Author Index

অগ্নি রায়
সকালে কবিতা লেখেন আর সন্ধ্যায় সংবাদ । এই স্বআরোপিত দ্বিচারিতার মধ্যেই ফ্রিস্টাইল বেঁচে থাকা । পেশার সূত্রে দেড় দশক দিল্লিতে অতিক্রান্ত। ভ্রমণ যত্রতত্র, কাব্যগ্রন্থ আপাতত তিনটি । জন্ম ১৯৭০, কলকাতা।
View Posts →
অবন্তিকা পাল
অবন্তিকা পাল। জন্ম ১৭ জুন ১৯৮৬, হাওড়া। কলকাতার স্থায়ী বাসিন্দা। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে জে.বি.রায়. স্টেট আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ ও হসপিটাল থেকে আয়ুর্বেদ চিকিৎসাশাস্ত্রে স্নাতক। স্নাতকোত্তর স্তরে মনস্তত্ত্বের পাঠ দ্বিতীয় বর্ষে অসমাপ্ত থেকে গেছে। তবে লেখার পরিসরে সমাজবিজ্ঞান ও মানবাধিকার চর্চা অব্যাহত। কবিতার সঙ্গে নৈকট্য আশৈশব। প্রথম কাব্যগ্রন্থ ২০১৩-তে। ২০১৭-এ প্রথম প্রবন্ধের বই। প্রথম সারির বাংলা দৈনিক, একাধিক জনপ্রিয় পত্রিকা ও ওয়েবম্যাগাজিনে তাঁর নিবন্ধ প্রকাশিত হয় নিয়মিতভাবে। সিএএ-বিরোধী আন্দোলনের সময়ে কবি ফৈজ আহমেদ ফৈজ-এর সর্বজনবিদিত 'হম দেখেঙ্গে' (দেখে নেবো আমরাই) কবিতাটির বাংলা অনুবাদ করে অবন্তিকা জাতীয় স্তরের সংবাদমাধ্যমেও জায়গা করে নিয়েছেন।
View Posts →
অবন্তিকা দাশ
অবন্তিকা দোলনা ডে স্কুলের প্রথম শ্রেণীর ছাত্রী। বয়স সাড়ে ছয়। নিজের কল্পনার জগতে বিচরণ করতে সে বড় ভালোবাসে। মাঝে মাঝে সেটা প্রকাশ হয় তার আঁকা ছবিতে। রংতুলিতে জীবন্ত হয়ে ওঠে তার শিশুমনের কল্পনার অলি গলি।
View Posts →
আবদুল্লাহ আল ফারুক
আবদুল্লাহ আল ফারুক বাংলাদেশের প্রবীণ বেতার কর্মী। মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র স্থাপকদের মধ্যে তিনি একজন। জার্মানির আন্তর্জাতিক বেতার সংস্থা ডয়েচে ভেলে-এর বাংলা বিভাগের দায়িত্বে ছিলেন দীর্ঘ সময়।
View Posts →
অভিজিৎ সেন
দু’দশক ইংরেজি সংবাদপত্রের কর্তার টেবিলে কাটিয়ে কলমচির শখ হল বাংলায় লেখালেখি করার। তাঁকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিলেন কয়েকজন ডাকসাইটে সাংবাদিক। লেখার বাইরে সময় কাটে বই পড়ে, গান শুনে, সিনেমা দেখে। রবীন্দ্রসঙ্গীতটাও নেহাত মন্দ গান না।
View Posts →
অভিরূপ মুখোপাধ্যায়
অভিরূপ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৯৩ সালে, নদিয়ার কৃষ্ণনগগরে। বাংলা সাহিত্যে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। বিশ্বভারতী থেকে এম.ফিল। বর্তমানে এশিয়াটিক সোসাইটি-র গবেষণা-প্রকল্পে যুক্ত। ২০২০ সালের কলকাতা বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে অভিরূপের প্রথম কবিতার বই ‘এই মন রঙের কৌতুক’, সপ্তর্ষি প্রকাশন থেকে।
View Posts →
অভিরূপ বন্দ্যোপাধ্যায়
সত্তরের দশকের শেষের দিকে কলকাতায় জন্ম অভিরূপের। স্কুলজীবন থেকেই বাংলা সাহিত্যের প্রতি ঝোঁক। কলেজে বাংলা অনার্স নিয়ে পড়ার পাশাপাশি পুরোপুরি সাহিত্যে মনোনিবেশ। কিছুদিন ফ্রিলান্স সাংবাদিকতাও করেছেন। এরপরেই ঢুকে পড়া টেলিভিশনের জন্য স্ক্রিপ্ট লেখার আঙিনায়। সম্পূর্ণ আলাদা এক পরিবেশ এবং প্রস্তুতির সঙ্গে পরিচয়। একইসাথে চলতে থাকে গল্প-কবিতার পালা। দেশ, এই সময়, আজকের সম্পূর্ণা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে বেশ কিছু লেখা।
View Posts →
অভিষেক ঘোষাল
অভিষেক ঘোষাল (জন্ম ১৯৮৭) প্রেসিডেন্সি কলেজের প্রাক্তনী। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর পাঠ সম্পূর্ণ ক'রে বর্তমানে বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজে অধ্যাপনা করেন। এর আগে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের বাংলা বিভাগে পড়িয়েছেন। প্রাগাধুনিক সাহিত্য ও উনিশ শতকের বঙ্গীয় সংস্কৃতি বিষয়ে আগ্রহী।
View Posts →
অভ্র ভৌমিক
অভ্র পেশাগত ভাবে আইটি-র সঙ্গে যুক্ত। ইয়র্কশায়ার কাউন্টির লিডস শহরে রয়েছেন বছর দশেক। লিডস দুর্গাপুজো অ্যাসোসিয়েশনের কর্মকর্তা। এছাড়া গানের প্রতি ওঁর অফুরন্ত টান ও ভালোবাসা। সংগীত শিক্ষার হাতেখড়ি মায়ের কাছে। এখন পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তীর কাছে হিন্দুস্থানি ক্লাসিকালের তালিম নিচ্ছেন। লিড্সে বহু অনুষ্ঠান করেছেন।
View Posts →
আবুল বাশার
খ্যাতনামা গল্পকার ও ঔপন্যাসিক আবুল বাশারের জন্ম মুর্শিদাবাদে। মাত্র ১৯ বছর বয়সে প্রকাশিত হয় প্রথম গদ্যের বই 'ফুলবউ'। তারপর লিখেছেন বেশ কিছু গল্প প্রবন্ধ ও উপন্যাস। ১৯৯৪ সালে আনন্দ পুরস্কার পেয়েছেন। 'অগ্নিবলাকা', 'মরুস্বর্গ', 'আকাশলীনা' ওঁর কিছু জনপ্রিয় বই।
View Posts →
অদিতি বসু রায়
ইংরেজি সাহিত্যে মাস্টার্স ডিগ্রি করে আদিতি কলেজে ও স্কুলে পড়িয়েছেন। এখন অবশ্য যুক্ত সাংবাদিকতার সঙ্গে। আদতে কবি হলেও গদ্য লেখেন প্রায়শই। প্রিয় কাজ বারান্দায় মোড়া পেতে বসে পড়াশোনা। শখ বেড়ানো। প্রকাশিত বই 'সাড়ে তিনটের উড়োজাহাজ', 'একশো সাতান্ন রকম মিথ্যে', 'অসতীপ্রবণতা' ইত্যাদি। পেয়েছেন মল্লিকা সেনগুপ্ত পুরষ্কার।
View Posts →
অদিতি ঘোষ দস্তিদার
অদিতি ঘোষ দস্তিদার পেশায় গণিতের অধ্যাপিকা। নেশা লেখালিখি। নিউজার্সিতে থাকেন। সারা পৃথিবীর নানা প্রান্ত থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লেখেন। আমেরিকা থেকে প্রকাশিত 'অভিব্যক্তি' পত্রিকার সম্পাদক। মিশিগান থেকে প্রকাশিত 'উদ্ভাস' এবং কলকাতার 'কাফে টেবিল' প্রকাশনার 'অবসর' পত্রিকার সম্পাদকমণ্ডলীতেও রয়েছেন। ছোটগল্প ও অণুগল্প লেখা বিশেষ পছন্দের।
View Posts →
আফরোজা নাজনীন সুমি
ঢাকার ধানমন্ডির মেয়ে আফরোজা নাজনীন সুমি একজন সফল রন্ধণশিল্পী। তিনি একাধারে শেফ, জনপ্রিয় রন্ধণশিল্পী ও উপস্থাপক, রেসিপি ডেভেলপার, ফুড স্টাইলিস্ট, ট্রেইনার, খন্ডকালীন শিক্ষক,মহিলা সম্পাদক,ফ্রীল্যান্স ফটোগ্রাফার,অ্যামেচার মডেল এবং শৌখিন অভিনয়শিল্পী। সবকটি ভূমিকাতেই তিনি সমান স্বচ্ছন্দ।
View Posts →
অগ্নিভ সেনগুপ্ত
পেশায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হলেও নেশায় সৃজন। অগ্নিভ লেখালিখি, শর্ট ফিল্মের গল্প থেকে শুরু করে অভিনয় ও নির্দেশনা সবেতেই রেখেছেন তাঁর নিজের সৃষ্টির ছোঁয়া। মূলত প্রবন্ধ লেখেন হল্যান্ডের জীবনযাপন ও অন্যান্য সমকালীন বিষয়ে।
View Posts →
অহনা বিশ্বাস
কবি ও কথাকার অহনা বিশ্বাসের জন্ম ১৯৭০-এ আসানসোলে। বিদ্যাচর্চা, গবেষণা শান্তিনিকেতনে। পেশা অধ্যাপনা। নিয়মিত লেখালিখি করেন। দেশ, সানন্দা, বর্তমান, প্রতিদিন-সহ একাধিক প্রথম সারির পত্রিকার নিয়মিত লেখক। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ - অষ্টাবক্ররমণীকথা, সবুজশাড়িপরাদের দেশ। গল্পগ্রন্থ - অহনার গল্প। উপন্যাস - আরশিনগরে তাঁবু, আমাদের মায়াবী সময় ইত্য়াদি। অহনার আগ্রহ মানুষ, পরিবেশ ও শিল্পকলায়।
View Posts →
ঐন্দ্রিলা সরকার
ঐন্দ্রিলা সরকার, পেশায় ওয়েব ডিজাইনিং কোম্পানীর কর্ণধার। নেশা ছবি আঁকা এবং পাখি দেখা। মুম্বইয়ের বম্বে ন্যাচারাল হিস্ট্রি সোসাইটি থেকে বেসিক অর্নিথলজি কোর্স সম্পূর্ণ করার পর বর্তমানে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের এনভায়রনমেন্টাল স্টাডিসের স্নাতকোত্তর বিভাগে পাঠরত।
View Posts →
ঐশিক দাশগুপ্ত
ঐশিক দাশগুপ্তর জন্ম ১৯৮৮ এবং বেড়ে ওঠা মেদিনীপুর শহরে৷ শিক্ষা প্রেসিডেন্সি কলেজ ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে৷ বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর৷ সাহিত্য ও জরুরি অবস্থা নিয়ে পিএইচ ডি৷ সম্পাদিত পত্রিকা ‘হান্ড্রেড মাইলস’৷ বর্তমানে গভর্নমেন্ট জেনারেল ডিগ্রি কলেজ, নারায়ণগড়-এ অধ্যাপনারত৷ প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ 'কুশপাতার দেয়াল' ,'অপ্রাপণীয়'। প্রবন্ধ সংগ্রহ 'বাংলা সাহিত্যে জরুরি অবস্থার প্রতিফলন'।
View Posts →
অজিত বাইরী
অজিত বাইরীর জন্ম হুগলি জেলার কনকপুর গ্রামে। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কৃষি বিভাগে আধিকারিকের পদে যোগদান ১৯৭১ সালে, অবসর গ্রহণ করেন 2008 সালে। অজিত বাইরীর কাব্য়গ্রন্থের সংখ্য়া ২৩। এর মধ্য়ে রয়েছে 'অবেলায় রোদ্দুরে তোমার মুখ', 'প্রিজন ভ্য়ান এবং কালপুরূষ', 'শব্দের টেরাকোটা', 'আগুনের চাদর', 'বিষণ্ণ অর্কিড'। তিনি একটি উপন্যাস ও একটি গল্পগ্রন্থও প্রকাশ করেছেন।
View Posts →
আল মামুন শেখ
আল মামুনের জন্ম নবদ্বীপের তিওরখালি গ্রামে ১৯৮৫ -তে। ইলেকট্রনিক্স অ্যান্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং-এ স্নাতকোত্তর। বর্তমানে রাজ্য সরকারি কর্মচারি। গবেষণার সঙ্গে ও যুক্ত। মূলত: কবি। শখ মানুষ দেখা, বইপড়া, বেহালা বাজানো, গান শোনা, বেড়াতে যাওয়া আর শিশুদের স‌ঙ্গ।
View Posts →
আলোকপর্ণা ঘোষ
আলোকপর্ণা পেশায় সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট প্রফেশনাল, নেশায় ফুড ব্লগার। ভালোবাসেন বেড়াতে আর নতুন নতুন খাবার চেখে দেখতে।
View Posts →
আলোলিকা মুখোপাধ্যায়
দীর্ঘকাল আমেরিকা-প্রবাসী আলোলিকা মুখোপাধ্যায়ের লেখালিখির সূচনা কলকাতার কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় প‍র্বে। আমেরিকার নিউ জার্সির প্রথম বাংলা পত্রিকা "কল্লোল" সম্পাদনা করেছেন দশ বছর। গত আঠাশ বছর (১৯৯১ - ২০১৮) ধরে সাপ্তাহিক বর্তমান-এ "প্রবাসের চিঠি" কলাম লিখেছেন। প্রকাশিত গল্পসংকলনগুলির নাম 'পরবাস' এই জীবনের সত্য' ও 'মেঘবালিকার জন্য'। অন্য়ান্য় প্রকাশিত বই 'আরোহন', 'পরবাস', 'দেশান্তরের স্বজন'। বাংলা সংস্কৃতির প্রচার ও প্রসারের জন্য নিউইয়র্কের বঙ্গ সংস্কৃতি সঙ্ঘ থেকে ডিস্টিংগুইশড‌ সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন।
View Posts →
আলপনা ঘোষ
পেশা শুরু হয়েছিল সাংবাদিকতা দিয়ে। পরে নামী ইস্কুলের বাচ্চাদের দিদিমণি। কিন্তু লেখা চলল। তার সঙ্গে রাঁধা আর গাড়ি চালানো, এ দুটোই আমার ভালবাসা। প্রথম ভালবাসার ফসল তিনটি ব‌ই। নানা রাজ্যের অন্নব্যঞ্জন, মছলিশ আর ভোজনবিলাসে কলকাতা।
View Posts →
অমর মিত্র
অমর মিত্রের জন্ম ১৯৫১ সালে বসিরহাটে। তবে বহুদিনযাবৎ কলকাতাবাসী। ১৯৭৪ সালে 'মেলার দিকে ঘর' গল্প দিয়ে সাহিত্যিক হিসেবে আত্মপ্রকাশ। প্রথম উপন্যাস 'নদীর মানুষ' ১৯৭৮ সালে প্রকাশিত হয় অমৃত পত্রিকায়। প্রথম গল্পের বই 'মাঠ ভাঙে কালপুরুষ'-ও ১৯৭৮ সালেই। রাজ্য সরকারি চাকরি করেও আজীবন সাহিত্যসাধনায় ব্রতী। ২০০৬ সালে 'ধ্রুবপুত্র' উপন্যাসের জন্য পেয়েছেন সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার। ২০০১ সালে বঙ্কিম পুরস্কার পেয়েছেন 'অশ্বচরিত' উপন্যাসের জন্য। এছাড়াও ২০০৪ সালে শরৎ পুরস্কার ও ২০১০ সালে গজেন্দ্রকুমার মিত্র সম্মান পেয়েছেন তিনি।
View Posts →
অমিত চক্রবর্তী
অমিত চক্রবর্তীর জন্ম সোনারপুর অঞ্চলের কোদালিয়া গ্রামে ১৯৫৯ সালে। কবিতা লেখার শুরু ন'বছর বয়সে, স্কুল ম্যাগাজিনে। পড়াশোনার সূত্রে আমেরিকা আসা ১৯৮২-তে। ক্যানসাস স্টেট ইউনিভারসিটিতে পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক ১৯৮৯ থেকে। ২০১৬ থেকে কলেজ অফ আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সের ডিন।
View Posts →
অমিতাভ গুপ্ত
ছিলেন নামী কোম্পানির দামী ব্র্যান্ড ম্যানেজার | নিশ্চিত চাকরির নিরাপত্তা ছেড়ে পথের টানেই একদিন বেরিয়ে পড়া | এখন ফুলটাইম ট্র্যাভেল ফোটোগ্রাফার ও ট্র্যাভেল রাইটার আর পার্টটাইম ব্র্য্যান্ড কনসাল্টেন্ট | পেশার সঙ্গে মিশিয়ে নিয়েছেন নেশাকেও | নিয়মিত বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশ হয় বেড়ানোর ছবি এবং রাইট আপ |
View Posts →
অমিতাভ রায়
অমিতাভ রায়ের জন্মস্থান কলকাতা। ভারত সরকারের পরিকল্পনা উপদেষ্টা হিসেবে পেশাগত জীবন কাটিয়েছেন। ভারত সরকারের প্ল্যানিং কমিশনের প্রাক্তন আধিকারিক। আফগানিস্তানে সরকারের উপদেষ্টা পদে কাবুলে কর্মরত ছিলেন। অবসরগ্রহণের পর বই পড়া ও দেশে-বিদেশে ভ্রমণ নিয়েই ব্যস্ত। জনপ্রিয় বই 'কাবুলনামা', 'আহোম রাজের খোঁজে'।
View Posts →
অমিতাভ নাগ
পেশাগতভাবে এক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত। নেশায় সিনেমাপ্রেমী। চলচ্চিত্র বিষয়ক একাধিক বই লিখেছেন বাংলা ও ইংরেজিতে। স্মৃতি সত্তা ও সিনেমা, কিছুটা সিঁদুর বাকিটা গোলাপ, সত্যজিত রে'জ হিরোজ অ্যান্ড হিরোইনজ, সিক্সটিন ফ্রেমজ এই লেখকের কিছু পুর্ব প্রকাশিত বই।
View Posts →
অমিতরূপ চক্রবর্তী
জন্ম কোচবিহার জেলায়৷ বড় হয়ে ওঠা আলিপুরদুয়ার জেলার হ্যামিল্টনগঞ্জে৷ কলেজে পড়াকালীন লেখালেখির প্রতি আগ্রহ জন্মায় এবং লেখার হাতেখড়ি৷ স্থানীয় ছোট পত্রপত্রিকায় প্রথম লেখা প্রকাশ৷ এরপর লেখায় দীর্ঘ সময়ের ছেদ পড়ে৷ আবার গত তিনবছর ধরে লেখায় ফেরা৷ কাব্যগ্রন্থ 'কিছুক্ষণ থাকা অথবা অনন্তকাল' ২০২০ কলকাতা বইমেলায় 'শুধু বিঘে দুই' থেকে প্রকাশিত৷ মূলত কবিতা লিখতে পছন্দ করেন৷ একটু আধটু গদ্যচর্চাও হয়৷
View Posts →
অম্লানকুসুম চক্রবর্তী
অম্লানকুসুমের জন্ম‚ কর্ম‚ ধর্ম সবই এই শহরে। একেবারেই উচ্চাকাঙ্খী নয়‚ অল্প লইয়া সুখী। সাংবাদিকতা দিয়ে কেরিয়ার শুরু করলেও পরে জীবিকার খাতবদল। বর্তমানে একটি বেসরকারি সংস্থায় স্ট্র্যাটেজি অ্যানালিস্ট পদে কর্মরত। বহু পোর্টাল ও পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লেখেন। প্রকাশিত হয়েছে গল্প সংকলন 'আদম ইভ আর্কিমিডিস' ও কয়েকটি অন্য রকম লেখা নিয়ে 'শব্দের সার্কাস'।
View Posts →
আম্রপালী দে
জন্ম ১৯৯৬ সালে আগরতলায়। উচ্চশিক্ষার জন্য খড়গপুরে আসা। হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রী আম্রপালী বেশ কিছুদিন ধরে লিখছেন। অবসরে ছবি আঁকেন, বই পড়েন, শাস্ত্রীয় সংগীত চর্চা করেন। মনেপ্রাণে শিল্পকে আঁকড়ে বাঁচতে চান। আলো ও অন্ধকারের ব্যূহে ভালোবাসা খুঁজে পেতে চান।
View Posts →
অমৃতা ভট্টাচার্য
অমৃতা ভট্টাচার্য কলকাতায় অ্যামিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির অধ্যাপক। আনন্দবাজার পত্রিকা, ইন্ডিয়ান রাইটার্স ফোরাম, কবি সম্মেলন, পোয়েট্রি আউট লাউড (লন্ডন)-সহ দেশবিদেশের বহু পত্রপত্রিকায় কবিতা, ছোটগল্প প্রকাশিত হয়েছে। এযাবৎ প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের সংখ্যা চার। ‘আমরা সবাই পালক আঁকি’, ‘পাইন, ঘাটসিঁড়ি ও শ্রীঘরের গল্প’, ‘ভর বাড়ছে শ্বেতবামনের’ এবং ‘ও অস্পৃশ্য! ও আশ্চর্য! শখ: গান ও ছবি আঁকা।
View Posts →
ডঃ আনন্দ সেন
ডঃ আনন্দ সেনের জন্ম কলকাতায়। হিন্দু স্কুল ও পরে সেন্ট জেভিয়ার্সে স্কুলজীবন কাটিয়েছেন। ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিস্টিকাল ইনস্টিটিউটে স্নাতকস্তরের পড়া শেষ করেই পাড়ি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানেই বাসা। পেশায় ডেটা সায়েন্টিস্ট হলেও কবিতা লেখা আজও প্যাশন। আরও এক প্যাশন বাংলা থিয়েটার। প্রবাসে থেকেও নিয়মিত থিয়েটারের কাজকর্মের সঙ্গে যুক্ত আনন্দ। নিয়মিত লেখেন বিভিন্ন ই-পত্রপত্রিকাতেও।
View Posts →
আনন্দরূপা দাস
আনন্দরূপা সাহিত্যিক মতি নন্দীর জ্যষ্ঠ কন্যা এবং জাতীয় সাঁতারু আশিস দাসের স্ত্রী। এক কন্যাসন্তানের জননী আনন্দরূপা ভালোবাসেন ঐতিহাসিক উপন্যাস পড়তে আর বেড়াতে।
View Posts →
অনিল আচার্য
লেখক, কবি ও প্রাবন্ধিক। 'অনুষ্টুপ' পত্রিকা ও প্রকাশনা সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা। পেশাগতভাবে ছিলেন ইংরেজি সাহিত্যের অধ্যাপক।
View Posts →
অনিমান কাঞ্জিলাল
দশ বছরের অনিমান যেন ফুটফুটে এক রাজকুমার। নিজের জগতে তার সভাসদেরা হল টিনটিন, হ্যারি পটার আর আ্যভেন্জারস্। রাজপুত্রের পছন্দের প্রাণি আবার সাপ। ছোট থেকেই যে কোনও গাড়ি দেখে তার নাম বলে দিতে পারত সে। তবে রাজকুমারের মনটা যেন গলা মোম, এক্কেবারে তপতপে।
View Posts →
অনিমেষ বৈশ্য
পেশায় সাংবাদিক হলেও হৃদয়ে চিরনবীন কবি। এখনও বসন্ত এলে পলাশ ফুলের দিকে তাকাতে, কচি ঘাসের গন্ধ শুঁকতে আর সুপর্ণার বিরহে পাশ ফিরতে ভালোবাসেন। ছবি লেখেন গদ্যে। আনন্দবাজার পত্রিকার “অন্য পুজো” কলাম লিখে সুপরিচিত। পরে সেটি গাংচিল থেকে বই আকারে প্রকাশিত হয়। সম্প্রতি ফেসবুক কলাম নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে তাঁর বই নুনমরিচের জীবন।
View Posts →
অনিমেষ মুখোপাধ্যায়
অনিমেষ মুখোপাধ্যায় নেশায় কবি, পেশায় চার্টার্ড একাউন্ট্যান্টI লেখালেখির শুরু স্কুল জীবনে I মূলত কবিতা, তবে গল্প এবং প্রবন্ধতেও যাতায়াত I এ ছাড়া তিনি আবৃত্তি ভালবাসেন।
View Posts →
পণ্ডিত অনিন্দ্য বন্দ্যোপাধ্যায়
সরোদবাদক পণ্ডিত অনিন্দ্য বন্দ্যোপাধ্যায় বাংলার তথা ভারতের শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের জগতে পরিচিত নাম। সঙ্গীতচর্চার পাশাপাশি চলে পড়াশোনা ও লেখালেখি। 'আপনাদের সেবায়', 'প্রসঙ্গ ঠুমরি', 'সুরের গুরু' ওঁর কিছু জনপ্রিয় বই। সরোদচর্চার পাশাপাশি নিয়মিত অভিনয় করেন বাংলা ছবিতে।
View Posts →
অনির্বাণ বসু
জন্ম ১৯৮৫। গল্প লেখার চেষ্টা করেন। কবিতা লিখতে পারেন না একদম, তাই কবিদের প্রতি সম্ভ্রম নিয়ে দূরে-দূরে থাকেন। প্রকাশিত গল্প সংকলনের সংখ্যা দুই, উপন্যাসের সংখ্যা এক।
View Posts →
অনির্বাণ মিত্র
আলোকচিত্র-শিল্পী অনির্বাণ মিত্রর ক্যামেরায় ধরা থাকে বনেদি বাড়ির অন্দরমহল, রাজ-ভবন এবং ইংরেজ আমলের কলকাতা। তুলতে ভালোবাসেন পোর্ট্রেটও। দেশ বিদেশের বিখ্যাত গ্যালারিতে একাধিক প্রদর্শনী হয়েছে তাঁর। বইও প্রকাশিত হয়েছে। নিমাই ঘোষ এবং সত্যজিৎ রায়কে নিয়ে তথ্যচিত্র দিয়ে সেলুলয়েডের যাত্রা শুরু হয়েছে সাম্প্রতিক কালে। তাঁর একটি অনলাইন গ্যালারিও রয়েছে।
View Posts →
অনিশ্চয় নিয়োগী
অনিশ্চয় মূলত প্রাবন্ধিক। উপনিবেশবাদ ও ঔপনিবেশিক ইতিহাস বিষয়ে চর্চা করেন। এ ছাড়াও খেলার ইতিহাস ও বিজ্ঞান বিষয়ে প্রবন্ধ রচনায় বিশেষ পারদর্শী। অবসরে বই পড়তে, গান শুনতে, বিশ্বের নানা প্রান্তের সিনেমা দেখতে ভালবাসেন। রবীন্দ্রসঙ্গীত থেকে পাশ্চাত্য সঙ্গীত - সবরকম গান নিয়েই অনিশ্চয়ের সমান উৎসাহ।
View Posts →
অনিতা অগ্নিহোত্রী
কলকাতায় জন্ম, বড় হওয়া। অর্থনীতির পাঠ প্রেসিডেন্সী কলেজ ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। কবিতা দিয়ে লেখক জীবন আরম্ভ। সূচনা শৈশবেই। কবিতার পাশাপাশি গল্প, উপন্যাস, ভ্রমণকাহিনী, প্রবন্ধ, ছোটদের জন্য লেখায় অনায়াস সঞ্চরণ। ভারতীয় প্রশাসনিক সেবার সদস্য ছিলেন সাড়ে তিন দশকেরও বেশি সময়। মহুলডিহার দিন, মহানদী, কলকাতার প্রতিমা শিল্পীরা, ব্রেল, কবিতা সমগ্র , দেশের ভিতর দেশ ইত্যাদি চল্লিশটি বই। ইংরাজি সহ নানা ভারতীয় ভাষায়, জার্মান ও সুইডিশে অনূদিত হয়েছে অনিতা অগ্নিহোত্রীর লেখা। শরৎ পুরস্কার, সাহিত্য পরিষৎ সম্মান, প্রতিভা বসু স্মৃতি পুরস্কার, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভুবন মোহিনী দাসী স্বর্ণপদকে সম্মানিত। পশ্চিমবঙ্গ বাংলা আকাদেমীর সোমেন চন্দ পুরস্কার ফিরিয়েছেন নন্দীগ্রামে নিরস্ত্র মানুষের হত্যার প্রতিবাদে। ভারতের নানা প্রান্তের প্রান্তিক মানুষের কন্ঠস্বর উন্মোচিত তাঁর লেখায়। ভালোবাসেন গান শুনতে, গ্রামে গঞ্জে ঘুরতে, প্রকৃতির নানা রূপ একমনে দেখতে।
View Posts →
অঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়
অঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম উত্তর চব্বিশ পরগণায় জন্ম ১৯৫৩ সালে। কলকাতায় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক। প্রথাগত পড়াশোনা থেকে চিরকালই পলাতক। লেখালেখির সঙ্গে জড়িত প্রায় অর্ধশতাব্দী ধরে। ফিলহাল ডিজিটাল বা সোশ্যাল মিডিয়ায় মনোনিবিষ্ট। চাকরি ঘুরে ফিরে বিভিন্ন জায়গায়।
View Posts →
আনসারউদ্দিন
আনসারউদ্দিনের জন্ম ১৯৫৯-তে নদিয়ার শালিগ্রামে। কৃষ্ণনগর কলেজের স্নাতক হয়েও গ্রামের শিকড় ছেঁড়েননি। পেশায় আজও প্রান্তিক কৃষক। বাড়ি নদিয়ার ধুবুলিয়ায়। গ্রামিক জনযাপনের চিত্রলেখই তাঁর সাহিত্যকৃতির মূল বিষয়বস্তু বরাবর। ১৯৯১ সালে প্রকাশিত হয় তাঁর প্রথম বই 'আনসারুদ্দিনের গল্প' ধ্রুবপদ প্রকাশনা থেকে। তারপর আরও এগারোটি বই লিখেছেন। পেয়েছেন বাংলা অকাদেমির সোমেন চন্দ পুরস্কার, আন্নদাশঙ্কর রায় স্মারক পুরস্কার, বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদের ইলাচন্দ পুরস্কার-সহ বহু সম্মাননা। শখ বলতে বই পড়া, খবরের কাগজ পড়া আর খবর শোনা।
View Posts →
অংশুমান ভৌমিক
অংশুমান ভৌমিকের জন্ম ১৯৭৫-এ কলকাতায়। ছেলেবেলা কাটিয়েছেন মামারবাড়ি নবদ্বীপে। গত চার দশক কলকাতার বাসিন্দা বা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরিজির এমএ হলেও বাবার 'দেশ' বরিশাল আর মায়ের 'দেশ' নদিয়ার মধ্যে দোদুল্যমান তাঁর অস্তিত্ব। পেশায় শিক্ষক, নেশায় কালচারাল কমেন্টেটর। বাংলা ও ইংরেজিতে লেখালেখি করছেন দু'দশকের বেশি। দেশবিদেশ থেকে বই বেরিয়েছে গোটা সাতেক। 'দ্য টেলিগ্রাফ' ও কৃত্তিবাস মাসিক-এর নাট্যসমালোচক হিসেবে ইদানীং থিতু।
View Posts →
অন্তরা দাঁ
অন্তরার জন্ম ১৯৮১-তে, বর্ধমানের পালসিট গ্রামে। রাজ কলেজ থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক ও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়র স্নাতোকোত্তর, বর্তমানে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যের শিক্ষিকা হিসাবে স্কুলে কর্মরত। কবিতাজ্বরের শুরু শৈশবেই। পরবর্তীতে 'আলোবাতাস', 'কয়লাকুঠি' 'শ্রুতিবাক' 'অংশুমালী' 'প্রথম আলো','রোদরঙ' 'তাঁতঘর' 'আনন্দমুখর', 'সংবাদ প্রভাতী' 'ইসক্রা' 'পৃথ্বী' প্রভৃতি অনেক পত্রপত্রিকায় কালক্রমে প্রকাশিত হয়েছে কবিতা, গদ্য, অণুগল্প, ছোটগল্প। প্রথম কাব্যগ্রন্থ 'শিকড়ে শিকড়ে অস্তিত্বসুখ' প্রকাশিত হয়েছে আলোবাতাস প্রকাশনা থেকে ২০১৮ সালে। কুমুদরঞ্জন মল্লিক সম্মান পেয়েছেন ২০২০ সালে। শখ বই পড়া, গান শোনা আর ছবি তোলা।
View Posts →
অনুব্রত
অনুব্রত নামী বহুজাতিক সংস্থায় অতি উচ্চপদে আসীন ছিলেন। কিন্তু মনে মনে এখনও স্কটিশের সেই লেখা-পাগল ছাত্রটি। লেখালিখি তাঁর হাড়ে-মজ্জায়। নিয়মিত লেখেন পত্রপত্রিকায়। শখ, সারা পৃথিবী ঘুরে বেড়ানো আর ইতিহাস ঘাঁটাঘাঁটি।
View Posts →
অনুপ ঘোষাল
অনুপ ঘোষাল পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কর্মচারী। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাণিজ্যে স্নাতকোত্তর করেছেন। কবিতা লেখার শুরু স্কুল ম্যাগাজিনে। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় কবিতা লেখালেখি করেন। তবে লেখার চেয়ে পড়ার আগ্রহ বেশি। সাহিত্য ও ইতিহাস ওঁর প্রিয় বিষয়। এর বাইরে অনুপকে সবচেয়ে আকৃষ্ট করে মানুষ আর প্রকৃতি।
View Posts →
অনুপ রায়
