মধুর নামে কী খাচ্ছেন? জেনে নিন ভেজাল মধু চেনার উপায়

মধুর নামে কী খাচ্ছেন? জেনে নিন ভেজাল মধু চেনার উপায়

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

প্রাচীনকাল থেকেই গ্রিস ও মিশরে ক্ষত সারানোর কাজে মধু ব্যবহৃত হয়ে আসছে। মধু কখনও নষ্ট হয় না। মধু একটি উচ্চ ঔষধিগুণ সম্পন্ন ভেষজ তরল। এতে রয়েছে একাধিক রোগ নিরাময়ের ক্ষমতা। মধুর স্বাস্থ্যগত উপকারিতা সম্পর্কে কম বেশি আমরা সবাই জানি। পিত্ত থলির সংক্রমণ রোধ করতে, বাতের ব্যথায়, মুখের দুর্গন্ধ কাটাতে, এমনকি শরীরের বাড়তি ওজন কমাতেও মধু খুবই কার্যকরী উপাদান। বর্তমানে আমরা সকলেই কম-বেশি মধু ব্যবহার করে থাকি। তবে কি করে জানবেন যে মধু আপনি খাচ্ছেন, সেটি খাঁটি কিনা? এখন বাজারে নানান রঙের মোড়কে মধু পাওয়া যায়। খাঁটি মধুর নাম দিয়ে ভেজাল, রাসায়নিকযুক্ত উপাদান বিক্রি করাও এখন খুব স্বাভাবিক একটা ঘটনা। শুধু তাই নয়, অনেক নামী সংস্থার প্রক্রিয়াজাত মধুতেও ভেজাল থাকে। তবে জেনে নেওয়া যাক খাঁটি মধু চিনে নেওয়ার কয়েকটি সহজ উপায়।

১) মধুর স্বাদ মিষ্টি হয়, এতে কোনও ঝাঁঝালো ভাব থাকে না।

২) গ্লাসে বা বাটিতে খানিকটা জল নিয়ে তাতে এক চামচ মধু দিন। যদি মধু জলের সঙ্গে সহজেই মিশে যায়, তাহলে বুঝবেন যে এটা অবশ্যই নকল। আসল মধুর ঘনত্ব জলের চাইতে অনেক বেশী, তাই তা সহজে মিশবে না। এমনকি নাড়া না দিলেও মধু জলে মিশবে না।

৩) মধুতে কখনও উগ্র গন্ধ থাকবে না। খাঁটি মধুর গন্ধ হবে মিষ্টি ও আকর্ষণীয়।

৪) বেশ কিছুদিন ঘরে রেখে দিলে মধুতে চিনি জমতেই পারে।  এবার কন্টেনার-সহ মধু গরম জলে কিছু ক্ষণ রেখে দেখুন, চিনি গলে মধু আবার স্বাভাবিক হয়ে এলে বুঝবেন সেটি খাঁটি মধু, নকল মধুর ক্ষেত্রে এটা হবে না।

৫) এক টুকরো ব্লটিং পেপার নিয়ে তাতে কয়েক ফোঁটা মধু দিন। যদি কাগজ সম্পূর্ণ তা শুষে নেয়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়।

৬) এক টুকরো সাদা কাপড়ে মধু মাখান। আধ ঘণ্টা রাখুন। তারপর জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। যদি দাগ থেকে যায়, বুঝবেন মধুটি খাঁটি নয়।

৭) একটি মোমবাতি নিয়ে তার সলতেটি ভালভাবে মধুতে ডুবিয়ে নিন। এবার আগুন দিয়ে জ্বালাবার চেষ্টা করুন। যদি জ্বলে ওঠে, তাহলে বুঝবেন যে মধু খাঁটি। আর যদি না জ্বলে, বুঝবেন যে মধুতে জল মেশানো আছে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

2 Responses

  1. যে সব পরীক্ষা গুলির কথা লিখেছেন, সেগুলো নিশ্চিত? খাঁটি মধুর নামে যে সব পরীক্ষার কথা লিখেছেন, সেই সব তথ্যের উৎস জানতে চাই।

  2. মধুতে পানি মিশালে তবুও হয়তো মানতে পারতাম। কিন্তু সুগার সিরাপ মিশালে কিভাবে মেনে নেবো? আজকাল তো এইটাই চলছে।

Leave a Reply

pandit ravishankar

বিশ্বজন মোহিছে

রবিশঙ্কর আজীবন ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের প্রতি থেকেছেন শ্রদ্ধাশীল। আর বারে বারে পাশ্চাত্যের উপযোগী করে তাকে পরিবেশন করেছেন। আবার জাপানি সঙ্গীতের সঙ্গে তাকে মিলিয়েও, দুই দেশের বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলিত ব্যবহার করে নিরীক্ষা করেছেন। সারাক্ষণ, সব শুচিবায়ু ভেঙে, তিনি মেলানোর, মেশানোর, চেষ্টার, কৌতূহলের রাজ্যের বাসিন্দা হতে চেয়েছেন। এই প্রাণশক্তি আর প্রতিভার মিশ্রণেই, তিনি বিদেশের কাছে ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের মুখ। আর ভারতের কাছে, পাশ্চাত্যের জৌলুসযুক্ত তারকা।

Pradip autism centre sports

বোধ