সিদ্ধিদাতা গণেশের একটা গজদন্ত ভাঙা কেন ?

2178

গণেশের দেহে বসেছিল হস্তি শাবকের মস্তক | এই নিয়ে এখন তৈরি হয়েছে নতুন তত্ত্ব | যে‚ সেই বৈদিক যুগেও ভারতবর্ষে ছিল প্লাস্টিক সার্জারি | কিন্তু আমরা কি ভেবে দেখেছি গণেশ কেন একোদন্ত ? তাঁর এক দাঁত ভাঙা কেন ? হাতিদের তো দুটো দাঁত থাকে |

গণেশের একটা দাঁত খোয়া যাওয়া নিয়ে বহু গল্প প্রচলিত | প্রথমেই উল্লেখ করা যাক বহুল প্রচলিত তত্ত্বের |

মহাঋষি বেদব্যাস স্থির করলেন তিনি রচনা করবেন মহাভারত | কিন্তু শ্লোক রচনা করে অত বড় মহাকাব্য লেখা তো কঠিন | তাই‚ বেদব্যাস শরণাপন্ন হলেন ব্রহ্মার | তিনি পরামর্শ দিলেন‚ গণেশের সাহায্য নিতে |

সেইমতো তপস্যায় বসলেন বেদব্যাস | সন্তুষ্ট হয়ে আবির্ভূত হলেন মহাজ্ঞানী গণেশ | বেদব্যাসকে সাহায্য করতে সম্মত হলেন তিনি | কিন্তু শর্ত রাখলেন‚ বেদব্যাস এক লহমার জন্যও থামতে পারবেন না | থামলেই গণেশ বন্ধ করবেন রচনা |

বিপদ বুঝে পাল্টা শর্ত রাখলেন বেদব্যাসও | বললেন‚ তিনি থামবেন না | কিন্তু গণেশকেও সব শ্লোক বুঝে লিখতে হবে | আগে বুঝতে হবে | তারপর লিখতে হবে | তাতে সম্মত হলেন গণপতি |

এরপর শুরু হল মহাভারত লেখা | বেদব্যাস ইচ্ছে করে জটিল শ্লোক রচনা করে বলতে লাগলেন | বুঝতে সময় নিলেন গণেশ | এতে বেদব্যাস সময় পেয়ে গেলেন পরবর্তী শ্লোক রচনার |

এইভাবে একদিকে ব্যাস বলে চলেন | পার্বতী-পুত্র লিখে চলেন | লিখতে লিখতে পালকের কলম গেল ভেঙে | এ বার উপায় ? থামলে তো চলবে না | তাই গণেশ নিজের একটি দাঁত ভেঙে নিলেন | সেটাই হল মহাভারত লেখার কলম | যতই লেখো না কেন‚ গজদন্ত তো আর ভাঙবে না !

এভাবে লম্বোদরের দাঁত দিয়ে লেখা হল পৃথিবীর বৃহত্তম মহাকাব্য | মহাভারতে আছে হাজারের বেশি শ্লোক | শব্দসংখ্যা ১.৮ মিলিয়নেরও বেশি | ভারতীয় পুরাণে এই আখ্যান আত্মত্যাগের এক নজির |

গণেশের দাঁত ভাঙা নিয়ে আছে আরও তত্ত্ব | তার সঙ্গেও জড়িত আত্মত্যাগ | কথিত‚ শিবের বরে বলীয়ান হয়ে পরশুরাম ক্ষত্রিয় নিধন করেন | শিবকে কৃতজ্ঞতা জানাতে কৈলাস পর্বতে যান |

কিন্তু সেখানে ঢুকতে বাধা পান পরশুরাম | পাহারারত গণেশ জানান‚ শিব তখন নিদ্রামগ্ন | পরশুরামকে পরে আসতে হবে | এতে কুপিত পরশুরাম গণেশকে আক্রমণ করেন | গণেশও সমানে সমানে লড়াই করতে থাকেন | কিন্তু শেষ অবধি পরশুরাম প্রয়োগ করেন নিজের কুঠার | কোনও বাধা দেননি গণেশ | কারণ‚ কুঠারটি দিয়েছিলেন স্বয়ং মহাদেব | বিনা প্রত্যাঘাতে কুঠারাঘাতে ভেঙে পড়ল গণেশের একটি দাঁত | এখানেও আত্মত্যাগ | বাবার সম্মান ক্ষুণ্ণ না করতে প্রত্যাঘাতে বিরত থাকেন গণেশ | কার্যত উৎসর্গ করেন নিজের অঙ্গ |

সেই থেকে গণেশের নাম একোদন্ত | কিন্তু ভাবতে আশ্চর্য লাগে‚ গণেশের এত আত্মত্যাগের নিদর্শন থাকলেও তিনি হয়ে গেলেন ব্যবসা-বাণিজ্যের সিদ্ধিদাতা দেবতা |

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.