অনুপ রায় শিল্পকলা ও কার্টুনের জগতে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র যাঁর প্রভা আজও আলোকিত করে রেখেছে ভবিষ্যৎ শিল্পীদের চলবার পথ। বিদ্যাগর কলেজ এবং তারপর গভর্নমেন্ট আর্ট কলেজ থেকে পড়া শেষ করে আনন্দবাজার পত্রিকায় আর্ট ডিরেক্টর হিসেবে কর্মজীবনের শুরু। বহু প্রদর্শনী, প্রচ্ছদ সমৃদ্ধ হয়েছে তাঁর তুলির টানে। বর্তমানে অসুস্থ হলেও তুলিকলম থামেনি। 'কার্টুন দল' নামক স্বাধীন শিল্পগোষ্ঠীর অন্যতম বয়োজ্যেষ্ঠ সদস্য হিসেবে কাজ করে চলেছেন তিনি।
View Posts →
অনুপম রায়
অনুপম রায় পূর্বজন্মে মুকুল নয়, ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার। এখন প্রধান পরিচয় গায়ক। সঙ্গে গীতিকার এবং সুরকারও বটেন। তবে তাঁর সৃষ্টির বিস্তৃতি কেবল সংগীতের দুনিয়ায় থেমে থাকেনি। তিনি সমান দক্ষতায় গদ্য ও পদ্য লিখে যেতে পারেন। ভবিষ্যতে আঁকাআঁকির ইচ্ছেও আছে।
View Posts →
অনুষ্কা সরকার
অনুষ্কা প্র্যাট মেমোরিয়ালের ক্লাস ফাইভের ছাত্রী। গল্পের ব‌ই পড়তে আর ছবি আঁকতে ভালবাসে। ঝকঝকে মনটার ছায়া পড়ে কখনও তার কথায়, কখনও বা টোল পড়া হাসিতে। মিষ্টি মেয়ের মিষ্টিমুখ করতে আপত্তি নেই কখনওই। তার সবচেয়ে আদরের আবার সবচেয়ে শাসনের জায়গা তার পুঁচকে বোনটি।
View Posts →
অনুত্তমা বন্দ্যোপাধ্যায়
পেশায় একজন মনোবিদ | জীবনের রোজনামচায় মনের তল্লাটে ঘনিয়ে ওঠা নানান ভাবনা, দ্বন্দ্ব, ইচ্ছে, বিষাদ তাঁর লেখার রসদ |
View Posts →
অনুভা নাথ
অনুভা পেশায় সিভিল ইঞ্জিনিয়ার। সরকারি চাকরি করেন। লেখালেখি প্যাশন। সানন্দা ব্লগ, শুকতারা, এখন ডুয়ার্স, অপার বাংলা, প্রসাদ-সহ প্রচুর পত্রপত্রিকা, লিটিল ম্যাগাজ়িন, ওয়েবজিন ও সংবাদপত্রে গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ, রম্যরচনা প্রকাশ পেয়েছে। সন্ধ্যা ভট্টাচার্য স্মৃতি প্রতিযোগিতায় পুরষ্কার পেয়েছেন ছোটদের জন্য লিখে। কলকাতা আন্তর্জাতিক অণু চলচ্চিত্র উৎসব ২০২০-তে, অমিয়া ভৌমিক স্বর্ণকলম পুরস্কার পেয়েছেন। কলকাতা আন্তর্জাতিক অণু চলচ্চিত্র উৎসব ২০২১-এর বিচারক ও সম্পাদকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য।
View Posts →
অন্বেষা দত্ত
অন্বেষা দত্ত দীর্ঘ চোদ্দো বছর সাংবাদিকতা করেছেন আনন্দবাজার পত্রিকায়। বর্তমানে কলকাতার দু'টি অন্যতম প্রধান লাইফস্টাইল পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনামূলক সাহিত্যের ছাত্রী অন্বেষার অবসর খুবই কম। অফিস, বাড়ি এবং আট বছরের ছেলের সব দায়দায়িত্ব সামলেও ভালবাসেন বই পড়তে, বেড়াতে যেতে, আড্ডা দিতে এবং ওয়েব সিরিজ দেখতে।
View Posts →
অন্বেষা সেনগুপ্ত
অন্বেষা সেনগুপ্তের জন্ম কোন্নগরে ১৯৮৪ সালে। পাঠভবন স্কুল আর প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত পড়াশোনা। এখন কলকাতার ইনস্টিটিউট অফ ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজে (আইডিএসকে) ইতিহাস পড়ান। ভারতীয় উপমহাদেশের সাম্প্রতিক ইতিহাসে বিশেষ আগ্রহ আছে অন্বেষার। অবসরে ভালোবাসেন বেড়াতে, আড্ডা মারতে, সিনেমা-সিরিজ দেখতে আর গল্পের বই পড়তে।
View Posts →
অন্যমন রায়চৌধুরী
অন্যমন দীর্ঘদিন সরকারি চাকরি করে আপাতত অবসর জীবন কাটাচ্ছেন। ভালবাসেন বাংলা নাটক, কবিতাও। সময় কাটাতে নানা লিটল ম্যাগাজিনে টুকটাক লেখালিখি তাঁর শখ। বই পড়া আর বন্ধুদের সঙ্গে রবিবারের আড্ডাটি ছাড়া তাঁর এক মুহূর্ত চলে না।
View Posts →
ড. অপূর্ব ঘোষ
ড. অপূর্ব ঘোষ প্রখ্যাত শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ। ইনস্টিটিউট অব চাইল হেলথ-এর অধিকর্তা। সম্প্রতি মৃণালিনী ক্য়ান্সার সেন্টার তৈরি করেছেন শিশুদের ক্যান্সার চিকিৎসার জন্য। বহু সামাজিক কর্মে নিযুক্ত রাখেন নিজেকে। সাহিত্য ভালবাসেন, তবে মনীষীদের জীবন তাঁকে বিশেষ উদ্বুদ্ধ করে।
View Posts →
অপূর্ব দাশগুপ্ত
অপূর্ব দাশগুপ্ত 'পুরোগামী' পত্রিকার অন্যতম সম্পাদক। প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ভূমি ও ভূমি সংস্কার বিভাগের অবসরপাপ্ত বিশেষ রাজস্ব আধিকারিক।
View Posts →
অরণ্যা সরকার
দুর্গাপুর নিবাসী অরণ্যা সাহিত্যানুরাগী। পড়াশোনা করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। একাধিক বাংলা ছোট পত্রিকা ও ওয়েবজিনে নিয়মিত লেখেন। দুর্গাপুর থেকে প্রকাশিত চর্যাপদ পত্রিকার যুগ্ম সম্পাদক অরণ্যা বেড়াতে এবং আড্ডা মারতে ভালোবাসেন।
View Posts →
আরণ্যক বন্দ্যোপাধ্যায়
আরণ্যক দোলনা ডে স্কুলের ক্লাস ওয়ানের ছাত্র। প্রিয় খেলার সঙ্গী নানারকম গাড়ি। সুযোগ পেলে ক্যারম আর কার্টুন নিয়ে কাটিয়ে দিতে পারে সারাদিন! খেতেও খুব ভালোবাসে আরণ্যক। চাইনিজ, বিরিয়ানি আর অবশ্যই মায়ের রান্না করা বাসন্তী পোলাও আর চিকেন মাটন। বড় হয়ে কখনও ডাক্তার, কখনও অ্যাস্ট্রোনট, কখনও ভলভো বাসের ড্রাইভার সবই হবার ইচ্ছে।
View Posts →
অরিজিৎ মৈত্র
অরিজিৎ মৈত্র পেশায় সাংবাদিক। দৈনিক যুগশঙ্খ পত্রিকায় সিনিয়র সাব-এডিটার পদে কর্মরত। তপন সিংহ ফাউন্ডেশনের সম্পাদক অরিজিৎ পুরনো কলকাতা নিয়ে চর্চা করতে ভালবাসেন। নিয়মিত লেখালিখি করেন বিভিন্ন পত্রপত্রিকায়। প্রকাশিত বই: অনুভবে তপন সিনহা, ছায়ালোকের নীরব পথিক বিমল রায়, চিরপথের সঙ্গী - সত্য সাঁই বাবা, বন্দনা, কাছে রবে ইত্যাদি।
View Posts →
অরিন্দম চক্রবর্তী
অরিন্দমের জন্ম ১৯৮২-তে। প্রথাগত শিক্ষা শ্রীরামপুর নন্দলাল ইন্সটিটিউশনে। লেখা নয়, বিভিন্ন বিষয়ে পড়াশোনা নিয়েই দিনের অধিকাংশ সময় কাটে। ওটাই প্যাশন। পেশাগতভাবে বিখ্যাত এক বই বিপণীর সঙ্গে যুক্ত ও ব্যবসায়িকভাবে যুক্ত 'keytub' অনলাইন বুকশপের সঙ্গে। চিঠি লেখা আর ফুল সাজানো ভীষণ পছন্দের। বেড়ানো, বিশেষত হাঁটাপথে এদিক সেদিক বেরিয়ে পড়াতে আনন্দ।
View Posts →
অরিঞ্জয় বিশ্বাস
অরিঞ্জয় বিশ্বাস বাসন্তীদেবী কলেজে ইতিহাসের অধ্যাপক। বইপত্তরে ডুবে থাকতে পারলে আর কিছু চান না। তবে বিশেষ শখ বলে খুব একটা কিছু নেই। কাজ অনেক। তবে মূলত অকাজে ব্যস্ত মানুষ। ঠায় চুপটি করে বসে থাকতে ভালোবাসেন।
View Posts →
অর্জুন বন্দ্যোপাধ্যায়
অর্জুন বন্দ্যোপাধ্যাযের জন্ম ১৯৮৫-তে। বর্তমানে শিলিগুড়ির বাসিন্দা। একদা সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। বঙ্কিমচন্দ্র ও মরণ অন্তরালে নামে দুটি উপন্যাস ও ডি মেজর নামে গল্পসংকলন প্রকাশিত হয়েছে। ধ্রুপদী সঙ্গীত ও নাটক নিয়মিত চর্চায় রাখেন। ভালোবাসেন বাজার আর রান্না করতে।
View Posts →
অর্ক পৈতণ্ডী
অর্ক পৈতণ্ডীর জন্ম ১৯৮৫-তে বীরভূমের সিউড়িতে। পড়াশোনা, বেড়ে ওঠা বোলপুর, শান্তিনিকেতনে। বিজ্ঞানের স্নাতক। পেশাদার শিল্পী। 'মায়াকানন' পত্রিকা ও প্রকাশনার প্রতিষ্ঠাতা ও কর্ণধার। অবসরে লেখালিখি করেন। অলঙ্করণ শুরু ষোলো বছর বয়সে শুকতারা পত্রিকায়। পরবর্তীকালে আনন্দমেলা, সন্দেশ, এবেলা, এই সময়, উনিশ-কুড়ির মতো একাধিক পত্রপত্রিকার জন্য ছবি এঁকেছেন। কমিক্স আঁকার জন্য ২০১৪ সালে নারায়ণ দেবনাথ পুরস্কার পেয়েছেন।
View Posts →
অর্মিতা চক্রবর্তী
অর্মিতার দুটো ডাকনাম। শাখি আর পান্তু। মা পান্তু বলে ডাকে। দোলনা ডে স্কুলে ক্লাস ওয়ানে পড়ে। ছবি আঁকতে, কার্টুন দেখতে আর রূপকথার গল্প শুনতে খুব ভালোবাসে। পুতুলের সংসারের কাজ সারতেই তার দিন কেটে যায়! খেতে খুব ভালবাসে অর্মিতা। চাইনিজ, পোলাও, বিরিয়ানি হোক বা আলুসেদ্ধ ভাত! আর ভালবাসে মিষ্টি! মাঝে মাঝে ওর ইচ্ছে করে মিষ্টির দোকানের মাছি হলে বেশ হত! তবে আসলে মায়ের মতো পড়াতে চায় অর্মিতা।
View Posts →
অর্ণব নাগ
জন্ম ও বেড়ে ওঠা উত্তর কলকাতার বনেদি ঘরানায়। সেইসূত্রেই বাংলা ও বাঙলির সাংস্কৃতিক অনুসন্ধানের সূত্রপাত। প্রাণীবিদ্যায় স্নাতকের পর সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি। পরে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পুস্তক প্রকাশনা বিদ্যায় স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা। ফিচার-ধর্মী প্রতিবেদন থেকে ক্রমে গবেষণায় মনোনিবেশ। বর্তমানে ইনস্টিটিউট অব সোশ্যাল অ্যান্ড কালচারাল স্টাডিজের গবেষণা সহযোগী হিসেবে কর্মরত।
View Posts →
অর্ণব রায়
খ্যাতিমান সঙ্গীতশিল্পী অর্ণব রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রবীন্দ্রনাথের গান বিষয়ে গবেষণা সম্পন্ন করেছেন। প্রবাদপ্রতিম সঙ্গীতগুরু আশিস ভট্টাচার্যের সুযোগ্য ছাত্র অর্ণব রবীন্দ্রসঙ্গীতে বিশেষভাবে পারদর্শী, এ ছাড়াও অন্য ধরনের গানেও তিনি যথেষ্ট পারঙ্গম। তিনি পেশায় শিক্ষক। গান তাঁর সবচেয়ে প্রিয়। তিনি ভ্রমণপিপাসু, সেই সঙ্গে উদ্যানচর্চায় আগ্রহী।
View Posts →
অরূপ দাশগুপ্ত
পড়াশোনা করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেডিয়ো ফিজিক্স বিভাগে। পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন তথ্য প্রযুক্তিকে। প্রায় এগারো বছর নানা বহুজাতিক সংস্থার সাথে যুক্ত থাকার পর উনিশশো সাতানব্বইতে তৈরি করেন নিজের তথ্য প্রযুক্তি সংস্থা। গত তেইশ বছর ধরে রয়েছেন সেই সংস্থার পরিচালনার দাযিত্বে। কাজের জগতের ব্যস্ততার ফাঁকে ভালবাসেন গান বাজনা শুনতে এবং নানা বিষয়ে পড়াশোনা করতে। সুযোগ পেলেই বেড়াতে বেরিয়ে পড়েন আর সেই অভিজ্ঞতা ধরে রাখেন ক্যামেরায়।
View Posts →
অশোক বসু
জন্ম ১৯৫৭-তে তমলুকে। আট বছর বয়সে বাবার হাত ধরে কলকাতায়। সাংবাদিকতায় প্রায় চার দশক। 'বর্তমান' খবরের কাগজে কার্যনির্বাহী সম্পাদক ছিলেন দীর্ঘদিন। পরে 'সংবাদ প্রতিদিন' ও 'উত্তরবঙ্গ সংবাদ'-এ। বেশ কিছু সাপ্তাহিক, পাক্ষিক ও মাসিক পত্রিকা সম্পাদনা করেছেন। পুরোপুরি সাংবাদিকতায় আসার আগে চলচ্চিত্র পরিচালক নব্যেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন।
View Posts →
অশোককুমার মুখোপাধ্যায়
প্রাবন্ধিক ঔপন্যাসিক অশোককুমার মুখোপাধ্যায়ের ঝোঁক বিভিন্ন বিষয়ের প্রতি। তাঁর তিনটি তথ্য-উপন্যাস-- অগ্নিপুরুষ, আটটা-ন’টার সূর্য এবং অবিরাম জ্বরের রূপকথা--তিনটি বিভিন্ন সময় নিয়ে। প্রবন্ধের জন্য দু’বার পেয়েছেন আনন্দ-স্নোসেম পুরস্কার। শেষোক্ত উপন্যাসটি ইংরেজিতে অনূদিত হয়ে নামী পুরস্কারের বিচার তালিকায় স্থান পেয়েছিল।
View Posts →
অতনু দে
অতনু দে পেশায় বিদ্যুৎ প্রযুক্তিবিদ – গুরগাঁওয়ে একটি বিদেশী কোম্পানিতে কাজ করেন। বাংলা ভাষায় লেখালেখি করতে ভালোবাসেন। মূলত লেখেন ছোটগল্প ও অণুগল্প, যার অনেকগুলিই ইতিপূর্বে প্রকাশিত হয়েছে একাধিক ওয়েবজিনে। সৃষ্টিসুখ প্রকাশনা থেকে প্রকাশিত হয়েছে ওঁর ছোট গল্পের সংকলন – নাম “শহরের সিম্ফনি”।
View Posts →
অতনু চক্রবর্তী
অতনু সঙ্গীতের নানান দিক নিয়ে লেখালেখি করে চলেছেন কয়েক দশক ধরে। বাংলা ও হিন্দি চলচিত্রের গান থেকে শুরু করে মার্গসঙ্গীতে অনায়াস যাতায়াত। 'পঞ্চম' ও 'মুখোমুখি বিলায়েৎ' ওঁর দুটি জনপ্রিয় বই। কলকাতায় মাইফেলের ইতিহাস নিয়ে ওঁর কাজ পাঠকদের মধ্যে সমাদর পেয়েছে।
View Posts →
অভীক চট্টোপাধ্যায়
জন্ম ১৯৬৫-তে কলকাতায়। বেড়ে ওঠা চন্দননগরে। স্কুল জীবন সেখানেই। কলকাতার সিটি কলেজ থেকে স্নাতক। ছোটো থেকেই খেলাধূলার প্রতি আগ্রহ। গান শেখাও খুব ছোটো থেকেই। তালিম নিয়েছেন রামকুমার চট্টোপাধ্যায়ের কাছেও। দীর্ঘদিন মার্কেটিং পেশায় যুক্ত থাকার পর, গত বারো বছর ধরে পুরোপুরি লেখালেখি, সম্পাদনার কাজে যুক্ত। পুরনো বাংলা গান, সিনেমা, খেলা ইত্যাদি বিষয়ে অজস্র প্রবন্ধ লিখেছেন। আনন্দবাজার পত্রিকা, এই সময়-সহ বহু পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লেখেন। সম্পাদিত বইয়ের মধ্যে উল্লেখযোগ্য উত্তমকুমারের "হারিয়ে যাওয়া দিনগুলি মোর", হেমন্ত মুখোপাধ‍্যায়ের "আনন্দধারা", রবি ঘোষের "আপনমনে", মতি নন্দীর "খেলা সংগ্রহ"। লিখেছেন "সংগীতময় সুভাষচন্দ্র" বইটি। গত ৫ বছর ধরে "মাতৃশক্তি" ও "জাগ্রত বিবেক" পত্রিকায় কর্মরত।
View Posts →
অভিজিৎ তরফদার
স্বনামধন্য চিকিৎসক | তবে সাহিত্যের জগতেও অতি পরিচিত নাম | লেখা প্রকাশিত হয়েছে বহু অগ্রণী পত্র পত্রিকায় |
View Posts →
অভীক বন্দ্যোপাধ্যায়
জন্ম এবং বেড়ে ওঠা ভাটপাড়ায়, স্নাতক স্তরের পড়াশোনা কলকাতা সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে। বর্তমানে বোস ইন্সটিটিউটে পদার্থবিদ্যা নিয়ে গবেষণারত। সিনেমা, গান এবং ফুটবল নিয়ে সময় কাটাতে ভালোবাসেন।
View Posts →
অভিষেক চৌধুরী
অভিষেক পেশায় সফটঅয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। খুব ছোটবেলা থেকেই কার্টুন-প্রেম। সেই ভালোবাসার টানেই প্রিয় কার্টুনিস্টদের আঁকা খবরের কাগজ থেকে কেটে নকল করতেন। এইভাবেই নিজের ইচ্ছে, উৎসাহ আর অনুসন্ধিৎসা সঙ্গী করেই কার্টুন আঁকা শেখা। ২০১৫ সাল থেকে কলকাতার কার্টুনদলের একনিষ্ঠ সদস্য।
View Posts →
অয়ন বন্দ্যোপাধ্যায়
অয়ন বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৭৬ সালে। এখন রিষড়ার বাসিন্দা। মূলত কবি হলেও ছড়া এবং গদ্যসাহিত্যেও সমান আগ্রহ। প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয় ১৯৯৫-তে ‘দেশ’ পত্রিকায়। প্রথম কবিতার বই ২০০০ সালে। ভারত সরকারের সংস্কৃতি-মন্ত্রকের অধীনে ‘জুনিয়ার ফেলোশিপ’ নিয়ে গবেষণা করেছেন বাংলা কবিতা নিয়ে। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় সম্পাদিত ‘কৃত্তিবাস’ পত্রিকার সঙ্গে দীর্ঘদিন যুক্ত, সম্পাদনাও করেছেন। কাব্যগ্রন্থের সংখ্যা নয়। পেয়েছেন কৃত্তিবাস পুরস্কার, তুষার রায় সম্মাননা।
View Posts →
বেবী সাউ
বেবী সাউ মূলত কবিতা এবং প্রবন্ধ লেখেন। জন্ম পশ্চিমবঙ্গের ঝাড়গ্রাম জেলায়। বর্তমানে ঝাড়খণ্ডের জামশেদপুর শহরে থাকেন। জামশেদপুর আকাশবাণীতে কর্মরত। কবি বেবী সাউ-এর "কাঁদনাগীত: সংগ্রহ ও ইতিবৃত্ত" বইটি 'কৃত্তিবাস মাসিক পুরস্কার ২০১৯' এবং 'বাংলা একাদেমি তাপসী বসু স্মারক সম্মান ২০২০' পুরস্কারে পেয়েছে। তাঁর কবিতার বইগুলিও একাধিক সম্মান পেয়েছে। যেমন- রাঢ় বাংলা রোদ্দুর সম্মান, বইতরণী পুরস্কার, শব্দপথ যুব সম্মান এবং 'এখন শান্তিনিকেতন' পদ্য সম্মান।
View Posts →
বনানী মুখোপাধ্যায়
বনানী মুখোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৪২ সালে বাগবাজারে। বিশিষ্ট নাট্যকার বিধায়ক ভট্টাচার্যের কন্যা। আশৈশব নাটকের আবহে মানুষ। বাবার নাট্যগােষ্ঠী ‘একত্রিকা’-তে নিয়মিত অভিনয়। কলেজে পড়াকালীন তৃপ্তি মিত্র ‘বহুরূপী’-তে নিয়ে যান কাঞ্চনরঙ্গ’-তে অভিনয় করার জন্য। তারপর থেকে অসংখ্য পেশাদার নাটকে অভিনয়। নিজেও নাট্যকার। বেতারের দুনিয়ায় শ্রুতিনাট্যকার হিসেবে বিপুল খ্যাতি। বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী। তবে কলম এখনও চলছে পুরোদমে। তাঁর শ্রুতিনাটকের সংকলন বই হয়েও বেরিয়েছে।
View Posts →
বাংলালাইভ
বাংলালাইভ একটি সুপরিচিত ও জনপ্রিয় ওয়েবপত্রিকা। তবে পত্রিকা প্রকাশনা ছাড়াও আরও নানাবিধ কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে থাকে বাংলালাইভ। বহু অনুষ্ঠানে ওয়েব পার্টনার হিসেবে কাজ করে। সেই ভিডিও পাঠক-দর্শকরা দেখতে পান বাংলালাইভের পোর্টালে,ফেসবুক পাতায় বা বাংলালাইভ ইউটিউব চ্যানেলে।
View Posts →
বাংলালাইভ ফিচার
মৌলিক‚ ভিন্নধর্মী ও সময়োপযোগী - এমনই নানা স্বাদের নিবন্ধ পরিবেশনের চেষ্টায় আমরা। প্রতিবেদন বিষয়ে আপনাদের মতামত জানান 'কমেন্ট' বক্সে | নিয়মিত আপডেট পেতে ফলো করুন - https://www.facebook.com/banglaliveofficial
View Posts →
বর্ণিণী মৈত্র চক্রবর্তী
বর্ণিণী প্রেসিডেন্সীর প্রাক্তনী। তারপর সাংবাদিকতায় আসা। চাকরির ফাঁকে রবীন্দ্রসঙ্গীতে স্নাতকোত্তর। দীর্ঘ ১৪ বছর সাংবাদিকতা করছেন। বাংলার একটি অন্যতম জনপ্রিয় সংবাদপত্রে বহুবছর কাজ করেছেন, কখনও ছোটদের পাতার দায়িত্বে, কখনও বা মেয়েদের বিশেষ পাতার দায়িত্বে। গান শোনা, গান গাওয়া, বই পড়া এবং নানা ধরনের মিষ্টি খাওয়াতে আগ্রহ।
View Posts →
বিয়াস মুখোপাধ্যায়
একযুগ সাংবাদিকতায় কাটিয়েছেন। কলম তাঁর হাতিয়ার। বই তাঁর বন্ধু। তাই সাদা পাতায় কলমের আঁচড় কেটে মনের কথা ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করেন মুখে না বলে। ভালো লাগে গান, আবৃত্তি-সহ সমস্ত শিল্পকলা। বোধহয় নিজে ষোলকলায় পূর্ণ নন বলেই...।
View Posts →
বেদব্রত ভট্টাচার্য
পেশায় ইঞ্জিনিয়ার। তিতিবিরক্ত হতে হতেও আইটি শিল্পতালুকে মজদুরি করতে বাধ্য হন। কিন্তু সবচেয়ে পছন্দের কাজ হাতে মোবাইলটি নিয়ে আলসেমি করে শুয়ে থাকা। চেহারাছবি নিরীহ হলেও হেব্বি ভালোবাসেন অ্যাকশন ফিলিম, সুপারহিরো আর সাই ফাই। সঙ্গে চাই সুরেশের রাবড়ি, চিত্তরঞ্জনের রসগোল্লা-পান্তুয়া, কেষ্টনগরের সরভাজা ইত্যাদি নানাবিধ মিষ্টান্ন।
View Posts →
ভবেশ দাশ
আকাশবাণী ও দূরদর্শনের প্রাক্তন বার্তা সম্পাদক। সম্পাদনার কাজ করেছেন সংবাদ-সাপ্তাহিক ও দৈনিকেও। যাদবপুর, কলকাতা, বর্ধমান ও রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস কমিউনিকেশন বিভাগে দীর্ঘদিন অধ্যাপনা করেছেন। কলকাতা বেতারের ইতিহাস, সম্প্রচারের ভাষা ও বেতার সাংবাদিকতা বিষয়ে একাধিক গ্রন্থ সম্পাদনা করেছেন।বর্তমানে 'নান্দীপট' নাট্যপত্রের সম্পাদক।
View Posts →
ভাস্কর ঘোষ
পেশায় ইন্টিরিয়র ভাস্কর ঘোষ দীর্ঘ ১৩ বছর এক বহুজাতিক সংস্থার সঙ্গে যুক্ত থাকার পর নিজের উদ্যোগ শুরু করেছেন। ভালোবাসেন গান শুনতে, বই পড়তে এবং খেলাধুলোর জগতের খবর রাখতে। অবসর সময় লেখালেখি করেন।
View Posts →
বিবেক সেনগুপ্ত
কর্মসূত্রে বেঙ্গালুরুর বাসিন্দা বিবেক পেশাগত ভাবে তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থার কর্মী। কিন্তু নেশায় আদ্যন্ত কার্টুনিস্ট এবং পর্যটক। সঙ্গে রয়েছে বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখালিখির অভ্যাস ও সম্পাদনা। তাঁর লেখা তিনটি বইও ইতিমধ্যেই প্রকাশিত হয়েছে। খেলাধুলোয় তাঁর উৎসাহের কথা বেরিয়ে এসেছে সেই বইয়ের মাধ্যমেই। দ্য আমেজিং অলিম্পিকস: ডাউন দ্য সেঞ্চুরিজ়, দ্য ওয়র্ল্ড চেজ়িং দ্য কাপ এবং ফুটবল ফান বুক পাঠকমহলে খুবই সমাদৃত হয়েছে। বেঙ্গালুরুর ইন্ডিয়ান কার্টুন গ্যালারিতে তাঁর কার্টুন নিয়ে একক প্রদর্শনীও হয়েছে।
View Posts →
বিভাস চক্রবর্তী
খ্যাতনামা নাট্য ব্যক্তিত্ব ও অন্য থিয়েটার নাট্যদলের প্রতিষ্ঠাতা। একাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন। সঙ্গীত নাটক একাডেমি পুরস্কারে ভূষিত। 'নাটক নিয়ে' এবং 'থিয়েটার যা দেখা তা নিয়ে লেখা' ওঁর দুটো জনপ্রিয় বই।
View Posts →
বিভাস রায়চৌধুরী
কবি, ঔপন্যাসিক ও প্রাবন্ধিক বিভাস রায়চৌধুরী দীর্ঘদিন কবিতার প্রকাশনা ও চর্চার সঙ্গে নিবিড়ভাবে যুক্ত। 'কবিতা আশ্রম' পত্রিকার মুখ্য পরিকল্পক। পেয়েছেন কৃত্তিবাস পুরস্কার ও বাংলা একাডেমি পুরস্কার। ওঁর প্রথম প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের নাম নষ্ট প্রজন্মের ভাসান (১৯৯৬)। এর পরে কবি পাঁচটি উপন্যাস সহ কুড়িটিরও বেশি কবিতা গদ্য ও প্রবন্ধের বই লিখেছেন।
View Posts →
বিদিশা দে
বিদিশার জন্ম নদীয়ার হরিণঘাটায়। হরিণঘাটা মহাবিদ্যালয় থেকে স্নাতক হয়ে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতকোত্তর পড়াশোনা করছেন।
View Posts →
বিদিতা ভট্টাচার্য চক্রবর্তী
বিদিতা ভট্টাচার্য্য চক্রবর্ত্তী উত্তর আমেরিকার নিউজার্সি নিবাসী। অনেক বছর ধরে বাচিকশিল্পী, আবৃত্তিকার ও সঞ্চালিকা হিসেবে দেশে ও বিদেশে কাজ করছেন। সঙ্গে একটু আধটু লেখালিখি। যাপন কবিতা, তুলি ও কলম। দীর্ঘ ১৫ বছর বিজ্ঞান বিষয়ে শিক্ষকতার পাশাপাশি বিদিতার অনুরাগ সাহিত্য। আর বিশ্বাস কলমের ঠোঁটে মিথ্যে রাখা নেই।
View Posts →
বিহু রায়
বিহু পেশায় বহুজাতিক সংস্থার কর্মী। আদি নিবাস নদিয়া জেলার শান্তিপুর। কর্মসূত্রে আট বছর যাবৎ দেশের একাধিক শহরে ভ্রাম্যমাণ। সঙ্গী বলতে রঙিন মাফলার আর বেরঙিন ইনহেলার। গরিমা বলতে ঘরজোড়া বইপত্র ও একটি যুক্তাক্ষরবিহীন নাম৷ স্বপ্ন দেখেন একদা চাকরি ছেড়ে গ্লোবট্রটার হওয়ার।
View Posts →
বিনতা রায়চৌধুরী
পেশায় অধ্যাপক বিনতা রায়চৌধুরী গল্পকার ও ঔপন্যাসিক হিসেবে জনপ্রিয়। কবিতা ও প্রবন্ধ লেখাতেও সমান দক্ষ। নিয়মিত বিখ্যাত সাহিত্যপত্রগুলিতে ওঁর লেখা প্রকাশিত হয়। যাপনলিপি, তূণীরে তিনটি তীর, আলোর রাত আঁধার রাত, নিঃশব্দ জলরব, তোমাকে ছুঁয়ে, ছকের বাইরে ওঁর কিছু প্রকাশিত বই।
View Posts →
বিনায়ক বন্দোপাধ্যায়
পেশায় শিক্ষক | মূলত কবি হলেও সাহিত্যের অন্যান্য ক্ষেত্রেও তাঁর স্বচ্ছন্দ পদচারণা | পেয়েছেন কৃত্তিবাস ও বাংলা আকাদেমি শক্তি চট্টোপাধ্যায় পুরস্কার | ‘নেহাত গরিব নেহাত ছোটো’, ‘দাঁড়াচ্ছি দরজার বাইরে’, ‘যতটুকু মেনে নিতে পারো’, ‘পতাকা নয় দিগন্ত’ ইত্যাদি তাঁর উল্লেখযোগ্য সৃষ্টি |
View Posts →
বিনায়ক রুকু
আমি রুকু বিনায়ক। সবাই বলে আমি বুদ্ধু। ভোঁদাই। মা আমাকে গাধা বলে না মুনা বলে।পাপা বলে পুচাই। আমার দুটো হাত, দশটা হাতের আঙুল,দুটো চোখ আছে,যা দিয়ে আমি ছবি আঁকা। পাপা মা বলে আমার অটিজম আছে। অটিজম কি আমি জানিনা। তবে আমি একটু কেমন যেন। আমার গাড়ির চাকা, টেবিল ফ্যান, ছোট ছোট রবারের পুতুল ,রং,তুলি পেন্সিল ভাল লাগে।আমি লাফাতে ভালোবাসি। এ দেয়াল থেকে ও দেয়াল। সব দেয়ালে হাতের চাপ,সব দেয়ালে সর্দি,নাকের পোঁটা লাগে। মা বলে যাতা। আর মোছে।।
View Posts →
বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়
বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়, মূলত একজন নাট্যকর্মী, অভিনেতা ও পরিচালক। তাঁর প্রথম নাটক 'দখল', স্যাস নাট্য-পত্রিকায় ২০০৬ সালে প্রকাশিত হয়। আরও দুটি নাটক- 'দ্য হাউস অফ বার্নার্ডা আলবা' অবলম্বনে খন্ডহর (বাংলা) মঞ্চস্থ হয়। ২০১৮ সালের নাট্যসৃজন শারদীয়ায় প্রকাশিত হয় সত্যজিৎ রায়ের গল্প অবলম্বনে 'সুজন হরবোলা' এবং আননায়ুধ নাট্য-পত্রিকাতেও প্রকাশিত হয়। পরবর্তীকালে বিভিন্ন সময়ে নাটক বিষয়ে প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে ব্রাত্যজন নাট্যপত্র, কৃত্তিবাস পত্রিকা, আননায়ুধ ও কলকাতা কথকতায়।
View Posts →
বিশ্ব প্রতীম ভৌমিক
দীর্ঘদিনের প্রবাসী বিশ্ব প্রতীম ভৌমিকের জন্ম ও বেড়ে ওঠা কলকাতায়। কলকাতার ডন বসকো স্কুল ও সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে পড়াশোনার পর উচ্চশিক্ষার জন্য় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি। বর্তমানে ফর্ডহ্য়াম ইউনিভার্সিটিতে কর্মরত। ভালবাসেন ঘুরে বেড়াতে ও ছবি তুলতে।
View Posts →
বিশ্বজিৎ পাণ্ডা
বিশ্বজিৎ পাণ্ডার জন্ম ১৯৭৪-এ। পেশা অধ্যাপনা। পূর্ব বর্ধমানের আচার্য সুকুমার সেন মহাবিদ্যালয়ে পড়ান। মূলত আলোচক ও প্রাবন্ধিক। সমসাময়িক বাংলা সাহিত্য নিয়ে চর্চায় বিশেষ পারদর্শী। এযাবৎ প্রকাশিত গ্রন্থ : যৌনতা ও বাংলা সাহিত্যের পালাবদল, বাংলা লিটল ম্যাগাজিন, স্বাধীনতা-উত্তর ছোটগল্পে পশ্চিমবঙ্গের মুসলিম মানস, সাহিত্য সাধক উৎপল দত্ত, পথের পাঁচালির আঁকেবাঁকে, আরণ্যকের আলোছায়া। এছাড়াও বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে শতাধিক প্রবন্ধ ও আলোচনা।
