নিক জোনাস আর ফারহান অখতরের সঙ্গে সমুদ্র সৈকতে কী করছেন প্রিয়ঙ্কা চোপড়া!

নিক জোনাস আর ফারহান অখতরের সঙ্গে সমুদ্র সৈকতে কী করছেন প্রিয়ঙ্কা চোপড়া!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

গ্লোবাল আইকন প্রিয়ঙ্কা চোপড়াকে অনেক দিন হিন্দী সিনেমায় দেখা যাচ্ছে না। তাঁর ভক্তরা আশা করেছিলেন যে সলমান খানের সঙ্গে ‘ভারত’-এ বলিউডে কামব্যাক করবেন তিনি। কিন্তু সে আশায় জল ঢেলে বিয়ে করে আপাতত নিক ঘরণী বসে আছেন সুদূর লস অ্যাঞ্জেলেস-এ। নতুন কোনও হিন্দী ছবি সাইনও করেননি তিনি। শেষ অভিনয় করেছেন ‘মার্গারিটা উইথ আ স্ট্র’-র পরিচালক সোনালি বসু-র ছবি ‘দ্য স্কাই ইজ পিঙ্ক’-এ। ছবিতে প্রিয়ঙ্কার বিপরীতে আছেন অভিনেতা-পরিচালক ফারহান অখতর। অভিনেত্রা জায়রা ওয়াসিমকে তাঁদের মেয়ের ভূমিকায় দেখা যাবে।

সম্প্রতি নিক জোনাসের সঙ্গে সমুদ্র সৈকতে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি উনি পোস্ট করেছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। সাদা-কালো ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে নিকের বাহুলগ্না প্রিয়ঙ্কা মন দিয়ে সামনের দিকে কিছু দেখছেন। নিকও সেই দিকেই তাকিয়ে। চাঁদের আলোয় ঝলমল করছে সমুদ্রের জল। সব মিলিয়ে বেজায় রোম্যান্টিক এই ছবিটি।

প্রায় ঠিকই একই রকম ছবি এবার তিনি পোস্ট করলেন ফারহান অখতরের সঙ্গে। তবে এই ছবিটি তাঁদের আগামী ছবি দ্য স্কাই ইজ পিঙ্ক-এর একটি দৃশ্য। রিল এবং রিয়েল লাইফ স্বামীদের এই ছবি নিয়ে প্রচুর মস্করা করেছেন নেটিজেনরা।

প্রিয়ঙ্কা অবশ্য ছবিটি পোস্ট করে জানিয়েছেন যে তাঁদের সিনেমার ট্রেলার খুব শীঘ্রই মুক্তি পাবে। ছবিটি রিলিজ করার কথা ১১ অক্টোবর। তার আগে অবশ্য ১৩ সেপ্টেম্বর ছবিটি দেখানো হবে টরেন্টো ফিল্ম ফেস্টিভালে। শোনা যাচ্ছে সিনেমাটি একটি প্রেমের গল্প। প্রিয়ঙ্কা ও ফারহান অভিনীত চরিত্রের ২৫ বছরের দাম্পত্য জীবন তুলে ধরা হবে এখানে। আর সেই গল্প বলবেন জায়রার চরিত্র, যে নাকি আবার মৃত! আদতে ছবির গল্প কোন দিকে এগোবে তা মুক্তির পরই বোঝা যাবে। আপাতত প্রিয়ঙ্কার কামব্যাকের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন তাঁর ভক্তরা।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

Handpulled_Rikshaw_of_Kolkata

আমি যে রিসকাওয়ালা

ব্যস্তসমস্ত রাস্তার মধ্যে দিয়ে কাটিয়ে কাটিয়ে হেলেদুলে যেতে আমার ভালই লাগে। ছাপড়া আর মুঙ্গের জেলার বহু ভূমিহীন কৃষকের রিকশায় আমার ছোটবেলা কেটেছে। যে ছোট বেলায় আনন্দ মিশে আছে, যে ছোট-বড় বেলায় ওদের কষ্ট মিশে আছে, যে বড় বেলায় ওদের অনুপস্থিতির যন্ত্রণা মিশে আছে। থাকবেও চির দিন।