পেশার খাতিরে বাংলা গান করি ঠিকই, কিন্তু ইংরিজি গানের প্রতি ভালোবাসাটা ছিলই। ছোটবেলা থেকেই দু’টো ভাষাতেই গান শুনে-গেয়ে অভ্যস্ত আমি। ২০১৩, ২০১৮-তে গোটা তিনেক ইংরিজি গান করেছি। সে দিক থেকে দেখলে এটা আমার চতুর্থ ইংরিজি গান। মার্চ মাসেই গানটা বেরনোর কথা ছিল। কিন্তু কোভিডের জন্য এতটা দেরি হয়ে গেল।

এ সময়ে ইংরেজি গান কেন করলাম, তার আরও একটা কারণ আছে। আসলে অবস্থা স্বাভাবিক থাকলে তো এ সময় একের পর এক বাংলা গানের কাজ থাকত। ছবির গান, নিজের গান। কিন্তু কোভিডের কারণে সবটাই এখন স্থগিত। ফলে একটা অন্য রকম কাজের প্রয়াস। একেই এখন সকলের একঘেয়ে বন্দিজীবন। ভাবলাম, বাংলা গান তো শুনিয়েই থাকি। একটা নতুন কিছুর স্বাদ দেওয়া যাক বাঙালি দর্শক-শ্রোতাবন্ধুদের। ইংরিজি গানের বাজার তো এখানে খুব ভালো নয়। যদি এই গান মানুষের ভালো লাগে তাহলে ভবিষ্যতে আবার করব।

আর এই “মিস আন্ডারস্ট্যান্ডিং” গানের পটভূমিটা সব অর্থেই বিশ্বজনীন। কারণটা বলি- একদিকে গানের সুর, কথা আমার। কলকাতায় বসে লিখেছি। গানটির অ্যারেঞ্জমেন্ট করেছেন একজন মার্কিন যন্ত্রশিল্পী। ওঁর নাম অস্টিন। আর এ গানের অ্যানিমেশন যিনি করেছেন, তিনি কোভিডের কারণে ইতালিতে গিয়ে আর ফিরতে পারেননি। এখনও ওখানেই আটকে রয়েছেন। ওখানে বসেই সম্পূর্ণ অনলাইনে কাজটা করেছেন। ওঁর নাম উপমন্যু ভট্টাচার্য। ফলে, পৃথিবীর এক এক প্রান্তে বসেও একসঙ্গে মিলেমিশে এই গান তৈরি করেছি আমরা। এটা মূলত প্রেমের গান। প্রেম ভেঙে যাওয়ার গানও বলা যায়। প্রেমে কখনও কখনও এমন এক একটা মুহূর্ত আসে, যখন মনে হয় রাগের চেয়ে যন্ত্রণাই যেন প্রবলতর। আর সে নীরবে ছারখার করে দিচ্ছে হৃদয়পুর। তখনই বোঝা যায়, বিদায় জানানোর সময় হয়েছে। এটা তেমনই এক বিদায়ের গান। আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

Share on facebook
Share
Share on twitter
Tweet
Share on whatsapp
Share