শাহরুখ নয়‚ ভয়াবহ আগুনের হাত থেকে ম্যানেজারকে বাঁচিয়েছেন ঐশ্বর্য

শাহরুখ নয়‚ ভয়াবহ আগুনের হাত থেকে ম্যানেজারকে বাঁচিয়েছেন ঐশ্বর্য

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

বলিউডের শাহেনশা অমিতাভ বচ্চন বলিউডের বন্ধুদের জন্য একটা জম্পেশ দিওয়ালি পার্টির বন্দোবস্ত করেছিলেন| বলিউডের সব রথী-মহারথীরাই উপস্থিত হয়েছিলেন সেখানে| কিন্তু পার্টিতে একটা দুর্ঘটনা ঘটে যা ইতিমধ্যেই খবরের শিরোনামে উঠে এসেছে|

ঐশ্বর্য রাই বচ্চনের ম্যানেজার অর্চনা সদানন্দ পার্টি শেষে রাত তিনটে নাগাদ বাড়ি ফেরার তোড়জোড় করছিলেন| বন্ধু ও সহকর্মীদের বিদায় জানানোর সময় একটা প্রদীপ থেকে তাঁর লেহেঙ্গায় আগুন লেগে যায়| খুব কম সময়ের মধ্যে আগুন তাঁর শরীরে ছড়িয়ে পড়ে|

শোনা যাচ্ছিল বলিউডের বাদশা শাহরুখ খান নাকি এই সময় ঝাঁপিয়ে পড়ে অর্চনাকে বাঁচান| তবে সম্প্রতি অর্চনার এক বন্ধু যিনি সে দিন পার্টিতে উপস্থিত ছিলেন জানিয়েছেন শাহরুখ নয় ঐশ্বর্যের উপস্থিত বুদ্ধির জন্য অর্চনা সে দিন বেঁচে যান| উনি জানিয়েছেন ‘শাহরুখ খান সঙ্গে সঙ্গে এগিয়ে এসেছিলেন অর্চনাকে বাঁচাতে| উনি নিজের শেরওয়ানি খুলে অর্চনার গায়ে জড়িয়ে দেন| তবে সেদিন ঐশ্বর্যের উপস্থিত বুদ্ধির জন্য বড় দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে যান অর্চনা| অর্চনার লেহেঙ্গায় আগুন লাগামাত্র তা ছড়িয়ে পড়ে| কেউ বুঝতে পারছিল না কী করবে| ঐশ্বর্য সেখানেই ছিলেন| উনি দৌড়ে এসে অর্চনার লেহেঙ্গাটা ছিঁড়ে ফেলেন| উনি এমনটা না করলে আরও বড় ক্ষতি হতো|’

দুর্ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে অর্চনাকে কাছের একটা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়| উনি আপাতত হাসপাতালেই আছেন তবে গুরুতরভাবে আহত হননি| ঐশ্বর্য নাকি নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছেন অর্চনার পরিবারের সঙ্গে| শোনা যাচ্ছে অর্চনাকে বাঁচাতে গিয়ে ঐশ্বর্যের হাতে বেশ কয়েকটা ফোস্কা পড়েছে| তবে অর্চনা যে ঠিক আছেন এতেই স্বস্তি পেয়েছেন অ্যাশ|

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

pandit ravishankar

বিশ্বজন মোহিছে

রবিশঙ্কর আজীবন ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের প্রতি থেকেছেন শ্রদ্ধাশীল। আর বারে বারে পাশ্চাত্যের উপযোগী করে তাকে পরিবেশন করেছেন। আবার জাপানি সঙ্গীতের সঙ্গে তাকে মিলিয়েও, দুই দেশের বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলিত ব্যবহার করে নিরীক্ষা করেছেন। সারাক্ষণ, সব শুচিবায়ু ভেঙে, তিনি মেলানোর, মেশানোর, চেষ্টার, কৌতূহলের রাজ্যের বাসিন্দা হতে চেয়েছেন। এই প্রাণশক্তি আর প্রতিভার মিশ্রণেই, তিনি বিদেশের কাছে ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের মুখ। আর ভারতের কাছে, পাশ্চাত্যের জৌলুসযুক্ত তারকা।