ইমরান খান’কে দশ গোল মোদীর

modi imran

এ বারের ‘মন কী বাত’ বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যে সব বিষয়ে দেশের মানুষের উদ্দেশে আহ্বান জানিয়েছেন তাদের অন্যতম হল উৎসবের সর্বজনীনতা। এখন দেশ জুড়ে উৎসবের মরসুম। মানুষ এখন আনন্দ করবে, পরস্পরকে উপহার দেবে, একে অন্যের মঙ্গল কামনা করবে। প্রধানমন্ত্রী এই দিকটির ওপর জোর দিয়েছেন। ইনক্লুসিভ গ্রোথ নিয়ে আজকাল অনেক কথা শোনা যায়। উৎসব তো তার চরিত্রেই ইনক্লুসিভ। সেটাই মনে করিয়ে দিলেন তিনি। স্বাভাবিক। ইনক্লুসিভ মানে যা সবাইকে সঙ্গে নেয়। সবাই মানে নিশ্চয়ই দেশের সব অঞ্চলের মানুষ। জম্মু ও কাশ্মীর নামক রাজ্যটি দেশের অংশ। প্রায় দু’মাস হল সেখানকার মানুষ স্বাভাবিক জীবনযাত্রা থেকে বঞ্চিত। যে রাজনীতি বা রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্ত এই পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছে, তার ভাল-মন্দ, ন্যায়-অন্যায় নিয়ে এই দু’মাসে লক্ষ লক্ষ শব্দ খরচ হয়েছে। সে সব কথার পুনরাবৃত্তি করে কোনও লাভ নেই। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর ‘মনের কথা’র সূত্র ধরেই একটা প্রশ্ন করা যায়। দেশ জোড়া এই আনন্দযজ্ঞে উপত্যকার মানুষ শামিল হতে পারবেন না, উৎসবের আলোকসজ্জা এর ফলে কিছুটা ম্লান হয়ে যাবে না কি? নানা ভাবে এই প্রশ্ন বার বার উঠছে দেশে এবং দেশের বাইরে। এখনও পর্যন্ত সরকারি ভাবে একটাই উত্তর মিলেছে। সেটা এই যে, উপত্যকা নিয়ন্ত্রণে আছে, সেখানে কোনও প্রাণহানি ঘটেনি, এবং যা নিয়ন্ত্রণ জারি আছে সেটা শান্তির স্বার্থেই, পরিস্থিতি শুধরোলেই সেই নিয়ন্ত্রণ উঠে যাবে। কবে সেটা ঘটবে, তার আর কোনও উত্তর নেই।এই পরিবেশেই নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ভারত এবং পাকিস্তান দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীরা ভাষণ দিলেন। দুটি ভাষণের সুর দুই রকমের। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ভাষণে প্রবল ভারতবিরোধিতার কথাই শোনা গেল, কাশ্মীরে ভারতের নীতির বিরুদ্ধে তিনি বিষোদ্গার করলেন এবং প্রকারান্তরে যুদ্ধের হুমকিও দিলেন। অন্যদিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তাঁর বক্তৃতায় পাকিস্তানের নামও উচ্চারণ করেননি। তিনি উন্নয়নের কথা বলেছেন, শান্তির কথা বলেছেন, বুদ্ধের কথা বলেছেন।বক্তৃতা, বক্তৃতাই। কিন্তু তার গুরুত্ব কম নয়। বিশেষ করে একটা আন্তর্জাতিক মঞ্চে, তার ওপর খাস রাষ্ট্রসঙ্ঘের মঞ্চে রাষ্ট্রনায়ক নিজেকে কী ভাবে পেশ করছেন, সেটা সব সময়েই দেশের পক্ষে গুরুত্বপূর্ণ। এই বিষয়ে নরেন্দ্র মোদী যে ইমরান খানকে দশ গোল দিয়েছেন, সে ব্যাপারে গোটা দুনিয়ার বিশেষজ্ঞরা একমত। এবার দেখার, দেশের মধ্যে, বিশেষ করে কাশ্মীরে স্বাভাবিক অবস্থা ফেরাতে তিনি কতটা সফল হন এবং কত তাড়াতাড়ি।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Please share your feedback

Your email address will not be published. Required fields are marked *

spring-bird-2295435_1280

এত বেশি জাগ্রত, না থাকলে ভাল হত

বসন্ত ব্যাপারটা এখন যেন বাড়াবাড়ি পর্যায়ে চলে গেছে। বসন্ত নিয়ে এত আহ্লাদ করার কী আছে বোঝা দায়! বসন্তের শুরুটা তো