একলব্য মানেই গুরুদক্ষিণা ? তবে পড়ুন শ্রীকৃষ্ণের এই খুড়তুতো ভাইয়ের কী পরিণতি হয়েছিল !

একলব্য মানেই গুরুদক্ষিণা ? তবে পড়ুন শ্রীকৃষ্ণের এই খুড়তুতো ভাইয়ের কী পরিণতি হয়েছিল !

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

মহাভারতের গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র একলব্যকে আমরা মনে রাখি শুধু তাঁর গুরুদক্ষিণা দিয়ে | কিন্তু দ্রোণাচার্যের সামনে ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ বিসর্জন দিয়েই শেষ হয়ে যায় না একলব্য-পর্ব | চোখ রাখব সেদিকেই |

কোনও কোনও পৌরাণিক সূত্র বলে‚ একলব্যর বাবা দেবশ্রব ছিলেন কৃষ্ণের জনক বাসুদেবের ভাই | কিন্তু তিনি ছোটবেলায় হারিয়ে যান বনে | তাঁকে বড় করেন নিষাদ রাজ হিরণ্যধনু | ফলে‚ সম্পর্কে শ্রীকৃষ্ণের খুড়তুতো ভাই একলব্য বড় হয়ে ওঠে নিষাদপুত্র হিসেবেই |

তিনি ছিলেন অর্জুনের থেকেও উন্নত তিরন্দাজ | তাই‚ শিষ্য অর্জুনের শ্রেষ্ঠত্ব রক্ষা করতে এবং তার ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করতে দ্রোণাচার্য স্থির করেন‚ একলব্যের তিরন্দাজি বন্ধ করতে হবে | কোনও ঝুঁকি না নিয়ে তিনি গুরুদক্ষিণা চেয়ে বসেন একলব্যের ডান হাতের বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ |

একলব্য গুরুদক্ষিণা দিলেও তাঁর কাছে স্পষ্ট হয় দ্রোণের অভিসন্ধি এবং উদ্দেশ্য | এবং তিনি জানতে পারেন এর পিছনে সক্রিয় শ্রীকৃষ্ণের ক্ষুরধার বুদ্ধি | একলব্য এবং সমগ্র নিষাদজাতি জরাসন্ধের অনুগামী হয়ে ওঠেন | জরাসন্ধ ছিলেন কৃষ্ণের চিরশত্রু |

এদিকে বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ হারিয়েও একলব্য তিরন্দাজিতে ব্রতী ছিলেন | ওইভাবেও তিনি অর্জুনকে টেক্কা দিতে চেয়েছিলেন |  শ্রীকৃষ্ণ বুঝলেন‚ একলব্য যাদব এবং কুরু‚ দুই বংশের সামনেই ভবিষ্যৎ-ত্রাস |

জরাসন্ধের পক্ষ নিয়ে শ্রীকৃষ্ণকে দ্বৈরথে আহ্বান করেন একলব্য | সম্মুখ সমরে তিনি নিহত হন‚ তুতো ভাই শ্রীকৃষ্ণের হাতে | একলব্যের দর্প হরণ করে এভাবেই ধর্ম প্রতিষ্ঠা করেছিলেন কৃষ্ণ |

কিংবদন্তি বলে‚ মৃত্যুকালে একলব্যকে বর দেন শ্রীকৃষ্ণ | বলেন‚ পরজন্মে একলব্য দ্রোণের ঘাতক হবেন | এবং সেই বরেই একলব্য পরজন্মে জন্মগ্রহণ করেন ধৃষ্টদ্যুম্ন রূপে | কুরুক্ষেত্র যুদ্ধে দ্রুপদ-পুত্র ধৃষ্টদ্যুম্নের হাতে নিহত হন দ্রোণাচার্য |

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।