-- Advertisements --

স্ট্রেচ মার্কস মুছে ফেলার সহজ উপায়

স্ট্রেচ মার্কস মুছে ফেলার সহজ উপায়

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Beautiful female laying in bedroom
-- Advertisements --

মা হওয়া যে কোনও মহিলার কাছে-দ্য মোস্ট ওয়ান্ডরফুল ফিলিং| কিন্তু এই সময় অনেক রকম সমস্যা দেখা যায়, তার মধ্য স্ট্রেচ মার্ক অন্যতম| হঠাৎ করে এই সময় স্কিন স্ট্রেচ হয়ে যায় বলে শিশু জন্মানোর পরেও স্ট্রেচ মার্ক থেকে যায়| স্কিন স্ট্রেচ হলে জায়গায় জায়গায় ফেটে যায় আর এই ফাটলগুলোতে যদি ঠিক মতো কোলাজেন আর নতুন স্কিন সেল না তৈরি হয় তখন এই স্ট্রেচ মার্কসের সমস্যা দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে| এই সমস্যার তা হলে সমাধান কী? কয়েকটা সবজ উপায় মেনে চললেই ই দাগ গায়েব।

বেশি করে জল খান : আমরা সবাই জানি জল শরীরের পক্ষে খুব ভাল আর গর্ভবতী মহিলাদের ক্ষেত্রে তো দ্বিগুণ ভাল| জল আমাদের শরীরকে ডিটক্সিফাই করে আর স্ট্রেচ মার্ক হতে দেয় না| দিনে অন্তত ৮ গ্লাস জল পান করা উচিত| কিন্তু এই সময় অনেক মহিলাই বেশি জল খেতে পারেন না, সে ক্ষেত্রে গ্রিন টি বা ক্যাফেইন মুক্ত কোনও পানীয় খেতে পারেন| শুধু পানীয়ই নয়, এমন খাবারও খাবেন যাতে জলের পরিমাণ বেশি থাকে| শসা, স্ট্রবেরি, তরমুজ জাতীয় ফল বেশি করে খান|

-- Advertisements --

ঠিক মতো ভিটামিন খান: ভিটামিন এ,ই আর সি ত্বকের জন্য খুব উপকারী| ভিটামিন এ ত্বক মেরামত করে,ভিটামিন ই স্কিন মেমব্রেনকে অটুট রাখে আর ভিটামিন সি কোলাজেন আর ত্বকের নতুন কোষ তৈরি করে| এই সময় অনেকের ত্বক নিষ্প্রাণ হয়ে যায়, তাই গ্লো ফিরে পেতে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড যুক্ত খাবার বেশি করে খান| পালং শাক, স্ট্রবেরি, বাদাম, গাজর, রাঙালু, আম, আখরোট আর ডিম-এ প্রচুর পরিমাণে এইসব ভিটামিন আছে তাই নিজের খাদ্য তালিকায় এসব খাবার রাখার চেষ্টা করুন|

নিয়মিত ত্বকে ম্যাসাজ করান আর ময়শ্চারাইজার লাগান: গর্ভাবস্থায় পেট, কোমর ময়শ্চারাইড থাকা উচিত| কিন্তু সাধারণত যে ময়শ্চারাইজার ব্যবহার করেন তা এই সময় লাগাবেন না| স্ট্রেচ মার্কস এর জন্য বিশেষ যে ময়শ্চারইজার পাওয়া যায় তা ব্যবহার করুন বা প্রাকৃতিক উপাদান ব্যবহার করতে পারেন| তিল তেল বা নারকেল তেল বা ক্যাস্টর অয়েলের মধ্যে যে কোনও একটা নিয়ে দিনে দু বার হাল্কা করে জায়গাগুলোতে লাগান |

-- Advertisements --

নিয়মিত ত্বকের ওপরের মৃত কোষ দূর করুন: এতে নতুন কোষ তৈরি হয় আর রক্ত চলাচল বাড়িয়ে দেয় ফলে স্ট্রেচ মার্ক হয় না | আপনি ড্রাই ব্রাশিং বা লুফা ব্যাবহার করতে পারেন এক্সফলিয়েট করতে|

ব্যায়াম করুন নিয়মিত: এই সময় যোগ‚ ব্যায়াম করা খুব দরকার তবে ডাক্তারের পরামর্শ নিন এই ব্যাপারে| নিয়মিত এক্সারসাইজ করলে ত্বকের নমনীয়তা বাড়ে, রক্ত চলাচল বাড়ে আর শরীরে বেশি অক্সিজেন ঢোকে |

-- Advertisements --

স্ট্রেচ মার্ক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসা করুন| স্ট্রেচ মার্কস যখন গোলাপী বা লাল অবস্থায় আছে তখনই তা সারিয়ে ফেলার চেষ্টা করুন| স্ট্রেচ মার্কের উপর ভাল করে নারকেল তেল লাগান| অনেক রকম ওষুধ আছে, তবে তা ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তবেই ব্যবহার করুন|

Tags

-- Advertisements --
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
-- Advertisements --

Leave a Reply

-- Advertisements --
-- Advertisements --