সংসারের হাল ধরতে বাবার রাখা ক্ষুর-কাঁচিই হাতে তুলে নিল দুই কন্যা

155

সমাজই মানুষকে যুগ যুগ ধরে জানিয়ে দিয়েছে কোন কাজগুলো করবে পুরুষ আর কোন কাজগুলো নারীর | নারী সামলাবে ঘর‚ আর পুরুষ সামলাবে ঘরের বাইরের কাজ  এমন ধারণায় আজও বিশ্বাস করেন বহু মানুষ | কিন্তু চিরাচরিত ধ্যানধারণাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে নারীও নেমে পড়েছে পৃথিবীর কর্মক্ষেত্রে | আর তারই উদাহরণ উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরের দুই কন্যা |

২০১৪ তে ১১ বছরের নেহা ও ১৩ বছরের জ্যোতির বাবা ধ্রুবনারায়ণের স্ট্রোক হওয়ার পর তিনি প্যারালইসিসড হয়ে পড়েন | সহায় সম্বলহীন দুই বোনের কাছে শয্যাগত বাবার সেলুনটি চালানো ছাড়া রুজি রোজগারের আর কোনও পথ খোলা ছিল না | মেয়ে হয়েও সেলুন চালাবার খোঁটা থেকে নিজেদেরকে বাঁচাতে নিজেদের চুলই ছেলেদের মত ছোট করে কেটে পুরুষের মত সাজসজ্জায় সেলুনের গ্রাহকদের চুল  দাড়ি কাটার কাজে লেগে পড়ে দুই মেয়ে |

সেলুনের যাবতীয় খরচ ও ভাড়া মিটিয়ে দিনে ১০ ঘন্টা কাজ করে একশো  দুশো টাকা রোজগার করত দুই বোন | বছরের পর বছর নিজের মেহনতে গ্রাহক সংখ্যা বাড়িয়ে এখন দিনে প্রায় চারশো থেকে পাঁচশো টাকার মত রোজগার হয় তাদের | তাদের চূড়ান্ত দুর্দশার দিনে আঞ্চলিক রাজনীতিবিদ বা জেলার কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে কেউই তাদের সাহায্য করতে আসেননি | আঞ্চলিক কিছু সংবাদ মাধ্যম তাদের সংগ্রামের কাহিনি মানুষের সামনে আনলে তা মানুষের নজর কাড়ে | সাহায্যের হাত বাড়তে এগিয়ে আসেন কুশিনগর এলাকার মহকুমা শাসক অভিষেক পান্ডে এবং স্থানীয় সাংসদ মানি ত্রিপাঠি | তাঁরা দুই বোনকে অর্থ সাহায্য করেন | তাছাড়াও মহকুমা শাসক অভিষেক পান্ডে জানান যে মেয়েরা যাতে সব কাজেই এগিয়ে যেতে পারে তাই এই সাহায্য | তিনি জানিয়েছেন নেহা ও জ্যোতি যাতে একটি বিউটি পার্লার খুলে তাতে কাজ করতে পারে তার জন্য রাজ্য প্রশাসনের কাছে আবেদন জানাবেন তিনি |

অজুহাত দিয়ে কাজ এড়িয়ে যাওয়া মানুষদেরকে যথাযোগ্য শিক্ষা দিতে পারে এই দুই হার  মানা  মেয়ে |

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.