প্রাক্তন প্রেমিককে ৭ দিনে ৭৭ হাজার ৬৩৯ বার ফোন করে গ্রেপ্তার তরুণী

প্রাক্তন প্রেমিককে ৭ দিনে ৭৭ হাজার ৬৩৯ বার ফোন করে গ্রেপ্তার তরুণী

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

মেক্সিকোর এক তরুণী তাঁর প্রাক্তন প্রেমিককে এক সপ্তাহে ৭৭ হাজার ৬৩৯ বার ফোন করার কারণে গ্রেফতার হয়েছেন পুলিশের হাতে। তরুণীর নাম লিন্ডা মারফি। উইলিয়াম রায়ানস নামের এক যুবকের সঙ্গে তাঁর আলাপ হওয়ার কিছুদিনের মধ্যে তা গড়ায় প্রণয়ে।

ব্যক্তিগত কিছু সমস্যার কারণে সম্পর্কটি কয়েক দিনের মধ্যেই ভেঙে যায়। উইলিয়াম এই সম্পর্কের জের বেশিদিন টানতে চাননি। তবে লিন্ডা ব্রেক আপ হয়ে যাওয়ার কয়েকদিন পরেই সম্পর্ক পুনঃস্থাপন করতে চেয়েছিলেন। সে জন্যই তিনি উইলিয়ামকে ফোন করেন। সমস্যার শুরু হয় সেখান থেকেই।

লিন্ডা-র কোনও ফোন রিসিভ করেননি উইলিয়াম। এরপরেই ফোনে এভাবে বিরক্ত করার জন্য পুলিশের দ্বারস্থ হন উইলিয়াম। লিন্ডার ফোনের কল-হিস্ট্রি পরীক্ষা করে পুলিশ জানতে পারে এক সপ্তাহে ৭৭ হাজার ৬৩৯ বার ফোন করেছে লিন্ডা । পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখে বুঝতে পারে যে, উইলিয়ামের অভিযোগ সত্য। এরপর আলবুকারিন পুলিশ ডিপার্টমেন্ট গ্রেফতার করে লিন্ডাকে।

পুলিশি জেরায় লিন্ডা জানিয়েছেন, তিনি তিনটি ফোন থেকে একসঙ্গে উইলিয়ামের বাড়ির ল্যান্ডলাইন, মোবাইল আর অফিসের ফোনে ক্রমাগত ফোন করেন। দিনে সবসময় ফোন করতেন তিনি একবার উইলিয়াম-এর সঙ্গে একবার কথা বলার জন্য। রাত জেগে ফোন করার জন্য এক বিশেষ ধরনের এনার্জি ড্রিংক ও ওষুধ খেতেন লিন্ডা।


লিন্ডা আরও জানিয়েছেন, শুধু ফোন নয়, এই এক সপ্তাহের মধ্যে উইলিয়ামকে তিনি মোট ১৯৩৭ টি ই-মেইল, একচল্লিশ হাজার ২২৯টি মেসেজ, ২১৭টি ভয়েস মেসেজ এবং ৬৪৭ টি চিঠিও পাঠিয়েছেন তিনি। পুলিশ সূত্রে জানানো হয়েছে, লিন্ডা অবসেসিভ কমপালসিভ ডিজঅর্ডার নামের এক বিশেষ মানসিক রোগের শিকার। এই রোগে আক্রান্তরা মানসিক উদ্বেগে ভোগেন এবং একই কাজ বারবার করে যাওয়া থেকে নিজেকে বিরত করতে পারেন না। উইলিয়ামের সঙ্গে প্রেম ভেঙে যাওয়ার পরে লিন্ডার সেই সমস্যা আরও বৃদ্ধি পায়। যার ফলে ঘটে এই ঘটনা।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।