তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পাওয়ার নানা উপায়

619

সবরকমের ত্বকের নিজস্ব কিছু বৈশিষ্ট্য ও সমস্যা থাকে। যেরকম অয়েলি স্কিন বা তৈলাক্ত ত্বকেরও আছে। যাদের তৈলাক্ত ত্বক হয় তাদের ত্বকে তেলতেলে একধরণের জিনিস জমে থাকে। এর ফলে ত্বক দেখতে চকচকে লাগে। ত্বকে অতিরিক্ত তেল জমার ফলে হোয়াইট হেডস‚ ব্ল্যাক হেডস‚ ব্রণ ইত্যাদি নানা সমস্যা দেখা যায়। আবার তৈলাক্ত ত্বক হওয়ার একটি সুবিধা হল তৈলাক্ত ত্বকে চট করে বলিরেখা পড়েনা। তৈলাক্ত ত্বকের নানা সমস্যার সমাধানে কাজে আসতে পারে এমন কয়েকটি উপায় জেনে নেওয়া যাক।

১. সারাদিনে অন্তত ২ বার ভাল করে ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন যাতে মুখে কোনো ধুলোময়লা বা তেল জমে না থাকতে পারে। এতে আপনার মুখের রোমকূপ পরিষ্কার থাকে এবং মুখের ত্বক মসৃন হয়। রাতে শুতে যাওয়ার আগে মুখের মেকআপ ভালো করে তুলে শুতে যান।

২. রোজকার খাদ্যতালিকায় প্রোটিনযুক্ত খাবার রাখুন। রাখুন প্রচুর পরিমাণে  শাকসবজি ও ফল। ভিটামিন বি ২ ত্বকের অতিরিক্ত তেল দূর করতে সাহায্য করে। খাদ্যতালিকায় ভিটামিন বি ২ সমৃদ্ধ খাবার রাখার চেষ্টা করুন।

৩. চিনি এবং ফ্যাটজাতীয় খাবার কম খাওয়ার চেষ্টা করুন। চকোলেট, তেলে ভাজা খাবার, অ্যালকোহল জাতীয় খাবার বর্জন করুন।

৪. মহিলাদের গর্ভধারণের সময়, পিরিয়ডসের আগে বা পরে সেবাসিয়াস গ্রন্থিতে চাপ পড়ে যার ফলে তৈলক্ষরণ বাড়ে। বেশি মাত্রায় চিন্তা করলে শরীরে অ্যান্ড্রোজেন হরমোন তৈরী হয়। এই হরমোনও ত্বকে তেলের পরিমাণ বৃদ্ধি করে।

৫. মুখ ধোয়ার পর অবশ্যই ভাল কোনও টোনার ব্যবহার করবেন | যাঁদের ত্বক তৈলাক্ত তাদের কখনওই তৈলাক্ত ক্রিম ব্যবহার করা উচিত নয় | বরং ব্যবহার করুন জেল বেসড কোনও ক্রিম | বাড়ি থেকে বেরোনোর আগে সানস্ক্রিন কিন্তু অবশ্যই লাগাবেন

৬. শশা তৈলাক্ত ত্বক নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এর ভিটামিন ও পটাসিয়াম তৈলাক্ত ত্বকের জন্য উপকারী। রাতে শুতে যাওয়ার আগে কয়েকটি শশার টুকরো নিয়ে মুখে ভালো করে ঘষুন। সকালে হালকা গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। অথবা, শশা ও পাতিলেবুর রস দিয়ে একটি মিশ্রণ বানান ও এই মিশ্রণ মুখে – হাতে লাগান। মুখের ব্রণ ও সানট্যান দূর করার জন্যও এই মিশ্রণ খুব উপকারী। তৈলাক্ত ভাব কমবে।

৭. ত্বকের জন্য টমেটো খুব উপকারী। এটি ত্বককে পরিষ্কার এবং ঠান্ডা রাখতে সাহায্য করে। টমেটোতে থাকা অ্যাসিড ত্বকের অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করে। একটি টমেটোর টুকরো কেটে নিয়ে মুখে ঘষুন। ১৫ মিনিট পর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৮. দই ত্বকের মৃত চামড়া উঠিয়ে ত্বকের অতিরিক্ত তেল শুষে নিতে সাহায্য করে। মুখে ভাল করে দই লাগান। ১৫ মিনিট রেখে ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অথবা, দইয়ের সাথে ওটমিল ও মধু মিশিয়ে সেই মিশ্রণ মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পর হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। তৈলাক্ত ভাব কমতে দেখবেন।

৯. কাঁচা ডিমের সাদা অংশ ভাল করে ফেটিয়ে নিয়ে সারা মুখে লাগান এবং শুকোতে দিন। কিছুক্ষণ রেখে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অথবা ডিমের সাদা অংশের সঙ্গে পাতিলেবুর রস মিশিয়ে একটি মিশ্রণ বানিয়ে মুখে লাগান। ১৫ মিনিট রেখে হালকা গরম জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ত্বকের তৈলাক্ত ভাব কমবে।

১০. মুলতানি মাটির সঙ্গে জল মিশিয়ে নিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে নিন। এই মিশ্রণটি আপনার তৈলাক্ত ত্বকে ভাল করে লাগান। পুরোপুরি শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। তৈলাক্ত ভাব কমাতে সাহায্য করবে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.