ক্লাসরুমে গরু‚ গাছতলায় পড়াশোনা

106

গত বছর ডিসেম্বর মাসে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বেওয়ারিশ গরুগুলির জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে বলে সমস্ত জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেন৷ তিনি এর জন্য বেঁধে দিয়েছিলেন এক সপ্তাহ সময় ৷ একই সঙ্গে জেলা পঞ্চায়েত স্তরে ৭৫০ টি গোশালা তৈরির নির্দেশও দেন তিনি৷ আর তারপরেই ছাত্রছাত্রী এবং শিক্ষকদের স্কুল খালি করে দিতে বলা হয়। স্কুলের ক্লাসরুম ছেড়ে ক্যাম্পাসের বাইরেই ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে ক্লাস করাতে বাধ্য হন শিক্ষকরা।

স্কুলে গরু রাখার জন্য ছাত্রছাত্রী এবং শিক্ষকদের বার করে দেওয়া হয়েছে এমন অভিযোগ উঠেছে উত্তরপ্রদেশের কুন্দনা গ্রামে। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, স্থানীয় বাসিন্দারা বুধবার গ্রামের প্রাইমারি স্কুলে জোর করে গরুগুলি নিয়ে ঢুকে পড়েন। ছাত্রছাত্রী এবং শিক্ষকদের বলা হয় স্কুল খালি করে দিতে। থেকে স্কুলের বাইরে চলছে পড়াশুনা৷ এই ঘটনার জেরে শিক্ষা দফতরের তরফ থেকে এফআইআরও দায়ের করা হয়।

বিষয়টি জানাজানি হতে নড়েচড়ে বসেছে জেলা শিক্ষা দফতর ও স্থানীয় প্রশাসন৷ পুলিশ ৮০ জন গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছে৷ অতিরিক্ত জেলাশাসক জিতেন্দ্র কুমার কুশওয়াহা জানান, ঘটনায় যুক্তদের বিরুদ্ধে নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা৷

প্রসঙ্গত, স্কুলের মধ্যে বেওয়ারিশ গরুদের আটকে রাখার ঘটনা এই প্রথম নয়৷ কয়েকদিন আগে মুজফফরনগরেও একই ঘটনা ঘটে৷ সেখানেও গ্রামবাসীরা স্কুলের মধ্যেই আটকে রাখে বেওয়ারিশ গরুদের৷ ইতিমধ্যে গোশালা নির্মাণে পঞ্চায়েতগুলিকে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার৷

Advertisements

1 COMMENT

  1. হাস্যকর কান্ডকারখানা! কউতুকও হার মানে!
    হালারা রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে আবাল মানুষদের দ্বারা গরুর বোঝা নীরিহ মানুষের ঘাড়ে চাপাচ্ছে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.