View Posts →
বিশ্বজিৎ রায়
বিশ্বজিৎ রায়ের জন্ম ১৯৭৮-এ, কলকাতায়। রামকৃষ্ণ মিশন পুরুলিয়ায় স্কুলজীবন কাটিয়ে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা নিয়ে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত পড়াশুনো। উভয় পর্যায়েই প্রথম শ্রেণীতে প্রথম। বর্তমানে বিশ্বভারতীর বাংলা বিভাগে অধ্যাপনা করেন। এবং বিশিষ্ট প্রাবন্ধিক হিসেবে বাংলা সাহিত্যজগতে সুপরিচিত। রবীন্দ্রনাথ ও বঙ্গসংস্কৃতি বিষয়ে তাঁর প্রকাশিত প্রবন্ধ সংকলনের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘রবীন্দ্রনাথ ও বিবেকানন্দ: স্বদেশে সমকালে’, ‘সচলতার গান’, ‘সব প্রবন্ধ রাজনৈতিক’। এর বাইরে প্রকাশিত হয়েছে তাঁর মুক্তগদ্যের বই ‘ঘটিপুরুষ’, ‘অন্দরবেলা’ ও ‘ইস্কুলগাথা’ এবং পদ্যের বই ‘বিচ্ছেদ প্রস্তাব’ ও ‘গেরস্থালির পদ্য’। ‘ঘটিপুরুষ’ গ্রন্থের জন্য পেয়েছেন নীলাঞ্জনা সেন স্মৃতি পুরস্কার।
View Posts →
বিতস্তা ঘোষাল
বিতস্তার জন্ম ১৯৭৩ সালে। স্কুলের পর স্কটিশ চার্চ কলেজে স্নাতকের পড়াশোনা। লেখালিখি, পত্রিকা সম্পাদনার প্যাশন বরাবরই। বর্তমানে 'অনুবাদ পত্রিকা' নামে একটি পত্রিকা সম্পাদনা করেন। ভাষা সংসদ নামে প্রকাশনা সংস্থা চালান। প্রকাশিত বই - এলোমেলো গদ্যের খসড়া, সনাতনী রিকশার উৎস সন্ধানে, বাঙালি নারীর সার্কাস অভিযান ইত্যাদি।
View Posts →
বৈশাখ ভট্টাচার্য
বৈশাখের বয়স সাত। একদণ্ড স্থির হয়ে বসা তার না-পসন্দ। এই সে সাজছে পাওয়ার রেঞ্জার কিংবা স্পাইডারম্যান, পরমুহূর্তেই হয়ে যাচ্ছে সপ্তদ্বীপের রাজামশাই! এক্ষুণি পায়ে হাতে বাস্কেটবল, পাঁচ মিনিট পরেই পাজ়ল নিয়ে উপুড়। পড়াশুনো তার পোষায় না। সারাদিন ছবি আঁকা, খেলা, গল্প শোনা, লাফালাফি করাতেই তার প্রাণের আরাম। অ্যালার্জির জন্য অনেক কিছু খাওয়া তার বারণ। তা সত্ত্বেও আইসক্রিম, দইবড়া, মিষ্টি হলুদ পোলাও আর মাটন খেতে খুব ভালোবাসে বৈশাখ।
View Posts →
ব্রাত্য বসু
জন্ম ১৯৬৯, ২৫ সেপ্টেম্বর, মেদিনীপুর। পূর্বতন প্রেসিডেন্সি কলেজ ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তনী। পরবর্তীতে সিটি কলেজে অধ্যাপনা। নাটককার, পরিচালক, অভিনেতা, চলচ্চিত্র পরিচালক, চলচ্চিত্রাভিনেতা, প্রাবন্ধিক, অনুবাদক, গীতিকার সম্পাদক। 'কালিন্দী ব্রাত্যজন' নাট্যগোষ্ঠীর কর্ণধার ও 'ব্রাত্যজন নাট্যপত্রের' প্রধান সম্পাদক। বর্তমান পশ্চিমবঙ্গ সরকারের গুরুত্বপূর্ণ বিভাগের মন্ত্রী। পেয়েছেন বহু পুরস্কার ও স্বীকৃতি। উল্লেখ্য সত্যেন মিত্র পুরস্কার, শ্যামল সেন স্মৃতি পুরস্কার, দিশারী পুরস্কার, রমাপ্রসাদ বণিক স্মৃতি পুরস্কার, খালেদ চৌধুরী স্মারক সম্মান, অন্য থিয়েটারের শ্রেষ্ঠ নাট্য নির্মাণ সম্মান। বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য পেয়েছেন গজেন্দ্র কুমার মিত্র-সুমথনাথ ঘোষ স্মৃতি সম্মান। তাঁর সম্পাদনায় 'গিরিশ কথা' ও 'শিশির কথা' দু'টি বই তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগ, প: ব: সরকার কর্তৃক প্রকাশিত হয়েছে। পেয়েছেন এবিপি আনন্দ 'সেরা বাঙালি ২০১৯' সম্মান। পেয়েছেন বাংলার নাট্যশিল্প জগতের সর্বোচ্চ সম্মান 'দীনবন্ধু মিত্র পুরস্কার'।
View Posts →
বৃতি করভৌমিক
সাউথপয়েন্ট স্কুলের ক্লাস নাইনের ছাত্রী। গান গাইতে আর বিটিএস ব্যান্ডের গান শুনতে দারুন ভালবাসে। বড় হয়ে গায়ক হতে চায়।
View Posts →
বুদ্ধদেব গুহ
বুদ্ধদেব গুহ এই সময়ের একজন জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক। ১৯৩৬ সালে কলকাতায় জন্ম হলেও শৈশব-কৈশোর কেটেছে বাংলাদেশে। পেশায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট হলেও সাহিত্যই তাঁর আদত বিচরণক্ষেত্র। রবীন্দ্রসংগীত, পুরাতনী ও টপ্পার আঙিনাতেও তাঁর সাবলীল যাতায়াত। প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ 'জঙ্গলমহল।' তাঁর রচিত 'হলুদ বসন্ত', 'মাধুকরী', 'কোয়েলের কাছে', 'কোজাগর', 'একটু উষ্ণতার জন্য' দীর্ঘদিন ধরে বেস্টসেলার। পেয়েছেন আনন্দ ও বিদ্যাসাগর পুরস্কার। তাঁর চোখে সব বনই সুন্দর, সুন্দর বন।
View Posts →
চৈতালী চট্টোপাধ্যায়
পদার্থবিদ্যার স্নাতক চৈতালির প্রথম প্রেম সাহিত্য। আশির দশক থেকেই বাংলা কবিতার জগতে পরিচিত নাম। তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের মধ্যে অন্যতম বিজ্ঞাপনের মেয়ে, বিষাক্ত রেস্তোরাঁ, দেবীপক্ষে লেখা কবিতা ইত্যাদি। পেয়েছেন বিষ্ণু দে পুরস্কার, শক্তি চট্টোপাধ্যায় পুরস্কার, মীরাবাই পুরস্কার-সহ একাধিক সম্মান।
View Posts →
চৈতালি বিশ্বাস
জন্ম শিলিগুড়িতে হলেও বেড়ে ওঠা হাওড়ার বালিতে। মফসসলের জীবন থেকে বেঁচে থাকার সংগ্রহ করা চলত প্রতিনিয়ত। সেগুলোই এক দিন কবিতা হয়ে ওঠে। প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে সংস্কৃতে স্নাতক এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। পড়া শেষ করে যোগ দেন সাংবাদিকতায়। বর্তমানে আনন্দবাজার পত্রিকায় কর্মরত। ভালবাসেন শব্দ দিয়ে মানুষের কথা লিখে রাখতে।
View Posts →
চাণক্য
চাণক্য বশিষ্ঠ দীর্ঘদিন যাবৎ সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত। বামপন্থী রাজনীতি তাঁর রক্তে। দেশ-কাল-মানুষের অবস্থা, প্রেক্ষিত ও ভবিষ্যৎ তাঁকে ভাবায়, লেখায়, পড়ায়। অবসরে ভালোবাসেন বই পড়তে, ঘুরে বেড়াতে, আড্ডা জমাতে। প্রিয় লেখক শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় এবং পওলো কোয়েলো। প্রিয় বই 'লেখা নেই স্বর্ণাক্ষরে' এবং 'ইলেভেন মিনিটস।'
View Posts →
চন্দনা সরকার
পড়াশোনা করেছেন শান্তিনিকেতনে বিশ্বভারতী বিদ্য়ালয়ে। দীর্ঘদিনের প্রবাসী চন্দনার বর্তমান ঠিকানা ওহায়ো।
View Posts →
চন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়
১৯৬১ সালে কলকাতায় জন্ম। সাংবাদিকতা নিয়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম এ পাশ করার পর লেখালিখি শুরু 'মহানগর' পত্রিকায়। পরে পিয়ারলেস সংস্থায় জনসংযোগ আধিকারিক হিসেবে যোগদান এবং দীর্ঘ দু'দশক পরে স্বেচ্ছাবসর। ১৯৭৮ সাল থেকে 'কিঞ্জল' পত্রিকা সম্পাদনা করছেন। পুরনো কলকাতা নিয়ে গবেষণাই ধ্যান জ্ঞান। 'কলকাতার কথকতা' দল তৈরি করেছেন পুরনো কলকাতার নানা হারিয়ে যাওয়া বিষয় নিয়ে চর্চার জন্য। কবিতা যখন কবিতা, হ্যাপি হোম ক্লিনিক, গণসংযোগ, বঙ্গদর্শনে রবীন্দ্রনাথ, কার্টুন ক্যালকাটা-সহ একাধিক বই লিখেছেন ও সম্পাদনা করেছেন।
View Posts →
চিন্ময় গুহ
পেশায় ইংরেজি সাহিত্যের অধ্যাপক। লেখক, প্রবন্ধকার ও অনুবাদক হিসেবে খ্যাত। 'ঘুমের দরজা ঠেলে' বইয়ের জন্য পেয়েছেন অ্যাকাডেমি পুরস্কার। ফরাসি ভাষা ও সাহিত্যচর্চায় ওঁর পাণ্ডিত্য সুবিদিত। 'হে অনন্ত নক্ষত্রবীথি', 'গাঢ় শঙ্খের খোঁজে', 'অন্য জলবাতাস অন্য ঢেউ' ওঁর কিছু প্রকাশিত বাংলা বই। ইংরেজি ভাষাতেও লিখেছেন একাধিক বই। বিশিষ্ট ফরাসিবিদ হিসেবে তিনবার ফরাসি সরকারের কাছ থেকে নাইটহুড পেয়েছেন।
View Posts →
চিরঞ্জীব
প্রবীণ ক্রীড়া সাংবাদিক চিরঞ্জীবের পিতৃদত্ত নাম চিত্তরঞ্জন বিশ্বাস| বয়স ৮২ পেরোল ২০২০-তে| গত শতাব্দীর ষাটের দশক থেকে কলকাতা ময়দান চষেছেন পেশাগত ভালোবাসায়| ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগানের নানা ঘটনা, উত্থান-পতনের সাক্ষী তিনি| চাকরি করেছেন আনন্দবাজার পত্রিকায়, তার পর সম্পাদক ছিলেন 'খেলার আসর' সাপ্তাহিকের| বছর কয়েক আগে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব তাঁকে সম্মান দেয়|
View Posts →
চিরঞ্জিৎ সামন্ত
পেশায় চিকিৎসক। স্নাতকোত্তর শেষ করে বর্তমানে কলকাতা মেডিকেল কলেজে কর্মরত। পাশাপাশি আশৈশব ভালবাসার টানে শিল্প ও সাহিত্যচর্চায় নিমগ্ন। বেশ কিছু বছর ধরে যুক্ত রয়েছেন প্রচ্ছদ, গ্রন্থচিত্রণ ও ক্যালিগ্রাফির কাজে। এছাড়া কার্টুন আঁকিয়ে হিসেবে দীর্ঘদিন যুক্ত আছেন কার্টুনদলের সঙ্গে। লেখালিখির শুরু মূলত কবিতার হাত ধরে। প্রকাশিত কবিতার বই 'প্রচ্ছদ শ্রমিকের জার্নাল'।
View Posts →
দামু মুখোপাধ্যায়
জন্ম ইস্তক কলকাতায়। শিক্ষা দিক্ষার খতিয়ানে ঘোর বিড়ম্বনার আশঙ্কা রয়েছে বলে আপাতত উহ্য। নোলা-সর্বস্ব জীবন। যে কোনও মুলুকের হরেক কিসিম পদ চেখে দেখার নেশা আশৈশব। পাকযন্ত্র চালু রাখা বাদে আরও কিছু সযত্নলালিত বদভ্যাস - হকেনকে খুন্তিবাজিতে সহবাসীদের নাকাল করা। বাতিক - ইনসমনিয়া কাজে লাগিয়ে রাত্তির জেগে বইপত্তর ঘাঁটা। তাতে হাঁফ ধরলে তল্পিতল্পা গুটিয়ে নিরুদ্দেশ হওয়ার কুমতলব হামেশাই দেখা দেয়। জুতসই বিষয় আর দোসর জুটিয়ে কাজ ফেলে খোশগল্প আর হল্লা করার দুর্নাম বরাবর। প্রকাশিত বই - খ্যাঁটনসঙ্গী।
View Posts →
দেবাদ্রি রায়
দেবাদ্রি বাল নিলয় স্কুলে নার্সারি ওয়ানের ছাত্র। বয়স চার। মায়ের সঙ্গে কাঁচি আঠা হাতে ক্রাফট করা আর ছবি আঁকা তার ভারি পছন্দ। আর পছন্দ গপ্পো শোনা। চিকেন আর 'বিরোয়ানি' খেতে খুব ভালোবাসে দেবাদ্রি। তবে তেতোও খেয়ে নেয় লক্ষ্মীছেলের মতো। বড় হয়ে কিনা তাকে আয়রন ম্যান হতে হবে! তাই সবকিছু খায়।
View Posts →
দেবলীনা রায়
দেবলীনার জন্ম রানাঘাটে এবং কর্মস্থল মুম্বই। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় স্নোতকোত্তর করেছেন। বর্তমানে এক বহুজাতিক সংস্থায় কর্মরত। ভালোবাসেন গান গাইতে এবং পেটপুজো করতে।
View Posts →
দেবারতি রায়
একজন ফুড কলামিস্ট এবং কুকিং এক্সপার্ট | বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় তাঁর রান্না নিয়মিত প্রকাশিত হয় | বিভিন্ন চ্যানেলে রান্নার অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ ও প্রতিযোগিতায় সাফল্য লাভ করে সুনাম অর্জন করেছেন | তাঁর রান্নার প্রণালী সহজ ও অভিনব | সম্প্রতি প্রকাশিত তাঁর রান্নার বই 'রেস্তোরাঁর রান্না বাড়িতেই" বিশেষ ভাবে সমাদৃত হয়েছে |
View Posts →
দেবর্ষি সরকার
দেবর্ষির জন্ম ১৯৮৮ সালে উত্তর কলকাতায়। পেশায় ফটোগ্রাফার। কর্মক্ষেত্রে ফ্যাশন, লাইফস্টাইল ও বিজ্ঞাপনের ছবি তোলেন। প্রথম ফটোগ্রাফি প্রদর্শনী হয় ২০১৪ সালে দিল্লির স্প্যানিশ দূতাবাসের এডুকেশনাল সেন্টারে (ইন্সতিতুতো সারভান্তেস)। লেখালিখির শুরু কলেজ জীবনে। মূলত কবি। প্রথম প্রকাশিত বই ২০০৯ সালে। এখনও পর্যন্ত চারটি বই প্রকাশিত। ২০২০ সালে কৃ্ত্তিবাস পুরস্কার পেয়েছেন “নিজস্ব উপকথা” বইটির জন্য।
View Posts →
দেবর্ষি বন্দ্যোপাধ্যায়
পেশা মূলত, লেখা-সাংবাদিকতা। তা ছাড়াও, গান লেখেন-ছবি বানান। শখ, মানুষ দেখা। শেল্ফ থেকে পুরনো বই খুঁজে বের করা। কলকাতার রাস্তা ধরে বিকেলে ঘুরে বেড়ানো।
View Posts →
দেবাশিস চৌধুরী
দেবাশিসের পড়াশোনা অর্থনীতি নিয়ে। বর্তমানে সরকারি চাকুরে। বাংলা কবিতা, উপন্যাস পড়তে ভালো লাগে। কবিতা লেখাও সেই ভাললাগা থেকেই।
View Posts →
দেবাশিস দাশগুপ্ত
দেবাশিস দাশগুপ্ত প্রায় সাড়ে তিন দশক সাংবাদিকতা করছেন। টানা পঁচিশ বছর কাজ করেছেন প্রবাদপ্রতিম সাংবাদিক বরুণ সেনগুপ্তের প্রতিষ্ঠিত 'বর্তমান' কাগজে। তাঁর কাছে কাজ শিখেছেন। বাবা প্রয়াত কুমুদ দাশগুপ্ত ছিলেন বিশিষ্ট সাংবাদিক। কাকা বিরাজ দাশগুপ্তও ছিলেন এই পেশাতেই। ছোটবেলা থেকে সাংবাদিকতার পরিমণ্ডলে বেড়ে ওঠা। ৩৫ বছরে অনেক রাজনৈতিক ঘটনার সাক্ষী তিনি। দেখেছেন অনেক উত্থান পতন। অবসরে রবীন্দ্রসঙ্গীত আর লেখাপড়া নিয়ে থাকতেই ভালোবাসেন।
View Posts →
দেবাশিস মুখোপাধ্যায় (দে.মু)
দেবাশিস মুখোপাধ্যায় পেশায় গ্রন্থাগারিক হলেও পরিচয়ে গবেষক, লেখক ও সত্যজিৎ রায় বিশেষজ্ঞ হিসেবে খ্যাত। পড়েন বেশি, লেখেন কম। তবুও এরই মধ্যে প্রকাশিত হয়েছে 'সত্যজিৎ রায়ঃ তথ্যপঞ্জি', 'খাই কিন্তু জানি কি?', 'বাংলার খাবার বাঙালির খাবার', 'আট দেশ সাত কুঠি', 'দেমু'র নানারকম', চার খণ্ডে 'মহাজীবন' ইত্যাদি। সম্পাদিত বইয়ের মধ্যে অন্যতম 'পথের পাঁচালী: সৃজনের দুই মুখ সত্যজিৎ ও বিভূতিভূষণ', 'চিরকালের সেরা: সুকুমার রায়।' সত্যজিৎ রায়ের প্রবন্ধ সঙ্কলনের বেশ কয়েকটি গ্রন্থের সহায়ক সম্পাদক হিসেবে কাজ করেছেন। 'দেমু' নামে সমধিক পরিচিত দেবাশিস বক্তা হিসেবেও ইদানিং সুনাম অর্জন করেছেন।
View Posts →
দেবাশীষ দেব
স্বনামধন্য এই অঙ্কনশিল্পী নিজেই এক সম্পূর্ন প্রতিষ্ঠান | তাঁর হাত ধরে নতুন করে প্রাণ পেয়েছে বাংলার কার্টুন শিল্প | সিগনেচার বেড়াল আর স্ব-নেচারটি কোমল, আত্মবিশ্বাসী, রসিক | বেড়ানো তাঁর নেশা | তাই ঝুলিতে রয়েছে বহু গল্প, সঙ্গে অসাধারণ সব স্কেচ | সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে তাঁর নিরলস সাধনার অমর ফসল ‘রঙ তুলির সত্যজিৎ’ |
View Posts →
দেবেশ চট্টোপাধ্যায়
নাটকের জগতে দেবেশ চট্টোপাধ্যায় পরিচিত নাম। উইঙ্কল টুইঙ্কল, ব্রেন, ড্রিম ড্রিমের মতো একাধিক জনপ্রিয় ও সমাদৃত নাটকের পরিচালক। সম্প্রতি চলচ্চিত্র ও শর্ট ফিল্ম পরিচালনার কাজেও হাত দিয়েছেন।
View Posts →
দেবজ্যোতি
জন্ম কলকাতায়। কর্মও মোটের ওপর এখানেই। কারণ, সম্ভবত এ শহরের প্রতি মাত্রারিক্ত মায়া। যৌবনে পা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রথাগত পড়াশুনোর প্রতি দায়বদ্ধতা ক্রমক্ষীয়মান, উল্টে সিলেবাস-বহির্ভূত নানা বিষয়ে আগ্রহ, বিশেষ করে রাজনীতি, ইতিহাস, ধর্ম, মনস্তত্ত্ব, সাহিত‍্য, সঙ্গীত ও সিনেমা। কর্মজীবনে শুরুর দিকে, বিভিন্ন বিনোদনমূলক বাংলা টেলিভিশন চ‍্যানেলে বেশ কিছু জনপ্রিয় অনুষ্ঠানের পরিচালক। পাশাপাশি, আন্তর্জাতিক সিনেমার দুনিয়ায় সম্মানিত কয়েকটি ফিল্মের সম্পাদক। এরই মধ‍্যে, প্রথম সারির কয়েকটি টেলিভিশন চ‍্যানেলে চাকরি। বর্তমানে স্বাধীন ভাবে তথ‍্যচিত্র ও প্রচারমূলক ছবি নির্মাণ, বিভিন্ন অডিও-ভিস‍্যুয়াল মাধ‍্যমে ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর হিসেবে কর্মরত। আর, ব‍্যবসা সংক্রান্ত পরামর্শদাতা একটি সংস্থার অংশীদার। প্রথম প্রকাশিত গদ‍্য ২০০৬, ঋতুপর্ণ ঘোষ সম্পাদিত ‘রোববার’ পত্রিকায় (সংবাদ প্রতিদিন)। পরে, আনন্দবাজার পত্রিকা, এই সময় ও অন‍্যত্র। প্রবন্ধ বা ফিচারধর্মী লেখার পাশাপাশি প্রকাশিত হয়েছে কয়েকটি ছোটগল্পও।
View Posts →
দেবজ্যোতি মুখোপাধ্যায়
দেবজ্যোতি মুখোপাধ্যায়ের পরিচিতি এককথায় বলা প্রায় অসম্ভব। তাঁর যে পরিচয়টি সর্বজনবিদিত তা হল, তিনি 'দেবভাষা' নামক বই ও শিল্পের আধার সংস্থাটির অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও চালিকাশক্তি। তিনি কবি। তিনি প্রকাশক। তিনি সম্পাদক। তবে কোনও পরিচয়েই নিজেকে বেঁধে ফেলননি এখনও। মনে করেন, কুলীন বাংলা সাহিত্যক্ষেত্রে তিনি আজও বহিরাগত। যদিও তাঁর প্রকাশিত কবিতার বই 'আঙুরভাব শেয়ালভাব' বাংলা কাব্যভাষায় নতুনত্বের দিশারী।
View Posts →
দেবশঙ্কর হালদার
দেবশঙ্কর হালদার তাঁর অসাধারণ অভিনয় ক্ষমতা, বাচনভঙ্গি এবং বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর দিয়ে বাংলা থিয়েটার ও চলচ্চিত্রের দর্শকদের মাতিয়ে রেখেছেন গত দু দশক। অভিনয়ের পাশাপাশি নাটক পরিচালনাতে এবং লেখালেখিতেও সমান দক্ষতা দেখিয়ে বাংলা ভাষার পাঠকদের কাছে তিনি সমাদরের পাত্র হয়ে উঠেছেন।
View Posts →
দেহলী বন্দ্যোপাধ্যায়
পেশাগতভাবে ক্লিনিকাল ফার্মাসিস্ট দেহলী দীর্ঘদিনের প্রবাসী। পড়াশোনা করেছেন কলকাতার প্রেসিডেন্সী কলেজে। পরবর্তীকালে ডক্টরেট অফ ফার্মাসি ডিগ্রী অর্জন করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। বর্তমানে নিউ জার্সির এক টিচিং হসপিটালে কর্মরত এবং ক্লিনিকাল রিসার্চের সঙ্গে যুক্ত।
View Posts →
ধৃতি বাগচি
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর করে বিবাহসূত্রে মার্কিনমুলুকে পাড়ি। ৪৬ বছরের প্রবাস জীবনে নানা ভূমিকায় দেখা গেছে ধৃতি বাগচিকে। কখনও তিনি 'মৃত্তিকা'র বাংলা শিক্ষার সঞ্চালক, কখনও বঙ্গ সংস্কৃতি সম্মেলনের সক্রিয় সদস্য, কখনও শিল্পী। দীর্ঘদিন মার্কিন রিয়েল এসটেট শিল্পের সঙ্গেও যুক্ত থেকেছেন।
View Posts →
ধ্রুব মুখোপাধ্যায়
ধ্রুব মুখোপাধ্যায় পেশায় সফটঅয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। নেশা বইপড়া এবং লেখালিখি। আদি নিবাস বীরভূমের সিউড়ি। বর্তমানে কর্মসূত্রে কলকাতাবাসী। ভাললাগা বলতে, মানুষ দেখা আর আড্ডা দেওয়া। প্রথম কবিতার বই ‘চাঁদ নামার শব্দ’।
View Posts →
ধ্রুবজ্যোতি নন্দী
আদতে ছিলেন সাংবাদিক, তারপর কর্পোরেট কর্তা। অবসরের পর শান্তিনিকেতনে বসে লেখাজোকায় মন দিয়েছেন। বেশ কিছু প্রবন্ধ আর গল্প লিখেছেন আজকাল, অনুষ্টুপ আর হরপ্পা-য়। প্রথম উপন্যাস 'গোলকিপার' প্রকাশিত হয়েছে বাংলালাইভে। আপাতত ডুবে রয়েছেন ভারতীয় সিনেমার ইতিহাসে। আজকালের রবিবাসর ক্রোড়পত্রে প্রকাশিত হচ্ছে তাঁর ধারাবাহিক রচনা - সিনেমাতলার বাঙালি।
View Posts →
দিলীপকুমার ঘোষ
পেশায় শিক্ষক দিলীপকুমার ঘোষের জন্ম হাওড়ার ডোমজুড় ব্লকের দফরপুর গ্রামে। নরসিংহ দত্ত কলেজের স্নাতক, রবীন্দ্রভারতী থেকে বাংলা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর। নেশা ক্রিকেট, সিনেমা, ক্যুইজ, রাজনীতি। নিমগ্ন পাঠক, সাহিত্যচর্চায় নিয়োজিত সৈনিক। কয়েকটি ছোটবড় পত্রিকা এবং ওয়েবজিনে অণুগল্প, ছোটগল্প এবং রম্যরচনা প্রকাশিত হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে 'সুখপাঠ' এবং 'উদ্ভাস' পত্রিকায় রম্যরচনা এবং দ্বিভাষীয় আন্তর্জালিক 'থার্ড লেন'-এ ছোটগল্প প্রকাশ পেয়েছে।
View Posts →
দীপক রায়
দীপক রায় সত্তর দশকের কবি। তখন থেকেই নিজেকে ব্যক্ত করে চলেছেন নিরাভরণ কবিতার আঙ্গিকে। শুরুর দিনগুলোয় তাঁর পদ্য বাসা বাঁধতে চেয়েছিল রূপকথার ফুলভাসা জলের পুকুরপাড়ে। কিন্তু ক্রমাগত ভয় ও সন্তাপে শেষমেশ তাদের স্থান হয় কালো কুচ্ছিত নাগরিক ল্যাম্পপোস্টের তলায়। 'দৈনিক কবিতা' ও 'অণুমাত্রিক' নামে দুটি ছোট কাগজের সম্পাদনার কাজে নিযুক্ত রেখেছেন নিজেকে। কাব্যগ্রন্থ ছাড়াও প্রকাশিত গদ্যের বইয়ের সংখ্যা চার। বাংলায় ছোট কবিতা চর্চার ইতিহাস রক্ষার কাজ তাঁর অন্যতম ব্রত।
View Posts →
দীপংকর চক্রবর্তী
দুই পুরুষের সাংবাদিক দীপংকর চক্রবর্তীর চার দশকের পেশাগত জীবনের শুরু ও শেষ আনন্দবাজার পত্রিকায়। মাঝে এক দশক বেতার সাংবাদিকতা জার্মানিতে ডয়চে ভেলে, আর ওয়াশিংটন ডিসিতে ভয়েস অফ আমেরিকায়। প্রিন্ট মিডিয়া থেকে অবসর নিলেও মাল্টিমিডিয়ায় এখনও পুরোপুরি সক্রিয়। করেছেন বই সম্পাদনার কাজও। দেশে বিদেশে তাঁর অভিজ্ঞতার ভাণ্ডারও বিচিত্র ও চিত্তাকর্ষক।
View Posts →
দীপান্বিতা সরকার
দীপান্বিতার পেশা শিক্ষকতা। প্রকাশিত কবিতার বই ঝিমরাতের মনোলগ, একান্ন থানের নাও, পাশের উপগ্রহ থেকে, ইতি গন্ধপুষ্পে, হিমঝুরি, কুশের আংটি। ভালোবাসেন গান ও নাটক।
View Posts →
দোয়েলপাখি দাশগুপ্ত
দোয়েলপাখি দাশগুপ্ত বিজ্ঞান, অ্যানিমেশন, থিয়েটার, ছোট পত্রিকা, টেলিভিশন, সিনেমা, উচ্চাঙ্গ সঙ্গীত এইসব করে এখন ফরাসি চর্চায় নিমগ্ন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র ঠেঙান ফরাসিতে। একদা রসাতল নামে একটি রম্যরচনার পত্রিকা চালাতেন, যার সমাধি ঘটেছে। বই পড়তে, এদিক সেদিক বেড়াতে, গান শুনতে, শোনাতে এবং ব্যাডমিন্টন খেলতে ভালবাসেন। তিনি একটি একবছুরে বেড়ালের মা। ভাল কফি খাওয়ালে প্রচুর ভালবাসা বিলিয়ে থাকেন।
View Posts →
দোলনচাঁপা ভট্টাচার্য
দীর্ঘ পনের বছর ধরে সাংবাদিকতা করছেন একাধিক সংবাদপত্র ও খবরের টেলিভিশন চ্যানেলে। এছাড়াও দোলনচাঁপা একজন ভয়েসওভার শিল্পী হিসেবে বিজ্ঞাপন ও ছবিতে কণ্ঠস্বর দিয়ে থাকেন। বর্তমান ঠিকানা দিল্লি।
View Posts →
দোলনচাঁপা দাশগুপ্ত
পেশায় ডাক্তার দোলনচাঁপা নতুন প্রজন্মের লেখকদের মধ্যে পরিচিত নাম। মূলত গল্প এবং উপন্যাস লেখেন বিভিন্ন ছোটবড় পত্রপত্রিকায়। 'চন্দ্রতালের পরীরা' এবং 'ঝুকুমুকু' তাঁর লেখা জনপ্রিয় কিশোরসাহিত্যের বই।
View Posts →
ডঃ অমিত রঞ্জন বিশ্বাস
ডঃ অমিতরঞ্জন বিশ্বাসের জন্ম, বেড়ে ওঠা কলকাতায়। ১৯৯৭ সাল থেকে লন্ডনের বাসিন্দা। পেশায় চাইল্ড নিউরো সায়কায়াট্রিস্ট এবং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। কিন্তু প্রবাসযাপন বিচ্ছিন্ন করতে পারেনি শেকড়ের টান। ছেলেবেলা থেকেই নিয়মিত বাংলা নাটক, নাচ, সিনেমা, সাহিত্যের সঙ্গে বসবাস। হোমাপাখি নাটকের রচয়িতা যার মঞ্চায়ন করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় স্বয়ং। সৌমিত্রর সঙ্গে তৈরি করেছেন 'ব্রিজ' নামে চলচ্চিত্র যা একাধিক আন্তর্জাতিক পুরস্কারে সম্মানিত। প্রকাশিত হয়েছে দুটি কবিতার বই।
View Posts →
ডাঃ অন্বেষা সেনগুপ্ত
অণ্বেষার জন্ম ১৯৮২ সালে৷ কলকাতায় মানুষ৷ পড়াশোনা সাউথ পয়েন্ট, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় ও আইআইটি খড়গপুরে৷ বর্তমানে এনআইটি রৌরকেলায় অধ্যাপনা করেন৷ পেশায় প্রযুক্তিবিদ হলেও নেশা লেখালিখি আর নানারকম গানবাজনা৷ নিয়মিত টেলিভিশনে এবং মঞ্চে অনুষ্ঠান করেন। পশুপ্রেমী৷ আর ভালোবাসেন বেড়াতে৷
View Posts →
ডাঃ সীমন্তিনী মুখোপাধ্যায়
ডাঃ সীমন্তিনী মুখোপাধ্যায় বরাবরই কলকাতার বাসিন্দা। প্রেসিডেন্সির প্রাক্তনী। বর্তমানে অর্থনীতি পড়ান আর গবেষণা করেন ইনস্টিটিউট অফ ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ় কলকাতায়। গবেষণার আগে দু'বছর নানা রকম চাকরি করেছেন, এমনকী সাংবাদিকতাও। নানা রকম বই পড়তে আর লেখালেখি করতে ভালবাসেন। তবে এখন সাত বছরের মেয়ের স্কুল বন্ধ থাকায় 'সহজ পাঠ' আর 'গুড গ্রামার' ছাড়া বিশেষ কিছু পড়ার সময় পান না।
View Posts →
ডাঃ সোমনাথ কুণ্ডু
সরকারি (রেল) আবাসনে বেড়ে ওঠা। ইংলিশ কনভেন্ট আর রামকৃষ্ণ মিশনের সংমিশ্রণ। পেশায় ডাক্তার। যদিও মাউথ অরগ্যান আর ইউকেলেলে হাতেও সমান স্বচ্ছন্দ। মঞ্চে বাজাতে খুব ভালোবাসেন। লং ড্রাইভ, আড্ডা, পার্টি, হৈ হুল্লোড়.... সবই চলে। বর্তমানে দক্ষিণ পূর্ব রেল হাসপাতালে চাকরির পাশাপাশি টেরিটোরিয়াল আর্মিতেও উনি লেফটেন্যান্ট কর্নেল পদে আছেন।   লেখালেখি টা ওনার latest passion।
View Posts →
ডাঃ ঝুমা সান্যাল
ড: ঝুমা সান্যাল দক্ষিণ কলকাতার উইমেন্স ক্রীশ্চান কলেজে ইতিহাসের অধ্যাপিকা ও বিভাগীয় প্রধান হিসেবে কাজ করেছেন বহু বছর। বর্তমানে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের ইতিহাস বিভাগের সঙ্গে যুক্ত। অবসরের অবকাশে নানা বিষয়ে পড়াশুনা ও লেখালেখির চর্চা করতে ভালো লাগে। সাহিত্য, সঙ্গীত ও সিনেমার একান্ত অনুরাগী। ভাল লাগে পথপশুদের দেখাশোনা করতে।
View Posts →
দুর্জয় আশরাফুল ইসলাম
