রাইফেল ছেড়ে ফ্যাশন মডেল

355
Fashion Diplomacy
শান্তির বুনট

দক্ষিণ আমেরিকার কলম্বিয়ার রাজধানী বোগোটা শহরে এই সপ্তাহে একটি ফ্যাশন শো হয়ে গেল। বিভিন্ন নতুন নতুন পোশাকে সজ্জিত মডেল কন্যারা সেখানে হেঁটে গেলেন বিচারক ও দর্শকদের সামনে। সে আর কী এমন ব্যাপার? দুনিয়ার কত শহরেই তো রোজ কত ফ্যাশন শো হচ্ছে। কিন্তু অনুষ্ঠানটির নাম দেওয়া হয়েছিল পাথালেরা। এটি স্প্যানিশ ভাষায় দুটি শব্দের মিলনে তৈরি, যাদের একটির অর্থ শান্তি এবং অন্যটির অর্থ ক্যাটওয়াক। মানে দুইয়ে মিলে শিরোনামের মানে দাঁড়ায় শান্তির জন্য ক্যাটওয়াক। মডেলদের হাতে ধরা ছিল এক একটি প্ল্যাকার্ড, তাতে ছোট ছোট নানান বাক্য বা শব্দগুচ্ছ লেখা। কোনওটির মানে: আমরা মেনে চলছি। কোনওটিতে বলা হয়েছে: প্রত্যেকে শান্তির জন্য। কোথাও বা: ফ্যাশন একটি রাজনৈতিক কাজ।ব্যাপারটা কী? ব্যাপার হল এই যে, যাঁরা ওই ফ্যাশন শো-এর আয়োজন করেছেন তাঁরা আগে গেরিলা যোদ্ধা ছিলেন। কয়েক দশক ধরে সরকারের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রাম চালিয়েছে এফএআরসি— কলম্বিয়ার বৈপ্লবিক সশস্ত্র বাহিনী। বহু রক্তক্ষয় এবং ধ্বংসকাণ্ডের পরে ২০১৬ সালে সরকারের সঙ্গে তাদের এক শান্তিচুক্তি হয়। যোদ্ধারা স্বাভাবিক জীবনে ফেরার চেষ্টা শুরু করে। নানা ধরনের কাজে যোগ দেয় তারা। তাদেরই একটি অংশ ফ্যাশন ব্যবসায় ঢোকে। তাদের সাহায্য করে কিছু ছাত্রছাত্রী, এগিয়ে আসেন ফ্যাশন ডিজাইনার আনখেলা মারিয়া এররেরা। তিনি কলম্বিয়ার পার্বত্য এলাকা ইকোনোন্থোর অধিবাসী জনা ত্রিশেক ভূতপূর্ব গেরিলা যোদ্ধাকে নিয়ে প্রশিক্ষণ দেন। তাঁর কথায়, ‘‘আমাদের তৈরি করা পোশাক শান্তির বার্তা বহন করে। কিছু পোশাক তৈরি করেছেন প্রাক্তন যোদ্ধারা, কিন্তু তাঁদের পাশাপাশি হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করেছেন বিদ্রোহীদের আক্রমণে নিহত মানুষের পরিজন। তাই আমাদের কাজের মধ্যেই রয়েছে ক্ষমা এবং পুনর্মিলনের বাণী।’’ স্থানীয় কলেজের ছাত্রছাত্রীদের সাহায্যেই রাজধানীতে ওই ফ্যাশন শো আয়োজন করেছিলেন তাঁরা। কয়েক শো মানুষের সামনে তাঁরা দেখালেন নিজেদের সৃষ্টি। ফ্যাশন মডেল হিসেবে ছাত্রীদের পাশাপাশি হাঁটলেন এমন অনেক নারী, যাঁদের কাঁধে আগে ঝুলত স্বয়ংক্রিয় বন্দুক। তাঁদেরই এক জন মেলিনা রেইয়েস, তিনি বললেন, ‘‘এই পোশাকগুলি তৈরি করছি আমরা, সেই পুরুষ ও নারীরা যারা শান্তির জন্য বাজি ধরে আমাদের রাইফেল পিছনে ফেলে এসেছি। আমরা এ ভাবেই চলতে চাই।’’এ ভাবেই শান্তির পথে তাঁরা চলতে পারবেন কি না, তা নিয়ে অবস্য বড় রকমের সন্দেহ দেখা দিয়েছে। কারণ কলম্বিয়ায় সরকার পরিবর্তনের পরে সম্প্রতি এফএআরসি শান্তি চুক্তি বাতিল করার কথা জানিয়েছে, তাদের অভিযোগ— নতুন সরকার চুক্তির শর্ত লঙ্ঘন করছে, বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে যে সংস্কারের প্রতিশ্রুতি চুক্তিতে ছিল, তা মানছে না। অর্থাৎ, ভূতপূর্ব যোদ্ধারা আবার জঙ্গলে ফিরে যেতে পারেন, সূচসুতোর বদলে হাতে তুলে নিতে পারেন বারুদগন্ধী কারবাইন। সেই পুরনো এবং চিরনতুন গানের কথা মনে পড়বেই: গিভ পিস আ চান্স।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.