৫৪ টি কম্বলে মুড়ে ৪৪ দিন ধরে মায়ের নিথর দেহ আগলে মেয়ে

598

ঘটনাটি আমেরিকার ভার্জিনিয়ার। পঞ্চান্ন বছর বয়সী এক মহিলা নাম জো হুইটনি আউটল্যান্ড। চুয়াল্লিশ দিন ধরে মায়ের মৃতদেহ চুয়ান্নটি কম্বলে মুড়ে রেখে দিয়েছিল সে। মৃতা ওই মহিলার নাম রোজম্যারি আউটল্যান্ড। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল আটাত্তর বছর। এই ঘটনার জেরে অভিযুক্ত জো-কে ব্রিস্টল পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, রোজম্যারির মৃত্যু হয় গত ঊনত্রিশে ডিসেম্বর। তবে থেকেই জো মায়ের মৃতদেহ ঘরের মধ্যে আগলে রেখেছে। এরজন্য ছেশট্টিটি এয়ার ফ্রেশনার স্প্রে ব্যবহার করেছিলেন তিনি। মৃতদেহ থেকে যাতে গন্ধ না ছড়ায় তার জন্য চুয়ান্নটি কম্বলে মুড়ে, প্রতিটি কম্বলের মাঝে এয়ার ফ্রেশনার দিয়ে রেখেছিল মায়ের দেহ। সেই অবস্থায় ঘরে একটি কুকুর ও একটি বিড়াল পোষ্য নিয়েই এতদিন বাস করছিল জো। এমনকি মায়ের দেহের পাশেই এত দিন ধরে ঘুমাচ্ছিলেনও তিনি।

জো এর প্রতিবেশীরা জানান, বেশ কিছুদিন ধরেই বাড়িতে সবসময়ের জন্য তালা লাগানো থাকত। নিজের আত্মীয়স্বজনকেও বাড়িতে আসতে নিষেধ করেছিলেন জো। রোজম্যারির ভাইপো কয়েকদিন ধরেই যোগাযোগ করতে না পেরে, পাইনস্ট্রিটের বাড়ির জানলা বেয়ে উঠে ঘরে ঢুকে এই দৃশ্য দেখেন এবং সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশে খবর দেন। স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমে এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, এয়ার ফ্রেশনার দেওয়া সত্বেও মৃতদেহের তীব্র পচা গন্ধ আটকাতে পারেনি। গত ডিসেম্বর থেকে রোজম্যারির দেহটি ওইভাবেই চেয়ারে বসানো ছিল।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, রোজম্যারির মৃত্যু অস্বাভাবিক ভাবে হয়নি। জো-এর দেওয়া বয়ানে সে জানিয়েছে, ‘‘আমি আমার মাকে পৃথিবীতে সবচেয়ে বেশি ভালবাসতাম। আমার অত্যন্ত কাছের মানুষ ছিলেন তিনি। মা মারা যাওয়ার পর থেকে প্রতিটা রাত আমি তাঁর সঙ্গে কাটিয়েছি। ওঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আমি দেহটা কম্বলে ঢেকে রাখি। ঘটনার দিন সকাল থেকেই শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল মায়ের। হঠাৎ করেই স্তব্ধ হয়ে যান তিনি। সিপিআর দেওয়ার চেষ্টা করেও বাঁচাতে পারিনি তাঁকে।’’

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.