দুর্জয় আশরাফুল ইসলাম। জন্ম, বেড়ে ওঠা তিতাস পাড়ের ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। কর্মসূত্রে ঢাকায় বাস, একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত। সামাজিক ব্লগে লেখার থেকে শুরু করে পরবর্তীতে লিটলম্যাগ হয়ে এখন অবধি কবিতার বই দুটি। ২০১৯ তে 'সমুদ্রের ব্যাকরণ' প্রকাশ করেছে ঢাকার 'বোধি'। ২০২০ তে 'বিস্ময়, তুমি বৃষ্টিফুল' প্রকাশিত হয়েছে কলকাতার 'একলব্য' থেকে।
View Posts →
দ্যুতিমান ভট্টাচার্য
দ্যুতিমান দুঁদে আইপিএস অফিসার। বর্তমানে হাওড়ায় ডিসিপি সদর পদে কর্মরত। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখালেখি ছাড়াও ওঁর স্নাতক স্তরের ভূগোলের রিমোট সেন্সিং ও ভূ-জলবিদ্যার ওপর দু'টি বই সব বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাদৃত। সাপ্তাহিক বর্তমান পত্রিকায় ধারাবাহিক কলাম লেখেন। এবং দ্যুতিমান শিল্পী। জলরং ও মিক্সড মিডিয়ায় মূলত কাজ করেন। অ্যাকাডেমি অফ ফাইন আর্টস-সহ বহু জায়গায় প্রদর্শনী হয়েছে। বই-পত্রপত্রিকায় অলঙ্করণ করেন নিয়মিত। ছবি আঁকা, বই পড়া ছাড়া শখ বেড়ানো, পাখির ছবি তোলা আর ম্যারাথন দৌড়নো।
View Posts →
ই সন্তোষ কুমার
ই সন্তোষ কুমার মালয়ালম ভাষার এই প্রজন্মের অত্যন্ত উল্লেখযোগ্য লেখক। তাঁর গ্রন্থের সংখ্যা পনেরোর বেশি। সেরা গল্প সংগ্রহের জন্যে এবং উপন্যাস 'অন্ধাকরানঝি' –র জন্যে দু'বার পেয়েছেন কেরালা সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার যথাক্রমে ২০০৬ আর ২০১২ সালে। এই উপন্যাসটির ইংরেজি অনুবাদ- আইল্যান্ড অফ লস্ট শ্যাডোজ ২০১৫ সালের ক্রসওয়ার্ড পুস্কারের জন্য বাছাই হয়েছিল। তাঁর দুটি গল্প থেকে মালয়ালম সিনেমা হয়েছে। তাঁর লেখা অনুবাদ হয়েছে ইংরেজি, তামিল, হিন্দি এবং জার্মান ভাষায়। বাংলায় অনুবাদ এই প্রথম।
View Posts →
ফুয়াদ হাসান
ফুয়াদ হাসানের জন্ম ১৯৭৯ সালে, বাংলাদেশের চট্টগ্রাম জেলার ফটিকছড়ি গ্রামে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা সাহিত্যে স্নাতকোত্তর করার পর শিক্ষকতাকে পেশা হিসেবে বেছে নেন। বর্তমানে চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সিটি কর্পোরেশন মহিলা কলেজে বাংলা বিভাগে অধ্যাপনা করেন। কবিতা লেখার শখ বরাবরই। প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা চার। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য: রাফখাতার কাটাকুটি, কাঁটাতারে কারাগারে।
View Posts →
মালিপাখি
মালিপাখি ছদ্মনামে কাব্যচর্চা করেন গদাধর সরকার। তাঁর জন্ম ১৯৬৭ সালে নদিয়ার কৃষ্ণনগরে। সেখানেই বেড়ে ওঠা। পেশায় ভূমি ও ভূমি সংস্কার দপ্তরের কর্মচারী। নেশায় কবি। ছোটদের কথা, নীল আকাশ, টুকলু, তিতলি, জীবনকুচি প্রভৃতি পত্রিকায় ইতিমধ্যেই তাঁর লেখা প্রকাশিত হয়েছে। ডি এম লাইব্রেরি থেকে প্রকাশিত হয়েছে তাঁর বই - মালিপাখির ছড়া সংগ্রহ।
View Posts →
গৌরব চট্টোপাধ্যায়
গৌরব চট্টোপাধ্যায় গাবু নামেই কলকাতার সঙ্গীতপ্রেমীদের মধ্যে জনপ্রিয়। বাংলা রক ব্যান্ড লক্ষ্মীছাড়ার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য গাবুর বাবা গৌতম চট্টোপাধ্যায় ছিলেন বাংলা নিউ ওয়েভ মিউজিকের পথিকৃৎ। ইন্দো-জ্যাজ ব্যান্ড কেন্দ্রাকা-র সঙ্গে যুক্ত গৌরব নিজেও বিক্রম ঘোষ, পূর্বায়ন চট্টোপাধ্যায়, দেবাশিস ভট্টাচার্যের মতো খ্যাতনামা শিল্পীদের সঙ্গে ড্রামস বাজিয়েছেন। গাবুকে বাংলা ছবির সঙ্গীত পরিচালকের ভূমিকাতেও দেখা যায়।
View Posts →
গৌতম দত্ত
জন্ম ১৯৫৯ | ইংরাজি ও বাংলা দুই ভাষায় লেখেন।প্রকাশিত পাঁচটি কবিতার বই | 'বরফে হলুদ ফুল'-এর জন্য ২০০৫ সালে পেয়েছেন জসীমউদ্দিন পুরস্কার | ২০০৮ সালে সুধীন্দ্রনাথ পুরস্কার "গৃহযুদ্ধের দলিল" কাব্যগ্রন্থের জন্য। ভাষানগর পুরস্কার ২০১৭ সাল। তাঁরই প্রচেষ্টার ফসল 'উড়ালপুল' |
View Posts →
গৌতম বসু
কবি গৌতম বসুর জন্ম ১৯৫৫ সালে, দার্জিলিংয়ে। তিনি সেই বিরল কনিদের মধ্যে একজন যিনি নজর কেড়েছিলেন প্রথম বই 'অন্নপূর্ণা ও শুভকাল' থেকেই। সমকালীন বাংলা কবিতায় তাঁর স্থান স্বতন্ত্র। তাঁর প্রকাশিত বইগুলির মধ্যে অন্যতম: অতিশয় তৃণাঙ্কুর পথে, নয়নপথগামী, স্বর্ণগরুড়চূড়া, রসাতল ইত্যাদি। ২০০৩ সালে রসাতল কাব্যগ্রন্থের জন্য পেয়েছেন বীরেন্দ্র পুরস্কার। ২০১৫ সালে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তরফ থেকে পেয়েছেন রবীন্দ্র স্মৃতি পুরস্কার, 'স্বর্ণগরুড়চূড়া' কাব্যগ্রন্থের জন্য।
View Posts →
গোপা দত্ত ভৌমিক
চাকরিজীবনের শুরুতে লেডি ব্রাবোর্ন কলেজের অধ্যাপিকা ছিলেন এবং পরবর্তীকালে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রধান হয়ে অবসরগ্রহণ করেন। গৌড় বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দায়িত্বও সামলেছেন। গল্প ও প্রবন্ধ লিখছেন কয়েক দশক। নারী ও সমাজ বিষয়ে ওঁর প্রবন্ধের সংকলন প্রকাশিত হয়েছে।
View Posts →
গৌতম সরকার
কর্মসূত্রে কলকাতায়। মনে উত্তরবঙ্গ। নিজেকে ডুয়ার্সের সন্তান বলতে রোমাঞ্চ হয়। গ্রামের আদি বাড়ি একপাশে বোড়ো আদিবাসী বসত, অন্যপাশে সাঁওতাল মহল্লা। বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের রায়ডাক জঙ্গল গ্রামের কাছেই। শৈশব, কৈশোরে বাড়ির উঠোনে চলে আসতে দেখেছেন হাতি, চিতাবাঘ, হরিণ। জঙ্গলে কুল কুড়োতে কুড়োতে আর নদীতে ঝাঁপিয়ে বড় হওয়া। প্রকৃতি আর উপজাতিরাই প্রতিবেশী। যৌবনে এই পরিবেশে কিছুকাল বাউন্ডুলে জীবনের পর সিদ্ধান্ত, সাংবাদিকতা ছাড়া আর কোন কাজ নয়।
View Posts →
গৌতম ভরদ্বাজ
গৌতম ভরদ্বাজের ছাত্রজীবন থেকে কবিতাচর্চার শুরু। বর্তমানে রাজ্য পুলিশের অফিসার। কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ২০০৫ এবং ২০১৮-তে দু'বার রাষ্ট্রপতি পদক পান। কবিতা আজও তাঁর প্রথম প্রেম। ২০০৩ বইমেলায় মডেল পাবলিকেশন থেকে প্রকাশিত হয় তাঁর প্রথম কাব্যগ্রন্থ "তুমিই সম্রাজ্ঞী পাপ ও ঈশ্বরী।" ২০১৬, ২০১৮ এবং ২০২০ সালের বইমেলায় সিগনেট প্রেস থেকে প্রকাশ পায় তিনটি কাব্যগ্রন্থ যথাক্রমে " জলরং মায়ার তালুক", "নিজস্বী উজাড়া শেষ রাত" ও "স্বপ্নাবেশ ও আত্মদ্রোহী অনর্গল ঘরোয়া ঈশ্বর।" তাছাড়া ২০১৯ বইমেলায় প্রতিভাস থেকে প্রকাশিত হয় আর একটি কাব্যগ্রন্থ "অন্য পদ্যকথা।"
View Posts →
গৌতম চক্রবর্তী
গৌতম চক্রবর্তীর জন্ম ১৯৭৩ সালে ঝাড়খণ্ডের জামশেদপুরে। সফটঅয়্যার প্রোগ্রামার হিসেবে কর্মজীবনের শুরু। এখন পেশায় সফটঅয়্যার মার্কেটিং ম্যানেজার। বর্তমানে কলকাতাবাসী। কিছু সময়ের জন্য 'একালের রক্তকরবী' পত্রিকার সহ-সম্পাদকের ভূমিকা পালন করেছেন। মূলত ছোটগল্পকার ও প্রাবন্ধিক।
View Posts →
গুলজার
আসল নাম সমপূরণ সিং কালরা আর কেউ মনে রাখেনি। ছদ্মনাম গুলজারই পরিচয়। কারণ এ নাম নিজেই একটি প্রতিষ্ঠান। কবি, সাহিত্যিক, চিত্রনাট্যকার, চিত্রপরিচালক এবং মেধাজীবী হিসেবে বিশ্ববন্দিত। গ্র্যামি থেকে অস্কার - পুরস্কারের তালিকায় রয়েছে সবই। জন্মসূত্রে অবাঙালি হলেও হৃদয়ে, মননে, লেখনে আদ্যন্ত বাঙালি। রবীন্দ্রনাথ কণ্ঠস্থ। বইয়ের সংখ্যা অজস্র। পরিচালিত বিখ্যাত সিনেমা - পরিচয়, খুশবু, মৌসম, আঁধি, মীরা, ইজাজত, কোশিশ, লেকিন-সহ অসংখ্য।
View Posts →
হৈমন্তী ভট্টাচার্য
হৈমন্তী ভট্টাচার্য পেশায় শিক্ষিকা। নিবাস দমদম। মূলত নিবিড় পাঠক। রঙের বাহারে প্রকৃতির ছবি আঁকা এবং কলমে ভাবনাকে রূপ দেওয়া তাঁর প্যাশন। শারদীয়া সহজিয়া, বিষাণ শারদীয়া, ঋত্বিক, অভিব্যক্তি, কাশফুলের বার্তা, পাঁচ মাথার মোড়, শনিবারের আসর, দক্ষিণের জানালা ই-ম্যাগ ইত্যাদি বিভিন্ন জায়গায় লেখা প্রকাশিত হয়েছে।
View Posts →
হিন্দোল ভট্টাচার্য
হিন্দোল ভট্টাচার্যের কবিতা লেখার শুরু নয়ের দশকে। কবি ও লেখক হিসেবে পরিচিতি ও জনপ্রিয়তা দুইই পেয়েছেন বাংলা ভাষার পাঠকদের কাছে। মোংপো লামার গল্প, সব গল্প কাল্পনিক, রুদ্রবীণা বাজো, বিপন্ন বিস্ময়গুলি, এসো ছুঁয়ে থাকি এই লেখকের কিছু পূর্বপ্রকাশিত বই।
View Posts →
হিরণ মিত্র
হিরণ মিত্রের জন্ম ১৯৪৫ সালে খড়গপুরে। মধ্য কৈশোরেই কলকাতাবাসী এবং আর্ট কলেজের পাঠ। তাঁর ছবি বরাবরই বিমূর্ত অথচ বাঙ্ময়। চলচ্চিত্র থেকে টেলিভিশন, মঞ্চ থেকে সাহিত্য, কাজ করেছেন সব ক্ষেত্রে। সমসাময়িক বাংলা প্রচ্ছদ জগতে হিরণ মিত্রের নাম একমেবাদ্বিতীয়ম। বাস্তবতা ও সময়ের গোধূলিলগ্নে দাঁড়িয়ে তুলি হাতে সতেজ টান দিয়ে সৃষ্টি করে চলেছেন একের পর এক মাস্টারপিস।
View Posts →
ইভান নন্দী
ইভান দোলনা ডে স্কুলে পড়ে। বয়স ছয়। এবার ওয়ানে ওঠার পালা তার। লাফালাফি, দুষ্টুমি, চেঁচামিচি ইভানের না-পসন্দ। চুপচাপ নিজের মনে থাকতেই ভালবাসে। তাই বলে পড়াশুনো করতে মোটেই পছন্দ করে না। সারাদিন রেলগাড়ি, ট্রাফিক সিগনাল, গেটম্য়ান নিয়ে কল্পনার রাজ্যে ঘোরাঘুরিই ইভানের সবচেয়ে প্রিয়। ভালবাসে ছবি আঁকতে। আর সবার কাছে জানতে চায়, স্যুইচ দিলেই আলো-পাখা কী করে জ্বলে ওঠে?
View Posts →
ইন্দিরা মুখোপাধ্যায়
রসায়নের ছাত্রী ইন্দিরা আদ্যোপান্ত হোমমেকার। তবে গত এক দশকেরও বেশি সময় যাবৎ সাহিত্যচর্চা করছেন নিয়মিত। প্রথম গল্প দেশ পত্রিকায় এহং প্রথম উপন্যাস সানন্দায় প্রকাশিত হয়। বেশ কিছু বইও প্রকাশিত হয়েছে ইতিমধ্যেই। সব নামীদামি পত্রিকা এবং ই-ম্যাগাজিনের নিয়মিত লেখেন ছোটগল্প, ভ্রমণকাহিনি, রম্যরচনা ও প্রবন্ধ।
View Posts →
ইন্দ্রাণী দত্ত
শঙ্খ ঘোষ বলেছিলেন, 'আমরা যখন সত্যিকারের সংযোগ চাই, আমরা যখন কথা বলি, আমরা ঠিক এমনই কিছু শব্দ খুঁজে নিতে চাই, এমনই কিছু কথা, যা অন্ধের স্পর্শের মতো একেবারে বুকের ভিতরে গিয়ে পৌঁছয়। পারি না হয়তো, কিন্তু খুঁজতে তবু হয়, সবসময়েই খুঁজে যেতে হয় শব্দের সেই অভ্যন্তরীণ স্পর্শ।" ইন্দ্রাণী খুঁজে চলেছেন । এ'যাবৎ প্রকাশিত দশটি গল্পের সংকলন-'পাড়াতুতো চাঁদ'।
View Posts →
ঈশা দাশগুপ্ত
ঈশা আদতে অর্থনীতির ছাত্রী, শিক্ষিকা ও সমাজকর্মী। বিধাননগর কলেজের স্নাতক ঈশার পড়াশোনা ও শিক্ষকতার ক্ষেত্র ছুঁয়ে ছুঁয়ে গেছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অফ ম্যাসাচুসেটস, আমহের্স্ট। ছোটবেলা কেটেছে পিতামহী শিক্ষাবিদ মৃণালিনী দাশগুপ্তের ছত্রছায়ায়, অনেক গল্প, গল্পের বইদের সঙ্গে। গল্প বলার ছায়ারা পিছু নিয়েছে তখন থেকেই। ছোটবেলার স্মৃতিদের নিয়ে লেখা 'আমার রাজার বাড়ি' প্রথম প্রকাশিত গদ্যগ্রন্থ। প্রকাশিত হয়েছে 'রাই আমাদের' নামে ছোটদের গল্পের বইও। কবিতার বই 'চাঁদের দেশে আগুন নেই' আর 'রোদের বারান্দা' আছে ঈশার ঝুলিতে। কবিতার জন্য কৃত্তিবাস পুরস্কারও পান। বড়দের গল্প লেখেন অল্পস্বল্প- 'দেশ' পত্রিকা সাক্ষী। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখেন গবেষণামূলক লেখা, যার বিষয় মহিলাদের বিভিন্ন সমস্যা ও তার সামাজিক ঐতিহাসিক স্থানাঙ্ক। মহিলাদের প্রতিবাদের ইতিহাস তুলে আনাই এখন মূল লক্ষ্য ঈশার।
View Posts →
ঈশানী রায়চৌধুরী
ইলেকট্রনিক্সের ছাত্রী ঈশানী রায়চৌধুরী তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে ভাষান্তরের কাজে যুক্ত। নিজস্ব লেখালেখির মাধ্যম হিসেবে সবচেয়ে পছন্দ রম্য গদ্য আর ছোট গল্প | আর্নেস্ট হেমিংওয়ে, ফ্রিডা কাহলো, খলিল জিব্রান, আর কে নারায়ণ প্রমুখ লেখকদের কাজ ভাষান্তর করেছেন। 'কৃষ্ণচূড়া আর পুটুস ফুল', 'আবছা অ্য়ালবাম', 'বাবু-টাবুর মা', ওঁর কয়েকটি প্রকাশিত বই।
View Posts →
জলদ গুপ্ত
জলদ গুপ্ত লেখেন না, ভাবেন। নিজেকে মনে করেন মুদির দোকানের মালিক। কোথায় কোন মশলা আছে শুধু সেটুকুই উনি জানেন, খদ্দেরের চাহিদা অনুযায়ী কাগজে মুড়ে দিয়ে দেন...ব্যস। সিধুজ্যাঠার মত অনেক কিছু করার ক্ষমতা থাকলেও অন্যদের অসুবিধা হবে বলে কিছুই করেন নি। কবিতা, নাটক লিখতে পছন্দ করেন আর পাগলের মত পছন্দ করেন সঙ্গীত। পাহাড়ি জঙ্গলের টিলায় বসে হেঁড়ে গলায় গান আর দিনে ১৫ কাপ চায়ের জন্য সব কিছু করতে প্রস্তুত। আদিখ্যেতাকে ঘেন্না করেন, তর্ক করতে ভালোবাসেন। এমন এক পৃথিবীর স্বপ্ন দেখেন যেখানে কোন লেখক থাকবে না।
View Posts →
জহর সরকার
জহর সরকারের জন্ম ১৯৫২ সালে। সেন্ট জ়েভিয়ার্স স্কুল, প্রেসিডেন্সি কলেজ এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর শিক্ষা। ১৯৭৫ সালে আইএএস পাশ করে প্রশাসনিক কেরিয়ারের সূচনা। দীর্ঘদিন প্রসার ভারতীর সিইও পদে আসীন ছিলেন। তার আগে ভারত সরকারের তথ্যসংস্কৃতি বিভাগের সচিব-সহ একাধিক পদ অলঙ্কৃত করেন। সংস্কৃতি সচিব হিসেবে জাদুঘর, মহাফেজখানা, গ্রন্থাগার সংস্কার ও আধুনিকীকরণের উদ্য়োগী হন এবং ব্রিটিশ মিউজ়িয়াম পদক লাভ করেন। ১৯৯৭ থেকে ২০০৫ পর্যন্ত মুখ্যত তাঁরই উদ্যোগে কলকাতায় আন্তর্জাতিক ফিল্মোৎসব হয়। কাজের পাশাপাশি একনিষ্ঠভাবে চালিয়ে গিয়েছেন গবেষণা এবং লেখালিখি। ইতিহাস, সংস্কৃতি, নৃতত্ত্ব, সমাজনীতি, গণমাধ্যম এবং আরও বহুবিধ বিষয়ে অজস্র প্রবন্ধ রচনা করেছেন। বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ,ভারতীয় ইতিহাস সংসদ, এশিয়াটিক সোসাইটির মতো একাধিক বিশ্রুত প্রতিষ্ঠানের আজীবন-সদস্য জহরবাবু বাংলা এবং ইংরিজি সংবাদপত্রে এখনও নিয়মিত লেখেন।
View Posts →
জয়ন্ত চক্রবর্তী
জয়ন্ত চক্রবর্তীর পেশা সাংবাদিকতা। কখনও প্রথম সারির সংবাদপত্রের বার্তা সম্পাদক, কখনও টেলিভিশনে খবরের চ্যানেলের প্রধান সম্পাদক। জীবন শুরু ক্রীড়া সাংবাদিক হিসেবে। সংবাদপত্রের ক্রীড়া সম্পাদক হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ ফুটবল, একটি ইউরোপিয়ান কাপ ও এশিয়ান কাপ কভার করেছেন। এছাড়া অসংখ্য টেস্ট সিরিজ, বিশ্বকাপ ক্রিকেটও রিপোর্টের অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। এছাড়াও সঞ্চালনা করেছেন অসংখ্য টেলিভিশন অনুষ্ঠান। খেলার মাঠে ধারাভাষ্যকার হিসেবেও তাঁর পরিচিতি আছে।
View Posts →
জয়ন্ত ভট্টাচার্য
পেশায় ডাক্তার। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সংস্কৃতি বিষয়ে গবেষণায় নিযুক্ত। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখালেখি করেন। বর্তমান ঠিকানা রায়গঞ্জ।
View Posts →
ড. জয়ন্ত দাশ
ডক্টর জয়ন্ত দাশের জন্ম ১৯৬২ সালে। বর্তমানে হাওড়া জেলার বাসিন্দা। পেশায় চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ। স্বাস্থা সংক্রান্ত বিভিন্ন সেবামূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। নিয়মিত লেখালিখি করেন একাধিক পত্রপত্রিকায়। 'স্বাস্থ্যের বৃত্তে' পত্রিকার এক্সিকিউটিভ এডিটর পদে রয়েছেন দীর্ঘদিন।
View Posts →
ঝিলম ত্রিবেদী
ঝিলমের জন্ম ১৯৮৪-তে। দর্শন নিয়ে রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করেন। লেখা শুরু তারও পরে। অনুভূতির গভীরে তাঁর লেখার শিকড়। ২০১৫-তে প্রথম কাব্যগ্রন্থ "নিরুদ্দেশ সম্পর্কিত ঘোষণা"-র প্রকাশ। ২০২০ বইমেলায় দ্বিতীয় কাব্যগ্রন্থ "বৃষ্টি পড়া বাড়ি" প্রতিভাস থেকে। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত লিখে চলেছেন। "দেশ" অনলাইন পত্রিকায় "নির্বাচিত কবি"-র সম্মান পেয়েছেন। ২০১৮ সালে বাংলাদেশে, আমন্ত্রিত কবি হিসেবে, চতুর্থ বাংলা কবিতা উৎসবে অংশগ্রহণ করেছেন। লিখতেই হয় তাঁকে ঈশ্বরের অদৃশ্য নির্দেশের মত।
View Posts →
জয় গোস্বামী
জয় গোস্বামীর জন্ম ১৯৫৪ সালে, কলকাতায়। শৈশব কৈশোর কেটেছে রানাঘাটে। দেশ পত্রিকাতে চাকরি করেছেন বহু বছর। আনন্দ পুরস্কার পেয়েছেন দু'বার - ১৯৯০ সালে 'ঘুমিয়েছ ঝাউপাতা?' কাব্যগ্রন্থের জন্য। ১৯৯৮ সালে 'যারা বৃষ্টিতে ভিজেছিল' কাব্যোপন্যাসের জন্য। ১৯৯৭ সালে পেয়েছেন বাংলা আকাদেমি পুরস্কার। দেশ বিদেশ ঘুরে বেড়িয়েছেন কবিতার সাহচর্যে। ২০১৫ সালে উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাম্মানিক ডি.লিট পেয়েছেন।
View Posts →
জয়া মিত্র
জয়া মিত্র বাংলা ভাষার এক জনপ্রিয় কবি ও গদ্যকার। সত্তরের দশকে সক্রিয় রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন এবং রাজনৈতিক বন্দীদশাও কাটিয়েছেন। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ, এই সমস্ত মাধ্যমেই তাঁর অনায়াস যাতায়াত। লেখালেখি করেন ছোটবড় একাধিক সংবাদমাধ্যম ও পত্রপত্রিকায়।জল, প্রকৃতি, পরিবেশ, নারী ও শিশু বিষয়ে ওঁর কাজ উল্লেখযোগ্য। 'হন্যমান', 'জলের নাম ভালোবাসা', 'রূপুলি বেতের ঝাঁপি', 'মাটি ও শিকড়বাকড়' জয়া মিত্রর কিছু জনপ্রিয় ও সমাদৃত বই।
View Posts →
জয়দীপ ভট্টাচার্য
জয়দীপ ভট্টাচার্যের জন্ম ১৯৭২ সালে, মুর্শিদাবাদ জেলার আমতলা গ্রামে। আমতলা হাইস্কুল থেকে উচ্চমাধ্যমিক, নীলরতন সরকার ও রিজিওন‍্যাল ইনস্টিটিউট অফ অপথ‍্যালমোলজি মেডিক‍্যাল কলেজ কলকাতা থেকে ডাক্তারির স্নাতক ও স্নাতকোত্তর পাঠ। পেশায় চক্ষুরেগ বিশেষজ্ঞ। শেওড়াফুলিতে গত ১৪ বছর ধরে কর্মরত। নেশা বলতে দেশবিদেশের ফুটবল খেলা, নাটক, গান, বাংলা সাহিত্যচর্চা, ছাদের ফুলবাগান, লেখালেখি এবং পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো। এবং আজন্ম আমৃত‍্যু কোহলবর্জন।
View Posts →
যূথিকা আচার্য
যূথিকা উত্তরবঙ্গের মেয়ে। পেশায় রেস্তোরাঁ ম্যানেজার। ভারতবর্ষের পাঁচটি শহরে বড় কিছু গ্রুপের সঙ্গে কাজ করার পর অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি দেন। ঘুরতে ঘুরতেই লেখালিখির সূত্রপাত। আপাতত মেলবোর্নে একটি নামী রেস্তোরাঁর দায়িত্বে আছেন। যূথিকা বিভিন্ন দেশের খাদ্যাভ্যাস এবং জীবনযাত্রা নিয়ে দুই বাংলার বেশ কিছু পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লেখেন। প্রথম বই "আশাবরী" দুই বছর আগে প্রকাশ পেয়েছে। ভ্রমণ সম্পর্কিত লেখা ছাড়াও মুক্ত গদ্য এবং গবেষণাধর্মী প্রবন্ধ লিখতে ভালোবাসেন।
View Posts →
জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্য
চিত্র সংগ্রাহক ও স্বাধীন আর্ট কিউরেটর। দেশে এবং বিদেশে ছবির প্রদর্শনীর আয়োজন করেছেন। যোগেন চৌধুরী, আকবর পদমসী, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, অমলাশঙ্কর প্রমুখ শিল্পীর সঙ্গে কাজ করেছেন।
View Posts →
কাবেরী রায় চৌধুরী
কবি ও সাহিত্য়িক কাবেরী রায়চৌধুরীর জন্ম ও বেড়ে ওঠা কলকাতায়। লেখালেখির শুরু প্রবন্ধ প্রকাশ দিয়ে। সাত পুতুলের সাত কথা‚ চাতক জল‚ নদীটি আজও কথা বলে, যে যেখানে দাঁড়িয়ে‚ ঠাকুরবাড়ির সারদাসুন্দরী, অর্ধেক আকাশ‚ শরীরী ওঁর কয়েকটি উল্লেখযোগ্য বই। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, শিশুসাহিত্য, এই সবকটি মাধ্যমেই কাবেরী নিজেকে প্রকাশ করেছেন।
View Posts →
কল্যাণী রমা
কল্যাণী রমা-র জন্ম ঢাকায়। ছেলেবেলা কেটেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। ভারতের খড়গপুর আই আই টি থেকে ইলেকট্রনিক্স এ্যান্ড ইলেকট্রিক্যাল কমুনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং-এ বি টেক করেছেন। বর্তমানে আমেরিকার উইস্কনসিনে থাকেন। পেশাগতভাবে অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট সিনিয়র ইঞ্জিনিয়ার হিসাবে কাজ করছেন ম্যাডিসনে। প্রকাশিত বই 'আমার ঘরোয়া গল্প', 'হাতের পাতায় গল্পগুলো – ইয়াসুনারি কাওয়াবাতা', 'রাত বৃষ্টি বুনোহাঁস – অ্যান সেক্সটন', 'রেশমগুটি', 'জলরঙ' 'দমবন্ধ' ও অন্যান্য।
View Posts →
কনকজ্যোতি রায়
কনকজ্যোতি রায় পেশায় শিক্ষক। তবে শিক্ষকতার পাশাপাশি সাহিত্যচর্চা ও অল্পবিস্তর লেখালেখির নেশা আছে। ইতিমধ্যে কিছু কবিতা ও প্রবন্ধ- তথ্যকেন্দ্র, ইরাবতী, সময়, আরম্ভ, কিশলয়,অবেক্ষণ, কবিতা লহরী, নবপ্রভাত, মাধুকরী, শিক্ষা ও সাহিত্য, বাংলার লেখা, প্রভৃতি পত্রিকায় স্থান পেয়েছে।
View Posts →
কস্তুরী ভারভাদা
কস্তুরী ইতিহাসে এমএ পাশ দিয়েছেন। চাকরিও করেছেন বেশ কিছু কাল। এখন ফ্রিলান্স লেখালিখি করেন বিভিন্ন পত্রিকায়। বেশ কিছু বছর আনন্দবাজার পত্রিকার "উৎসব" পত্রিকায় নিয়মিত লিখেছেন। গান শুনতে আর সিনেমা দেখতে ভারী ভালবাসেন।
View Posts →
কস্তুরী সেন
পেশায় শিক্ষিকা কস্তুরী নতুন প্রজন্মের কবিদের মধ্য়ে যথেষ্ট সাড়া ফেলেছেন। ওঁর প্রকাশিত কবিতার বই 'নাম নিচ্ছি মাস্টারমশাই' এবং 'ধীরে, বলো অকস্মাৎ'।
View Posts →
কৌশিক মজুমদার
জন্ম ১৯৮১-তে কলকাতায়। স্নাতক, স্নাতকোত্তর এবং পিএইচডি-তে স্বর্ণপদক। নতুন প্রজাতির ব্যাকটেরিয়ার আবিষ্কারক। ধান্য গবেষণা কেন্দ্র, চুঁচুড়ায় বৈজ্ঞানিক পদে কর্মরত। জার্মানি থেকে প্রকাশিত হয়েছে তাঁর লেখা গবেষণাগ্রন্থ Discovering Friendly Bacteria: A Quest (২০১২)। তাঁর লেখা ‘কমিকস ইতিবৃত্ত’ (২০১৫), 'হোমসনামা' (২০১৮),'মগজাস্ত্র' (২০১৮), ' জেমস বন্ড জমজমাট'(২০১৯), ' তোপসের নোটবুক' (২০১৯), 'কুড়িয়ে বাড়িয়ে' (২০১৯) 'নোলা' (২০২০) এবং সূর্যতামসী (২০২০) সুধীজনের প্রশংসাধন্য। সম্পাদনা করেছেন ‘সিদ্ধার্থ ঘোষ প্রবন্ধ সংগ্রহ’ (২০১৭, ২০১৮)'ফুড কাহিনি '(২০১৯) ও 'কলকাতার রাত্রি রহস্য' (২০২০)।
View Posts →
কৌশিক রায়
দীর্ঘদিনের প্রবাসী কৌশিক থাকেন হিউস্টনে। কর্মসূত্রে তেল গ্যাস ও খনিজ সম্পদ ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু কৌশিকের প্রথম প্রেম সঙ্গীত এবং দ্বিতীয় বই। বেশ কয়েক বছর তালিম নিয়েছেন কিংবদন্তী সরোদ শিল্পী উস্তাদ আলি আকবরের কাছে। এছাড়া ভালোবাসেন বেড়াতে আর ছবি তুলতে।
View Posts →
কিংশুক বন্দ্যোপাধ্যায়
কিংশুক বন্দ্যোপাধ্যায় সাংবাদিকতা করছেন দীর্ঘ আড়াই দশক যাবত। মূলত অর্থনীতি ও প্রযুক্তি নির্ভর সংবাদের নিয়েই তাঁর কাজ। সময় পেলে ক্যামেরা নিয়ে ঘুরতে বেড়িয়ে পড়া, কফি সহযোগে বইয়ের পাতা উল্টানো কিংবা চলচ্চিত্রের স্বাদ নেওয়া, তাঁর প্রিয় অবসরযাপন।
View Posts →
কোরক মিশ্র
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তুলনামূলক সাহিত্য নিয়ে স্নাতকোত্তর। নিবাস কোন্নগর। পেশায় চলচ্চিত্র কারিগর। নেশা নানারকম। বিশ্বাস করেন পারমাণবিক পৃথিবীতে দাঁড়িয়ে নীরবতার অনুশীলনে।
View Posts →
কৃষ্ণ রাস্না ঘোষ
কৃষ্ণ রাস্না ঘোষের বড় হওয়া শোভাবাজার রাজবাড়ির সাংস্কৃতিক ও সাঙ্গীতিক পরিবেশে। বর্তমানে আদ্যন্ত হোমমেকার রাস্না কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্রী ছিলেন। কলকাতা সুচেতনা নামে একটি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে সুন্দরবনের দুঃস্থ মানুষদের নিয়ে কাজ করেন।
View Posts →
কৃষ্ণেন্দু দত্ত
কৃষ্ণেন্দু মাঝে মাঝেই হিমালয়ের কোলে গগলস চোখে ধ্যানস্থ হন। কিন্তু গড়িয়াহাটার মোড় আর কচুরি মিস করেন বলে প্রেমিকাদের তাড়নায় সমতলে ফিরতে হয়। শখের সিনেমা বানানো ছাড়া বই পড়া এবং লেখালিখি নিয়ে বেঁচে রয়েছেন। বাড়িতে বছর দু'য়েকের এক অরণ্যদেব রয়েছেন৷ আপাতত তার দুষ্টুমিতে বুঁদ হয়ে মজাসে দিন কাটাচ্ছেন।
View Posts →
কৃষ্ণেন্দু মুখোপাধ্যায়
লেখক পরিচিতি - কৃষ্ণেন্দু মুখোপাধ্যায়। জন্ম ১৯৬৪ সালে ব্যারাকপুরে। বাল্যকাল কেটেছে শ্যামনগরে। পেশা – ইঞ্জিনিয়ার, আপারেশন রিসার্চে এমবিএ। প্রথম একটি ছোট গল্প প্রকাশিত হয় উদিত পত্রিকায় ১৯৮৬ সালে। তারপর দীর্ঘ ১৯ বছর বিরতির পর ২০০৫ সাল থেকে নিয়মিত লিখছেন মুলত আনন্দবাজার পত্রিকার বিভিন্ন পত্রিকায়। প্রকাশিত গ্রন্থ ২৫। ছোট গল্প শতাধিক। উল্লেখযোগ্য উপন্যাস : রাধিকা, আয় ঘুম, অন্তরাল, কালযাত্রী, শূন্যস্থান, রায়মঙ্গলপুর ব্যান্ড, অসমাপ্ত, প্রজ্ঞাসূত্র, বিস্মৃতি, স্পর্শ; ফুলমতী ইত্যাদি। ৫০টি ছোট গল্পের একটি সঙ্কলন প্রকাশ করেছেন আনন্দ পাবলিশার্স, আরেকটি গল্প ও প্রবন্ধের সঙ্কলন ‘গল্প গুজব‘ এই প্রকাশিত হয়েছে পত্রভারতী থেকে এবং ছোটদের গল্পের একটি সঙ্কলন প্রকাশ করেছেন মিত্র ও ঘোষ পাবলিশার্স।
View Posts →
দ্রিঘাংচু
পেশাগত ভাবে একটি সংবাদপত্রের চাকুরে। নেশাগত ভাবে অনেক কিছু। লম্বা নাক। তাই সব বিষয়ে নাক গলানোর ভয়ানক বদ অভ্য়াস। ছোটবেলায় ভেবেছিলেন শার্লক বা এ্যরকুল পোয়ারোর মতো গোয়েন্দা হবেন। পারেননি। এমনকি ক্রিকেট খেলাও হয়ে ওঠেনি। এখন তাই টেলিভিশনে খেলা দেখে আর সিধু জ্যাঠার মতো জ্যাঠামি করে দিন কাটে। থ্রিলার ছবি আর বই পড়ার নেশায় আসক্ত।
View Posts →
কুবলয় বসু
পড়ানোটা জীবিকা হলেও আসল নেশা বই পড়া। প্রথম ভালোবাসা কবিতা। কবিতা লিখতেই বেশি স্বচ্ছন্দ। দু'টি ক্ষীণকায় বই তার সাক্ষ্য বহন করছে - প্রতিপক্ষ হেরে যাচ্ছে এবং টেগোর সাব অথবা ছিন্নপত্র। আড্ডা দেওয়াটাও আরেকটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ বলে মনে করেন। অলমিতি।
View Posts →
লাবনী বর্মণ
রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ফাইন আর্ট বিভাগে স্নাতকোত্তর পাঠরতা লাবনী পছন্দ করেন কার্টুন, ক্যারিকেচার, পোর্ট্রেট ও ইলাস্ট্রেশন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠ শেষ করে লাবনী ইলাস্ট্রেশনকেই পেশা হিসেবে বেছে নিতে চান।
View Posts →
মধুশ্রী মৈত্র
মধুশ্রী মৈত্র তাঁর কর্মজীবনে ছিলেন কলকাতা দূরদর্শনের প্রোগ্রাম এগজিকিউটিভ। অবসর নিয়েছেন অনেক বছর হল। এখন এই সাতাত্তরে পৌঁছে লেখালিখি আর গানই তাঁর মুখ্য অবলম্বন। বাবা ছিলেন বিখ্যাত গীতিকার অমিয় বাগচি। তাই লেখা ও সুর দুইই তাঁর রক্তে। একাধিক লিটল ম্যাগাজ়িন ছাড়াও মনোরমা, সাপ্তাহিক বর্তমান, যুগশঙ্খ, বাংলা স্টেটসম্যানে নিয়মিত লেখেন।
View Posts →
মহালয়া চট্টোপাধ্যায়
মহালয়া চট্টোপাধ্যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতির অধ্যাপক। নগর অর্থনীতি, মহিলা শ্রম এবং লিঙ্গবৈষম্য বিষয়ে ওঁর লেখা একাধিক দেশি বিদেশি জার্নালে প্রকাশ পেয়েছে। মূলত ইংরেজিতে লেখালেখি করেন। ইকোনমিকস অফ আরবান ল্যান্ড ইউজ, এনভায়রনমেন্টাল ম্যানেজমেন্ট ইন ইন্ডিয়া, ওঁর লেখা গবেষণামূলক কিছু বই।
View Posts →
মাহবুব ময়ূখ রিশাদ
পেশায় চিকিৎসক মাহবুব ময়ূখ রিশাদের জন্ম কর্ম বাংলাদেশে। বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের পাঠকদের মধ্যে ময়ূখ গল্পকার হিসেবে জনপ্রিয়। 'আরিমাতানো', 'তর্কশয্যায় মৃত্ু', 'ক্রুশপথে নিখোঁজ গল্প', 'সান্ধ্যকালীন ট্রেনে গোপন যাতায়াত' ওঁর কিছু পূর্ব প্রকাশিত বই।
View Posts →
মহুয়া সেন মুখোপাধ্যায়
জন্ম, বড় হয়ে ওঠা কলকাতায়। গত একুশ বছর ম্যাসাচুসেটস,আমেরিকা প্রবাসী। বাংলা সাহিত্যের একনিষ্ঠ পাঠক। এখন পর্যন্ত লেখা বেরিয়েছে ওয়েব ম্যাগাজিন পরবাসে এবং আনন্দবাজারে।
View Posts →
মহুয়া সেনগুপ্ত
মহুয়ার জন্ম উত্তরপ্রদেশের মির্জাপুরে। বড় হয়ে ওঠা হুগলিতে। প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে শারীরবিদ‍্যায় স্নাতক। পরে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই বিষয়ে স্নাতকোত্তর ও পিএইচ.ডি ডিগ্রি। পেশা অধ‍্যাপনা ও গবেষণা। বর্তমানে, শিলচরে অসম কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত। তিনটি কাব‍্যগ্রন্থ , এ আমার ছায়াজন্ম (পরম্পরা প্রকাশন, ২০০৯), চিরহরিৎ গাথা (সপ্তর্ষি প্রকাশন, ২০১৮) ও তারামাছ নাকছাবি (বইওয়ালা বুক ক‍্যাফে, ২০২০) এখনও পর্যন্ত প্রকাশিত।
View Posts →
মৈনাক পাল
নিবাস ভট্টপল্লী। পেশা ডাক্তারি। নেশা নানাবিধ। শখ ভ্রমণ। দুর্বলতা ফুটবল। ঘাঁটতে ভালোবাসেন ইতিহাস।
View Posts →
মৈত্রীশ ঘটক
ভারতের প্রথম সারির অর্থনীতিবিদদের তালিকায় একেবারে উপরের দিকে যাঁর নাম থাকবে, তিনি মৈত্রীশ ঘটক। বর্তমানে লন্ডন স্কুল অফ ইকনমিক্সে অধ্যাপনারত। মৈত্রীশের জন্ম ১৯৬৮-তে কলকাতায়। প্রেসিডেন্সি কলেজ থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক। দিল্লি স্কুল অফ ইকনমিক্সে স্নাতকোত্তর শেষ করেই বিলেত পাড়ি। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা। শিক্ষক হিসেবে পেয়েছেন নোবেলজয়ী অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। বর্তমানে অ্যাপ্লায়েড মাইক্রোইকনমিক থিওরি নিয়েই তাঁর প্রধান কাজ। যুক্ত আছেন বহু অর্থনৈতিক সংস্থার সঙ্গে। ২০১৮ সালে ব্রিটিশ অ্যাকাডেমির ফেলো নির্বাচিত হন মৈত্রীশ।
View Posts →
মলয় গোস্বামী
মলয় গোস্বামী সীমান্তশহর বনগাঁর বাসিন্দা। বাবা মণীন্দ্রনাথ গোস্বামী, মা উমা গোস্বামী দু’জনেই লিখতেন। আবৃত্তি, অভিনয়, নাট্য পরিচালনা, ছবি আঁকায় পারদর্শী। তাঁর গাওয়া রবীন্দ্রসঙ্গীত যে কোনও শ্রোতাকে মুগ্ধ করে দিতে পারে। প্রথম কবিতার বই ‘স্মৃতিতে সময়ে ছুড়ি অলৌকিক জাল’ (১৯৭৯)। অন্যান্য আরও কয়েকটি কাব্যগ্রন্থ: মন্দিরে প্রশ্নচিহ্ন, হাতছানি দেয় বংশীকানাই, ভেতর ভর্তি ময়লামাটি ইত্যাদি। ১৯৯৭ সালে পেয়েছেন শক্তি চট্টোপাধ্যায় স্মৃতি পুরস্কার। এছাড়াও শিস, প্রথম আলো ইত্যাদি সম্মান। নব্বইয়ের দশকে পূর্ণিমা গোস্বামী নামেও কবিতা লিখেছেন।
View Posts →
মল্লিকা বন্দ্যোপাধ্যায়
মল্লিকা বন্দ্যোপাধ্যায় কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপিকা ও প্রদীপ সেন্টার ফর অটিজম ম্যানেজমেন্টের মূল কর্ণধারদের একজন। প্রদীপ-এর দায়িত্ব সামলে যতটা সময় পান তা অটিজম বিষয়ের ওপর পড়াশোনা ও লেখালেখি করেই কাটে।
View Posts →
মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়
মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায় বিশ্বভারতীতে বাংলার অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ ভবনের মুখ্য সমন্বয়ক। বেজিং ফরেন স্টাডিস ইউনিভার্সিটির আমন্ত্রিত ভিজিটিং ফেলো হিসেবে ২০১৯ সালে তিনি চিন যান। বাংলা সাহিত্য, সংস্কৃতি, চিন্তাজগৎ এবং রবীন্দ্রনাথ তাঁর চর্চার বিশেষ ক্ষেত্র। 'বাকিরাত্রির ঘুম' (কাব্যগ্রন্থ), 'কোথায় আমার শেষ' (উপন্যাস), 'গোষ্ঠীজীবনের উপন্যাস' (আলোচনাগ্রন্থ ), 'উপন্যাসের যৎকিঞ্চিৎ' (প্রবন্ধ সংকলন), 'রবীন্দ্রনাথ: আশ্রয় ও আশ্রম' (প্রবন্ধ সংকলন) ইত্যাদি তাঁর প্রকাশিত গ্রন্থ। বেশ কয়েকটি বইয়ের সম্পাদনাও করেছেন। বিচিত্র বিষয় নিয়ে পড়াশোনা তাঁর একমাত্র প্যাশন।
View Posts →
মানস ঘোষ
কর্মক্ষেত্রের দাবি এবং প্রকাশের জড়তা কাটিয়ে প্রথম আত্মপ্রকাশ ২০১৪ সালে। মানসের এযাবৎ প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ দু'টি বিদগ্ধমহলে সমাদৃত। এছাড়া একাধিক পত্রিকার সম্পাদনার সঙ্গেও তিনি যুক্ত। সমকালের সামাজিক, রাজনৈতিক ঘটনার অভিঘাত তাঁকে বিচলিত করে, কবিতায় উঠে আসে তার বেদনা, প্রতিবাদ। বিঘ্নিত হয় কবির নিভৃতযাপন। তারই মাঝে রঙ ছড়ায় হৃদয়ের গভীরে ডুব দিয়ে তুলে আনা মণিমুক্তো।
View Posts →
মানস রায়
মানস আজন্ম মালদহের বাসিন্দা। জেলাকে চেনেন হাতের তালুর মতো। পেশায় সাংবাদিক। নেশায় মানবাধিকার কর্মী। মালদহেই ‘রূপান্তরের পথে’ নামে সাপ্তাহিক পত্রিকা প্রকাশনার সঙ্গে সক্রিয় ভাবে জড়িত। অবসরে পরোপকার করে বেড়াতে সবচেয়ে ভালোবাসেন।
View Posts →
মন্দাক্রান্তা সেন
মন্দাক্রান্তা কবিতা লিখছেন নব্বইয়ের দশক থেকে। তাঁর জন্ম কলকাতায়। নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজে ডাক্তারি পড়েও ফাইনাল পরীক্ষা দেননি। কবিতার টানে প্রথাগত পড়া ছেড়ে মননচর্চা শুরু। প্রথম বই ১৯৯৯ সালে 'হৃদয় অবাধ্য মেয়ে।' সে বছরই এই বই আনন্দ পুরষ্কার এনে দেয় তাঁকে। এরপর 'বলো অন্যভাবে', 'ছদ্মপুরাণ', 'উৎসারিত আলো', 'এসবই রাতের চিহ্ন' প্রভৃতি একের পর এক কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। উপন্যাসও লিখেছেন তার পাশাপাশি। 'ঝাঁপতাল', 'দলছুট', 'ঋতুচক্র' পাঠকমহলে বহুল সমাদৃত হয়।
View Posts →
মন্দার মুখোপাধ্যায়
আড্ডা আর একা থাকা,দুটোই খুব ভাল লাগে। লিখতে লিখতে শেখা আর ভাবতে ভাবতেই খেই হারানো।ভালোবাসি পদ্য গান আর পিছুটান। ও হ্যাঁ আর মনের মতো সাজ,অবশ্যই খোঁপায় একটা সতেজ ফুল।
View Posts →
মণিমেখলা মাইতি
কর্মসূত্রে কলকাতায় বসবাস। ছোটবেলা কেটেছে পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলে। ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্রী। শখ - বইপড়া, রবীন্দ্রসঙ্গীত এবং ঘুরে বেড়ানো। ২০১৯ সালে 'সৃষ্টিসুখ' থেকে প্রকাশিত হয়েছে গদ্য সংকলন- 'রোজনামচা'। সম্প্রতি ভূমিকা লিখে পুনঃপ্রকাশ করেছেন ১৮৭৫-৭৬ সালে প্রকাশিত মেয়েদের দুষ্প্রাপ্য পত্রিকা 'বঙ্গমহিলা'।
View Posts →
মণীশ নন্দী
মণীশ নন্দী দীর্ঘদিনের প্রবাসী। কর্মজীবনে মার্কিন দূতাবাস ও ওয়র্ল্ড ব্যাঙ্কের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। অবসর গ্রহণের পর লেখালোখি নিয়েই ব্যস্ত থাকেন। আ স্ট্রেন্জার ইন মাই হোম ওঁর সদ্যপ্রকাশিত বই।
View Posts →
মনীষা মুখোপাধ্যায়
পেশায় সাংবাদিক ও বাচিক শিল্পী। লেখালেখি করেন একাধিক বাংলা পত্র পত্রিকায়। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ 'জলপাই অরণ্যের পারে'।
View Posts →
মেঘনা রায়
মেঘনা রায় সবুজ শহর কল্যাণীর বাসিন্দা। ২০০৩ সালে পিন্ডারি হিমবাহ দিয়ে ট্রেকিংয়ের হাতেখড়ি। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ভ্রমণ ছাড়াও বেশ কিছু বিদেশ সফরের অভিজ্ঞতা রয়েছে সঞ্চয়ের ঝুলিতে। জীবনের প্রথম প্যাশন নাচ এবং দ্বিতীয় ভ্রমণ। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে স্নাতকোত্তর। ২০১৭ সালে কলকাতা বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে প্রথম কাব্যগ্রন্থ"অমলতাস।"
View Posts →
মেখলা সেন
মেখলা সেন বর্তমানে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফুড সায়েন্স অ্যান্ড নিউট্রিশন' এ এম.এস.সি পাঠরতা। মূলত বিভিন্ন ছোটো পত্রিকায় কবিতা প্রকাশিত।
View Posts →
মিহিরকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়
কলকাতা বেতারে যোগ দেন ১৯৬৫তে। তারও আগে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র থাকাকালীনই আকাশবাণীর তালিকাভুক্ত গীতিকার। বেতারের কর্মজীবনে বিভিন্ন সময়ে 'সবিনয়ে নিবেদন'-এর উত্তরদাতা, 'গল্পদাদুর আসর'-এর পরিচালক এবং এফএম তরঙ্গের উপস্থাপক হিসেবে সমাদৃত হয়েছে তাঁর ভূমিকা। নানা তথ্যে-সমৃদ্ধ তাঁর অনুষ্ঠান-পরিবেশনা এবং বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় বেতারের অভিজ্ঞতা বর্ণনা আকৃষ্ট করেছে সুধীজনকে। শ্রোতাদের চাহিদা পূরণে অবসরগ্রহণের পরেও টানা আট বছর এফএম-এ অনুষ্ঠান করেছেন।
View Posts →
মিতা নাগ
মিতা নাগ বিষ্ণুপুর ঘরানার সেতারবাদক। তিনি পদ্মশ্রী শ্রী মণিলাল নাগের সুযোগ্য উত্তরাধিকার এবং পেশায় শিক্ষিকা। দেশে বিদেশে অসংখ্য অনুষ্ঠানে মিতা বাবার সঙ্গে এবং একক সঙ্গীত পরিবেশন করেছেন। নতুন প্রজন্মের সেতারীদের মধ্যে তাঁর বাজনা সমাদৃত।
View Posts →
মিঠুন ভৌমিক
পেশায় পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক, নেশায় পল্লবগ্রাহী। জন্ম ও স্কুল কলেজ স্তরের শিক্ষা কলকাতায়। পরবর্তী শিক্ষা/গবেষণা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। কাজের ছুতোয় যত্রতত্র ঘোরার বদভ্যাস আছে। লেখার বিষয়ের কোনও স্থায়ী পছন্দ নেই। অবসরে কবিতা সম্পাদনা করেন। প্রকাশিত বই "কাশ্মীরঃ রাজনৈতিক অস্থিরতা, গণতন্ত্র ও জনমত"।
View Posts →
মৈনাক বিশ্বাস
মৈনাক বিশ্বাস যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিল্ম স্টাডিজ বিভাগে অধ্যাপনা করেন এবং মিডিয়া ল্যাব পরিচালনা করেন। চলচ্চিত্র ও সংস্কৃতি বিষয়ে বাংলা ও ইংরেজি ভাষায় ওঁর নানা প্রকাশনা রয়েছে। হেমাঙ্গ বিশ্বাসের বই 'উজান গাঙ বাইয়া' (১৯৮৯, ২০১৮) ও 'গানের বাহিরানা' (১৯৯৮) সম্পাদনা করেছেন।
View Posts →
মলয় দে
মলয় দে পেশায় রাশিতত্ত্ববিদ। বহুজাতিক সংস্থায় কর্মরত। নেশা বলতে অংকের জটিল ধাঁধা তৈরি আর তবলায় বোল ফোটানো। নিজের মনে লেখালিখি করতে আর গানবাজনা নিয়ে মেতে থাকতে ভালবাসেন।
View Posts →
মৌ ভট্টাচার্য
গবেষক, নারী ও শিশু অধিকারকর্মী। চার্লস ওয়ালেস ফেলোশিপ পেয়ে ব্রিটিশ লাইব্রেরিতে কাজ করেছেন উনিশ শতকের কলকাতা নিয়ে। আই ভি এল পি ফেলোশিপে আমেরিকা গিয়েছেন। আন্তর্জাতিক নারী ও শিশু পাচার নিয়ে দু দশক ধরে কাজ করে চলেছেন। ভ্রমণ ও কালিনারি কালচার নিয়ে লেখালেখি করতে ভালোবাসেন। প্রকাশিত দুটি বই : ড্রিমস এর চিত্রনাট্য র বাংলা অনুবাদ “ড্রিমস” ঊর্বি প্রকাশনা। “বেশ্যা পাড়ার পাঁচটি দুর্লভ সংগ্রহ”, আনন্দ পাবলিশার্স।
View Posts →
মৌলীনাথ গোস্বামী
মৌলীনাথের জন্ম আসানসোলে। মূলত কবি। তবে কবিতার পাশাপাশি গদ্যও লিখছেন। সঙ্গে আছে অনুবাদের কাজ। কবিতার অনুবাদ করতেই বেশি স্বচ্ছন্দ। ওঁর লেখা নিয়মিত প্রকাশিত হয় কথা, কালের কণ্ঠ (বাংলাদেশ), পরম্পরা, কালিমাটি অনলাইন, মনন, ম্যানগ্রোভ (বাংলাদেশ), দৈনিক ইত্তেফাক (বাংলাদেশ) ও অন্যান্য পত্রপত্রিকায়। ২০২০ সালে প্রকাশিত হয় প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘দয়াল’। প্রতিভাস থেকে। ২০২০-তেই ভারত ভবন, ভূপাল আয়োজিত ‘বহুভাষী লেখক সমাবেশ’-এ স্বরচিত বাংলা গদ্য পাঠের জন্য আমন্ত্রিত হন।
View Posts →
ড মৌসুমী বন্দ্যোপাধ্যায়
আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অফ মিশিগানের বায়োস্ট্যাটিসটিক্স-এর অধ্যাপক ড: মৌসুমী বন্দ্যোপাধ্যায়ের গবেষণার বিষয়বস্তু ক্যান্সার ডেটা মডেলিং। জন্ম এবং লেখাপড়া কলকাতায়। কর্মসূত্রে বিশ্বনাগরিক। লেখালেখির শুরু কলেজজীবন থেকেই। কবিতার পাশাপাশি ছোটগল্প, মুক্তগদ্য এবং প্রবন্ধ লেখেন। বাতায়ন, পরবাস, বাংলালাইভ, সুইনহো স্ট্রিট, কেয়াপাতা, গল্পপাঠ, সাহিত্য কাফে, TechTouchটক, Antonym ইত্যাদি বহু পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লেখেন। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ: একলাঘর (যাপনচিত্র প্রকাশনী)।
View Posts →
মৌসুমী দত্ত রায়
মৌসুমীর জন্ম কলকাতায় হলেও গত তিন দশক ধরে নিউ ইয়র্কই তাঁর বাসস্থান এবং কর্মস্থান। এক্কেবারে বিশুদ্ধ ক্যালইয়র্কার। শুঁটকি মাছ থেকে চন্ডীপাঠ, Grateful Deads থেকে সুপ্রীতি ঘোষ আর এই diasporic dichotomy-র জাগলিংয়ে হাত পাকাতে পাকাতেই দিন কাবার। ভালোবাসেন বই পড়তে, ছবি আঁকতে, রান্না করতে, আড্ডা মারতে আর ক্যামেরা হাতে ছবি তুলতে। তবে সবচেয়ে ভালোবাসেন সক্কলকে নিয়ে জমিয়ে বাঁচতে!
View Posts →
মৃদুল দাশগুপ্ত
শ্রীরামপুরের বাসিন্দা মৃদুল দাশগুপ্ত এই সময়ের এক গুরুত্বপূর্ণ কবি। লেখালেখির শুরু সত্তরের দশকে। কলকাতার একাধিক সংবাদপত্রে সাংবাদিকতা করেছেন। ২০০০ সালে 'সূর্যাস্তে নিমিত গৃহ' কাব্য গ্রন্থের জন্য পশ্চিমবঙ্গ বাংলা একাডেমি পুরস্কার এবং ২০১২ সালে 'সোনার বুদবুদ' কাব্যগ্রন্থের জন্য রবীন্দ্র পুরষ্কার লাভ করেন।
View Posts →
মৃন্ময় প্রামাণিক
মৃন্ময় প্রামাণিক কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে তুলনামূলক ভারতীয় ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে অধ্যাপনা করেন। তাঁর গবেষণার বিষয় অনুবাদ তত্ত্ব, দলিত সাহিত্য, মাইগ্রেশন, বিশ্বসাহিত্য, ভারতীয় আখ্যান ও সাহিত্যতত্ত্ব। বিখ্যাত মরাঠী দলিত সাহিত্যিক শরণকুমার লিম্বালের বাংলা ভাষায় প্রথম অনুবাদক। তাঁর দলিত সাহিত্যাচে সৌন্দর্য শাস্ত্র, তিনি বাংলায় দলিত নন্দনতত্ত্ব শিরোনামে অনুবাদ করেছেন। দেশ-বিদেশে বহু প্রতিষ্ঠানে গবেষণায় যুক্ত মৃন্ময় একাধিক দেশি-বিদেশি ফেলোশিপ পেয়েছেন। একাধিক বই ও পত্রিকা সম্পাদনার কাজে যুক্ত।
View Posts →
নবারুণ ভট্টাচার্য
নবারুণ ভট্টাচার্যের জন্ম ১৯৪৮ সালে। ২০১৪ সালে অগ্ন্যাশয়ের ক্যানসারে তিনি প্রয়াত হন। বাঙালি লেখককুল তাঁকে চিরকাল প্রথাবিরোধী ছকভাঙা কবি ও কথাসাহিত্যিক হিসেবেই চিনে এসেছে। তবে বস্তুত তিনি ছিলেন একজন সক্রিয় রাজনৈতিক চিন্তক ও কর্মী। ১৯৯৬ সালে বঙ্কিম পুরস্কার ও ১৯৯৭ সালে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কারে সম্মানিত হন। যদিও পুরস্কার বা স্বীকৃতির ধার ধারেননি নবারুণ, জীবদ্দশায়।
View Posts →
নন্দিনী দেব বউরানি
নন্দিনী দেব বউরানি শোভাবাজার রাজবাড়ির বউ। এবং তিনি রন্ধনশিল্পী। রাজবাড়িতে বিয়ে হয়ে এসে পর্যন্ত তিনি শিখেছেন এ বাড়ির বনেদি প্রচলিত রান্নাসমূহ। তার পাশাপাশি নিজেও রান্না নিয়ে করে চলেছেন নিরন্তর নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা। তাঁর রন্ধনপ্রণালীর কৌশল হাতেকলমে শিখতে বহুবার এসেছেন নামীদামি রেস্তরাঁর শেফেরা। বহু পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে তাঁর রান্না ও খাওয়াদাওয়া সংক্রান্ত বহু লেখা।
View Posts →
নন্দিনী সঞ্চারী
নন্দিনী সঞ্চারী পেশায় স্কুলশিক্ষিকা। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তরের পড়াশোনা। কবিতা লিখছেন কলেজে পড়ার সময় থেকে। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় ও অনলাইন ম্যাগাজিনে নিয়মিত কবিতা লেখেন। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ ‘শুভাশিস চেয়েছি কখনও?’ (সপ্তর্ষি প্রকাশন)।
View Posts →
নন্দিনী সেনগুপ্ত
জন্ম জুলাই, ১৯৭১, কলকাতায়। ২০০৩ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ভূবিদ্যায় পিএইচডি। গল্প, কবিতা লেখালেখি ছাড়াও ইংরেজি এবং জার্মান ভাষা থেকে অনুবাদের কাজ বিশেষ পছন্দের। ২০১৬ সালে প্রকাশিত প্রথম কবিতার বই ‘অরণ্যমেঘবন্ধুর দল’ বিশেষ সমাদৃত হয়েছে।
View Posts →
নীলা মজুমদার
পদার্থবিদ্যার স্নাতক নীলা পেশায় ছবি আঁকিয়ে। জলরং এবং অ্যাক্রিলিকে স্বচ্ছন্দ। কবিতা লেখেন নিছকই শখে, একাকিত্বের অবকাশ যাপনে। ভালোবাসেন চুপটি করে বসে বসে ভাবতে আর আধ্যাত্মচিন্তার বই পড়তে। তবে হিমালয়ে ট্রেকিং এবং জঙ্গল ভ্রমণও খুব পছন্দের।
View Posts →
নীলার্ণব চক্রবর্তী
পেশায় সাংবাদিক নীলার্ণব বিভিন্ন বাংলা সংবাদপত্র ও পত্রিকায় নিয়মিত লেখালেখি করেন। গল্প কবিতা ও ফিচার লেখায় সমান আগ্রহ ও দক্ষতা রয়েছে। প্রকাশিত বই রাতের কাহিনী, অসংলগ্ন রিপোর্টাজ, হাওয়ার আওয়াজ।
View Posts →
নীরাজনা মুখোপাধ্যায়
নীরাজনা দোলনা ডে স্কুলে ক্লাস ওয়ানে পড়ে। জগৎসংসার বিষয়ে অসীম কৌতূহল। কথা বলতে খুব ভালো লাগে তার। আর ভালো লাগে সিনেমা দেখতে, কমিক্স আঁকতে, গান গাইতে আর ঘুমোতে। নীরাজনার প্রিয় খাবার শসা, মাখন, বিটনুন আর পিৎজা। বড় হয়ে নীরাজনা মহাকাশচারী হতে চায়।
View Posts →
নির্ঝর নৈঃশব্দ
জন্ম বাংলাদেশের কক্সবাজারে, পড়াশোনা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে। লেখালেখি আর ছবি আঁকাই মূল কাজ। প্রকাশিত বই-এর সংখ্যা ষোল। জনপ্রিয় বই “পাখি ও পাপ”, “এইখানে বর্ষাকালে বৃষ্টি হয়”, “পুরুষপাখি”, “রাজহাঁস যেভাবে মাছ হয়”। নির্ঝরের সম্পাদিত ছোট কাগজের নাম “মুক্তগদ্য”।
View Posts →
নির্মলেন্দু মণ্ডল
শিল্পী নির্মলেন্দু মণ্ডলের জন্ম ১৯৫৪ সালে। হেয়ার স্কুল থেকে পাশ করে গভর্নমেন্ট আর্ট কলেজ থেকে স্নাতক। কর্মরত ছিলেন আনন্দবাজার পত্রিকার শিল্পী ও সহকারী শিল্প নির্দেশকের পদে। লীলা মজুমদার থেকে শুরু করে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, এমন অজস্র কিংবদন্তী কবি সাহিত্যিকদের বইয়ে শিল্প নির্দেশনা করার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর ঝুলিতে।
View Posts →
ঐশিক মণ্ডল
শ্রীমান ঐশিক ওরফে ক্যাপ্টেন নিমো মাসকয়েক আগেই ছয়ের গণ্ডি পেরিয়েছেন। এখন তিনি উইসকনসিনের ‘পিওয়াকি লেক এলিমেন্টরি স্কুল’-এর ফার্স্ট গ্রেডার। যে কাজটি তিনি সবচেয়ে বেশি ভালোবাসেন সেটি হল অবিরাম বকমবকম করা। তিনি একজন সাচ্চা ডাইনোসরপ্রেমী, তাই বড় হয়ে প্যালিওন্টোলজিস্ট হতে চান। কিন্তু আপাতত চিন্তায় আছেন যে যতদিনে তিনি বড় হবেন, ততদিনে অন্যরা যদি ডাইনোসরদের সমস্ত ফসিল খুঁড়ে বার করে ফেলে, তাহলে কী হবে!
View Posts →
পবিত্র সরকার
পবিত্র সরকার বাংলা ভাষা ও চর্চার এক প্রতিষ্ঠানস্বরূপ। তাঁর শিক্ষা ও অধ্যাপনার উজ্জ্বল জীবন সম্পর্কে এই সামান্য পরিসরে কিছুই বলা অসম্ভব। তিনি প্রায় চারদশক অধ্যাপনা করেছেন দেশে ও বিদেশে। রবীন্দ্র-ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ছিলেন সাত বছর এবং ছ'বছর পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য শিক্ষা সংসদের সহ-সভাপতি। লেখাতেও তিনি অক্লান্ত ও বহুমুখী। ভাষাবিজ্ঞান ও ব্যাকরণ, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব, লোকসংস্কৃতি, ইংরেজি শিক্ষা, রম্যরচনা, শিশুদের জন্য ছড়া গল্প উপন্যাস রবীন্দ্রসংগীত, আত্মজীবনকথা— সব মিলিয়ে তাঁর নিজের বই সত্তরের উপর, সম্পাদিত আরও অনেক। গান তাঁর প্রিয় ব্যসন। এক সময়ে নান্দীকারে অজিতেশ বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশনায় অভিনয়ও করেছেন।
View Posts →
পলাশ বরন পাল
পলাশ বরন পাল পেশায় পদার্থবিজ্ঞানী ও অধ্যাপক। কবি, লেখক ও ভাষাবিদ হিসেবে সমাদৃত। পদার্থবিজ্ঞানের নানান বিষয় ছাড়াও লিখেছেন গল্প, কবিতা ও পপুলার সায়েন্সের বেশ কিছু বই। 'বিজ্ঞান: ব্যক্তি যুক্তি সময় সমাজ', 'নানা দেশ নানা গল্প', 'বিজ্ঞান এবং', 'ধ্বনিমালা বর্ণমালা' ওঁর কিছু প্রকাশিত বই।
View Posts →
পল্লবী বন্দ্যোপাধ্যায়
পল্লবী বন্দ্যোপাধ্যায় আকারে স্থূল, প্রকারে কুল এবং জোকার-এ মশগুল। ভালোবাসেন মার্ভেল, ডিসি, আর যা কিছু ফিশি। পূর্বজন্মে ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্রী ছিলেন। বর্তমানে বাংলার নেশায় বুঁদ। পরজন্মে গল-দের গ্রামে খোলা আকাশের নীচে গোল টেবিলে নৈশভোজের আসরে বসে বুনো শূকরের রোস্ট খেতে চান।
View Posts →
পল্লবী মজুমদার
লিখতে শিখেই লুক থ্রু! লিখতে লিখতেই বড় হওয়া। লিখতে লিখতেই বুড়ো। গান ভালবেসে গান আর ত্বকের যত্ন মোটে নিতে পারেন না। আলুভাতে আর ডেভিলড ক্র্যাব বাঁচার রসদ। বাংলা বই, বাংলা গান আর মিঠাপাত্তি পান ছাড়া জীবন আলুনিসম বোধ হয়। ঝর্ণাকলম, ফ্রিজ ম্যাগনেট আর বেডস্যুইচ – এ তিনের লোভ ভয়ঙ্কর!!
View Posts →
ড. পাঞ্চজন্য ঘটক
দু দশকেরও বেশি সময় ধরে ব্রিটেনে প্রবাসী পাঞ্চজন্য পেশায় সাইকিয়াট্রিস্ট। অবসর সময়ে লেখালেখি করতে ভালোবাসেন।
View Posts →
পারমিতা দাশগুপ্ত
ভূগোলের অধ্যাপিকা। ছোটবেলা থেকেই আঁকা-লেখার সৃজনশীল জগতে আনন্দ খুঁজে পান। ২০১৯ সালে প্রকাশিত হয়েছে প্রথম বই "দাড়িওয়ালা বুড়োটার"। এডওয়ার্ড লিয়রের ননসেন্স লিমেরিক ও ছড়ার বাংলা রূপান্তরের এই সংকলনের অলংকরণও তাঁর নিজের করা।
View Posts →
পারিজাত বন্দ্যোপাধ্যায়
ছোটবেলা থেকেই লেখালেখির মধ্যে জীবনের অর্থ খোঁজার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন পারিজাত। ইতিমধ্যেই তাঁর বহু লেখা নানা পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত এবং সমাদৃত। কলকাতা থেকে প্রকাশিত ছোটগল্প সংকলন, উপন্যাস, কবিতা মিলিয়ে তাঁর বইয়ের সংখ্যা পাঁচ। গত চার বছর বিবাহসূত্রে অস্ট্রেলিয়ার সিডনি শহরের বাসিন্দা।
View Posts →
পার্থ বসু
প্রয়াত পার্থ বসু মূলত কবি, গদ্য লিখেছেন সামান্যই। সাতের দশক থেকেই প্রকাশিত হয়ে চলেছিল তাঁর কবিতাবই। বইয়ের নামগুলি আশ্চর্যজনকভাবেই দীর্ঘ রাখতে ভালবাসতেন। ‘ব্যাঙ প্রথামত জিভটাকে উল্টে নেয়’, ‘নারী বশীরকণ জানে না’, ‘কবিতা স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর’, ‘দিদিমণি শূন্য দিন ও ঢ্যামনা কবিতাগুচ্ছ’ তাঁর অন্যতম। চাকরি করতেন ব্যাঙ্কে। বাংলা ভাষা ও বাংলাদেশ নিয়ে তাঁর আবেগ ও উদ্বেগ ছিল বিস্ময়কর। ২০২০ সালের সেপ্টেম্বরে, কোভিড নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়।
View Posts →
পথিক মজুমদার
পথিক মজুমদার পেশায় সংবাদজীবী। কিছুটা পেশার সূত্রে এবং কিছুটা নেশার খাতিরে, ঘুরে বেড়ানো তাঁর রক্তেহাড়েমজ্জায়। যখন তখন যেখানে সেখানে পা বাড়াতে তাঁর জুড়ি নেই। অবসরে ভালবাসেন গান, আবৃত্তি, শ্রুতিনাটক। আর ভালবাসেন নিজের দুই সদ্য-কৈশোর টপকানো ছেলের সঙ্গে আড্ডা দিতে।
View Posts →
পিনাকী ভট্টাচার্য
পেশার তাগিদে সার্ভিস সেক্টর বিশেষজ্ঞ, নেশা আর বাঁচার তাগিদে বই পড়া আর আড্ডা দেওয়া। পত্রপত্রিকায় রম্যরচনা থেকে রুপোলি পর্দায় অভিনয়, ধর্মেও আছেন জিরাফেও আছেন তিনি। খেতে ভালোবাসেন বলে কি খাবারের ইতিহাস খুঁড়ে চলেন? পিনাকী ভট্টাচার্য কিন্তু সবচেয়ে ভালোবাসেন ঘুমোতে।
View Posts →
পীতম সেনগুপ্ত
প্রাক্তন সাংবাদিক। পড়াশোনা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। ষোলো বছর বয়স থেকে কলকাতার নামী পত্রপত্রিকায় লেখালেখির হাতেখড়ি। ছোটোদের জন্য রচিত বেশ কিছু বই আছে। যেমন 'বিশ্বপরিচয় এশিয়া', 'ইয়োরোপ', 'আফ্রিকা' সিরিজ ছাড়া 'দেশবিদেশের পতাকা', 'কলকাতায় মনীষীদের বাড়ি', 'ঐতিহাসিক অভিযান', 'শুভ উৎসব' ইত্যাদি। এছাড়া বর্তমানে রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে নানা গবেষণার কাজে নিবেদিত। ইতিমধ্যেই এই বিষয়ে দুটি গ্রন্থ প্রকাশিত হয়েছে। 'রবীন্দ্র-জীবনে শিক্ষাগুরু' এবং 'রবীন্দ্র-গানের স্বরলিপিকার'। বর্তমানে একটি বাংলা প্রকাশনা সংস্থায় সম্পাদক।
View Posts →
পিয়াল সরকার
কলকাতায় জন্ম, শৈশব ও কৈশোর যাপন উত্তর-পূর্ব ভারতের আগরতলায়। ১৯৯০ সালে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যাণ্ড এঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে স্নাতকোত্তর। তিরিশ বছরের কর্ম জীবন তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে ও এঞ্জিনিয়ারিং ও বিজনেস স্কুল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে। বাংলা ভাষার প্রতি ভালোবাসা থেকেই লেখালেখির শুরু। তবে সেইসব লেখা সাধারণ ভাবে বন্ধুবান্ধব ও পরিচিত মানুষ জনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকে।
View Posts →
পিয়ালী বন্দ্যোপাধ্যায়
পিয়ালী বিভিন্ন বাণিজ্যিক পত্রিকা এবং চড়ুইপত্রে গদ্য এবং পদ্য লিখে চলেছেন অনেকদিন ধরে। ছবি আঁকা তাঁর প্রতিদিনের যাপনের মধ্যে পড়ে। বই এবং পত্রপত্রিকায় প্রচ্ছদ এবং অলঙ্করণের কাজও খুব কম নয়। বেড়াতে বা ট্রেকিংয়ে গিয়ে বেড়ানোর অভিজ্ঞতা নোটখাতায় লেখা এবং ছবি আঁকার অভ্যেস কলেজজীবন থেকেই। ভূগোলের এই শিক্ষিকা ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে মাঠে-ঘাটে গাছ পুঁতে বেড়ান। প্রিয় শখ বইপড়া, সিনেমা দেখা।
View Posts →
প্রবীরেন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
প্রবীরেন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ব্রিটেনের কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়ে ম্যানেজমেন্ট সায়েন্সের অধ্যাপক। অর্থনীতি ও রাজনীতি নিয়ে বিশেষ আগ্রহ। বাংলা ও ভারতের বিভিন্ন সংবাপত্রে অর্থনীতি, রাজনীতি ও বিজ্ঞান বিষয়ক একাধিক প্রবন্ধ লিখেছেন প্রবীরেন্দ্র। এছাড়াও লিখেছেন একাধিক কল্পবিজ্ঞান ও রহস্যকাহিনী। তাঁর প্রকাশিত বইগুলি হল 'বাইট বিলাস', 'ক্যুইজ্ঝটিকা', 'পরিচয়ের আড্ডায়', 'আবার ফেলুদা, আবার ব্যোমকেশ', এবং 'চার'।
View Posts →
প্রচেত গুপ্ত
জন্ম কলকাতায়, ১৯৬২ সালে। বাঙুর এভিনিউতে স্কুলের পড়াশোনা, বড় হওয়া। স্কুলজীবন থেকেই খেলাধুলার সঙ্গে লেখালেখির নেশা। প্রথম লেখা মাত্র ১২ বছর বয়সে আনন্দমেলা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়। তারপর বিভিন্ন পত্রিকায় নিয়মিত লেখা চলতে থাকে। স্কুল শেষ হলে স্কটিশ চার্চ কলেজ। অর্থনীতিতে স্নাতক হয়ে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসাবে বেছে নেওয়া। তাঁর বহু জনপ্রিয় বইয়ের কয়েকটি, 'ধুলোবালির জীবন', 'মাটির দেওয়াল', 'সাগর হইতে সাবধান', 'গোপন বাক্স খুলতে নেই', 'দোষী ধরা পড়বেই'।
View Posts →
প্রপা দে গঙ্গোপাধ্যায়
প্রপা দে গঙ্গোপাধ্যায় পেশায় ডাক্তার, নেশায় কবি-গদ্যকার-লিমেরিকার। কবি ও কবিতার পরিমন্ডলে বড় হয়ে ওঠা প্রপার লেখা শুরু কবিতার হাত ধরে। এক অন্য ধরনের শৈলী-বর্ণ-ছন্দ-ভাবনা নিয়ে পথ চলার সূচনা মায়ের আঙুল ধরে। মা প্রখ্যাত কবি চিণ্ময়ী দে। সমাজ ও সময়, কলম, ষড়রিপু আর মনস্তত্ত্ব নিয়ে জাগলিং করার সাহচর্য ও সাহস যুগিয়েছে। মোদ্দা কথা হল, ইনি জাতে কলমচি তালে ডাক্তার। বোহেমিয়ান, ব্রাউনিয়ান প্রপার বিচরণ সাহিত্যের অন্দরে, বন্দরে।
View Posts →
প্রসেনজিৎ দাশগুপ্ত
পেশায় সাংবাদিক প্রসেনজিতের জন্ম ১৯৮১-তে। লেখালেখির শুরু কবিতা দিয়েই। ভারত সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রকের ফেলো, প্রসেনজিতের গবেষণার বিষয় রাজনীতি, ধর্মতত্ত্ব ও সঙ্গীততত্ত্ব। প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ছয়। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক নানা পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে লেখা। অবসরে ভালোবাসেন সরোদ বাজাতে, পুরনো চিঠি ও বই পড়তে।
View Posts →
প্রীতম বিশ্বাস
প্রীতম পেশায় শিক্ষক। পড়াশোনা ইংরেজি সাহিত্য নিয়ে। লেখালিখির শখ ছোটবেলা থেকেই। 'একুশ শতাব্দী' নামক একটি লিটল ম্যাগাজিন সম্পাদনার সঙ্গে যুক্ত দীর্ঘ ছয় বছর। মূলত ছোটগল্পকার হিসেবেই তাঁর পরিচিতি। বহু লিটল ম্যাগাজিনে নিয়মিত লেখা প্রকাশিত হয়। দেশ পত্রিকায় গল্প প্রকাশিত হয় ২০১৬ সালে।
View Posts →
পৃথ্বী বসু
জন্ম ১লা জুলাই, ১৯৯৬। বর্তমানে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে স্নাতোকত্তর পড়ছেন। নেশা আড্ডা মারা, রাস্তায় এলোমেলো ঘুরে বেড়ানো আর লিটল ম্যাগাজিন ঘাঁটা। 'দশমিক' নামে একটা ছোট কাগজ সমপাদনা করেন। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ 'খইয়ের ভিতরে ওড়ে শোক'।
View Posts →
প্রিয়ম মুখোপাধ্যায়
প্রিয়মের জন্ম ১৯৭৮-এ শান্তিনিকেতনে। পড়াশোনা বিশ্বভারতীতে। ইতিহাস এবং রবীন্দ্রসঙ্গীতে স্নাতকোত্তর এবং সঙ্গীতভবন থেকে এম ফিল। গানের হাতেখড়ি মাসি কণিকা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে। গানই ধ্যানজ্ঞান। রবীন্দ্রসঙ্গীতের অ্যালবামও রয়েছে বেশ কিছু। শখ, অভিনয় করা, ছবি তোলা আর লেখালিখি। বর্তমানে এলমহার্স্ট ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর হিসেবে কর্মরত।
View Posts →
পূর্বা চট্টোপাধ্যায়
পেশায় শিক্ষিকা পূর্বা শিক্ষকতার পাশাপাশি ইতিহাস ও সংরক্ষণ বিষয়ে গবেষণায় রত। তিনি 'হুগলি রিভার অফ কালচারস পাইলট প্রজেক্টের' সঙ্গে যুক্ত ইউনিভার্সিটি অফ লিভারপুল ও ভারত সরকারের উদ্যোগে যেটার কাজ চলছে।
View Posts →
ডা. পূর্ণেন্দুবিকাশ সরকার
বিশিষ্ট চক্ষু চিকিত্‍সক ডা. পূর্ণেন্দুবিকাশ সরকার সল্টলেক আই কেয়ার ফাউণ্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা। চিকিত্‍সার সঙ্গেই চলে লেখালেখির কাজ। লিখেছেন 'চশমার হ্যান্ডবুক', 'গীতবিতান তথ্যভাণ্ডার', 'চোখের কথা' ইত্যাদি বই। এছাড়াও 'গীতবিতান আর্কাইভ' এবং 'রবীন্দ্রকবিতা আর্কাইভ' নামে দুটি মূল্যবান সংকলন তৈরি করেছেন।
View Posts →
পূর্ণেন্দু মুখোপাধ্যায়
জন্ম ১৯৪১ সালে খুলনায়। বাবার বদলির চাকরি সূত্রে কখনও সুন্দরবন, কখনও মালদা হয়ে ডালখোলা, কখনও বা কাটিহার। এভাবেই উড়ুউড়ু মনের সুত্রপাত। নিজের চাকরি সামরিক বিভাগে। সেই সূত্রেই হিমালয়ের প্রেমে পড়া। একুশবার কেদারনাথ যাত্রা, ছ'বার পঞ্চকেদার, পিন্ডারি হিমবাহ, রূপকুণ্ড, ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ারস, হেমকুন্ড সাহিব, গোমুখ, তপোবন, অমরনাথ, কালিন্দীপাস, সুন্দরডুঙ্গা... পরিক্রমার তালিকা অতি দীর্ঘ। সেই সূত্রেই পরিচয় উমাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে। ২০১১-এর পরে অবশ্য বয়সের কারণে আর পাহাড়ে যাননি। পঞ্চকেদার। জীবনের অপূরণেয় শোক - নিজের হিমালয়প্রেমী ছোটভাইকে হিমালয়েরই ফাটলে হারিয়ে ফেলা। আর সবচেয়ে বড় আনন্দ, অন্যকে হিমালয় দেখিয়ে!
View Posts →
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
রবীন্দ্রসাহিত্যের বিপুল সম্ভার থেকে কিছু মণিমুক্তো তুলে এনে সাজিয়ে দিল বাংলালাইভ। মলাট কাহিনির বিষয় হোক বা বিশেষ কোনও ঘটনা, সবক্ষেত্রেই আজও প্রাসঙ্গিক যাঁর লেখা, তাঁকেই পুনরাবিষ্কার করতে চেয়ে বাংলালাইভের এই প্রয়াস।
View Posts →
রায়না ঘোষ
রায়না ঘোষ, দিল্লির জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর দি স্টাডি অফ রিজিওনাল ডেভলপমেন্ট- এ ভূগোলের গবেষক। পড়াশোনার ফাঁকে বেড়ানো ও ফটোগ্রাফি তার প্যাশন।
View Posts →
রজতেন্দ্র মুখোপাধ্যায়
রজতেন্দ্র মুখোপাধ্যায়ের জন্ম কলকাতায়, পড়াশুনো কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে, লেখালেখির শুরু নয়ের দশকে। বিভিন্ন বাণিজ্যিক পত্রপত্রিকা, লিটল ম্যাগাজিনে ছোটগল্প, কবিতা এবং নানা বিষয়ে প্রবন্ধ লিখেছেন। কবিতার বইয়ের সংখ্যা দশ। প্রচ্ছদ এঁকেছেন তিরিশেরও বেশি বইয়ের। পেশায় চাকরিজীবী।
View Posts →
রাজেশ ধর
রাজেশ ধরের জন্ম ১৯৭১ সালে। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। পেশায় স্কুলশিক্ষক। গল্প লেখার শুরু কৈশোর থেকে। এপার ও ওপার বাংলার বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ওয়েব ম্যাগাজিনে বহু গল্প প্রকাশিত। গল্পের জন্য 'ইচ্ছেকথা ২০১৮' সম্মান পেয়েছেন। গল্পে বাস্তবের পর্দা পেরিয়ে আর এক জীবনের খোঁজ... এইই একমাত্র নেশা।
View Posts →
রাজেশ গঙ্গোপাধ্যায়
জন্ম ১৯৭১ সালে কলকাতায়। বর্তমানে রাজ্য সরকারের কর্মচারী। রাজেশ গঙ্গোপাধ্যায়ের গল্প ও কবিতা দুই বাংলার একাধিক ছোট ও বড় পত্রপত্রিকায় নিয়মিত প্রকাশ পায়।
View Posts →
রাজীব চক্রবর্তী
রাজীব চক্রবর্তী পেশায় ভাষাবিজ্ঞানী। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের ভাষা প্রযুক্তি গবেষণা পরিষদে কর্মরত। বিশ্বভারতীর প্রাক্তন অধ্যাপক। বাংলাদেশের বাংলা অ্যাকাডেমি থেকে দুই বাংলার উদ্যোগে প্রকাশিত 'প্রমিত বাংলা ভাষার ব্যাকরণ' (২০১১, দ্বিতীয় সংস্করণ ২০১২) এবং 'প্রমিত বাংলা ব্যবহারিক ব্যাকরণ' (২০১৪) সম্পাদনা করেছেন। এক সময়ে উত্তর ভারতীয় মার্গ সংগীতে প্রথাগত তালিম নিয়েছেন। উৎসাহের জায়গা পুরনো বাংলা গান এবং ৭৮-আরপিএম রেকর্ড সংগ্রহ ও তার বৈদ্যুতিনীকরণ। মূলত প্রাবন্ধিক। নিয়মিত লেখেন ভাষা, সংগীত নিয়ে। রম্যগদ্য লেখায় তাঁর সপ্রশ্রয় দুর্বলতা আছে।
View Posts →
রাকা দাশগুপ্ত
পদার্থবিদ্যার অধ্যাপনা আর গবেষণায় নিযুক্ত। লেখালেখির হাতেখড়ি ছোটবেলায়, সন্দেশ পত্রিকায়। প্রকাশিত কবিতার বই পাঁচটি, জার্নালধর্মী ভ্রমণকথার বই একটি। ভারতের সাহিত্য অকাদেমি যুব পুরস্কারে সম্মানিত। এছাড়াও পেয়েছেন কৃত্তিবাস পুরস্কার, বাংলা আকাদেমি পুরস্কার, এবেলা অজেয় সম্মান।
View Posts →
রমানাথ রায়
স্বাধীনতা পরবর্তি কথাসাহিত্যে পথিকৃৎ। তাঁর অদ্বিতীয় গদ্য স্টাইল পাঠকের কাছে খুব পরিচিত। প্রথম গল্প প্রকাশ ১৯৬২ সালে। সমালোচকেরা তাঁর লেখাকে ব্ল্যাক হিউমার, অ্যাবসার্ড, ম্যাজিক রিয়ালিজম ইত্যাদি আখ্যা দিয়েছেন। ১৯৮২ সালে প্রকাশিত তাঁর প্রথম উপন্যাস 'ছবির সঙ্গে দেখা' -কে বাংলা সাহিত্যের প্রথম অ্যান্টি নভেল বলা হয়। ষাটের দশকে, প্রচলিত গল্পরীতির বিরুদ্ধে গড়ে ওঠা শাস্ত্রবিরোধী আন্দোলনের প্রবর্তক তিনি। সেই আন্দোলনের অন্যতম বক্তব্য ছিল- বহু ব্যবহারে বাস্তববাদী রীতি জীর্ণ হয়ে গেছে। পরবর্তি কালে একটি প্রবন্ধে রমানাথ লেখেন- এই সময় বাস্তববাদী রীতির চর্চা করা হল নতুন করে ইলেকট্রিক বাল্‌ব আবিষ্কারের চেষ্টা।
View Posts →
রানা রায়চৌধুরী
রানা রায়চৌধুরীর জন্ম ষাটের দশকে উত্তর ২৪ পরগনায়। সুরেন্দ্রনাথ কলেজের স্নাতক রানা পেশায় স্কুলশিক্ষক। তবে প্যাশন বলতে মূলত লেখালিখি। এ যাবৎ প্রকাশিত বারোটি কাব্যগ্রন্থ ও তিনটি গদ্যগ্রন্থ। লিখেছেন একটি উপন্যাসও। তাঁর কবিতার বই লাল পিঁপড়ের বাসা, অগাস্ট মাসের রাস্তা, একটি অল্পবয়সী ঘুম পাঠকমহলে সমাদৃত। লেখকের সদ্য প্রকাশিত গল্পের বই দ্রাবিড়ের ভাঙা উইকেট।
View Posts →
রঙ্গন দত্ত
কলেজে পড়ার সময় টিউশনির টাকা জমিয়ে ভ্রমণ শুরু। তারপর ভ্রমণের নেশায় আর চাকরি করা হয়েই ওঠেনি। বর্তমানে একটি কলেজের ভিজিটিং ফ্যাকাল্টি। সেই সঙ্গে চলে ভ্রমণকাহিনি লেখা, ছবি তোলা, নিজের ব্লগ চালানো আর উইকিপিডিয়া সম্পাদনার কাজ।
View Posts →
রঞ্জাবতী হাজরা
ছ' বছরের রঞ্জাবতীর ডাকনাম তোর্সা। ফ্রিডম ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে ক্লাস ওয়ানের ছাত্রী। হাসিখুশি, ঝলমলে। নিজের দুনিয়ায় মগ্ন থাকা রঞ্জা ভালোবাসে পাখি-পিঁপড়েদের সঙ্গে গল্প করতে, নানারকম হাতের কাজ করতে, গুনগুন করতে আর ব‌ই পড়তে। তার অফুরন্ত প্রশ্নের ঠ্যালায় মা বাবার অবস্থা দেখার মতো।
View Posts →
রঞ্জিতা চট্টোপাধ্যায়
রঞ্জিতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগোর বাসিন্দা। পেশায় শিক্ষিকা। নেশা বই পড়া লেখালিখি।"বাতায়ন" নামের একটি আন্তর্জাতিক পত্রিকা সম্পাদনা করেন গত ছ বছর। এক দশকেরও বেশি সময় শিকাগোর "উন্মেষ সাহিত্য গোষ্ঠী"র সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত। রঞ্জিতার বিশ্বাস, সাহিত্য ভৌগোলিক সীমানা পার হয়ে মানুষ, দেশ ও সংস্কৃতির মেলবন্ধন ঘটায়।
View Posts →
রসিকলাল তর্করত্ন
রসিকলাল জন্ম-অলস। ফলে চিরকালের কাঠবেকার। তবে পরনিন্দা পরচর্চায় তাঁর বিশেষ আগ্রহ ও বুৎপত্তি লক্ষণীয়। আর বাচ্চাদের সঙ্গ ভারী পছন্দ করেন।
View Posts →
রতন সিদ্দিকী
ড. রতন সিদ্দিকী স্বনামখ্যাত অধ্যাপক, নাট্যকার ও নাট্যগবেষক। তাঁর জন্ম ১৯৬৩ সালের ২২ অক্টোবর। পৈতৃক নিবাস নরসিংদীর সদর উপজেলার মুরাদনগর গ্রাম। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতক (সম্মান) ১৯৮৫ ও স্নাতকোত্তর ১৯৮৬। একই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমফিল ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেছেন নাটক ও লোকসংস্কৃতি বিষয়ে। ড. রতন সিদ্দিকী নাট্যগবেষণা ও নাট্যরচনাসহ সাহিত্যে বিশেষ অবদান রাখার জন্য লাভ করেছেন অতীশ দীপঙ্কর পুরষ্কার-২০১৫, মাদার তেরেসা পুরষ্কার ২০১৬, হিউমেনিটোরিয়াল এওয়ার্ড-২০১৯। উল্লেখ্য, নাটকে সামগ্রিক অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ নাট্যশিক্ষক ড. রতন সিদ্দিকীকে ২০১৯ সালের বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারে ভূষিত করা হয়।
View Posts →
রেহান কৌশিক
জনপ্রিয় কবি ও গদ্যকার। ধুলোখেলা গ্রন্থের জন্য পেয়েছেন বাসুদেব দেব সংসদ সম্মান ২০১৪। উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ ওড়ে চিঠি তোমার শহরে, ধ্যান আর ধুলোর ভাস্কর্য, ভালোবাসা, ভালো, হে বিষাদ, ছুঁয়ে থেকো, মেহগিনি মেমরিজ।
View Posts →
রেশমী পাল
রেশমী বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ উপার্জন করতে শিক্ষকতা করেন, বেঁচে থাকাকে অর্থপূর্ণ করে তুলতে ভ্রমণ করেন। এককালে সাহিত্যের ছাত্রী ছিলেন। বর্তমানে আলপিন টু এলিফ্যান্ট যা ভালো লাগে, তাই নিয়েই চর্চা করেন। আদ্যন্ত পল্লবগ্রাহী; সে জন্য বিশেষ লজ্জিতও নন। মাঝেমধ্যে পত্রপত্রিকায় ভ্রমণকাহিনী লেখেন। এছাড়া লেখেন নিজস্ব ওয়েবসাইটে - www.comecrosstheline.com
View Posts →
ঋভু চট্টোপাধ্যায়
লেখালেখির সূত্রপাত ছোটবেলায়। বর্তমানে শিক্ষকতার পাশাপাশি নিয়মিত কবিতা ও গল্প লেখেন তথ্যকেন্দ্র, গৃহশোভা, নবকল্লোল দৈনিক স্টেটসম্যান, সুখবর, সাতসকাল, দেশ, আনন্দবাজার রবিবাসরীয়, এই সময়-সহ আরো বহু বাণিজ্যিক পত্রিকায়। এই পর্যন্ত ইংরেজিতে লিখিত কবিতা ও গল্প ভারত-সহ বহু দেশে প্রকাশিত। নিবন্ধ ও ছোটগল্প প্রকাশিত হয়েছে বাংলালাইভ, মহানগর, দ্য ওয়াল-সহ বহু অনলাইন ম্যাগাজিনে। প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা সাত।
View Posts →
ঋজুরেখ চক্রবর্তী
পেশাগত ভাবে রাজ্য সরকারি পত্রিকার সম্পাদনার গুরুভার সামলাতে হয়। তার মধ্য়েই নিজের ভালোবাসার তাগিদে চলে কলম পেষা। এখনও পর্যন্ত দশটি কবিতার বই ও চারটি উপন্যাস বেরিয়েছে। সৃষ্টিসুখ প্রকাশনা থেকে বেরিয়েছে কবিতাসমগ্র ১।
View Posts →
ঋতা বসু
বাংলা সাহিত্য নিয়ে শান্তিনিকেতন ও প্রেসিডেন্সিতে পড়াশোনা। পরে শিক্ষাঙ্গনকেই বেছে নিয়েছেন কর্মজগত্‍ হিসেবে। তবে লেখালিখিই প্রথম ভালবাসা। ছোটদের ও বড়দের –-- দু'রকম লেখাতেই সমান স্বচ্ছন্দ। ছোটদের ও বড়দের গল্প-উপন্যাসের পাশাপাশি শান্তিনিকেতনের মেয়েদের হস্টেল জীবন নিয়ে তাঁর লেখা 'শ্রীসদনের শ্রীমতীরা' পাঠকসমাজে সমাদৃত। প্রিয় বিষয় সিনেমা, নাটক, রহস্য ও ইতিহাস।
View Posts →
ঋতব্রত মিত্র
জন্ম ১৯৭৭ সালে, পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথিতে। স্নাতকোত্তর সরকারী শিক্ষাকেন্দ্রে ও হাসপাতালে বক্ষ-রোগ বিষয়ে অধ্যাপনা ও চিকিত্‍সা। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ মাটি ও মোহর, পরাশান্তি মনপ্রহরা ইত্যাদি। কবিতার পাশাপাশি চলে গদ্যচর্চা। ২০০৯ সালে কৃত্তিবাস পুরস্কারে সম্মানিত।
View Posts →
ঋভু চৌধুরী
ঋভু চৌধুরী হুগলি জেলার হরিপালের বাসিন্দা। জন্ম ১৯৯১-এর ভরা বসন্তে। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর। বর্তমানে পেশা ব্যবসা। নেশা লেখালিখি, বই পড়া, ছবি আঁকা, গান শোনা, সিনেমার দুনিয়ায় ডুব, আর পথে-প্রান্তরে ঘুরে বেড়ানোর অবকাশ খুঁজে নেওয়া।
View Posts →
রোনক বন্দ্যোপাধ্যায়
রোনক বন্দ্যোপাধ্যায় লালমাটির সন্তান। তাঁর জন্ম বাঁকুড়ার বিবড়দা গ্ৰামে। বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে কলেজে পাঠরত। পড়াশোনার পাশাপাশি ছোটবেলা থেকে লেখালেখির প্রতি গভীর আগ্ৰহ। এই সময়ের বিভিন্ন লিটল ম্যাগাজিনে নিয়মিত কবিতা ও গল্প প্রকাশিত হয়।
View Posts →
দিধিতি বসু
দিধিতির প্রতিভা বহুমুখী। শিল্পের একাধিক ধারায় তাঁর বিচরণ। পেশা সাংবাদিকতা হলেও নেশা গান, ছবি আঁকা, সাঁতার কাটা এবং বহু কিছু। মৌলিক লেখালিখি করতে ভালবাসেন বিজ্ঞানের ছাত্রী দিধিতি। অনুবাদক হিসেবেও কাজ করেছেন একসময়। ভারতীয় শাস্ত্রীয় সঙ্গীত তাঁর অন্যতম প্রিয় চর্চার বিষয়। এছাড়া ভালবাসেন নিজস্ব গবেষণার কাজ এবং সিনেমা।
View Posts →
রুচিরা মুখোপাধ্যায়
সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে সমাজতত্ত্ব বিভাগে স্নাতকস্তরে পাঠরতা রুচিরা ছবি আঁকার পাশাপাশি, কবিতা ও গদ্য লেখেন। লোকসংগীত এবং নাটক নিয়ে নিয়মিত চর্চা করেন। সম্পাদনা করেছেন ছোটদের আশ্চর্য পত্রিকা ‘এলোমেলো’। শখ ট্রেক করা এবং দোতারা বাজানো।
View Posts →
রূপক চক্রবর্তী
রূপক চক্রবর্তী দীর্ঘদিন সাংবাদিকতা এবং লেখালেখি করেছেন একাধিক নামী বাংলা সংবাদপত্র ও পত্রপত্রিকায়। পেয়েছেন বাংলা একাডেমি পুরস্কার ও কৃত্তিবাস পুরস্কার। 'কল্পতরু উৎসব', 'যখন মহাভারত লিখছিলাম', 'প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য' এই লেখকের কিছু জনপ্রিয় বই।
View Posts →
ড. রূপক বর্ধন রায়
ড. রূপক বর্ধন রায় GE Healthcare-এ বিজ্ঞানী হিসেবে কর্মরত। ফ্রান্সের নিস শহরে থাকেন। তুরস্কের সাবাঞ্চি বিশ্ববিদ্যালয়ে পিএইচডি করেছেন। বৈজ্ঞানিক হিসেবে কর্মসূত্রে যাতায়াত বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে। লেখালিখির স্বভাব বহুদিনের। মূলত লেখেন বিজ্ঞান, ইতিহাস, ঘোরাঘুরি নিয়েই। এ ছাড়াও গানবাজনা, নোটাফিলি, নিউমিসম্যাটিক্সের মত একাধিক বিষয়ে আগ্রহ অসীম।
View Posts →
সানভি দাস
সাত বছরের সানভি সল্ট লোক স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ে। বই পড়তে আর রঙ নিয়ে আঁকিবুকি কাটতে খুব ভালোবাসে ছোট্ট সানভি।
View Posts →
সবর্ণা চট্টোপাধ্যায়
সবর্ণা শূন্য দশকের কবি। জন্ম, বেড়ে ওঠা চন্দননগরে। কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশনে স্নাতকোত্তর। গান, নাচ, ছবি আঁকার সঙ্গে সঙ্গে গড়ে ওঠে নিজস্ব ভাবনার জগৎ। পরবর্তীতে হঠাৎই কবিতাকে আঁকড়ে ধরা। গদ্য কবিতার পাশাপাশি ছন্দে লিখতেও ভালবাসেন। ২০১৮-তে সিগনেট প্রেস থেকে প্রকাশিত প্রথম কাব্যগ্রন্থ 'চারদেওয়ালি চুপকথারা'। ২০১৯-এ পেয়েছেন সোনাঝুরি সাহিত্যসম্মান। ২০২০-তে বইতরণী থেকে প্রকাশ পায় তাঁর 'সাদা হরফের হাঁসগুলি' ই-বুক। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত কবিতা ও প্রবন্ধ লেখেন। কিশোর সাহিত্যেও আগ্রহী।
View Posts →
সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়
সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় বাংলার সর্বকালের সেরা অভিনেত্রীদের একজন। তিনি এক লড়াইয়ের মুখ। পূর্ববঙ্গের ঢাকা বিক্রমপুর থেকে শৈশবে কলকাতায় এসে ক্রমে নাটক ও পরে ফিল্মে অভিনয়ের মাধ্যমে খ্যাতির চূড়ায় ওঠেন। অভিনয় করেছেন অজস্র বাংলা ছবি ও নাটকে। টিভি ধারাবাহিকে এখনও দাপটের সঙ্গে কাজ করে চলেছেন। প্রথম জীবনের অপমান, লাঞ্ছনা, দারিদ্র উপেক্ষা করে তৈরি করেছেন নিজের অবিসংবাদী স্থান, ঘটিয়েছেন এক নিঃশব্দ মহাবিপ্লব।
View Posts →
সব্যসাচী ব্যানার্জি
পেশায় ইঞ্জিনিয়ার সব্যসাচী ব্যানার্জি কেজো জগতের বাইরে এলেই খালি খুজে বেড়ান পুরোনো মন্দির। আর ভালোবাসেন যেখানে সেখানে এমনি এমনি ছবি তুলতে।
View Posts →
সব্যসাচী চট্টোপাধ্যায়
অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর। কিছুদিন বেসরকারি ফার্মে চাকরি। এখন সরকারি চাকরির প্রস্তুতি নিচ্ছেন। লেখালিখির শুরু ২০১৫ সালে। 'শুকতারা'তে ভূতের গল্প দিয়ে আত্মপ্রকাশ। ভালবাসেন কবিতা লিখতে, বিদেশি সিনেমা আর সিরিজ দেখতে। ফুটবল বলতে অজ্ঞান। অনীশ দেবের সম্পাদনায় পত্রভারতীর "১০১ ভূতের গল্প", দুই বাংলার উদীয়মান কবিদের নিয়ে "কবিতার এপার ওপার ৫" এবং দুই বাংলার গল্পকারদের নিয়ে "গল্পের এপার ওপার ২" গ্রন্থে সংকলিত হয়েছে তাঁর লেখা।
View Posts →
সাগ্নিক রায়
ইন্ডিয়ান আর্ট কলেজে পেইন্টিং বিভাগে পাঠরত। আধুনিক বাংলা কবিতা, ছোটগল্প, উপন্যাস, প্রবন্ধ পড়তে ভালোবাসেন। এ ছাড়া দেশবিদেশের সিনেমা দেখার নেশা। রবীন্দ্রনাথের গানগুলো আরো গভীর ভাবে জানার চেষ্টা। রোজকার জীবনের ছোটো ছোটো টুকরো বিষয় নিয়ে লেখালিখি। কিন্তু এগুলো কোনওটাই অবসরযাপন হিসেবে নয়, রোজকার কাজ ভেবেই ধরি। তাই অবসরের শখ বলতে বন্ধুমহলে তর্ক-বিতর্ক-আড্ডা দেওয়া।
View Posts →
সাহানা নাগ চৌধুরী
সাহানা নাগ চৌধুরী দীর্ঘদিন সাংবাদিকতার সঙ্গে যুক্ত। তিন দশকের কিছু বেশি সময় তিনি বর্তমান সংবাদপত্রে কর্মরত থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন। কর্মসূত্রে বরুণ সেনগুপ্ত ও পারিবারিক সূত্রে গৌরকিশোর ঘোষের মতো প্রবাদপ্রতীম সাংবাদিকদের আশীর্বাদধন্য সাহানা বই পড়ে ও পছন্দের বিষয়ে লেখালেখি করে অবসর জীবন অতিবাহিত করেন।
View Posts →
শৈবাল মিত্র
শৈবাল মিত্র এ কালের একজন গুরুত্বপূর্ণ চিত্রপরিচালক। বাংলা গানের দিকপাল গায়ক শ্যামল মিত্রের পুত্র শৈবালের জন্ম কলকাতায়। পড়াশোনা শান্তিনিকেতনে। চলচ্চিত্রের একাধিক ধারায় কাজ করে আসা শৈবাল প্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্যের ছবি বানান ২০০৭ সালে, 'সংশয়' নামে। শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায়ের গোয়েন্দাকাহিনি অবলম্বনে ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়, অর্পিতা চট্টোপাধ্যায় ও কঙ্কণা সেনশর্মাকে নিয়ে ২০১৫ সালে বানান 'সজারুর কাঁটা'। বিএফজেএ সেরা পরিচালকের সম্মান রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। ইন্ডিয়ান প্যানোরামাতেও দু'বার নির্বাচিত হয়েছে তাঁর ছবি। ঘুরেছে দেশবিদেশের ফিল্মোৎসবে।
View Posts →
সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায়
পেশায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। বিভিন্ন সংবাদপত্রে এবং পত্রপত্রিকায় নিয়মিত লেখালেখি করেন। প্রকাশিত উপন্যাসের নাম খেরোবাসনা, মহেঞ্জোদারো, দিনগুলি রাতগুলি, খান্ডবদাহন, ন্যানোপুরাণ।
View Posts →
সৈকত ঘোষ
পড়েছেন ইঞ্জিনিয়ারিং। বিচিত্র কর্মজীবনে কখনও আইটি কোম্পানিতে চাকরি কখনও সিনেমার স্ক্রিপ্ট লেখা এমনকি দৈনিক কাগজে ফ্রীল্যান্সও করেন। বর্তমানে শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত। প্রথম কবিতা সাহিত্য সম্রাট বঙ্কিমচন্দ্রের বাড়ির রথের মেলা নিয়ে মাত্র ১১বছর বয়সে। তার কথায় কবিতা কখনও অঙ্ক কখনও ডার্ক ফ্যান্টাসি। বিশ্বাস করেন নিজের দুর্বলতাকে সবলতা করাই সাফল্য।
View Posts →
শাক্যজিৎ ভট্টাচার্য
পেশায় গবেষক শাক্যজিৎ লেখালেখি করেন বিভিন্ন ছোটবড় ওয়েব পোর্টাল ও লিটল ম্যাগাজিনে। মূলত গল্প লিখতেই পছন্দ করেন। এখনও অবধি প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা তিন - অনুষ্ঠান প্রচারে বিঘ্ন ঘটায় দুঃখিত, কুরবানি অথবা কার্নিভ্যাল এবং আক্রান্ত ও অন্যান্য গল্প। প্রিয় লেখক অলবেয়ার কামু।
View Posts →
সমরেশ মজুমদার
জন্ম ১৯৪২-এর ১০ মার্চ | শৈশব কেটেছে জলপাইগুড়ি জেলার ডুয়ার্সে | স্কটিশ চার্চ কলেজ থেকে বাংলায় স্নাতক | বিখ্যাত অনিমেষ সিরিজের দ্বিতীয় উপন্যাস 'কালবেলা'র জন্য ১৯৮৪ সালে পেয়েছেন সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার |
View Posts →
সমর মিত্র
সমর মিত্রের জন্ম ১৯৩৯। পূর্ব বর্ধমান জেলার আঝাপুর গ্রামে। স্কুল ওখানেই। বর্ধমান রাজ কলেজের স্নাতক। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলার এম এ। পেশায় ছিলেন সাংবাদিক। প্রথমে আনন্দবাজার, অবসরান্তে বর্তমান-এ। এখন অফুরন্ত অবসর। পড়ে লিখে সময় কাটান। বড়-ছোট সকলের জন্য প্রকাশিত বই মাত্র একটি। বহু লেখা পড়ে থেকে উই কবলিত। থাকেন উত্তরপাড়ার ফ্ল্যাটে ও গাঁয়ের ভদ্রাসনে ভাগাভাগি করে স্ত্রীর তত্ত্বাবধানে। গ্রামের মানুষ তাঁর খুব প্রিয়জন। তিনিও তাঁদের তা-ই।
View Posts →
সম্বিত বসু
পেশায় সাংবাদিক। গদ্যকার ও কবি হিসেবে পরিচিত। প্রথম বই 'গদ্যলেন'। লেখালেখির পাশাপাশি একাধিক বইয়ের অলঙ্করণের কাজেও ব্যস্ত থাকেন।
View Posts →
সম্বুদ্ধ চট্টোপাধ্যায়
বিষ্ণুপুর ঘরানার শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের কণ্ঠশিল্পী। রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সঙ্গীতে স্নাতোকত্তর। বর্তমানে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক। সম্বুদ্ধ বেতার, দূরদর্শন ছাড়াও দেশে ও বিদেশে অসংখ্য সঙ্গীত সম্মেলন ও অনুষ্ঠানে নিয়মিত সঙ্গীত পরিবেশন করেন। পেয়েছেন একাধিক পুরস্কার ও সম্মান।
View Posts →
সমীপেষু দাস
সমীপেষু পেশায় বঙ্গবাসী কলেজের অধ্যাপক। টেগোর রিসার্চ ইনস্টিটিউটে রবীন্দ্রসাহিত্য নিয়ে গবেষণা করছেন। গবেষণা করছেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়েও। তাঁর নেশা বাংলার ইতিহাস। কলকাতার কথকতা দলের অন্যতম সদস্য সমীপেষু ভালবাসেন এই বিষয় নিয়ে নতুন নতুন তথ্য অনুসন্ধান এবং লেখালিখি।
View Posts →
সামীউর রহমান
সামীউর রহমানের জন্ম সিলেটে। কর্মসূত্রে রয়েছেন ঢাকায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর পড়াশোনা করে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে বেছে নেন। বর্তমানে ঢাকার দ্য নিউ এজ সংবাদপত্রে ক্রীড়াসাংবাদিক। এছাড়া ক্যানভাস ম্যাগাজিনে নিয়মিত রসনা-লিখন করেন।
View Posts →
সম্রাজ্ঞী বন্দ্যোপাধ্যায়
কবি ও গদ্যকার। পত্র পত্রিকার জন্য লেখালেখি ছাড়াও বাংলা চলচ্চিত্রের জন্য গল্প লেখেন। ওঁর লেখা 'খেলনাবাটির দিন শেষ', 'বৃষ্টিরাশির মেয়ে', 'বেহায়া একুশি' পাঠকদের মধ্যে সমাদৃত।
View Posts →
সাম্য সেনগুপ্ত
সাম্য সেনগুপ্ত পেশায় চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্ট, নেশা ফটোগ্রাফি। বহুজাতিক সংস্থার চাকরি ছেড়ে নিজের ব্যবসা শুরু করেছেন অনেকদিন হল। উত্তর কলকাতায় বেড়ে ওঠা সাম্য বরাবরই অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয় এবং খাদ্যরসিক। পৃথিবীর নানান দেশের খাবার চেখে দেখতে ভালোবাসেন। অতল সমুদ্রের গভীরে ডুব দিয়ে ক্যামেরাবন্দি করেন ছবি। দেশের অন্যতম সফল আন্ডারওয়াটার ফোটোগ্রাফার তিনি।
View Posts →
সঞ্চালিকা আচার্য
সঞ্চালিকা পেশায় সিনিয়র এপিডেমিওলজিস্ট। সিঙ্গাপুরের ট্যান টক সেঙ হাসপাতালে কর্মরত। ছোটবেলা কেটেছে উত্তরবঙ্গের ডুয়ার্সে। কিছু বছর যাবৎ কবিতাপ্রয়াসী। বিভিন্ন লিটল ম্যাগাজিন এবং ওয়েব ম্যাগাজিনে লেখা প্রকাশিত।
View Posts →
সঞ্চারী মুখোপাধ্যায়
সঞ্চারী মুখোপাধ্যায় হাসিখুশি, এমনকী যখন সেই মোড-এ থাকেন না, নিজেকে ঠেলে হিঁচড়ে হিহিহোহো’তেই ল্যান্ড করানোর চেষ্টা করেন। জাপটে ভালবাসেন আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব, সিরিয়াল, গান, রাস্তায় নেড়িবাচ্চার লটরপটর কান। পড়াশোনার সময় ফিল্ড করেছেন, হাতুড়ি দিয়ে পাথর ভেঙেছেন, গ্রামবাসীদের তাড়া খেয়েছেন, এক বার পাহাড় থেকে অনেকটা হড়কে পড়ে মুচ্ছো গেছিলেন, উঠে দেখেন, কবর! এক বার ম্যানেজমেন্ট কোর্সের অঙ্গ হিসেবে চিন গেছিলেন, রাত্তির দুটোয় সাংহাইয়ের রাস্তায় হারিয়ে গিয়েও কাঁদেননি। ফিউজ সারাতে পারেন, পাখার কার্বন বদলাতে পারেন, কাগজের চোঙ পাকিয়ে গাড়িতে পেট্রল ঢালতে পারেন, চিনেবাদাম ছুড়ে দিয়ে মুখে নিপুণ লুফতে পারেন। ব্যাডমিন্টন খেলার ইচ্ছে খুব, কিন্তু জায়গা ও র‌্যাকেট নেই। অরোরা বোরিয়ালিস যারা দেখেছে, তাদের একাগ্র ভাবে হিংসে করেন। দেশের বাড়িটা উনি বড় হওয়ার পর ছোট হয়ে গেছে বলে, আর আমির খান এক বার কার্টুন এঁকে দিয়েছিলেন— সে কাগজ হারিয়ে গেছে বলে, জেনুইন কষ্ট পান। এক বার ঈগলের রাজকীয় উড়ান আগাগোড়া খুব কাছ থেকে দেখেছিলেন।
View Posts →
সন্দীপ রায়
পেশায় স্কুলশিক্ষক। বিষয় বাংলা সাহিত্য। বর্তমানে হালিশহরের বাসিন্দা। সাহিত্যের প্রতি একনিষ্ঠ দীর্ঘদিন ধরেই। ইতিমধ্যেই দুটি ছোটগল্প সংকলন প্রকাশিত হয়েছে। একটির নাম তৃতীয় প্রহর। অপরটি পূর্বাপর।
View Posts →
সন্দীপন চক্রবর্তী
সন্দীপন চক্রবর্তী কবি, প্রাবন্ধিক ও অনুবাদক। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চলচ্চিত্র বিদ্যায় স্নাতকোত্তর। নব্বই দশকের মাঝামাঝি থেকেই নানা পত্রপত্রিকায় লেখা শুরু। গবেষণা করেছেন 'কৃত্তিবাস' পত্রিকার ইতিহাস নিয়ে, এ-বাংলার নব্বই দশকের কবিদের নাগরিক কাব্যভাষা নিয়ে। সম্পাদনা করেছেন 'পাঠকই কবিতা' পত্রিকা। এযাবৎ প্রকাশিত কবিতার বই 'জীয়নকাঠি মরণকাঠি', 'কারাই সময় নেই দাঁড়ানোর', 'বাতাসের দোষ নেই', 'শরণার্থী শব্দদল' ইত্যাদি। ২০১৯ সালে দেজ় থেকে প্রকাশিত হয় সন্দীপনের করা গুলজ়ারের উর্দু কাব্যগ্রন্থ 'মাশকুক নজ়মে'-র বাংলা ভাষান্তর 'সন্দেহজনক কবিতা'।
View Posts →
সংগ্রামী লাহিড়ী
সংগ্রামী ইঞ্জিনিয়ার, পেশায় কনসালট্যান্ট। শাস্ত্রীয় সংগীত নিয়ে চর্চা। অল ইন্ডিয়া রেডিওর এ গ্রেড শিল্পী। লেখালেখির অভ্যাসও ছোট্টবেলা থেকে, বাবা-মা'র উৎসাহে। বর্তমানে কর্মসূত্রে নিউ জার্সির পার্সিপেনি শহরে বসবাস। তবে বিদেশে বসেও সাহিত্যচর্চা চলে জোর কদমে। নিউ জার্সি থেকে প্রকাশিত 'অভিব্যক্তি' ও 'অবসর' পত্রিকার সম্পাদক। এছাড়া ‘উদ্ভাস’, ‘প্রবাসবন্ধু’, টেকটাচটক, ‘গুরুচণ্ডা৯’, 'ইত্যাদি ই-ম্যাগাজিনের নিয়মিত লেখিকা।
View Posts →
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সিনেমার মাস্টার মশাই ছিলেন বলে বা সরকারি প্রতিষ্ঠান 'রূপকলা কেন্দ্র'-র অধিকর্তা ছিলেন বলে তাঁর নামের পাশে 'চলচ্চিত্রবেত্তা' অভিধাটি স্বাভাবিক ভাবেই বসে যায়। আসলে কিন্তু সঞ্জয় মুখোপাধ্যায় একজন চিন্ত্যক ও আমাদের সাংস্কৃতিক আধুনিকতার ভাষ্যকার। কাব্য বা উপন্যাস, চিত্রকলা বা নাটক,জনপ্রিয় ছায়াছবি বা রবীন্দ্রসংগীত-যে কোন পরিসরেই সঞ্জয় এক ধরনের মৌলিক ভাবনার বিচ্ছুরণ ঘটান। সেই মনোপ্রবণতায় আকাদেমিয়ার জীবাশ্ম নেই বরং ছড়িয়ে থাকে মেধার কারুবাসনা। আলোচনাচক্রে, দেশে ও বিদেশে,বৈদ্যুতিন মাধ্যমের ভাষনে তিনি প্রতিষ্ঠিত বক্তা। ঋত্বিক ঘটকের প্রবন্ধাবলী সহ সম্পাদনা করেছেন একাধিক গ্রন্থ। অনুবাদ করেছেন ছটি বিখ্যাত সিনেমার চিত্রনাট্য। তাঁর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা আট। একমাত্র উপন্যাস 'বুনো স্ট্রবেরি' ইতিমধ্যেই তরুণ মহলের নজরে। হাইকোর্টসঙ্কুল এই শহরে তিনি নিজেকে 'আমুদে বাঙাল' ভেবেই খুশি।
View Posts →
সঞ্জয় সেনগুপ্ত
বিশিষ্ট গ্রামোফোন রেকর্ড সংগ্রাহক সঞ্জয় সেনগুপ্ত, গান বাজনা-র জগতে এক বিস্ময়কর নাম। কলকাতায় জন্ম হলেও ছেলেবেলা কেটেছে ওড়িশায়। দীর্ঘদিন এইচ.এম.ভি-র মতো ঐতিহ্যশালী সাঙ্গীতিক প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন কৃতিত্বের সঙ্গে। তাঁর অনবদ্য কর্মকাণ্ড ছড়িয়ে আছে প্রায় ১২০০ বই ও পত্র-পত্রিকায়, দেশ বিদেশ জুড়ে। সঙ্গীত ছাড়াও আগ্রহ নানা বিষয়ে। খেলাধূলা, মূলত ক্রিকেট ও সিনেমা সংক্রান্ত লেখায় তাঁর পান্ডিত্য ঈর্ষণীয়।
View Posts →
সঞ্জয় বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রবীরেন্দ্র চট্টোপাধ্যায়
সঞ্জয় বন্দ্যোপাধ্যায় নটিংহ্যাম বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রবীরেন্দ্র চট্টোপাধ্যায় কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক।
View Posts →
সংযুক্তা সরকার
এক সময় বাংলা খবরের চ্যানেলে প্রোডাকশনের পেশায় যুক্ত ছিলেন। বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে লেখালেখি করে আর দুই সন্তানের দেখভাল করেই হুশ করে কেটে যায় সংযুক্তার দিন। অবসর সময়ে ভালোবাসেন পরিবারের সকলের সঙ্গে বেড়াতে যেতে।
View Posts →
শঙ্খ করভৌমিক
শঙ্খ কর ভৌমিকের জন্ম ত্রিপুরার আগরতলায়, উচ্চশিক্ষা শিবপুর বি ই কলেজে। বর্তমানে তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে কর্মরত। প্রকাশিত বই 'সাত ঘাটের জল'। লেখালেখি ছাড়াও ছবি আঁকতে ভালবাসেন। ডিজিটাল এবং টেক্সটাইল মূলত এই দুই মাধ্যমে কাজ করতে স্বচ্ছন্দ।
View Posts →
শঙ্খশুভ্র গঙ্গোপাধ্যায়
হুগলির চুঁচুড়ার বাসিন্দা শঙ্খশুভ্র ইতিহাসের খোঁজ করতে ভালোবাসেন। হুগলি জেলার ইতিহাসের চর্চা এবং সেখানকার স্থাপত্যের সংরক্ষণের কাজে তিনি যুক্ত। বিভিন্ন সংস্থার হয়ে প্রচারমূলক শর্ট ফিল্ম তৈরি করা শঙ্খর পেশা।
View Posts →
সার্থক রায়চৌধুরী
সার্থকের পেশা অধ্যাপনা, নেশা বিবিধ। কবিতা লেখেন, হাফ গেরস্ত, রাজনীতি করেন না, স্বেচ্ছানির্বাসিত স্বঘোষিত দার্শনিক, একটি নতুন জলপ্রপাত আবিষ্কার করতে চান। প্রকাশিত বই অন্ধকারের অনুবাদ, কলকাতা প্রকাশনী (২০০০), বিপজ্জনক ঘড়ি, দূরত্ব প্রকাশন (২০১৭), আত্মার আশ্চর্য সেল্ফি, গুরুচন্ডালী (২০১৭)
View Posts →
শাশ্বতী বসু
দীর্ঘদিনের প্রবাসী শাশ্বতীর বর্তমান ঠিকানা সিডনি। পেশা ছিল অস্ট্রেলিয়ার নিউসাউথ ওয়েলসের এক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা। কর্মজীবন থেকে অবসর নেওয়ার পর সময় কাটে বিভিন্ন ভাল লাগার চর্চা করে। তার মধ্যে বই পড়া, লেখা, আর গান শোনা প্রধান। লিখতে ভালবাসেন ছোটবেলা থেকেই। লেখার মধ্যে দিয়ে মানুষের নানান রূপ খোঁজার, ধরার চেষ্টা করেন।
View Posts →
শাশ্বতী নন্দী
পেশায় রাজ্য সরকারের মানবাধিকার কমিশনে কর্মরত শাশ্বতী নিয়মিত লেখালেখি করেন নানান বাংলা সংবাদপত্র ও পত্রপত্রিকায়। মীলত গল্প লিখতে পছন্দ করেন তবে প্রবন্ধ লেখাতেও সমান স্বচ্ছন্দ। শিশু সাহিত্যও ওঁর পছন্দের মাধ্যম। স্বপ্নবলাকা, বসন্ত অফুরান, দৈত্যের বাগান, ওঁর কিছু প্রকাশিত বই।
View Posts →
সাত্যকি ঘোষ
পেশায় ফোটোগ্রাফার। ছক বেঁধে শেখেননি কারও কাছে। তবে বিখ্যাত ফোটোগ্রাফার জ্যোতিষ চক্রবর্তীকে গুরু মানেন। বাবা নিমাই ঘোষ-এর ছত্রচ্ছায়ায় শিখেছেন অনেক কিছু। পেশায় বিজ্ঞাপনের ছবি তুললেও বালবাসের মানুষের ছবি তুলতে আর সেই ছবি দিয়ে মাুষের গল্প বলতে। জগদ্বিখ্যাত ফোটোগ্রাফার অঁরি কার্তিয়ে ব্রেসোঁ-র কাছ থেকে প্রশংসা আদায় করেছেন। পেয়েছেন স্পাইডার ও পিএক্স-৩'এর মতো নামকরা সব পুরস্কার।
View Posts →
সায়ন কুমার দে
আলোচক সায়ন কুমার দে নিজেকে শুধুমাত্র পাঠক বলতে চান। বই সম্পর্কে সামান্য কিছু কথা বলেন শুধুমাত্র অন্য গ্রন্থরসিকের সঙ্গে ভাববিনিময় হবে বলে। শিবপুর বি. ই কলেজের প্রাক্তনী। গ্রন্থসংগ্রাহক, গ্রন্থকীটও বটে। সঙ্গীত ও চিত্রপ্রেমী। বইয়ের ব্যাপারে সর্বভুক, এবং আদৌ স্বল্পাহারী নন। সায়নের ছবি: বিল্টু দে
View Posts →
সায়ন্তন ঠাকুর
জন্ম পৌষ মাসে, রাঢ়বাংলার এক অখ্যাত মফস্সলে। মূলত গদ্য লেখেন। ২০১৬-তে প্রথম বই 'অক্ষরকলোনি' প্রকাশিত হয় নাটমন্দির থেকে। প্রথম উপন্যাসের নাম 'নয়নপথগামী'। কাব্যগ্রন্থ 'আমি শুধু পাঁচ বছর চেয়েছিলাম।' দুটিই প্রকাশিত হয় ২০১৮-তে। ২০২০-তে বেরোয় তাঁর প্রথম গল্পগ্রন্থ 'বাসাংসি জীর্ণানি'। এই বইগুলি সবই ধানসিঁড়ি থেকে প্রকাশিত। 
View Posts →
সেবন্তী ঘোষ
সেবন্তী ঘোষের জন্ম শিলিগুড়িতে, উচ্চশিক্ষা বিশ্বভারতী বিদ্যালয়ে। নব্বই দশকের গুরুত্বপূর্ণ বাংলা কবি ও লেখকদের মধ্যে সেবন্তী নিজের জায়গা করে নিয়েছেন। পেয়েছেন কৃত্তিবাস পুরষ্কার ও পশ্চিমবঙ্গ বাংলা একাডেমি পুরস্কার। সেবন্তীর পেশা শিক্ষকতা। নিয়মিত লেখালেখি করেন বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় এবং পোর্টালে। ওঁর প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে 'আমাদের কথা', 'যে থাকে অন্ধকারে', 'ফুর্তি ও বিষাদ কাব্য', 'ফুল ও সুগন্ধ', 'দিল-দরিয়া' উল্লেখযোগ্য।
View Posts →
শাক্য ঘোষ
শাক্য ডন বস্কোতে ক্লাস টুয়ে পড়েন। টিনটিন আর নানা রকম অ্যানিমেশন চরিত্র নিয়ে ট্যাবের পাতায় বুঁদ হয়ে থাকতে ভালোবাসেন। আর ভালোবাসেন ছবি আঁকতে, বাবার সঙ্গে খেলতে আর দাদুমের কাছে গপ্পো শুনতে। টিনটিন, অ্যাস্টেরিক্স থেকে শঙ্কু বা পাগলা দাশু সবই তার প্রিয়। তবে পিৎজ়া আর কেসাডিয়া সামনে পেলে অবশ্য আর কিছু চান না।
View Posts →
শমীক মুখোপাধ্যায়
বহুজাতিক তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থায় কর্মরত, পেশায় ম্যানেজার হলেও ম্যানেজারিটা তেমন আসে না, পরিবারের থেকেও বেশি ভালোবাসে নিজের মোটরসাইকেলটিকে। সুযোগ পেলেই ঘুরে বেড়ানো, আর সেই বেড়ানোর গল্প সবাইকে পড়ানো বিশেষ হবি। এর পরেও সময় বেঁচে গেলে ইতিহাস পড়ে। মানুষের ইতিহাস, যুদ্ধের ইতিহাস, আর ইতিহাসের ইতিহাস।
View Posts →
শামিম আহমেদ
শামিম আহমেদ বাংলা সাহিত্যের এক পরিচিত নাম। লেখালেখি ছাড়াও পেশাগতভাবে তিনি অধ্যাপনার সঙ্গে যুক্ত। সাত আসমান, মহাভারতে যৌনতা, ফেয়ারলনে মধুবালা, ওঁর কিছু জনপ্রিয় বই। ভালোবাসেন রান্না করতে এবং ইতিহাসের অলিগলিতে ঘুরে বেড়াতে।
View Posts →
শমীতা দাশ দাশগুপ্ত
শমীতা দাশ দাশগুপ্ত অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক, লেখক, এবং নারীকল্যাণ কর্মী। পাঁচ দশকেরও বেশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী। আমেরিকার প্রথম দক্ষিণ এশীয় পারিবারিক নির্যাতন বিরোধী সংস্থা, ‘মানবী’র (১৯৮৫) অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। ইংরেজিতে লেখা বইয়ের সংখ্যা পাঁচ। বাংলায় একটি রহস্যোপন্যাস (‘দ্বন্দ্ব,’ আনন্দ পাবলিশার্স), দু’টি রহস্য গল্প-সংকলন (‘মৃত্যুর মুখ চেনা’ ও ‘ছায়া জগতের গল্প,’ দ্য কাফে টেবিল প্রকাশনী), ও দু’টি কবিতার বই (আবর্ত প্রকাশনী) রয়েছে। এছাড়া তিনটি বই ইংরেজি থেকে অনুবাদ করেছেন। বেশ কিছু পত্র-পত্রিকায় গল্প, প্রবন্ধ, কবিতা লেখেন।
View Posts →
শর্মিলা বসুঠাকুর
সাংবাদিক, প্রশিক্ষিত নৃত্যশিল্পী ও নৃত্যসমালোচক। দীর্ঘদিন সম্পাদনা করেছেন সানন্দা পত্রিকা। যদিও কর্মজীবনের শুরু হয়েছিল দর্শনের অধ্যাপনা দিয়ে। পরে প্রাণের তাগিদে সাংবাদিকতাকেই পাকাপাকি ভাবে বেছে নেন। অবসর নেওয়ার পরও তুমুল ব্যস্ত। রান্নাবান্না, বেড়ানো, সাজগোজ নিয়ে অবিরাম পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলতেই থাকে। ভালোবাসেন বই পড়তে, ভালো সিনেমা দেখতে আর খাওয়াতে। নিবিড় ভাবে বিশ্বাস করেন ভালো থাকায়, জীবনের রোম্যান্টিকতায়।
View Posts →
শিবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়
শিবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৬৬ সালে কলকাতায়। পড়াশুনোয় স্নাতক। পেশায় বাংলা ফিল্ম ও টেলিভিশনের চিত্রনাট্য লেখক। মূলত টেলিভিশন ও ফিল্মের জন্য গবেষণামূলক কাহিনির রূপকার। দীর্ঘদিন জড়িত ছিলেন নানা পত্রিকার সম্পাদনায়। কাজ করেছেন একাধিক টেলিভিশন চ্যানেলের বিভাগীয় কর্তা হিসেবেও।
View Posts →
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়
প্রখ্যাত সাহিত্যিক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের জন্ম অধুনা বাংলাদেশের ময়মনসিংহে। ওঁর প্রথম উপন্যাস 'ঘুণপোকা' প্রকাশিত হয় ১৯৬৬ সালে দেশ পত্রিকার পূজাবার্ষিকীতে। পরবর্তীতে অসংখ্য গল্প ও উপন্যাস লিখেছেন। শিশুকিশোর সাহিত্য ও গোয়েন্দা ভিত্তিক সাহিত্যেও ওঁর অবদান উল্লেখযোগ্য। সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার, বঙ্গবিভূষণ, আনন্দ পুরস্কার সহ অগুনতি সম্মানে ভূষিত হয়েছেন। প্রায় ছয় দশক ধরে তাঁর সৃষ্টি বাংলার পাঠকদের মন জয় করে চলেছে।
View Posts →
শীর্ষেন্দু মজুমদার
শীর্ষেন্দু মজুমদার বোলপুর কলেজে ইংরেজির এ্যসোসিয়েট প্রফেসর। আকরগ্রন্থ Yeats and Tagore: Cross-cultural Poetry, Nationalist Politics, Hyphenated Margins and the Ascendancy of the Mind ( Dublin & Palo Alto, 2013)। আগ্রহের বিষয় আইরিশ সাহিত্য, সংস্কৃতি ও ইতিহাস, ইয়েটস, রবীন্দ্রনাথ, অনুবাদ ও অনুবাদ তত্ব, মুদ্রনের সংস্কৃতি। ট্রিনিটি কলেজ ডাব্লিনে ভিজিটিং রিসার্চ ফেলো ছিলেন ২০১৮-১৯- এ। একাধিক বিদেশী প্রকাশনায় কনসালট্যন্ট রিডার হিসেবে যুক্ত।
View Posts →
শ্রেয়া ঘোষ
নিজের লেখা শুরু দেখতে দেখতে চোদ্দ পনেরো বছর। লেখা মূলত নিজের সঙ্গে কথা বলা। পাঠক সংখ্যা হাতে গোনা। কিছু বন্ধুর প্রশ্রয় ও সহযোগিতা জুটেই যায় তবু....
