শরীরের হাজারো সমস্যার সমাধানে অব্যর্থ থানকুনি পাতা

1977

থানকুনি পাতা আমাদের অতিপরিচিত ভেষজ গুণসম্পন্ন উদ্ভিত। গ্রামাঞ্চলে এই পাতার ব্যবহার বহু প্রাচীনকাল থেকেই হয়ে আসছে। ছোট্ট ছোট্ট এই পাতার মধ্যে রয়েছে এমন সব ভেষজ গুণাগুণ যা শরীরের নানার সমস্যার সমাধানে ভীষণ কার্যকর। দেখে নেওয়া যাক থানকুনি পাতার উপকারিতা।
* চুল পড়ার হার কমে- বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে সপ্তাহে ২-৩ বার থানকুনি পাতা খেলে মাথার তালুতে পুষ্টির সঞ্চার ঘটে। ফলে চুল পড়ার মাত্রা কমতে শুরু করে। এছাড়াও পরিমাণ মতো থানকুনি পাতা নিয়ে তা থেঁতো করে নিতে হবে। তারপর তার সঙ্গে পরিমাণ মতো তুলসি পাতা এবং আমলকির রস মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে তা চুলে লাগালেও খুব উপকার পাওয়া যায়।

* ক্ষতের চিকিৎসায় থানকুনি- শরীরের কোনও অংশ কেটে গেলে সঙ্গে সঙ্গে সেখানে অল্প করে থানকুনি পাতা বেঁটে লাগিয়ে নিলে নিমেষে আরাম পাওয়া যাবে।

* হজম ক্ষমতার বৃদ্ধি করে- গবেষণায় দেখা গিয়েছে থানকুনি পাতায় উপস্থিত একাধিক উপকারি উপাদান হজমে সহায়ক অ্যাসিডের ক্ষরণ যাতে টিক মতো হয় সেদিকে খেয়াল রাখে। ফলে বদ-হজম এবং গ্যাস-অম্বলের মতো সমস্যা সমাধানে থানকুনি পাতা বিশেষভাবে সাহায্য করে।

* আমাশয়ের সমস্যা দূর হয়- প্রতিদিন সকালে খালি পেটে নিয়ম করে থানকুনি পাতা খেতে হবে। এমনটা টানা ৭ দিন যদি করতে পারলেই এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যেতে পারে।

* পেটের রোগের চিকিৎসায় থানকুনি- প্রত্যেকদিন থানকুনি পাতা বেটে তা ভাতের পাতে খেলে যাবতীয় পেটের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

* গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করে-
আপনাদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন যারা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগের। তাঁদের জন্য থানকুনি পাতা অব্যর্থ ঔষধি। হাফ লিটার দুধে ২৫০ গ্রাম মিছরি এবং অল্প পরিমাণে থানকুনি পাতার রস মিশিয়ে একটা মিশ্রন তৈরি করে নিয়ে প্রতিদিন সকালে খেলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.