল ওঁর বন্ধুদের সঙ্গে জন্মদিন উৎযাপন করছিলেন | এইসময় ওঁর বাবা মদ্যপ অবস্থায় প্রথমে ওঁর স্ত্রী সাইদা খান এবং তারপর মেয়ে নম্রতা কে গুলি করেন | কমলের গলাতেও গুলি লাগে | ওঁর এক বন্ধুও আহত হন | এরপর ওঁর বাবা নিজের ঘরে গিয়ে আত্মঘাতী হন |

পরে এই ব্যপারে কথা বলতে গিয়ে কমল বলেন সেই রাতে কী হয়েছিল সবাই আমার কাছে জানতে চায় | এখনো চোখের সামনে সব দেখতে পাই | মাঝেমাঝে মনে হয় সেইদিন ওঁদের সঙ্গে আমিও মারা গেলে ভাল হত | 

সেদিন আমার জন্মদিন ছিল | বাবা আর মায়ের সকালে একচোট ঝগড়া হয় | সন্ধ্যেবেলায় আমি বন্ধুদের সঙ্গে বেড়িয়ে যাই | মাঝরাতের একটু পরে আমি বন্ধুদের নিয়ে বাড়ি ফিরে আসি | আমরা ঘরে বসে গল্প করছিলাম | হঠাৎ গুলির আওয়াজ শুনে আমরা ঘর থেকে বেড়িয়ে আসি | আমার বন্ধু হ্যারি আর রিজভি আমাদের হাসপাতালে নিয়ে যায় | ততক্ষণে আমার মা‚ বোন আর বাবা মারা গেছে |

এর বেশ কিছু বছর বাদে কমল নিউ ইয়র্ক ফিল্ম অ্যাকাডেমি-র একটা ওয়ার্কশপে অংশগ্রহণ করেন | সেখানে উনি এই ঘটনার ওপর একটা সাত মিনিটের শর্ট ফিল্ম বানান | ওঁর শিক্ষকদের কাছ থেকে উনি এই ছবির জন্য প্রসংশিত হয়েছিলেন | প্রেম চোপড়া কে ওঁর বাবার চরিত্রে অভিনয় করতে দেখা গেছিল | 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here