রেড মিট কি একেবারেই বাদ ???

রেড মিট কি একেবারেই বাদ ???

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
যর্থাথ রোববার

অনেকেই ‘রেড মিট’ (মাটন‚পর্ক‚ বিফ এবং ল্যাম্ব) খেতে খুব ভালবাসেন| সপ্তাহে অন্তত এক দিন ‘রেড মিট’ না হলে ঠিক জমে না| তবে একই সঙ্গে নিশ্চই অনেকেই বলেন ‘রেড মিট’ খাওয়া বন্ধ করে দিতে কারণ এটা খুব অস্বাস্থ্যকর| আমাদের কি সত্যই মাংস খাওয়া বন্ধ করা উচিত? নাকি অল্প পরিমাণে খেতে পারি?

আমরা সবাই জানি ‘রেড মিট’-এ প্রচুর পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট আর কোলেস্টেরল থাকে| এ ছাড়াও এতে বেশি পরিমাণে সোডিয়াম থাকে যা রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়| আর ‘রেড মিট’ খাওয়ার ফলে হার্টের নানা রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে‚ অত্যধিক মোটা হওয়া এমনকি গাউটও হতে পারে| তা হলে আমাদের কী করা উচিত?

অনেক ডায়েটেশিয়ান মনে করেন ডায়েটে অল্প পরিমাণে ‘রেড মিট’ থাকা উচিত| মাংসর সঙ্গে যদি বিভিন্ন শস্য দানা‚ সব্জি খাওয়া হয় তাহলে শরীরের কোনও ক্ষতি হয় না| ‘রেড মিট’ এ প্রচুর পরিমাণে আয়রন‚ জিঙ্ক‚ ভিটামিন ডি আর ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড পাওয়া যায় যা শরীরে জন্য দরকার| কিন্তু একই সঙ্গে মনে রাখতে হবে কোনও মতেই সপ্তাহে দু’দিনের বেশি ‘রেড মিট’খাওয়া যাবে না|

অন্য দিকে অনেক ডায়েটেশিয়ানরা মনে করেন ডায়েট থেকে একেবারেই ‘রেড মিট’ বাদ দেওয়া উচিত| কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফ্যাট থাকে আর রান্না করতেও অনেক বেশি পরিমাণে তেল লাগে| এ ছাড়া ‘রেড মিট’-এ টক্সিন থাকে যা শরীরের পক্ষে ক্ষতিকর|

কিন্তু একই সঙ্গে ওঁরা জানিয়েছেন আপনি যদি কোনও মতেই ডায়েট থেকে ‘রেড মিট’ বাদ না দিতে পারেন তা হলে অর্গ্যানিক মাংস খাওয়া উচিত| ‘গ্রাস ফেড অ্যানিম্যাল’ বা প্রকৃত তৃণভোজী প্রাণীদের মাংসে স্যাচুরেটেড ফ্যাট কম থাকে এবং ওমেগা -৩ ফ্যাটি অ্যাসিডও বেশি থাকে‚ যা হার্টের পক্ষে ভাল| আরও একটা কথা মনে রাখতে হবে রান্না করার আগে যতটা পারবেন ফ্যাট কেটে বাদ দিতে হবে| এবং সঙ্গে অবশ্যই স্যালাড খান‚ যাতে ক্ষতির পরিমাণ কম হয়|

Tags

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply