মুম্বইয়ের রাস্তা থেকে নিজের বিকিনি পরা ছবির পোস্টার হঠাতে নেমেছিলেন শর্মিলা ঠাকুর‚ জানেন কেন?

শর্মিলা ঠাকুর আর ক্রিকেটার মনসূর আলি খান পতৌদির প্রেম এবং বিয়ে তখনকার দিনে সব ছকবাঁধা হিসেব ভেঙে দেয় | এমনকী ওঁদের বিয়ের পর অনেকেই ভেবেছিল ওঁদের বিয়ে বেশিদিন টিকবে না | কিন্তু শর্মিলা আর পতৌদির প্রেম‚ একে অপরের প্রতি বিশ্বাস এবং বোঝাপড়া এতটাই দৃঢ় ছিল যে মনসূরের মৃত্যু অবধি তা কেউ ভাঙতে পারে নি | ৪২ বছর ঘর করার পর ২০১১ সালে মনসূর আলি খান পতৌদির মৃত্যুতে সে সম্পর্কে ছেদ পড়ে | যাই হোক‚ আজকে ওঁদের ফেয়ারি টেল লাভ স্টোরির একটা অধ্যায়ের কথা বলবো | যা শোনার পর বুঝতে পারবেন ওঁদের প্রেমের গভীরতা |

সালটা ১৯৬৭‚ শর্মিলা আর মনসূর তখন ডেট করছেন | এই সময় অ্যান ইভনিং ইন প্যারিস ছবি মুক্তি পাওয়ার কথা | শক্তি শামন্তের পরিচালিত এই ছবিতে শর্মিলার বিপরীতে ছিলেন শম্মি কাপুর | আর এই ছবিতে শর্মিলাকে প্রথমবার বিকিনি পরে দেখা যায় | ওই সময় বিকিনি পরার চল একেবারেই প্রায় ছিল না | তাই বলাই বাহুল্য শর্মিলার জন্য এটা বেশ সাহসী পদক্ষেপ ছিল | ছবির মুক্তির আগে মুম্বইয়ের পথঘাট ছেয়ে গেল শর্মিলার বিকিনি পরা ছবির পোস্টারে | যাই হোক‚ এইসময় শর্মিলা জানতে পারলেন মনসূরের মা সাজিদা সুলতান মুম্বইতে আসছেন শর্মিলার সঙ্গে দেখা করতে | এই খবরে বেশ চিন্তায় পড়লেন শর্মিলা |

সাজিদা সুলতান বেশ গোঁড়া ছিলেন | উপরন্তু উনি রাজপরিবারের বেগম | ওঁর প্রথম থেকেই শর্মিলার সঙ্গে মনসূরের মেলামেশা খুব একটা পছন্দ ছিল না | এর ওপর উনি যদি শর্মিলার বিকিনি পরা পোস্টার দেখেন তাহলে তার পরিণতি কী হতে পারে তা ভালোই আন্দাজ করতে পেরেছিলেন শর্মিলা |

মনসূর তখন পতৌদির নবাব | উনি আগে থেকেই শর্মিলার সিনেমাতে বিকিনি পরার কথা জানতেন | কিন্তু উনি বরাবর শর্মিলার কাজকে সম্মান করেছেন | তাছাড়া শর্মিলার অভিনয় জীবনে উনি কোনদিন হস্তক্ষেপও করেন নি | কিন্তু তাও শর্মিলা কোনরকম রিস্ক নিতে রাজি হলেন না | উনি এই ছবির প্রযোজকের সঙ্গে কথা বলে রাতারাতি বিকিনি পরা পোস্টার সরিয়ে ফেলার ব্যবস্থা করলেন মুম্বইয়ের রাস্তা থেকে |

শর্মিলা তখন একটা সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন‚ উনি মনসূরের সঙ্গে সম্পর্ক বাঁচানোর জন্য নাকি সব কিছুই করতে রাজি ছিলেন | সত্যি ! একেই হয়তো প্রকৃত ভালোবাসা বলে !

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here