রঙ্গোলি চান্ডেল vs তাপসী পন্নু

রঙ্গোলি চান্ডেল vs তাপসী পন্নু

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাওত এবং তাঁর বোন রঙ্গোলি যে বিতর্ক তৈরি করতে ভালবাসেন তা সকলেই জানেন। প্রতি দিন রঙ্গোলি নিজের টুইটার থেকে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি আর কলাকুশলীদের নিয়ে তির্যক মন্তব্য করেন। রঙ্গোলির সব কথার সারমর্ম একটাই–পুরো ইন্ডাস্ট্রি খারাপ, এক মাত্র কঙ্গনাই যোগ্য অভিনেত্রী ও মহৎ মানুষ। সব সময় আলোচনায় থাকার জন্য অন্যদের ছোট করাটা রঙ্গোলির যে অভ্যেস সেটা এখন সকলেই জেনে গেছেন।

এবারে উনি তোপ দেগেছেন ‘ষান্ড কী আঁখ’ ছবির পরিচালক তুষার হিরানন্দানি ও অভিনেত্রী তাপসী পন্নু ও ভূমি পেডনেকরকে লক্ষ্য করে। সম্প্রতি ছবিটির ট্রেলার মুক্তি পেয়েছে। সবার প্রশংসাও পেয়েছে। শার্প শুটার চন্দ্র ও প্রকাশী তোমারের জীবনের উপর আধার করে তৈরি হয়েছে এই ছবি। দুজনেই এঁরা কেরিয়ার শুরু করেছিলেন ৬০ বছরের পর। সেই ভূমিকাতে কেন অল্প বয়সী অভিনেত্রীদের নেওয়া হয়েছে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন কেউ কেউ। বয়স্ক অভিনেত্রীদের কেন নেওয়া হয়নি এরকম একটি সওয়ালের উত্তর দেন রঙ্গোলি। উনি জানান প্রথমে কঙ্গনাকেই এই ছবি অফার করা হয়েছিল। কিন্তু উনি নাকি সাফ মানা করে দিয়েছিলেন এই ভেবে যে তা হলে বরিষ্ঠ অভিনেত্রীদের অপমান করা হবে। কঙ্গনার মতে নীনা গুপ্ত এবং রাম্য কৃষ্ণন এই রোলের জন্য সঠিক নির্বাচন হতেন। যাঁরা এই ছবিতে অভিনয় করছেন তাঁরা কঙ্গনা হতে চায় কিন্তু তাঁদের সেই ক্ষমতা নেই বলেই মনে করছেন রঙ্গোলি। তাঁদের মূল্যবোধ একেবারেই ঠুনকো এবং তাঁরা চাইলেও কঙ্গনাকে ছুঁতে পারবেন না।

এই প্রসঙ্গে অভিনেত্রী নীনা গুপ্তও অভিযোগের আঙুল তুলেছেন পরিচালকের বিরুদ্ধে। টুইটারে লিখেছেন যে অন্তত তাঁদের বয়স্কদের ভূমিকায় তো তাঁদের নেওয়া উচিত।

অনেকেই অপেক্ষা করছিলেন যে তাপসী বা ভূমি এই বিষয়ে কিছু বলেন কি না। অবশেষে তাপসী টুইট করেছেন,’এর আগে তো কখনও এরকম প্রশ্ন করা হয়নি। অনুপম খের সারাংশ করেছিলেন, নার্গিস দত্ত সুনীল দত্তের মা-এর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন, আমির খান কলেজ ছাত্রের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন থ্রি ইডিয়টসে, তখন এই সব প্রশ্ন তো ওঠেনি। এই সব প্রশ্ন কি শুধুই আমাদের জন্য?’ উনি জন ট্র্যাভোল্টা, এডি মারফির নিদর্শনও দিয়েছেন। এবার দেখতে হবে এর জবাবে আবার ট্রোলড হতে হয় কি না তাপসীকে।

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

pandit ravishankar

বিশ্বজন মোহিছে

রবিশঙ্কর আজীবন ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের প্রতি থেকেছেন শ্রদ্ধাশীল। আর বারে বারে পাশ্চাত্যের উপযোগী করে তাকে পরিবেশন করেছেন। আবার জাপানি সঙ্গীতের সঙ্গে তাকে মিলিয়েও, দুই দেশের বাদ্যযন্ত্রের সম্মিলিত ব্যবহার করে নিরীক্ষা করেছেন। সারাক্ষণ, সব শুচিবায়ু ভেঙে, তিনি মেলানোর, মেশানোর, চেষ্টার, কৌতূহলের রাজ্যের বাসিন্দা হতে চেয়েছেন। এই প্রাণশক্তি আর প্রতিভার মিশ্রণেই, তিনি বিদেশের কাছে ভারতীয় মার্গসঙ্গীতের মুখ। আর ভারতের কাছে, পাশ্চাত্যের জৌলুসযুক্ত তারকা।

Pradip autism centre sports

বোধ