পুজোর আগে ভ্যানিশ!

পুজোর আগে ভ্যানিশ!

Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp
How-to-get-rid-of-pimples-overnight
ছবি সৌজন্য: YouTube.com
ছবি সৌজন্য: YouTube.com
ছবি সৌজন্য: YouTube.com
ছবি সৌজন্য: YouTube.com

গালে ব্রণ ও ব্রণের দাগ থাকলে পুজোর সাজগোজ একেবারেই মাটি! পুজোতে সেলফি রেডি হতে চাইলে ব্রণ ও ব্রণের দাগ তাড়াতাড়ি দূর করে ফেলতে হবে| এখনও হাতে বেশ কয়েক দিন সময় আছে তাই চিন্তার কোনও কারণ নেই| যদিও এই সময়ের মধ্যে পুরোপুরি ব্রণর সমস্য়া নিরাময় করা বেশ কঠিন| কিন্তু এখন থেকে সঠিক যত্ন নিলে এই কয়েক সপ্তাহতেই তফাত দেখতে পাবেন|

আপনার যদি ব্রণর সমস্যা থাকে‚ তা হলে নিয়মিত একটা অ্যান্টি-অ্যাকনে রুটিন মেনে চলতে হবে| একই সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে সঠিক প্রডাক্ট| আজকে রইলো দু’টি ঘরোয়া ফেস প্যাকের হদিস যার সাহায্যে ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর ফেলতে পারবেন পুজোর আগেই|

আপনার ব্রণর সমস্যা থাকুক বা না থাকুক ত্বকের সঠিক পরিচর্চা করাটা খুবই জরুরি| এর প্রথম ধাপ হল ত্বক পরিষ্কার রাখা| আপনার ত্বক অনুযায়ী সঠিক ফেস ওয়াশ নির্বাচন করুন| মুখ মুলতানি মাটি দিয়েও পরিষ্কার করতে পারেন| তবে যাদের ড্রাই স্কিন তাদের মুলতানি মাটি এড়িয়ে চলাই ভাল| এর পরের ধাপ হল টোনিং| যাদের ব্রণর সমস্যা আছে  তারা ঘরে ১০-১২টা তাজা নিম পাতা এক কাপ জলে ফুটিয়ে নিন| জল ঠান্ডা করে কাঁচের বোতলে ভরে তা ফ্রিজে রেখে দিন| ভাল করে ফেস ওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে দিনে দু’বার এই টোনার লাগান| এই টোনার নিয়মিত ব্যবহার করলে ব্রণের দাগ সহজেই মিটে যাবে| একই সঙ্গে উপস্থিত ব্রণ তাড়াতাড়ি শুকিয়ে যাবে| এর পর আসে ময়শ্চারাইজিং| আপানার ত্বকে ব্রণ থাকলেও মুখে ময়শ্চরাইজার লাগাতে ভয় পাবেন না| এর জন্য ব্যবহার করুন নিম জেল| নিম জেল ব্রণ দূরে রাখে একই সঙ্গে ত্বক নরম রাখতে সাহায্য করবে| সপ্তাহে অন্তত এক দিন ত্বক থেকে মরা কোষ তুলে ফেলতে ত্বক এক্সফলিয়েট করুন| তবে যে জায়গাগুলোতে ব্রণ হয়েছে সেই জায়গা এড়িয়ে চলুন|

এ বার আসা যাক ফেসপ্যাকে:

১) ব্রণের দাগ সহজেই মিটিয়ে ফেলতে মধু‚ লেবু আর ওটসের প্যাক খুবই কার্যকরী| এর জন্য অল্প ওটস গুঁড়ো করে নিন| তিন চা চামচ ওটস গুঁড়ো অল্প জলে পাঁচ মিনিট ভিজিয়ে রাখুন| এর পর এতে এক চা চামচ মধু ও কয়েক ফোঁটা পাতি লেবুর রস মিশিয়ে নিন| ভাল করে মিশিয়ে এই প্যাক মুখে ও গলায় লাগিয়ে নিন| ১৫ মিনিট রেখে হাত জলে ভিজিয়ে হাল্কা হাতে ম্যাসাজ করে জল দিয়ে ধুয়ে নিন|

মধুতে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণ আছে একই সঙ্গে ত্বক নরম রাখতেও সাহায্য করে মধু| অন্য দিকে ওটস গুঁড়ো অত্যধিক তেল শোষণ করে নেয়‚ একই সঙ্গে ত্বকের মরা কোষ তুলে ফেলতেও সাহায্য করে| অন্য দিকে লেবুর রস ব্রণের দাগ হাল্কা করে|

২) কাঁচা হলুদ ও অ্যালোভেরা প্যাক : ব্রণ নিয়ন্ত্রণ করতে হলুদ ও অ্যালোভেরার জুড়ি মেলা ভার| এর জন্য চাই কাঁচা হলুদ এবং এক চা চামচ অ্যালোভেরা জেল| হলুদ মিহি করে বেটে তাতে অ্যালোভেরা মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে নিন| প্যাক শুকিয়ে গেলে জলে হাত ভিজিয়ে মুখ ম্যাসাজ করে নিয়ে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন| কাঁচা হলুদের অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণ ব্রণ কমাতে সাহায্য করে| একই সঙ্গে ত্বক উজ্জ্বল করতেও সাহায্য করে হলুদ| অন্য দিকে অ্যালোভেরা ত্বক দ্রুত সাড়িয়ে তোলে ও আর্দ্রতা দেয় |

তন্ময় বসু
তন্ময় বসু
শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের জগতে পরিচিত নাম তন্ময় বসু দীর্ঘ চোদ্দ বছর পণ্ডিত রবিশঙ্করকে তবলায় সঙ্গত করেছেন। কাজ করেছেন ভি জি যোগ, আমজাদ আলী খান, মুনাওয়ার আলী খানের মত শিল্পীদের সঙ্গে। সঙ্গীতচর্চা ছাড়াও ব্যস্ত থাকেন গবেষণা এবং সুরসৃষ্টির কাজে।

Tags

তন্ময় বসু
তন্ময় বসু
শাস্ত্রীয় সঙ্গীতের জগতে পরিচিত নাম তন্ময় বসু দীর্ঘ চোদ্দ বছর পণ্ডিত রবিশঙ্করকে তবলায় সঙ্গত করেছেন। কাজ করেছেন ভি জি যোগ, আমজাদ আলী খান, মুনাওয়ার আলী খানের মত শিল্পীদের সঙ্গে। সঙ্গীতচর্চা ছাড়াও ব্যস্ত থাকেন গবেষণা এবং সুরসৃষ্টির কাজে।
Share on facebook
Share on twitter
Share on linkedin
Share on whatsapp

Leave a Reply

-- Advertisements --
-- Advertisements --