উজান স্রোতে গা ভাসিয়ে রিসেপশনে ঈষার জরিদার লেহঙ্গার জুড়ি মেলা ভার

উজান স্রোতে গা ভাসিয়ে রিসেপশনে ঈষার জরিদার লেহঙ্গার জুড়ি মেলা ভার

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

ঈষা- আনন্দ-এর বিয়ের মেনু থেকে শুরু করে আগত অতিথি, সাজগোজ থেকে শুরু করে বিয়ের ভেন্যু- সবেতেই ছিল চমক । বলা চলে এই বছরে যত সেলিব্রিটি তারকা বিয়ে করেছেন, তাঁদের মধ্যে আম্বানি-কন্যার বিয়ের এই বছরের সব থেকে চর্চিত বিয়ের অনুষ্ঠান ছিল গত এক বছরে ।

বিয়ের সাজগোজ নিয়ে এই বছরে বেশিরভাগ তারকাই ঝুঁকেছিলেন ডিজাইনার সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের ডিজাইন করা লেহেঙ্গায় । কিন্তু আম্বানি কন্যা পরখ করে দেখলেন অন্যকিছু । স্রোতের বিপরীতে গা ভাসিয়ে তিনি গত সপ্তাহে তাঁদের মুম্বই রিসেপশনের জন্য বেছে নিয়েছিলেন ইতালীয় ডিজাইনার মাইসন ভ্যালেনটিনো-এর ডিজাইন করা একটি সোনালি লেহেঙ্গা, যা ওই বিশেষ দিনে সকলেরই নজর কেড়েছিল । ঈষার কাস্টমাইজ করা এই বিশেষ ফ্লোরাল লেহেঙ্গাতে ছিল সোনালি জরির নিখুঁত কাজ । সেইসঙ্গে ব্লাউজে ছিল ভারী অ্যান্টিক জরির কাজ । সেইসঙ্গে নববধু পরেছিলেন ভারী জরির কাজ করা সোনালি রঙের একটি জমকালো দোপাট্টা । কাস্টমাইজ লেহেঙ্গার সঙ্গে কনের পরনে ছিল হিরের গহনা এবং সঙ্গে সাদা রঙের চুড়া।

মাইসন ভ্যালেনটিনো সারা বিশ্বে খুবই পরিচিত একজন ডিজাইনার। শুধু রিসেপশনেই নয়, উদয়পুরে তাঁর প্রাক-বিবাহের অনুষ্ঠানেও তিনি বেছে নিয়েছিলেন ভ্যালেনটিনোর ডিজাইন করা  গাউন। বিয়ের দিন অবশ্য তিনি বেছে নিয়েছিলেন আবু জানি ও সন্দীপ খোসলার ডিজাইন করা লেহেঙ্গা। তাঁদের বিয়ের অনুষ্ঠান-জুড়ে সোনালি রঙ ঘুরে ফিরে এসেছে বারবার । বলাবাহুল্য প্রতিটি সাজে একদিকে যেমন ছিল নতুনত্বের ছোঁয়া, তেমনি নববধূকে লাগছিলও চমৎকার।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।