View Posts →
শুভ মুখোপাধ্যায়
শুভ মুখোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৪৮ সালে। পেশা: শিক্ষকতা ও প্রকাশনা শিল্প। সাতের দশকের কবি। ১৯৭০-এ অ্যাফ্রো-এশীয় লেখক সম্মেলনে ভারতের প্রতিনিধিত্ব করেন। ১৯৮৬ ও ১৯৮৮-তে সাহিত্য আকাদেমির 'ফেসটিভাল অফ লেটারস'-এ বাংলার কবি হিসাবে কবিতা ও আলোচনায় অংশ নেন। ১৯৬৭ থেকেই বাংলার প্রায় সমস্ত পত্রপত্রিকায় কবিতা ও প্রবন্ধ লিখেছেন। প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা পাঁচ। প্রকাশের অপেক্ষায় একটি কবিতা ও একটি স্মৃতিকথা। সম্পাদিত পত্রিকা - শব্দপত্র, কালি ও কলম।
View Posts →
শুভ্র বিশ্বাস
শুভ্রর জন্ম ১৯৯৬ সালে। মাত্র পঁচিশটি বসন্ত পার করেছেন জীবনে, কিন্তু তুলিটি তাঁর পাকা। বাড়ি বসিরহাটে। বর্তমানে ছাত্র। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাপাই চিত্র বিভাগে স্নাতকোত্তর পাঠরত। ছবি নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করতে ভালবাসেন। অবসর সময়ে শখ গান করা, গিটার বাজানো, কবিতা আর গান লেখা।
View Posts →
শুদ্ধসত্ত্ব ঘোষ
শুদ্ধসত্ত্ব ঘোষ সাংবাদিক হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেছিলেন। পরবর্তীকালে মূলত নাটক, মহাভারত ও পুরাণ বিষয়ক গবেষণার কাজে মনোনিবেশ করেছেন। লেখালেখি ও নাট্য গবেষণার পাশাপাশি শিক্ষকতা করেন। ওঁর লেখা মহাভারত একাধিক খণ্ডে প্রকাশিত ও পাঠকমহলে সমাদৃত।
View Posts →
শুভ্র দাস
১৯৮৫ সাল থেকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস। গত পাঁচিশ বছর আছেন ডেট্রয়ট শহরে। পেশায় মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং-এর প্রফেসর। জন্ম ও ছোটবেলা কেটেছে কদমতলা, হাওড়ায়। পড়াশোনা খড়্গপুর আই. আই. টি. ও আইওয়া স্টেট ইউনিভার্সিটিতে। নেশার মধ্যে ছবি তোলা ও ছবি আঁকা, লেখা লেখি, ঘুরে বেড়ানো, নাটক ও পলিটিক্স। বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাস্ট্রে রাজনৈতিক পরিবর্তন আনার কাজে বিশেষ ভাবে জড়িত।
View Posts →
শ্যামলী আচার্য
জন্ম কলকাতায় ১৯৭১ সালে। কর্মসূত্রে ১৯৯৮ সাল থেকে আকাশবাণী কলকাতা কেন্দ্রের এফ এম রেনবো ও এফ এম গোল্ডে উপস্থাপিকা। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাণিবিদ্যায় স্নাতকোত্তর এবং ‘ফ্রেশ ওয়াটার ইকোলজি’ বিষয়ে গবেষণা করে পিএইচডি ডিগ্রি পেলেও একমাত্র প্যাশন লেখালিখি। ‘আজকাল’, ‘আবার যুগান্তর’, ‘খবর ৩৬৫’, ‘একদিন’ ও অন্যান্য বহু পত্র-পত্রিকা-ওয়েবজিনে লেখালিখির দীর্ঘ অভিজ্ঞতা। গাংচিল প্রকাশনা থেকে তাঁর প্রথম গল্প সংকলন ‘অসমাপ্ত চিত্রনাট্য’।
View Posts →
শ্যামলী সেনগুপ্ত
কবি ও অনুবাদক শ্যামলী সেনগুপ্তের জন্ম, বেড়ে ওঠা ওড়িশার কটকে। এখন শিলিগুড়ির বাসিন্দা। বিভিন্ন পত্রিকায় নিয়মিত লেখালেখি করেন। এ পর্যন্ত প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ দুটি-- 'ঘুঘুসই পর্যটন' এবং 'পতত্রী ও প্রাণপুরুষ।' দু'টি অনুবাদ সংকলন প্রকাশিতব্য।
View Posts →
শ্যামলশুভা ভঞ্জ পণ্ডিত
জন্ম অবিভক্ত মেদিনীপুর জেলার মেদিনীপুর শহরে। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ও পরে পি এইচ ডি ডিগ্রি করেছেন। কোনও প্রাতিষ্ঠানিক পেশার সঙ্গে যুক্ত নন। ফ্রি ল্যান্স অনুবাদকের কাজ আর সামাজিক মাধ্যম এবং ছোট পত্রিকায় লেখালিখি করেন।
View Posts →
সিলভা সরকার
কর্পোরেট সংস্থায় এইচ আর-এর ভূমিকায় যুক্ত সিলভার পছন্দ গান, খাওয়াদাওয়া আর বন্ধুবান্ধবদের সঙ্গে আড্ডা। লেখালেখি করেন শখে আর অনুরোধে।
View Posts →
শীর্ষ বন্দ্যোপাধ্যায়
শীর্ষ বন্দ্যোপাধ্যায় পেশায় সাংবাদিক। একাধিক বাংলা দৈনিক সংবাদপত্র, টেলিভিশন চ্যানেল এবং জার্মান রেডিওর বাংলা বিভাগে কর্মরত ছিলেন। প্রথম প্রকাশিত উপন্যাস শার্দূল সুন্দরীর বিপুল জনপ্রিয়তার পর লিখেছেন একের পর এক উপন্যাস, ছোটগল্প এবং প্রবন্ধ। মোট প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা চোদ্দ। সম্প্রতি প্রকাশ পেয়েছে শার্দূল সুন্দরীর ইংরেজি অনুবাদ।
View Posts →
স্নিগ্ধা সেন
স্নিগ্ধা সেন পারিবারিক সূত্রে ওপার বাংলার হলেও আজন্ম কলকাতারই বাসিন্দা। চল্লিশ বছরেরও বেশি ইংরাজি সাহিত্যের অধ্যাপনা করেছেন, প্রথমে ভিক্টোরিয়া ইন্সটিটিউশনে, এবং পরে একাধিক ওপেন ইউনিভারসিটিতে। সাহিত্যচর্চার শখ বহুদিনের। আশি পেরিয়েও চর্চা চলছে পূর্ণ উদ্যমে। কলকাতার অনেক পত্র পত্রিকায় লেখা বেরিয়েছে - গল্প, কবিতা, প্রবন্ধ। সাম্প্রতিক প্রকাশিত দুটি বই – ‘হ্যামলেট’ এবং ‘ওদের কি খেতে দেবে’।
View Posts →
সোহম
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি নিয়ে গবেষণা করছেন। অনর্থনীতির উপাসক। নিবাস কোন্নগর। হাজরাতে দোল খেলার সুযোগ ঘটেনি, তবে পাঁজরাতে চোরা মফস্বল পুষে রাখার বদভ্যাস আছে। কবিতা ও কুকুরের সঙ্গে কোন নগরে সময় কাটান তা কেউ জানে না। প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ 'ভাঙা বিকেলের টুকরো'।
View Posts →
সোহিনী সেনগুপ্ত
সোহিনী হালদার খ্যাতনামা অভিনেত্রী ও নাট্যকার। পারমিতার একদিন ছবির জন্য জাতীয় পুরস্কার পেয়েছেন। নাটকের মঞ্চের বাইরেও, ছোট এবং বড় পর্দায় ওঁর অভিনয় দর্শককে মুগ্ধ করেছে। বাবা রুদ্রপ্রসাদ ও মা স্বাতীলেখার মতোই সোহিনী নান্দীকার নাট্যদলের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে যুক্ত।
View Posts →
সোমনাথ রায়
সোমনাথ রায় 'এখন সত্যজিৎ' পত্রিকার সম্পাদনার সঙ্গে পুরনো বাংলা ছবি নিয়ে গবেষণা করেন। বাংলা ছবির পাবলিসিটি মেটিরিয়ালস নিয়ে একটি আর্কাইভ তৈরি করেছেন। 'হাসি গল্পে সত্যজিৎ' 'A Monograph on Hiralal Sen', 'সিনেমা ধাঁধা' ইত্যাদি একাধিক সিনেমা সম্বন্ধীয় বইয়ের লেখক। এছাড়া তিনি পুরনো ছবির ফিল্ম বুকলেটের সংগ্রাহক।
View Posts →
শৌভিক চট্টোপাধ্যায়
লেখক বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরাজি সাহিত্যে স্নাতকোত্তর। পেশাগতভাবে শিক্ষকতার সঙ্গে যুক্ত।লিখতে ভালবাসেন। তারচেয়েও বেশি পড়তে ভালবাসেন। শখের তালিকায় সর্বাগ্রেও বই পড়া। অবসর যাপন করেন সিনেমা দেখে, কখনও কবিতা পড়ে। বিভিন্ন পত্রিকা ও ব্লগে লেখেন। 'গল্পকুটির'পত্রিকার সম্পাদনার সাথে যুক্ত।
View Posts →
সৌগত চট্টোপাধ্যায়
সৌগত চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৬১ সালে কলকাতায়। কলকাতা বিশ্ববিধ্যলয়ের ইতিহাসের সাম্মানিক স্নাতক। কবিতা ও সাহিত্য ছাড়াও তাঁর প্রধান আকর্ষণ সঙ্গীত। রয়াল স্কুল অফ মিউজিক, লণ্ডন থেকে বেহালাবাদক হিসেবে গ্রেড ৫, ৬ ও ৭ পাস করেছেন। সাংবাদিকতার সূত্রে অমৃতবাজার পত্রিকার লেখক ছিলেন। তপন সিংহ-এর অন্তর্ধান ছবিতে সহকারি পরিচালক হিসাবে কাজ করেন। নৃপেন গঙ্গোপাধ্যায় পরিচালিত অনিল চট্টোপাধ্যায় বিষয়ক তথ্যচিত্রেও সহকারি হিসাবে কাজ করেন। পরবর্তীকালে একটি স্কুলে কিছুদিন শিক্ষকতা করেন। বর্তমানে চাকুরীজীবি। নিয়মিত লেখালেখি করেন বেশ কিছু প্রথম সারির বাংলা পত্রিকায়। সৌগত চট্টোপাধ্যায় প্রয়াত অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের পুত্র।
View Posts →
সৌমনা দাশগুপ্ত
সৌমনা দাশগুপ্ত শূন্য দশকের কবি। এ যাবৎ প্রকাশিত হয়েছে তাঁর ছটি কবিতাগ্রন্থ। ২০০৮ সালে "কৃত্তিবাস" পুরস্কার পেয়েছেন "বেদ পয়স্বিনী" বইটির জন্য। এছাড়া উল্লেখযোগ্য বই: দ্রাক্ষাফলের গান, ঢেউ এবং সংকেত, অন্ধ আমার আলোপোকা ইত্যাদি। ২০২০ সালে প্রতাশিত হয়েছে উপন্যাস 'মাশান রহস্য।'
View Posts →
সৌমেন পাল
হাওড়া জেলার শিবপুরবাসী সৌমেন পালের জন্ম ১৯৬৭ সালে। শিল্পমনস্ক সৌমেনের গভীর উৎসাহ সৃষ্টিশীলতার নানান বিষয়ে। তিনি পরম মমতায় সংগ্রহ করেন লুপ্তপ্রায় গ্রন্থ ও গ্রন্থের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কত রকমের অমূল্য সম্পদ। তাঁর চর্চার পরিধি মুদ্রণ ভাবনা থেকে শুরু করে অঙ্ক, জাদুবিদ্যা, কালীঘাটের পট, চলচ্চিত্রতত্ত্ব এবং ফটোগ্রাফি পর্যন্ত বিসতৃত। সত্যজিৎ রায়ের পোর্ট্রেট-স্কেচ দিয়ে তৈরী করেছেন প্রতিকৃতি নামে একটি বই। সুকুমার রায়ের আবোল তাবোল হযবরল বইয়ের প্রামাণিক সংস্করণের সহসম্পাদক হিসেবে সৌমেনের কৃতি স্মরণীয়। বাংলা বইয়ের শ্রেষ্ঠ প্রচ্ছদ রচনার জন্য ২০০৭ সালের সৃজন সম্মান এবং দিল্লির FIP থেকে ২০০৭ ও ২০০৮ সালের Award for Excellence in Book Production - সৌমেনের অনবদ্যতার জন্য দুটি উল্লেখযোগ্য স্বীকৃতি।
View Posts →
সৌমেন চট্টোপাধ্যায়
সৌমেন চট্টোপাধ্যায় পেশাগতভাবে অর্থায়ন ও বিনিয়োগ বিভাগের সঙ্গে জড়িত। নেশা বেড়ানো ,পাহাড়ে চড়া ও ছবি তোলা। হিমালয়ের প্রতি আকর্ষণ আশৈশব। বর্তমানে কাজের সূত্রে শিকাগোয় বসবাস।
View Posts →
সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়
বরেণ্য অভিনেতা, নাট্যকার, কবি, চিত্রশিল্পী ও পরিচালক। অভিনয় জগতের এক উজ্জ্বল তারকা, যিনি একাধিক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সম্মানে ভূষিত হয়েছেন।
View Posts →
শৌণক গুপ্ত
জীবনে সবেমাত্র পেরিয়েছেন ছাব্বিশটি বসন্ত! বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র এবং সঙ্গীতসাধনায় রত। নেশা গ্রামোফোন রেকর্ড সংগ্রহ। পত্রপত্রিকায় সঙ্গীতবিষয়ক বেশ কিছু নিবন্ধ লিখেছেন বাংলা ও ইংরাজিতে৷
View Posts →
সৌরভ হাওলাদার
এক সর্বগ্রাসী হাঁ-করা চোখ নিয়ে, কলকাতা ও সংলগ্ন শহরতলিতে জন্ম ও বেড়ে ওঠা সৌরভের। যা দেখেন, তাই মনে হয় ছুঁয়ে দেখলে ভালো হয়। কিছুটা প্রকৌশল, কিছুটা ছবি আঁকা, ভাষা শিক্ষা, থিয়েটার এমন আরও অনেক কিছু। এভাবেই ভেসে চলা। শৈশবে স্কুল পত্রিকায় হাত পাকিয়ে রেল স্টেশনে দেওয়াল পত্রিকা, লিটল ম্যাগাজিনের পাতা থেকে প্রাতিষ্ঠানিক বাণিজ্যিক পত্রিকায় পৌঁছনো। জীবিকার তাগিদে কম্পিউটারের সাথে সখ্য। পাশাপাশি কয়েক মাইল ‘কোড’লেখা চলে সমান্তরাল। কর্পোরেটের হাত ধরে পৃথিবীর কয়েক প্রান্ত দেখে ফেলার অভিজ্ঞতা। সবই উঠে আসে লেখায়। আপাততঃ কলকাতা ও ঢাকা মিলিয়ে প্রকাশিত গ্রন্থ সংখ্যা পাঁচ।
View Posts →
সৌরভ ঢালি
যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আর্কিটেকচার নিয়ে পড়াশোনা করে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন ইন্টিরিয়র ডিজাইনিং। সর্বক্ষণের সঙ্গী ক্যামেরাটা কাঁধে ঝুলিয়ে প্রায়ই বেরিয়ে পড়েন। কখনও সেই বেরিয়ে পড়া হয় আগাম প্ল্যানমাফিক, আবার কখনও উদ্দেশ্যহীন মর্জিমাফিক। সৌরভের পছন্দ ল্যান্ডস্কেপ ও পোর্ট্রেট।
View Posts →
শৌর্য দেব
অর্থনীতিতে স্নাতক হলেও জীবনের অর্থ খুঁজে পেলেন বিজ্ঞাপনের কাজে। মুম্বই এবং কলকাতায় ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টরের চাকরির পাট শেষ করে, শুরু হল বিজ্ঞাপনের ছবি বানানো। সম্প্রতি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায় এবং রুদ্রনীল ঘোষকে নিয়ে বানানো শর্ট ফিল্ম 'C/o Chatterjees' সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ ভাইরাল। রবিবার বিকেলে ঠিক সময়ে ঘুম ভাঙলে ফুটবল খেলতে ভালোবাসেন।
View Posts →
সৌতুমি চৌধুরী
সৌতুমি অর্থনীতির ছাত্রী। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এম ফিল করেছেন। খুব ছোটবেলা থেকেই আঁকতে ভালবাসেন। খবরের কাগজে প্রকাশিত ছবি দেখে আঁকার চেষ্টা করতেন। তাঁর খুব পছন্দের বিষয় কার্টুন ডুডল। সেই ভালবাসার টানেই তিনি কলকাতার কার্টুনদল-এ যোগ দেন ২০১৯ সালে।
View Posts →
সৌভিক বসু
সৌভিক কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতা ও গণজ্ঞাপন বিভাগে স্নাতক। কবিতা লেখার শুরু ২০১২ থেকে। প্রথম বই " অলীক ভ্রমণ চিঠি " প্রকাশ পায় সোঁতা প্রকাশন থেকে ২০১৬ সালে। দ্বিতীয় বই " দুমুঠো গল্পের মতো " প্রকাশিত হয় ২০১৯ সালে "জানলা" থেকে। জানলা পত্রিকা সম্পাদনা ২০১৫ থেকে এযাবৎ পর্যন্ত।
View Posts →
সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায়
শূন্য দশক থেকে যাঁরা বাংলা কবিতা লিখছেন , তাঁদের মধ্যে সৌভিক বন্দ্যোপাধ্যায় অন্যতম। সৌভিকের কাব্যভাষা স্বকীয় ও স্বতন্ত্র - নাগরিক বিষন্নতা , সমাজসচেতনতা , মাঝে মাঝে কালো ঠাট্টা বা শ্লেষ , নস্টালজিয়া, নিসর্গ রহস্য , প্রেম ও প্রেমহীনতা তাঁর কবিতায় নানাভাবে ফিরে ফিরে আসে।  এ পর্যন্ত  প্রকাশিত কবিতার বইয়ের সংখ্যা, একটি যৌথ-সংকলন সহ, এগারো।  কবিতার জন্যে ভাষানগর-মল্লিকা সেনগুপ্ত পুরস্কার, সুধীন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতি পুরস্কার সহ পেয়েছেন আরও একাধিক পুরস্কার ও স্বীকৃতি। গদ্যকার হিসেবেও উজ্জ্বল, এখনো পর্যন্ত প্রকাশিত গদ্যের বইয়ের সংখ্যা দুই। বড় পর্দাতে অভিনেতা হিসেবেও তাঁকে মাঝে মাঝে দেখা যায়।
View Posts →
শ্রাবণী খাঁ
শ্রাবণী খাঁ -এর জন্ম ১৯৯২ সালে। তাঁর লেখা কবিতা দেশ, কৃত্তিবাস, বসুমতী, সম্পূর্ণা, মথ-এর মতো বিভিন্ন জায়গায় প্রকাশিত হয়েছে। পেশায় শ্রাবণী একজন ভয়েস আর্টিস্ট।
View Posts →
শ্রাবনী রায় আকিলা
টেক্সাসের হিউস্টনের বাসিন্দা! লেখালেখি ছোটবেলা থেকেই। গত দশ বছরে প্রবন্ধ , ছোট গল্প, কবিতা, রম্যরচনা প্রকাশিত হয়েছে দেশে বিদেশের বিভিন্ন সাহিত্য পত্রিকায়। এছাড়াও লিখেছেন নানান দৈনিক সংবাদপত্রে। লেখালিখির পাশাপাশি পড়তে, শুনতে, ভাবতে, জানতে, বেড়াতে ভালোবাসেন।
View Posts →
শ্রেয়সী লাহিড়ী
১৯৭৭ সালে কলকাতায় জন্ম শ্রেয়সীর। দীর্ঘদিন ধরে ভ্রমণ সংক্রান্ত লেখালিখির সঙ্গে যুক্ত। ভ্রমণ, আনন্দবাজার ই-পেপার, ভ্রমী পত্রিকার নিয়মিত লেখক। এছাড়া যারা-যাযাবর, তথ্যকেন্দ্র, লেটস্‌-গো, আজকাল, প্রতিদিন, গণশক্তি প্রভৃতি পত্র-পত্রিকায় ভ্রমণকাহিনি প্রকাশিত। ট্র্যাভেল রাইটার্স ফোরাম ইন্ডিয়ার সদস্য। প্রধান শখ ও নেশা বেড়ানো আর ট্র্যাভেল ফটোগ্রাফি।
View Posts →
শ্রীদর্শিনী চক্রবর্তী
সঙ্গীতজ্ঞ মানস চক্রবর্তীর সুযোগ্যা কন্যা শ্রীদর্শিনী উত্তর ভারতীয় উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতে তালিম নিয়েছেন এক্কেবারে শিশুবয়স থেকে। সঙ্গীত তাঁর শিরা-ধমনীতে। টাইমস মিউজিক থেকে বেরিয়েছে গানের সিডিও। মুম্বইয়ের ইন্ডিয়ান আইডল অ্যাকাডেমিতে মেন্টরের ভূমিকা পালন করেন শ্রীদর্শিনী। লেখালিখিও তাঁর পছন্দের বিষয়।তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থ 'শীতের অব্যর্থ ডুয়ার্স', 'এসো বৃষ্টি এসো নুন', 'রাজা সাজা হল না যাদের' এবং 'জ্বর-জ্বর ইচ্ছেগুলো' পাঠকমহলে সমাদৃত।
View Posts →
শ্রীজাত
শ্রীজাত জাত-কবি। লেখা শুরু করেছিলেন নব্বইয়ের দশকের শেষাশেষি। ২০০৪-এ এসেই কাব্যগ্রন্থ 'উড়ন্ত সব জোকার'-এর জন্য আনন্দ পুরস্কার। গীতিকার হিসেবেও জনপ্রিয়তার শিখরে। পাওয়া হয়ে গিয়েছে ফিল্মফেয়ারও। ২০১৯-এর বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে বই 'যে জ্যোৎস্না হরিণাতীত', গদ্যসংকলন 'যা কিছু আজ ব্যক্তিগত' এবং উপন্যাস 'যে কথা বলোনি আগে'। এ যাবৎ প্রকাশিত বাকি কাব্যগ্রন্থের তালিকা এপিকসদৃশ দীর্ঘ। ট্রোলিংয়ের তোয়াক্কা না-করেই ফেসবুকে নিয়মিত কবিতা লিখে পাঠকদের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ রাখতে পছন্দ করেন টেক স্যাভি কবি।
View Posts →
শ্রীমন্তী মুখোপাধ্যায়
শ্রীমন্তীর জন্ম আর স্কুলের পড়াশোনা কলকাতায়। স্নাতকস্তরে দিল্লি স্কুল অফ ইকনমিকসে পাড়ি। পেশায় সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক হলেও বৃষ্টিভেজা দিনে এতোল বেতোল ভাবনা ভাবতে আর সুর ভাঁজতে ভালোবাসেন। কলম ছুঁইয়ে চেনাকে অচেনা আর অচেনাকে চেনা করে তোলা তাঁর প্রিয় শখ। ভালোবাসেন ছোটদের সঙ্গে সময় কাটাতে, বই পড়তে আর বেড়াতে।
View Posts →
শ্রীপর্ণা বন্দ্যোপাধ্যায়
শ্রীপর্ণার জন্ম ১৯৭১-এ। ২০১০ সাল থেকে লিখছেন। বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় গল্প, কবিতা, ভ্রমণকাহিনি, ছোটদের সাহিত্য, প্রবন্ধ, ফিচার, বই ও নাট্য পর্যালোচনা লেখেন নিয়মিত। কবিতা দিয়ে যাত্রা শুরু হলেও শ্রীপর্ণার গদ্যসৃষ্টি বিশেষ সমাদর অর্জন করেছে। এযাবৎ সাহিত্য-স্বীকৃতিগুলি এসেছে মূলত ছোটগল্পের জন্য। পেয়েছেন বঙ্গ সংস্কৃতি পুরস্কার ২০১২, ঋতবাক ‘এসো গল্প লিখি পুরস্কার’ নবপ্রভাত সাহিত্য সম্মাননা ২০১৮ (গল্পগ্রন্থ), প্রতিলিপি প্রথম পুরস্কার ২০২০ ইত্যাদি।
View Posts →
সুভদ্রকল্যাণ
সুভদ্রকল্যাণ কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি সাহিত্যের ছাত্র। নিয়মিত বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় লেখালিখি করেন। তবে প্রধান পরিচিতি উচ্চাঙ্গ সঙ্গীতশিল্পী হিসেবে। তবলায় রাজ্য সঙ্গীত অ্যাকাডেমি ও ডোভার লেনে প্রথম ও সর্বভারতীয় রেডিয়োতে দ্বিতীয় স্থানাধিকারী সুভদ্রর বারো বছরের তালিম আচার্য শঙ্কর ঘোষের কাছে ও তার পর থেকে পণ্ডিত বিক্রম ঘোষের কাছে। কণ্ঠসঙ্গীতে তালিম পণ্ডিত উদয় ভাওয়ালকর, জনাব জয়নুল আবেদিন, পণ্ডিত ওঙ্কার দাদারকর ও বিদুষী সংযুক্তা ঘোষের কাছে।
View Posts →
শুভজিৎ ধীবর
শুভজিৎ রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে আমি ফলিত কলা বিভাগে স্নাতকোত্তর পাঠরত।বিভিন্ন ধরনের ইলাস্ট্রেশন, কার্টুন, ক্যারিকেচার, পোট্রেট ও অ্যানিমেশন পছন্দ করেন। অবসরযাপনেও এসব করতেই ভালবাসেন। ইচ্ছে আছে ভবিষ্যতে পেশাদারিভাবে অ্যানিমেশন নিয়ে কাজ করার।
View Posts →
শুভমিতা
সঙ্গীতপ্রেমী বাঙালির কাছে শুভমিতা এক পরিচিত নাম। শুভমিতার জন্ম মালদায়। শাস্ত্রীয় সঙ্গীতে হাতেখড়ি বাবা যশোদা দুলাল দাসের কাছে। পরবর্তীকালে পণ্ডিত উলহাস কসলকর, বিদূষী পূর্ণিমা চৌধুরীর মতো দিকপাল গুরুদের কাছে তালিম নিয়েছেন। মঞ্চশিল্পী এবং প্লেব্য়াক শিল্পী হিসেবে সমান খ্য়াতি অর্জন করেছেন।
View Posts →
শুভময় মিত্র
শুভময় মিত্র আদতে ক্যামেরার লোক, কিন্তু ছবিও আঁকেন। লিখতে বললে একটু লেখেন। বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে অনেকরকম খামখেয়ালিপনায় সময় নষ্ট করে মূল কাজে গাফিলতির অভিযোগে দুষ্ট হন। বাড়িতে ওয়াইন তৈরি করা, মিনিয়েচার রেলগাড়ি নিয়ে খেলা করা, বিজাতীয় খাদ্য নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করা ওঁর বাতিক। একদা পাহাড়ে, সমুদ্রে, যত্রতত্র ঘুরে বেড়াতেন। এখন দৌড় বোলপুর পর্যন্ত।
View Posts →
শুভময় মৈত্র
শুভময় মৈত্র ১৯৯৭ সাল থেকে ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসটিকাল ইনস্টিটিউট কলকাতা শাখার অধ্যাপক, গবেষক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইলেকট্রনিক্স ও টেলিকমিউনিকেশন শাখায় ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ করে উচ্চশিক্ষার জন্য আইএসআই-তে যোগ দেন। পত্রপত্রিকায় ও টেলিভিশনে অর্থনৈতিক-রাজনৈতিক বিশ্লেষক হিসেবে সুপরিচিত।
View Posts →
শুভাশীষ ভাদুড়ী
শুভাশীষ ভাদুড়ীর জন্ম কলকাতায়, পড়াশোনা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। কবিতা লেখার শুরু নয়ের দশকে। তাঁর কবিতার বই 'আশ্চর্য ভূগোলে'-এর জন্য পেয়েছেন বাংলা একাডেমি পুরস্কার। 'ভিতর মনের দরবেশ' ও 'ঈশ্বর আমার' এই লেখকের অন্যান্য বই। লেখালেখি ছাড়া ভালোবাসেন ছবি আঁকতে।
View Posts →
ডাঃ শুভায়ু বন্দ্যোপাধ্যায়
ডাঃ শুভায়ু বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম আসানসোলে। সেখানে স্কুলের পড়াশোনা শেষ করে কলকাতা মেডিকেল কলেজ থেকে ডাক্তারি পাশ করা। অতঃপর প্রবাসী। কর্মসূত্রে সুদূর স্কটল্যান্ডের বাসিন্দা। স্কটল্যান্ডের অন্যতম বিখ্যাত অ্যাবার্ডিন রয়্যাল ইনফার্মারি হাসপাতালে মহিলা ও শিশুবিভাগে ক্লিনিক্যাল ডিরেক্টর। বইপড়া, বই সংগ্রহ বাতিক! লেখার অভ্যেস ছোট থেকেই। দেশ, আনন্দবাজার, সন্দেশ, সৃষ্টির একুশ শতক, কবিতীর্থ-তে লেখালিখি করেন। বই নিয়ে লিখতে ভালবাসেন।
View Posts →
শুভ্র বন্দ্যোপাধ্যায়
শুভ্র বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৭৮ সালে, কলকাতা। প্রকাশিত কবিতার বই ৪টি। বৌদ্ধলেখমালা ও অন্যান্য শ্রমণ কাব্যগ্রন্থের জন্য পেয়েছেন সাহিত্য আকাদেমির যুব পুরস্কার, পেয়েছেন মল্লিকা সেনগুপ্ত পুরস্কারও। স্পেনে পেয়েছেন আন্তোনিও মাচাদো কবিতাবৃত্তি, পোয়েতাস দে ওত্রোস মুন্দোস সম্মাননা। স্পেনে ওঁর দুটি কবিতার বই প্রকাশিত হয়েছে। মেদেইয়িন আন্তর্জাতিক কবিতা উৎসব ও এক্সপোয়েসিয়া, জয়পুর লিটেরারি মিট সহ বেশ কিছু আন্তর্জাতিক সাহিত্য উৎসবে আমন্ত্রণ পেয়েছেন।
View Posts →
সুবোধ সরকার
জন্ম নদিয়া জেলার কৃষ্ণনগরে‚ ১৯৫৮ | ইংরাজি সাহিত্যের অধ্যাপক | পড়িয়েছেন আমেরিকার আইওয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে। 'দ্বৈপায়ন হ্রদের ধারে' এনে দিয়েছে সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার‚ ২০১৩ সালে| বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গ কবিতা আকাদেমির সভাপতি। লিখেছেন পঁয়ত্রিশটি কাব্যগ্রন্থ যার মধ্যে রয়েছে একা নরকগামী (১৯৮৮), জেরুজালেম থেকে মেদিনীপুর (২০০১), মণিপুরের মা (২০০৫) ইত্যাদি। 'ভাষানগর' পত্রিকার সম্পাদক হিসেবে সুবিদিত।
View Posts →
ড. সুব্রত চক্রবর্তী
ড. সুব্রত চক্রবর্তী এক জন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ। তিনি ইন্সটিটউট অফ চাইল্ড হেল্থ-এর শিশুরোগ বিভাগের অধ্যাপক এবং একাধিক হাসপাতালের সঙ্গে যুক্ত।
View Posts →
সুচন্দনা চট্টোপাধ্যায়
সুচন্দনা চট্টোপাধ্যায় পেশায় ইতিহাসবিদ ও গবেষক। 'রিকনসিডারিং ইনার এশিয়া', 'সোসাইটি এন্ড পলিটিকস ইন তাজিকিস্তান ইন দ্য আফটারমাথ অফ দ্য সিভিল ওয়ার', 'দ্য স্টেপ ইন হিসটরি' ওঁর লেখা কিছু উল্লেখযোগ্য বই।
View Posts →
সুদীপ্তা চট্টোপাধ্যায়
উত্তরবঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএড ও মাইক্রোবায়োলজি নিয়ে স্নাতকোত্তর পড়াশোনার শেষে কিছুদিনের শিক্ষকতা-জীবন। তারপরেই প্রবাসে পাড়ি। গত বাইশ বছর যাবৎ ঠিকানা নিউ জার্সি। পেশায় মন্তেসরি শিক্ষিকা। ২০০৮ সাল থেকে ছদ্মনামে ব্লগ লেখা শুরু। ২০১০ থেকে অন্য নিষাদ, প্রেরণা, সৌকর্য্য, ক্ষেপচুরিয়াস, প্যাপিরাস, মধ্যবর্তী, রেওয়া, কেতকী, উত্তর ভাষা-সহ বহু বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও শারদীয়াতে নিজের নামে কবিতা, গল্প, প্রবন্ধ লেখা চলতে থাকে।
View Posts →
সুদীপ্ত ভৌমিক
সুদীপ্ত ভৌমিক একজন প্রতিষ্ঠিত নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা। ওঁর নাটক অভিবাসী জীবনের নানা দ্বন্দ ও সংগ্রামের কথা বলে। সুদীপ্তর নাট্যদল একতা (ECTA) উত্তর আমেরিকা ও পশ্চিমবঙ্গের নাট্যপ্রেমীদের কাছে এক পরিচিত নাম। ভাষানগর পুরস্কার, নিউ জার্সি পেরি এওয়ার্ড নমিনেশন, সিএবি ডিস্টিংগুইশড সার্ভিস এওয়ার্ড ইত্যাদি সম্মানে ভূষিত সুদীপ্ত ড্রামাটিস্ট গিল্ড অফ আমেরিকার পূর্ণ সদস্য। ওঁর পডকাস্ট স্টোরিজ অফ মহাভারত অ্যাপল আইটিউনস-এ শ্রেষ্ঠ পডকাস্টের স্বীকৃতি পেয়েছে।
View Posts →
সুগত মুখোপাধ্যায়
ফোটোগ্রাফার। লেখক। ইন্দোনেশিয়ার সালফার শ্রমিকদের ওপর ছবি তুলতে নেমেছেন আগ্নেয়গিরির মধ্যে, কাশ্মীরের মানুষের জীবনযাত্রা কাছ থেকে দেখবেন বলে বারবার ফিরে গেছেন অশান্ত উপত্যকায়, চীন-ভিয়েতনামের অচেনা জায়গায় ঘুরে বেড়ান নতুন গল্পের খোঁজে। সেইসব লেখা-ছবি নিয়মিত বেরোয় দেশবিদেশের পত্রিকা-জার্নালে। তার মধ্যে আছে আল জাজিরা, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক ট্রাভেলার, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স ম্যাগাজিন। প্রকাশিত কফিটেবল বই ‘অ্যান অ্যান্টিক ল্যান্ডঃ আ ভিসুয়াল মেমোয়ার অফ লাদাখ’। নির্ভেজাল আরাম পান আড্ডা দিয়ে, আর বাংলায় লেখালেখি করে। আদ্যন্ত দক্ষিণ কলকাতার বাসিন্দা, তবে উত্তরের পুরনো বাড়ি, অলিগলি আর তার প্রাচীন কাফেগুলোর ওপর প্রবল টান।
View Posts →
সুজিত কুমার কর
পেশায় কোন্নগর মিউনিসিপ্যালিটির কর্মী, নেশায় কবি। লিখে ফেলেছেন বেশ কটি কবিতার বই। অত্যন্ত সুবক্তা এই কবি পরিচিত মহলে দারুণ জনপ্রিয়।
View Posts →
সুকুমার সমাজপতি
সুকুমার সমাজপতি কলকাতা ময়দানের প্রখ্যাত ফুটবলার। ১৯৫৫-তে ইয়ং বেঙ্গলে ক্রীড়াজীবন শুরু। ১৯৫৯-তে যোগ দেন এরিয়ানসে। ১৯৬০-এ এক বছরের জন্য মোহনবাগানে। ৬১ থেকে পাকাপাকি ভাবে ইস্টবেঙ্গলে। ওই বছরই ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেন মারডেকা কাপে। এরপর রাজ্য এবং দেশের হয়ে বহুবার খেলেছেন যার মধ্যে রয়েছে ১৯৬৪ সালের প্রি অলিম্পিক। ১৯৬৮ সালে পায়ে আঘাতের কারণে অবসর নিতে বাধ্য হন। পারিবারিক সূত্রে সঙ্গীতের নেশা ছিল গোড়া থেকেই। অবসরের পর থেকে সঙ্গীতের জগতেই বিচরণ। তালিম নিয়েছেন মানস চক্রবর্তীর কাছে। বেতারে ক্রীড়া ধারাভাষ্যকার হিসেবে দীর্ঘদিন সফলভাবে কাজ করেছেন।
View Posts →
সুমন চট্টোপাধ্যায়
সুমন চট্টোপাধ্যায় কৃষি-স্নাতক ও একটি রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কে কর্মরত। লেখালেখির সূচনা স্কুল ম্যাগাজিনের দিনগুলি থেকে। নিবন্ধ ও পদ্যের জগতে মৃদু চলাচলে শান্তি খুঁজে পান জীবনের ক্লান্ত মুহূর্তগুলিতে। হুগলি জেলার নবগ্রামের আজন্ম বাসিন্দা এবং প্রকাশে ও প্রত্যাখ্যানে সমান অভ্যস্ত সুমনের শখ একটাই: ‘সামান্যে’-র মধ্যে ‘অসামান্যে’র অন্বেষণ।
View Posts →
সুমন ঘোষ
সুমন ঘোষের বসবাস বীরভূম জেলার বাতিকার গ্রামে। পেশা শিক্ষকতা। যদিও কবিতা ও সাহিত্য নিয়েই তাঁর অবিরাম উদাসীন পথ চলা। সপ্তর্ষি থেকে প্রকাশিত হয়েছে তাঁর কাব্যগ্রন্থ বারোয়ারি কমিটির থিয়েটার। নিয়মিত লেখেন দেশ, কৃত্তিবাস, উনিশ কুড়ি, কবিসম্মেলন, এখন শান্তিনিকেতন-সহ বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও পোর্টালে। ভালবাসেন নাটক, গান, চিঠি ও কলম। তিনি জানেন জীবন অরূপে গলে যাবে তথাপি তিনি আজন্ম রোমান্টিক ও স্বপ্নচারী।
View Posts →
সুমন গোস্বামী
সুমনের জন্ম, বেড়ে ওঠা বর্ধমানে। গ্রাম্য পরিবেশের প্রতি তাই অকপট ভালোবাসা। বোলপুর কলেজ থেকে ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর। পেশা সাংবাদিকতা। নেশা লেখালিখি। বহু পত্রপত্রিকায় লেখা প্রকাশিত হয়েছে। লিখতে ভালোবাসেন রম্যরচনা ও ছোটগল্প।
View Posts →
ড. সুমনকুমার মুখোপাধ্যায়
ড. সুমনকুমার মুখোপাধ্যায় একজন অর্থনীতিবিদ ও শিক্ষাবিদ। সুদীর্ঘ ৪৬ ধরে তিনি অধ্যাপক এবং গবেষক হিসেবে বিভিন্ন দেশী বিদেশি সংস্থার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন যার মধ্যে এক্সএলআরআই, আইআইএসডব্লুবিএম, সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ কলকাতা, আইআইটি দিল্লি, উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও সুমন কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের একাধিক উপদেষ্টা পর্ষদের সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি সেন্ট জেভিয়ার্স কলকাতা, সেন্ট স্টিফেনস দিল্লি ও দিল্লি স্কুল অফ ইকনমিকসের প্রাক্তনী। বর্তমানে অ্যাডভাইসরি বোর্ড অন অডুকেশন, গভর্নমেন্ট অফ ওয়েস্ট বেঙ্গলের সদস্য, চেয়ারম্যান ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটিং অ্যান্ড বিজনেস কমিউনিটির সদস্য, ফেডারেশন অফ স্মল অ্যান্ড মিডিয়ম ইন্ডাস্ট্রিজের সদস্য, ওয়েস্ট বেঙ্গল ইকনমিকস সাব কমিটি, বিসিসিঅ্যান্ডআই, এমসিসিঅ্যান্ডআই, অ্যাসোচ্যাম ইত্যাদি বোর্ডের সদস্য। তিনি সেনার্স-কে নামক আন্তর্জাতিক উন্নয়ন বিষয়ের গবেষকদের সংগঠনের আজীবন সদস্য। বর্তমানে ভবানীপুর গুজরাটি এডুকেশন সোসাইটি কলেজের ডিরেক্টর জেনেরাল।
View Posts →
সুমন মল্লিক
সুমন মল্লিকের জন্ম ১৯৮৫ সালে কোচবিহারের তুফানগঞ্জে। বর্তমানে শিলিগুড়ির বাসিন্দা। ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতকোত্তর। পেশায় শিক্ষক। প্রকাশিত কবিতার বই আটটি৷ ‘উত্তরের কবিমন’ পত্রিকার প্রাক্তন সম্পাদক। বর্তমানে ‘শিলিগুড়ি জংশন’ পত্রিকার সম্পাদনার সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত। দেশ, ভাষানগর, কৃত্তিবাস, কবি সম্মেলন, কবিতা আশ্রম-সহ বিভিন্ন পত্রিকায় এবং ওয়েবম্যাগে লেখেন।
View Posts →
সুমনা কর
সুমনা নৃত্যশিল্পী। প্রথাগত কথক তালিমের পাশাপাশি আধুনিক নৃত্যশৈলি বিশেষত উদয়শংকর ঘরানা নিয়ে চর্চারত। গত সাত বছর বেইজিং ও জাপানের বিভিন্ন অঞ্চলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করেছেন। বর্তমানে টোকিও বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে যুক্ত।
View Posts →
ড. সুমিত দাশ
ডঃ সুমিত দাশ পেশায় মনোরোগ বিশেষজ্ঞ। স্বাস্থ্যের বৃত্ত পত্রিকায় নিয়মিত লেখালেখি করেন। গণ স্বাস্থ্য আন্দোলনের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত। অবসর সময়ে বেড়াতে যেতে ভালোবাসেন।
View Posts →
সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়
সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের জন্ম ১৯৩৪ সালে, বাংলাদেশের ফরিদপুরে। মৃত্যু ২০১২ সালে কলকাতার বাড়িতে। মধ্যবর্তী সময়টিতে তিনি হয়ে উঠেছিলেন ভারতীয় গদ্যসাহিত্যের অন্যতম ব্যক্তিত্ব, যদিও ওঁর সাহিত্যজীবনের শুরু হয়েছিল কবিতা দিয়ে। ১৯৫৩ সালে কবিতা পত্রিকা 'কৃত্তিবাস'-এর যাত্রা শুরু তাঁরই হাত ধরে। বরাবর কবিতাকেই নিজের 'প্রথম প্রেম' বলে আসা সুনীল অবশ্য পরবর্তীকালে গদ্যকার হিসেবে খ্যাতি ও জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছন। প্রথম উপন্যাস 'আত্মপ্রকাশ' প্রকাশিত হয় ১৯৬৪ সালে দেশ পত্রি