বহু বাসনায় (কবিতা)

বহু বাসনায় (কবিতা)

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Photo by form PxHere
ছবি সৌজন্য – wikimedia
ছবি সৌজন্য - wikimedia
ছবি সৌজন্য – wikimedia
ছবি সৌজন্য – wikimedia
ছবি সৌজন্য - wikimedia
ছবি সৌজন্য – wikimedia

কষ্টের কথা শুনলে মানুষ কিছুক্ষণ দুঃখী মুখে থাকে

তারপর স্নানে যায়, খেতে বসে, যা যা কাজ বাকি ছিল

সেসবেই ব্যস্ত হয়ে পড়ে। মানুষের জীবনে তো তেমন আমোদ

নেই। বিনোদন নেই। তারা তাই অবসর পেলে

কষ্টের কথাগুলি কাগজের বলের মত গোল্লা করে

পরস্পর লোফালুফি করে, বেলুনের মতো তাকে

ওড়ায় বাতাসে। সংসারে এমনই নিয়ম। কষ্টের কথা যদি

মানুষকে ভুল করে বলে ফ্যালো, তবে নির্ঘাৎ জেনো

আগামী মরসুমে সেসব কথার নাড়িভুঁড়ি কাক-চিল

মুখে করে ছড়াবে শহরে। তার চেয়ে ভালো, চুপ করো।

চুপ হও। কথা যা বলার ছিল, একা গিয়ে বলে দাও

সিলিংফ্যানের কাছে, নদীর শান্ত ঘাটে, লেভেল ক্রসিংয়ে…

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

sharbat lalmohon babu

ও শরবতে ভিষ নাই!

তবে হ্যাঁ, শরবতকে জাতে তুলে দিয়েছিলেন মগনলাল মেঘরাজ আর জটায়ু। অমন ঘনঘটাময় শরবতের সিন না থাকলে ফেলুদা খানিক ম্যাড়মেড়ে হয়ে যেত। শরবতও যে একটা দুর্দান্ত চরিত্র হয়ে উঠেছে এই সিনটিতে, তা বোধগম্য হয় একটু বড় বয়সে। শরবতের প্রতি লালমোহন বাবুর অবিশ্বাস, তাঁর ভয়, তাঁর আতঙ্ক আমাদেরও শঙ্কিত করে তোলে নির্দিষ্ট গ্লাসের শরবতের প্রতি।…