নারায়ণ-সুধা মূর্তির বায়োপিক করছেন নীতেশ-অশ্বিনী

ইনফোসিস-এর প্রতিষ্ঠাতা নারায়ণ মূর্তি এবং সেই কোম্পানিরই চেয়ারপার্সন, তাঁর স্ত্রী সুধা মূর্তিকে নিয়ে ছবি করছেন বলিউডের পরিচালক-প্রযোজক দম্পতি নীতেশ তিওয়ারি এবং অশ্বিনী আইয়ার তিওয়ারি। নারায়ণ এবং সুধাকে ভারতীয়রা চেনেন, দেশের প্রথম আইটি দম্পতি হিসেবে। আবার পরিচালক নীতেশের নাম সব সিনেমাপ্রেমী দর্শকের কাছে সমান পরিচিত হয়ে ওঠে, আমির খান অভিনীত ‘দঙ্গল’ পরিচালনা করার পর। তার পর সুশান্ত সিংহ রাজপুত এবং শ্রদ্ধা কপূরের সঙ্গে ‘ছিছোরে’র পরিচালনাও করেছেন তিনি। তবে সেই ছবি এখনও মুক্তির অপেক্ষায়। অন্য দিকে অশ্বিনী এর আগে স্বরা ভাস্কর-রত্না পাঠক শাহ-এর সঙ্গে ‘নীল বাট্টে সন্নাটা’ ছবির পরিচালনা করেছেন এবং সেই ছবি সব রকমের দর্শকের কাছেই সমাদৃত হয়েছে। তার পরে রাজকুমার রাও, আয়ুষ্মান খুরানা এবং কৃতী শ্যাননের সঙ্গে ‘বরেলী কি বরফি’ করেও সাফল্য পান অশ্বিনী। কঙ্গনা রানাওয়াতের সঙ্গে ‘পঙ্গা’ও তাঁরই নির্দেশনায় তৈরি হচ্ছে। এখন পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী, নারায়ণ-সুধা মূর্তির বায়োপিকও তিনিই পরিচালনা করবেন। তবে সহযোগী হিসেবে থাকবেন নীতেশ। নীতেশ-অশ্বিনী দু’জনেই ছবির প্রযোজক হিসেবে জুটি বেঁধেছেন। এ ছাড়াও প্রযোজনায় থাকবেন মহাবীর জৈন এবং সঞ্জয় ত্রিপাঠী। ছবির প্রাথমিক কনসেপ্ট সঞ্জয়েরই। একটি সূত্রের বয়ানে, “অশ্বিনী ইতিমধ্যেই ভারতের প্রথম আইটি দম্পতিকে নিয়ে রিসার্চ শুরু করে দিয়েছেন। কারণ ছবিতে বিভিন্ন তথ্য সম্পর্কে তিনি নির্ভুল থাকতে চান। একটা প্রেরণামূলক গল্প বলার জন্যই এই দু’জনের বায়োপিক করার সিদ্ধান্ত নেন নীতেশ এবং অশ্বিনী। ছবিটির শুটিং শুরু হবে সামনের বছর থেকে। আপাতত চিত্রনাট্য লেখার কাজ চলছে।”

নারায়ণ মূর্তি কর্মজীবন শুরু করেছিলেন আমদাবাদের ‘ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট’-এর চিফ সিস্টেমস প্রোগ্রামার হিসেবে। পরে পুণের ‘পাটনি কম্পিউটার সিস্টেমস’-এ যোগ দেন তিনি। ১৯৮১ সালে ‘ইনফোসিস’ গঠন করেন নারায়ণ। ‘৮১ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত সংস্থার সিইও পদে তিনিই ছিলেন এবং পরে অর্থাৎ ২০০২ থেকে ২০১১ পর্যন্ত তিনি ছিলেন সংস্থার চেয়ারম্যান পদে। ভারতের আইটি সেক্টরের জনক হিসেবে তাঁকে পরিচিতি দেয় ‘টাইমস ম্যাগাজিন’। অন্য দিকে সুধা মূর্তিও কম্পিউটার সায়েন্টিস্ট এবং ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কেরিয়ার শুরু করেন। তাঁর লেখা বেশ কিছু বইও রয়েছে। তার মধ্যে ‘ওয়াইজ অ্যান্ড আদারওয়াইজ’, ‘মহাশ্বেতা’ বিখ্যাত। তার মধ্যে প্রথম বইটি সুধা মূর্তির জীবনের বেশ কিছু অভিজ্ঞতা অবলম্বনে লেখা। নীতেশ-অশ্বিনীর ছবিতে দু’জনের ব্যক্তিত্বের এই সব ক’টি দিকই থাকবে বলে শোনা যাচ্ছে। এখনও পর্যন্ত ছবির কাস্টিং চূড়ান্ত নয়। তবে বড় বাজেটের ছবি হিসেবে ছবিতে প্রথম সারির অভিনেতাদের দেখা যাবে বলেই খবর।

Advertisements

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.